মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০১৯ ১১:০৩ ঘণ্টা

নেত্রকোণার ৮টি উপজেলায় নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ ফলাফল

Share Button

নেত্রকোণার ৮টি উপজেলায় নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ ফলাফল

ডেস্ক রিপোর্ট:

১০ মার্চ সারাদেশের ৭৮টি উপজেলায় একযোগে অনুষ্ঠিত হয় ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। কয়েকটি বিচ্ছিন্ন অপ্রীতিকর ঘটনা ও যতসামান্য ভোটারের উপস্থিতিতে শান্তিপূর্ণ ভাবে শেষ হলো ভোটানুষ্ঠান। উক্ত নির্বাচনের প্রথম দফায় নেত্রকোণা জেলার ৯ টি উপজেলায় নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও গেলো শুক্রবার রাতে পূর্বধলা উপজেলার নির্বাচনে স্থগিতাদেশ দেয় প্রধান নির্বাচন কমিশন। পরে জেলার ৮টি উপজেলায় মোট ৪৯২ টি কেন্দ্রে এবার ভোটার ছিলেন মোট ১২ লাখ ৭৩ হাজার ১৪৭ জন ভোটার। আট উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীতা করছেন ১৮ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন ৪২ জন ও সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন।

নিম্নে উপজেলা ভিত্তিক নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ ফলাফল তুলে ধরা হলোঃ

১। নেত্রকোনা সদরঃ

নেত্রকোনা সদর উপজেলায় জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান তফসির উদ্দিন খান বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তুহিন আক্তারকে কোন প্রতিদ্বন্দ্বি না থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। শুধু ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। তন্মধ্যে মো: আব্দুল খালেক তালুকদার চশমা প্রতীক নিয়ে ১৬,৩৬৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মাইক প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৪,৯৫৭ ভোট। এছাড়া চপল দত্ত তালা প্রতীক নিয়ে পেয়েছে ১৪,২১৭ ভোট ও মো: আব্দুল গফুর বই প্রতীক নিয়ে পেয়েছে ৪৪৭৫ ভোট।

উলেখ্য, নেত্রকোনা সদরে একটি পৌরসভা ও ১২টি ইউনিয়ন নিয়ে ২৬১০৭৯ জন ভোটার নিয়ে নেত্রকোনার সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সদরে চেয়ারম্যান ও ১জন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় সদর উপজেলায় শুধু ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

২। বারহাট্টাঃ
জেলার বারহাট্টায় ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী আলহাজ্ব মাইনুল হক কাসেম ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ৭ হাজার ১৮৪টি বেশী ভোট পেয়ে জয় লাভ করেছেন। তার প্রাপ্ত ভোট সংখ্যা ৩৩ হাজার ৭৮১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী গোলাম রসুল তালুকদার নৌকা প্রথীক নিয়ে পেয়েছেন ৩৩ হাজার ৭৮১ ভোট। ভাইস চেয়ারম্যান পদে আনোয়ার হোসেন আজাদ চশমা প্রতীক নিয়ে ১৯ হাজার ৩শ ৫৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি শাহীনূর রহমান শাহীন মাইক প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৬ হাজার ৯শ ৮৮ ভোট। মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পদে শাহীনূর আক্তার (সায়লা) হাঁস প্রতীক নিয়ে ১৬ হাজার ১৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি জবা খাতুন পেয়েছেন ১৫ হাজার ৫০ ভোট।

উলেখ্য, বরাহাট্টা উপজেলা পরিষদটি ১১ টি ইউনিয়ন ও ১৩৬২২৯ জন ভোটার নিয়ে গঠিত। চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত গোলাম রসুল, স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা মুহাম্মদ মইনুল হক ঘোড়া প্রতীকে নির্বাচন করছে। ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫জন মহিলা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

