সোমবার, ১৮ মার্চ ২০১৯ ০৪:০৩ ঘণ্টা

লালখান বাজার মাদ্রাসার পরীক্ষা স্থগিত; সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সরব ফেসবুক

Share Button

লালখান বাজার মাদ্রাসার পরীক্ষা স্থগিত; সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সরব ফেসবুক

ওবাইদুল্লাহ ওবাইদ: ভারতের দেওবন্দ ও বাংলাদেশের জমহুর উলামায়ে কেরামের মতের বিপরীত অবস্থানের অভিযোগে চট্টগ্রামের লালখান মাদরাসার কেন্দ্রীয় পরীক্ষা স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সম্মিলিত কওমি শিক্ষাবোর্ড আল হাইয়াতুল উলয়া লিল-জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ। তাবলিগের বিতর্কিত আমির মাওলানা সাদের পক্ষে জমহুর উলামায়ের বিপক্ষে গিয়ে মতামত ব্যক্ত করার অভিযোগ আনা হয় তাঁর বিরুদ্ধে। তবে একই অভিযোগে চরম বিতর্কিত আলেম মাওলানা ফরিদ উদ্দিন সাহেবের মাদ্রাসা কেন নিষিদ্ধ নয়, এ ব্যাপারে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ সময়ের সবচে’ বিতর্কিত ব্যক্তি বলে মনে করছেন বিশিষ্টজনরা।
ফরিদাবাদ মাদ্রাসায় অনুষ্ঠিত বৈঠকে অংশগ্রহণকারী হাইয়াতুল উলয়ার উল্লেখযোগ্য কয়েকজন সদস্য সাংবাদিকদের এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
আজ সকাল ১০টায় ঢাকার ফরিদাবাদ মাদরাসায় হাইয়াতুল উলয়ার চেয়ারম্যান আল্লামা আহমদ শফীর সভাপতিত্বে এই বৈঠক শুরু হয়ে দুপুর ২টা পর্যন্ত চলে।
তারা জানান, লালখান মাদরাসার পরিচালক মুফতি ইজহারুল ইসলাম চৌধুরী দারুল উলুম দেওবন্দের সিদ্ধান্ত ও উলামায়ে কেরামের অবস্থানের বিরোধিতা করেছেন এবং বিতর্কিত তাবলিগি মুরব্বি মাওলানা সাদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন, তাই তার মাদরাসার তাকমিল জামাতের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। আপাতত তারা পরীক্ষা দিতে পারবেন না। তবে মাদরাসা পরিচালক ও কর্তৃপক্ষ যদি উলামায়ে কেরামের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং নিজেদের ভ্রান্ত অবস্থান ত্যাগ করতে সম্মত হন তবে পরবর্তীতে সেই আলোকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
তারা আরও জানান, শুধু লালখান নয়; যেসব আলেম ও তার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে একই রকম অভিযোগ পাওয়া গেছে তাদেরকে ডেকে এনে এই বিষয়ে অবস্থান স্পষ্ট করতে বলা হবে। যদি তারা জমহুর (অধিকাংশ) উলামায়ে কেরামের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় তবে তাদের ব্যাপারে একই রকম সিদ্ধান্ত আসতে পারে।

এই বিষয়ে হাইয়াতুল উলয়ার বৈঠকে ঐক্যমত্যের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে দাবি করেন তারা।
মাওলানা সাদের পক্ষাবলম্বনসহ নানা বিষয়ে সুস্পষ্ট বিরোধী মত পোষণ করার পরও মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদের মাদ্রাসা ইকরার ব্যাপারে হাইয়ার কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে অনির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়, ফরিদ উদ্দিন মাসউদকে অবস্থান স্পষ্ট করার জন্য ডাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হাইয়াতুল উলয়া। মাওলানা মুফতি ইজহারের তুলনায় মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদের বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের প্রমাণ অহরহ। তবুও কি তার অবস্থান স্পষ্ট নয়? এমন প্রশ্ন সাধারণ মানুষের।
হাইয়াতুল উলয়ার শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা এই সিদ্ধান্তের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে বলেন, যেহেতু হাইয়াতুল উলয়ার আইনে বলা হয়েছে এই প্রতিষ্ঠান দারুল উলুম দেওবন্দের নিয়ম নীতির উপর অটুট থাকবে এবং দেশের উলামায়ে কেরাম তা পরিচালনা করবেন, তাই কোনো প্রতিষ্ঠান দারুল উলুম দেওবন্দ ও উলামায়ে কেরামের অবস্থানের বিরুদ্ধাচারণ করলে তাদের বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অবকাশ হাইয়াতুল উলয়ার আইনে রয়েছে।

