সোমবার, ০১ এপ্রি ২০১৯ ১০:০৪ ঘণ্টা

জমিয়ত কী দেওবন্দীদের সংগঠন?

Share Button

জমিয়ত কী দেওবন্দীদের সংগঠন?

আবু রায়হান::

সূচনার সূচনাঃ
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনৈক জাগ্রত জমিয়ত কর্মী শিরোনামে উত্থাপিত বিষয়ে তার দীর্ঘ গবেষণা নিয়ে Abu Raiyan এর সাথে সিরিজ বাতচিতের পহেলা এক চঞ্চু।
আর হ্যাঁ,তা জমিয়ত কর্মী থেকে নিয়ে জমিয়তের রতি-মহারতিদের জন্য সমান দরকারি বটে!

সূচনাঃ
জাগ্রত কর্মী আমার সামনে একটি বইয়ের পৃষ্ঠা মেলে ধরে তাবৎ জমিয়তীদের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন।
বইটির নাম-জমিয়তুল উলামা কিয়া হায়?
বইটি মাদানী রাহি.এঁর নির্দেশে মাওলানা সায়্যিদ মুহাম্মাদ মিঞা ছাহেব রাহি. সংকলিত।তিনি অত্র বইয়ের ৯৫ নাম্বার পৃষ্ঠা মেলে ধরলেন।বইটির ভেতরের প্রথম পৃষ্ঠা এবং ৯৫ নাম্বার পৃষ্ঠা আপনাদের সকাশে তুলে ধরলাম,যা দেখতে পাচ্ছেন।

পৃষ্ঠাটি মূলত ১৯১৯ খ্রিস্টাব্দের ২৩ শে নভেম্বর দিল্লী বৈটকের মধ্য দিয়ে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ’র ২৫ জন প্রতিষ্ঠাতাদের নামের তালিকা।
সেদিনকার জমিয়তের প্রতিষ্ঠাতা মূলত পঁচিশ জন নয়,বরং ছাব্বিশ জন ছিলেন।আরেক জনের নাম প্রাগুক্ত গ্রন্থের পূর্বের পৃষ্ঠায় বা ৯৪ নাম্বার পৃষ্ঠায় বিশেষ আঙ্গিকে রয়েছে বটে!তাঁর নাম মাওলানা মাযহার উদ্দীন রাহি.।হয়ত ৯৫ নাম্বার পৃষ্ঠায় মুদ্রনজনিত মিসটেইক হেতু তাঁর নাম ছুটে গিয়েছে।কমেন্টে ৯৪ নাম্বার পৃষ্ঠা সেন্ড করা হবে।
সুতরাং জমিয়তের প্রতিষ্ঠাতা মোট ২৬ জন মনীষা।

জমিয়তের জনৈক জাগ্রত কর্মী জমিয়ত প্রতিষ্ঠাতা ২৬ জনকে আমার সামনে তুলে ধরে চ্যালেঞ্জ ছুড়লেন যে, এখানে মাত্র তিন-চার জন দেওবন্দী।বাকীরা অ-দেওবন্দী।যারা হক্কানী আলিমদের দৃষ্টিতে কড়া ভাষায় বললে”দ্বাল্লুন-মুদ্বিল্লুন” তথা তারা নিজেরা ভ্রষ্ট এবং অপরকে ভ্রষ্টকারী!
পারলে আপনি তিন-চার জনের বেশি দেওবন্দী আলিম ছিলেন বলে প্রমাণ করে দেখান!

আমি প্রদর্শিত ২৬ জনের মধ্যে মাত্র দুই জনকে দেওবন্দী আলিম হিসেবে চিহৃিত করতে সক্ষম হলাম।
তারা হলেন-প্রদর্শিত তালিকার দ্বিতীয় সারিতে মাওলানা হাফিয আহমদ সাঈদ দেহলভী সাহেব এবং তৃতীয় সারিতে মাওলানা (মুফতী) মুহাম্মাদ কিফায়াতুল্লাহ সাহেব!

জাগ্রত কর্মী প্রমাণ করে দেখালেন যে,সেদিনকার খোদ বৈটকের সভাপতি জমিয়তের অনন্য প্রতিষ্ঠাতা-মাওলানা আবদুল বারী ফেরেঙ্গী মহল্লী রাহি. বড় মাপের একজন মুছান্নিফ এবং আল্লামা হওয়ার পরও ছিলেন বেদাতী আলিম।বাদশাহ আবদুল আযীয বিন সৌদ সৌদীর ক্ষমতা অধিগ্রহণের পর মক্কা-মদীনার মুয়াল্লা ও বাকী কবরস্থানে পূর্ব নির্মিত পাকা কবর,গম্বুজ ও স্থাপনাসমূহ ভেঙে ফেলতে ব্রতী হলে তিনি তীব্র প্রতিবাদ করেন।প্রতিবাদ-প্রতিরুধ কল্পে তিনি ১৩৪৪ হিজরীতে একটি সংগঠনের গোড়াপত্তন করেন।যার নাম ছিল-“খুদ্দামুল হারামাইন”।অত্র সংগঠনের মাধ্যমে তিনি তাঁর প্রতিবাদ কর্মসূচি চালিয়ে যান।
(সূত্রঃ
نثر الجواهر والدرر فى علماء القرن الرابع عشر،
إعداد -الدكتور يوسف المرعسى،
المجلد الأول ٦١٧=٦١٨
(دار المعرفة بيروت لبنان،

তিনি গানকে শুধু বৈধ বলেই বিশ্বাস করতেন না,বরং এর বৈধতার পক্ষে একটি পুস্তকও রচনা করে গেছেন!
পুস্তকটির নাম-“হিল্লাতুল গিনা”(গানের বৈধতা)!
(সূত্রঃ প্রাগুক্ত গ্রন্থের ৬১৮ নাম্বার পৃষ্ঠায় তাঁর লিখিত গ্রন্থের তালিকা থেকে।)

এমনকি তিনি থানভী রাহি.রচিত কিছু কিতাবাদীও জ্বালিয়ে দিয়ে ছিলেন!