৩। মদনঃ

জেলার মদন উপজেলা নির্বাচনে বেসরকারীভাবে নৌকা প্রতীক নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী মোঃ হাবিবুর রহমান। তিনি মোট ১৯০৪৪ ভোট পেয়েছেন। এবং তার নিকটতম বিদ্রোহী প্রতিদ্বন্দ্বী ইফতেখারুল আলম খান চৌধুরী পেয়েছেন ১২৯৪২ ভোট।ভাইস চেয়ারম্যান পদে তোফায়েল আহমেদ পেলেন ১৪৯৯৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন এবংতার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শহিদুল ইসলাম ১৩০০০ ভোট।মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোসাঃ কল্পনা আক্তার হাঁস প্রতীকে পেলেন ১৩৮৪৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন এবং নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফরিদা ইয়াসমিন পেলেন ৯০৯২ ভোট। উলেখ্য, ১১০৬১০ জন ভোটার নিয়ে মদন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান ৪ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে  ৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

৪। দুর্গাপুরঃ

দুর্গাপুরে উপজেলার আলীগ মনোনিত প্রার্থী সহ ৫জন স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে মোটর সাইকেল প্রতীকে নিয়ে সাবেক তিনবারের সংসদ সদস্য মরহুম জালাল উদ্দিন তালুকদার অগ্নিকন্যা ঝুমা তালুকদার ৩৭,৪৬১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীক নিয়ে মোহাম্মদ এমদাদুল হক খান পেয়েছেন ১৩,৪৫১ ভোট। এছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: আব্দুল হান্নান কাপ-পিরিচ প্রতীক নিয়ে ৭১২৭ ভোট, মো: কমালপাশা আনারস প্রতীক নিয়ে ৮১৫০ ভোট, আব্দুল গনি ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ২০৬৫ ভোট ও মো: সাইদুল হোসেন আকঞ্জি দোয়াত-কলম নিয়ে পেয়েছেন ১০৭৬ ভোট।

এদিকে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়েছেন ৫ জন প্রার্থী। এর মধ্যে নাজমুল হাসান নীরা টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ৩০,৪৪৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী গোলাম ফাহমী ভূইয়া তালা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৪,৮৬৩ ভোট। এছাড়াও মো: সিরাজুল ইসলাম টিয়াপাখি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৮৯২৭ ভোট, মো: হাবিবুর রহমান মাইক প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩৪৭৬ ভোট, আব্দুল কাইয়ুম খান উড়োজাহাজ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৬০৩ ভোট।

মহিলা ভাইস চোয়ারম্যান পদে লড়েছেন ৩ জন প্রার্থী। এর মধ্যে পারভীন আক্তার হাসঁ প্রতীক নিয়ে ৩২,৫২৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তহুরা বেগম কলস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৫,১৩৪ ভোট। এছাড়াও নুরনাহার ফুটবল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৯,৭৮২ ভোট।

উলেখ্য, দূর্গাপুর উপজেলাটি সীমান্তবর্তী ও পাহাড়ী এলাকা উপজাতি অধিষ্ঠিত এলাকা, ৭টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে ১৬১৭৯৮জন ভোটার। চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মো. এমদাদুল হক (নৌকা), স্বতন্ত্র জান্নাতুল ফেরদৌস আরা ঝুমা (মোটর সাইকেল), আব্দুল গণি (ঘোড়া), আব্দুল হান্নান (কাপ পিরিচ) , মোঃ কামাল পাশা (আনারস), মো. সাইকুল হোসেন আকঞ্জি (দোয়াত কলম) প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

৫। কলমাকান্দাঃ

কলমাকান্দা উপজেলায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নেত্রকোনা জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি, সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেক তালুকদার বিপুল ভোটে জয় লাভ করেছেন।

উপজেলার মোট ১ লাখ ৯১ হাজার ৪০৮ জন ভোটারের মধ্যে ৬১ হাজার ১৬২ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

এ নির্বাচনে বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেক তালুকদার নৌকা প্রতীক নিয়ে ৩৯ হাজার ৮৮৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে মাইক প্রতীক নিয়ে মো. মিজানুর রহমান মিজান ১৯ হাজার ৭১ ভোট ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কলসী প্রতীক নিয়ে আফরোজা বেগম ২৬ হাজার ৩২০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক কলমাকান্দা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফজলুল হক ফজলু ১৯ হাজার ৮৮৮ ভোট পেয়েছেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. হাবিবুর রহমান হাবিব চশমা প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ১৫ হাজার ৮৭৮ ভোট ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কুমকুম নকরেক ফুলবল প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ২১ হাজার ৮৭৩ ভোট।