হাইয়াতুল উলয়ার সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন মুফতি ইজহারের সন্তান লালখান বাজার মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মুফতি হারুন ইজহার। তিনি তার ফেসবুক ওয়ালে লিখেন,
“কওমী সংস্থাগুলো কি কারো পকেট কমেটি? আল্লাহতালা জালেমদের পাকড়াও করুন আমীন!
আমরা জানি কোথায় থেকে কলকাঠি নাড়া হচ্ছে।
জামিয়াতুল উলুম আল ইসলামিয়া লালখানবাজারের কোন ছাত্র-শিক্ষক অভিভাবক ও শুভানুধ্যায়ী মাওলানা সা’দ সাহেবের কখনো অনুসারী ছিলনা। আমরা মূলধারার ওলামাদের সঙ্গে আছি আদর্শিক ও ঐতিহ্যিক কারণে।
আমার আব্বার কিছু বক্তব্য একান্ত তাঁর ব্যক্তিগত বিষয়, এটার সাথে আমাদের কোন যোগসূত্র নেই।
এবং গত সপ্তাহে সা’দ সাহেবের অনুসারীরা আমাদের মাদরাসার মাহফিলকে প্রভাবিত করতে চাইলে আমরা সম্মিলিত সিদ্ধান্তের মাধ্যমে তা স্থগিত করি।
আমাদের এরকম সুস্পষ্ট অবস্থান সত্ত্বেও এ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এহেন ন্যক্কারজনক সিদ্ধান্তের পিছনে বাতিল শক্তির চক্রান্ত রয়েছে সন্দেহাতীতভাবে।

আমাদের সাথে কোনরকম যোগাযোগ ছাড়াই এমন সিদ্ধান্ত সাংগঠনিক ধারার আওতায় কি পড়ে?
কওমী মাদরাসা ও সংস্থাগুলো আর কতবছর এভাবে ব্যক্তি ও গোষ্ঠীবিশেষের কাছে জিম্মি হয়ে থাকবে?
অসংখ্য অযোগ্যদেরকে বিভিন্ন কমিটিতে যুক্ত করে কেন কওমী প্রজন্মকে ব্ল্যাকমেইল করা হচ্ছে?
আল্লামা আহমদ শফির সাথে শীর্ষ আলেমদের (যারা হাটহাজারী মাদরার ফার্স্টক্লাস ফার্স্ট ফুজালা) দূরত্ব তৈরী করে আনাড়ি অপরিণামদর্শী চক্র কার এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে?
আমি প্রতিমাসে প্রায় একডজন হেফাজতের মামলায় হাজিরা দিতে দিতে ক্লান্ত হয়ে যাচ্ছি। কোন একদিন তারা আমাদের, আহতদের, শহীদ পরিবারগুলোর খবর নিয়েছে? ওরা নাকি কওমীর অভিভাবক ? ওরা নাকি দেওবন্দের পতাকাবাহী?
অপরিণামদর্শী সিদ্ধান্ত পাল্টাতে হবে, নিরীহ তালিবুল ইলমরা পরীক্ষা দেবে, এবং লালখানবাজার মাদরাসা পরীক্ষার কেন্দ্র থাকবে। অন্যথা ইনশাআল্লাহ আমারা বৃহত্তর জনগোষ্ঠীকে সম্পৃক্ত করে পরবর্তী পদক্ষেপ ঘোষণা করব।
সকলের সুমতি হোক। মুসলমানের ঐক্য অটুট থাকুক। আমীন।”

লালখান বাজার মাদ্রাসার শিক্ষক কামরুল কাসেমীও হাইয়ার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে বার্তা দেন। তিনি বলেন,
“লালখান বাজার মাদ্রাসার একজন শিক্ষক হিসাবে আলহাইয়াতুল উলইয়ার কঠোর সিদ্ধান্তকে পুনর্বিবেচনা করার আবেদন করছি!

১. যেহেতু,মাদ্রাসার সকল শিক্ষকমণ্ডলী, ছাত্রছাত্রী, কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং পরিবারের প্রত্যেক সদস্য মুফতি ইজহার সাহেবের মতের সাথে একমত নয় মর্মে মাদ্রাসার সহকারী পরিচালক কাম শিক্ষাপরিচালক জনাব মুফতি হারুন ইজহার সাহেব ফেসবুকসহ বিভিন্ন মিডিয়াতে বক্তব্য দিয়েছেন অর্থাৎ মাদ্রাসার অবস্থান সুস্পষ্ট করেছেন।

২. মুফতি ইজহার সাহেব লালখান বাজার মুহতামিম হলেও তিনি মাদ্রাসার অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বিশেষত শিক্ষা-পরিচালনার বিষয়টা উনার বড়ছেলে মুফতি হারুন ইজহারের উপর ন্যস্ত করেছেন!
আলহামদুলিল্লাহ্‌ মুফতি হারুন সাহেব অত্যন্ত দক্ষতা এবং পূর্ণ স্বাধীনতার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন অতএব,মাদ্রাসার তা’লিমী নেজামের সাথে সম্পর্কহীন মুফতি ইজহারে বিষয়ের কারনে ছাত্রশিক্ষক বলি হওয়া কতটুকু যৌক্তিক!

৩.লালখান বাজার মাদ্রাসা বেফাকের প্রতিটি মারহালায় পরীক্ষা দিয়ে আসছে এবং মুফতি হারুন ইজহার বেফাক চট্টগ্রাম জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক হওয়াতে অন্ততপক্ষে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে উনার সাথে যোগাযোগ করা যেতে পারতো! বিষয়টা কী এবং কতটুক গিয়ে পৌঁছেছে?অথচ হারুন সাহেব শিক্ষকদের নিয়ে মাদ্রাসার বার্ষিক মাহফিল স্থগিত করার সিদ্ধান্ত পর্যন্ত নিয়েছিলেন।মুফতি ইজহার সাহেব সাদপন্থী ইজতেমা থেকে আসার পর মাদ্রাসার ছাত্রশিক্ষকদের অবস্থা বেগতিক দেখে বলেছিলেন আমি মাহফিলে সাদ সংক্রান্ত কোন কথা বলবোনা।এমন কথায় সবাই আশ্বস্ত হলে মাহফিল করার দিকে মতামত আসে।কিন্তু পরিবর্তীতে তিনি যখন এতায়াতিদের নিয়ে দহরমমহরম শুরু করে দিলেন হারুন সাহেব সহ আমরা কোন ধরণের সহযোগিতা করিনি!একজন ছেলে আপন জন্মদাতা পিতার বিরুদ্ধে আর কতটুকু করতে পারে?
পাঠক আপনারা বিবেচনা করুন।
অতএব, মুফতি হারুন ইজহারের দিক সামনে রেখে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করলে ভাল হবে মনে করছি।
৪. আমি ব্যাক্তিগতভাবে স্বাদ্যের সবটুকু দিয়ে প্রতিবাদ করেছি!সাদপন্থী মৌ’লোভী আবচারের সাথে আমার চরম পর্যায়ের বাদানুবাদ হয়েছে এবং বিনয়ের সাথে চেষ্টা করেছি বিষয়টির ইতি টানতে!যাহা চট্টগ্রাম লাভলেইন মার্কাজ জিম্মাদার হযরাতগণ এবং হাটহাজারি সংশ্লিষ্ট হযরাতরা মোটামুটি অবগত রয়েছে।
এতএব,আমাদের আকুল আবেদন বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা হোক।
আল্লাহ আমাদের সহায় হোন। ”

হাইয়াতুল উলয়ার বৈঠকে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আল্লামা আশরাফ আলী, আল্লামা আজহার আলী আনোয়ার শাহ, মুফতি রুহুল আমিন, মাওলানা মুহিব্বুল হক, মুফতী মোহাম্মদ ওয়াক্কাস, মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, মাওলানা মাহফুজুল হক, মুফতি নুরুল আমিন, মুফতি মোহাম্মদ আলী, মাওলানা আনাস মাদানী, মাওলানা যোবায়ের আহমদ চৌধুরী প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,032 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com