ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঘটনা গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ : মির্জা ফখরুল

প্রকাশিত: ৮:৫৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১, ২০১৬

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঘটনা গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ : মির্জা ফখরুল

ডেস্ক রিপোর্ট:  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলাকারীদের দুষ্কৃতি আখ্যা দিয়ে অবিলম্বে তাদেরকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমলূক শাস্তি দাবি করে বিএনপি বলছে এ ঘটনা একটি মহল বিশেষের গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ। সেইসাথে ইসলাম ধর্ম, বিশ্বনবী হযরত মোহাম্মদ (সা:) ও পবিত্র কাবা শরীফকে নিয়ে বিকৃত, অরুচিকর ও অপমানজনক মন্তব্য অব্যহত থাকারও তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানিয়েছে দলটি।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আজ এক বিবৃতিতে বলেন, রসরাজ দাস নামে একজন ব্যক্তি পবিত্র কাবা শরীফ অবমাননা করে আপত্তিকর ছবি সামাজিক গণমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করার পরিপ্রেক্ষিতে নাসিরনগরে উদ্ভুত পরিস্থিতিতে ওই এলাকায় হিন্দু সম্প্রদায়ের উপাসনালয় ও বাড়িতে যে তাণ্ডব চালানো হয়েছে তা ন্যাক্কারজনক ও নজীরবিহীন। আমি এই ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানচ্ছি।

তিনি বলেন, ফেসবুক পোস্টে পবিত্র কাবা শরিফ অবমাননা এবং এটিকে কেন্দ্র করে উদ্ভুত তাণ্ডব আরো একটি চক্রান্তের অংশ। এটি মহল বিশেষের গভীর ষড়যন্ত্র। ইতোমধ্যে রসরাজ দাসের বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং ফেসবুকে আপত্তিকর ছবি পোস্টের বিষয়টি সে অস্বীকার করেছে। সুতরাং প্রকৃত অপরাধীকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় না এনে একটি অরাজক পরিস্থিতির সুযোগ সৃষ্টি হওয়া সন্দেহজনক। এরই ধারাবাহিকতায় গত রোববার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি ঘর, মন্দির, দত্তবাড়ি মন্দির ও জগন্নাথবাড়ি মন্দিরসহ ১৩টি বাড়িঘর লুটপাট ও ভাঙচুরের ঘটনায় স্থানীয় প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। স্থানীয় প্রশাসন দ্রুত তৎপর হলেই অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি এড়ানো যেতো। ভীতি প্রদর্শন, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগের ঘটনাকে বর্তমান শাসকগোষ্ঠী একটি সংস্কৃতিতে পরিণত করেছে। ফলে বাংলাদেশে আজ কোনো মানুষেরই জীবনের নিরাপত্তা নেই।

মির্জা ফখরুল বলেন, বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিতান্তই পুলিশী-দমন-তৎপরতা ও মামলা হামলা নির্ভর। সেজন্য জনসমাজের সর্বত্র হিংসা ও বিদ্বেষের বিষবাসষ্পে আচ্ছন্ন। একে অপরের বিরুদ্ধে পরস্পর দাঁড় করানো হয়েছে। মানুষের স্বাধীনতা আজ দুষ্কৃতিকারিদের দ্বারা বিপন্ন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, বিএনপি সব ধর্মীয় জনগোষ্ঠীর স্বাধীন ধর্মচর্চা, রাজনৈতিক ও সামাজিক ক্রিয়াকর্মের স্বাধীনতায় গভীরভাবে বিশ্বাসী। সব জনগোষ্ঠির নিরাপত্তা বিধান ও ধর্মীয় স্বাধীনতাকে নিশ্চিত করতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে বিএনপি অঙ্গীকারাবদ্ধ। এ সরকারের আমলে ক্রমাগতভাবে বৃদ্ধি পাওয়া সাম্প্রদায়িক সংঘাত চিরদিনের জন্য অবসান ঘটাতে সব শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে হিন্দু সম্প্রদায়ের জানমাল, উপাসনালয়ের ওপর আক্রমণ চালিয়ে যে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হয়েছে তার জন্য দায়ী দুষ্কৃতিকারিদের চিহ্নিত করে তাদেরকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, এই সরকারের আমলেই ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায় ও তাদের ধর্মগুরুদের ওপর সবচাইতে বেশি হামলা হয়েছে। এতে সহায় সম্পদ ও জানমালের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। হিন্দু, খ্রিস্টান ও বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মন্দির, গির্জা, প্যাগোডা আক্রান্ত হয়েছে দুষ্কৃতিকারিদের দ্বারা। এদেশের নানা সম্প্রদায়ের মানুষ যুগযুগ ধরে শান্তিকে বহুমাত্রিক ধারণার মধ্যে সম্পৃক্ত করে নির্বিঘ্নে জীবন-যাপন করেছে। ধর্মীয় সংস্কৃতির আদান প্রদানের মধ্য দিয়ে নিজেদের একটি মজবুত ও অভিন্ন ঐতিহ্য তৈরি করেছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন ধর্মীয় সম্প্রদায় সম্প্রীতি ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ করে পরস্পরের প্রতি একটি সহানুভুতিসম্পন্ন জাতি হিসেবে নিজেদেরকে গড়ে তুলেছে।

এই সংবাদটি 439 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com