২৬ প্রতিষ্ঠাতার আরেক জন মাওলানা আবুল ওয়াফা সানাউল্লাহ অমৃতসরী।জমিয়ত প্রতিষ্ঠায় তাঁর অবদান ছিল অবিস্মরণীয়!সেদিন তাঁর প্রস্তাবেই দেওবন্দী দুই আলিম-মুফতী মুহাম্মাদ কিফায়াতুল্লাহ রাহি. এবং মাওলানা আহমদ সাঈদ দেহলভী রাহি.কে পর্যায়ক্রমে জমিয়তের সভাপতি ও সেক্রেটারি বানানো হয়েছিল।
সেই অমৃতসরী কে ছিলেন জানেন?
তিনি ছিলেন উপমহাদেশের কথিত আহলে হাদীসের অন্যন্য পুরোধা।’জমিয়তে আহলে হাদীস’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি।আকীদা-বিশ্বাস ও লিখনী ছিল অত্যন্ত আপত্তিকর।
তিনি মির্জায়ী-কাদীয়ানীদের বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলন করলেও তাদের ব্যাপারে তাঁর ফতওয়া ছিল- “মির্জায়ীউকে পিচে নামায পড়না জাইয হায়” তথা মির্জায়ীদের পেছনে (ইমাম বানিয়ে)নামায পড়া বৈধ!
(সূত্রঃঅমৃতসরী সম্পাদিত-আখবারে আহলে হাদীস পৃ.৮, সংখ্যা ২৮ জুন,১৯১২ ঈসায়ী। তা ছাড়া
ফায়সালাই মক্কা পৃ.৭।)
তাফসীরের নামে তাঁর লিখিত গ্রন্থ “তাফসীরুল কুরআন বি কালামির রাহমান”এর বহু স্থানে আপত্তিকর এবং মনগড়া ব্যাখ্যা করেছেন।তাঁর স্বগোত্রীয়রাও এ ব্যাপারে কঠিন সতর্ক বার্তা উচ্চারণ করেছেন।এমনকি তাঁর স্বগোত্রীয় আলিম মাওলানা আবদুল আহাদ খানপুরী সাহেব তাঁকে ইলহাদ ও কুফর লালনকারী হিসেবে চিহ্নিত পূর্বক একটি গ্রন্থ লিখেছেন। গ্রন্থটির নাম দেখলেই বিষয়টি ফুটে ওঠে!
গ্রন্থটির নাম-” কিতাবুত তাওহীদ ওয়াস সুন্নাহ আল-মুলাক্বাব বিহি ইযহারু কুফরি সানাউল্লাহ বি-জামীয়ি উসূলী আমানতুবিল্লাহ”!

মাওলানা মুহাম্মাদ আকরাম খাঁ-ও ছিলেন কথিত আহলে হাদীসপন্থী।তাঁর লিখিত মোস্তফা চরিত থেকেও তাঁর জঘন্য ধ্যান-খেয়ালের ব্যাপারে আঁচ করা যায়।
মাওলানা মনীরুযযামান ইসলামাবাদী এবং মাওলানা মুহাম্মাদ ইবরাহীম সিয়ালকোটীও ছিলেন আহলে হাদীসপন্থী।মাওলানা সায়্যিদ দাউদ গজনভী ছিলেন মধ্যমপন্থী আহলে হাদীসের অনুসারী।

এভাবে জমিয়ত প্রতিষ্ঠাতা ২৬ সদস্যদের মধ্যে সোপার মেজরিটি ছিলেন অ-দেওবন্দী এবং বাতিলপন্থী,যা বুঝাই যাচ্ছে!
হ্যাঁ,সৌভাগ্যক্রমে জমিয়ত প্রতিষ্ঠাকালীন মূল নেতৃত্ব চলে আসছিল দেওবন্দী দুই মুহতারাম আলিমের কাছে।
অতঃপর অ-দেওবন্দী মেজরিটি এবং দেওবন্দী মাইনরটি মুহতারমদের শীর্ষ নেতৃত্ব জমিয়ত বীর দর্পে চলতে থাকলো।
এমনকি জাগ্রত কর্মী এমন একটি তথ্য দিলেন,যা চমকে ওঠার মতো!
জমিয়ত প্রতিষ্ঠার পর বহু জেনারেল শিক্ষীত এবং কিছু কমিনিস্ট চিন্তা-চেতনা লালনকারীও জমিয়তের ওয়ার্কিং কমিটির মেম্বার ছিলেন!
জাগ্রত কর্মী “জমিয়তুল উলামা কিয়া হায়?” গ্রন্থের ৮৭ ও ৮৮ নাম্বার পৃষ্ঠা বের করে জমিয়তের মজলিসে আমেলা বা ওয়ার্কিং কমিটির শিরোনামে প্রদত্ত মেম্বারদের তালিকা দেখালেন।যেখানে রয়েছেন একজন সৈয়দ নওশের আলী।যিনি ছিলেন নড়াইলের কