শুক্রবার, ২৯ মার্চ ২০১৯ ০৩:০৩ ঘণ্টা

অনেক হাওরে ফসল এখনও অরক্ষিত, উদ্বিগ্ন কৃষক

Share Button

অনেক হাওরে ফসল এখনও অরক্ষিত, উদ্বিগ্ন কৃষক

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

‘নির্ধারিত সময়ের একমাস পেরিয়ে গেলেও এখনও শেষ হয়নি সুনামগঞ্জ হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ। অনেক হাওরে ফসল এখনও অরক্ষিত, ফলে ফসল নিয়ে উদ্বিগ্ন কৃষক।’

গত ৩ দিন সুনামগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ ও নেত্রকোনার বিভিন্ন হাওর পরিদর্শন শেষে হাওর নিয়ে কাজ করা দেশের ৩৫ টি সংগঠনের জোট হাওর এডভোকেসি প্লাটফর্ম(হ্যাপ) সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানায়।

শুক্রবার দুপুরে সুনামগঞ্জ শহরের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা জগৎজ্যোতি পাবলিক লাইব্রেরী মিলনায়তনে হাওর এডভোকেসি প্লাটফর্ম(হ্যাপ) উদ্যেগে সংবাদ সম্মেলন করে সংগঠনটি।

এসময় হাওর আন্দোলনের নেতাকর্মী ও বিভিন্ন গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন, হাওর এডভোকেসি প্লাটফর্ম(হ্যাপ) এর যুগ্ম আহবায়ক শরিফুজ্জামান শরিফ, হাওরবাসি রক্ষায় নাগরিক উদ্যোগ এর আহবায়ক নির্মল ভট্টাচার্য্য, সিপিবির সাধারন সম্পাদক অ্যাডভোকেট এনাম আহমেদ, হাওর আন্দোলনের নেতা পঙ্কজ দে সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

এসময় বক্তারা বলেন, বাঁধের কাজের মেয়াদের একমাস পেরিয়ে গেলেও বিভিন্ন হাওরে এখনো শেষ হয়নি বাধের কাজ। এখন ভারি বৃষ্টি হলেও এসব বাঁধ তলিয়ে যেতে পারে। তাই ফসল নিয়ে হাওরের কৃষকরা উদ্বিগ্ন। এছাড়া ফসলের সরকারি দাম ও ধান কেনার প্রক্রিয়া নিয়ে অভিযোগ তুলেন বক্তারা।

তাই দ্রুত হাওরের ফসল রক্ষার বাঁধের কাজ শেষ করে কৃষকের ফসল রক্ষা সরকারকে এগিয়ে আসতে আহবান জানানো হয়।

এই সংবাদটি 1,008 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com