৬। খালিয়াজুরীঃ

জেলার খালিয়াজুরীতে বেসরকারীভাবে ৩১৫৫ ভোট বেশি পেয়ে নৌকা প্রতীক নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী জনাব গোলাম কিবরিয়া জব্বার। তিান মোট ২০,০০৯ ভোট পেয়েছেন। এবং তার নিকটতম বিদ্রোহী প্রতিদ্বন্দ্বী শামসুজ্জামান তালুকদার সুয়েব সিদ্দিকী পেয়েছেন ১৬,৮৫৪ ভোট।

ভাইস চেয়ারম্যান তালা প্রতীকে নির্বাচিত হলেন সুমন চক্রবর্তী ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কলসি প্রতিকে নির্বাচিত হলেন হ্যাপি রায়।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে সুমন চক্রবর্তী পেলেন ৯৩৩৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন এবং তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আব্দুস সত্তার পেয়েছেন ৬৫০২ ভোট।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে হ্যাপি রায় পেলেন ২১৭১৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন এবং নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মনোয়ারা বেগম পেলেন ১৪০১৮ ভোট।

উলেখ্য, ৬টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত ৬৫৪২৫ জন ভোটার নিয়ে খালিয়াজুরী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ২ জন, ভাইস চেয়ারম্যান ৮ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

৭। কেন্দুয়াঃ

এতে কেন্দুয়া উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ নূরুল ইসলাম (বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায়) নির্বাচিত হয়েছেন। এদিকে মোঃ মোফাজ্জল হোসেন ভূঞা চশমা প্রতিক নিয়ে ৪৬৫৩২ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় বারের মতো আবারও ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মামুনুল কবীর খান তালা প্রতিক নিয়ে ৩৮৯৩০ ভোট পেয়েছেন। টিউবওয়েল প্রতিক নিয়ে আশরাফ উদ্দিন ভূঞা ১২৬৪ ভোট ও উড়োজাহাজ প্রতিক নিয়ে মজিবুর রহমান ৪১৭ ভোট পেয়েছেন।

এই ছাড়াও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সেলিনা বেগম সুমী বল প্রতিক নিয়ে ৪৮৭৯৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত এবং তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোছাঃ মিনা আক্তার ১৮৭৯০ ভোট পেয়েছেন ও জাহানারা রোজি হাঁস প্রতিক নিয়ে পেলেন ১৭২৮২ ভোট পেয়েছেন।

উলেখ্য, কেন্দুয়া উপজেলা পরিষদটি ১৩টি ইউনিয়ন ১টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত ২২৫৪৩২ জন ভোটার।

৮। মোহনগঞ্জ:

জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনে বেসরকারীভাবে নৌকা প্রতীক নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী মোঃ শহিদ ইকবাল। তিনি মোট ৩৫,১৯২ ভোট পেয়েছেন। এবং তার নিকটতম বিদ্রোহী প্রতিদ্বন্দ্বী মোঃ মজিবর রহমান কাচা মিয়া আনারস নিয়ে পেয়েছেন ২৬১৫৮ ভোট। ভাইস চেয়ারম্যান পদে দিলিপ কুমার দত্ত ১৬,১৯৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আবুল খায়ের তালুকদার মিলন পেয়েছেন ১২,৮৫০ ভোট। এবং তরুণ আলেম সাংবাদিক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী প্রায় ৮ হাজার ভোট পেয়ে চমক সৃষ্টি করেছেন।
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোসাঃ শান্তা কলস প্রতীকে পেলেন ৪২,৭১২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন এবং নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নাসিমা আক্তার লিপি পেলেন ১১,২৪৩ ভোট।

উলেখ্য, ১,২২,২০৪ জন ভোটার নিয়ে মোহনগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান ৬ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

এই সংবাদটি 1,014 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com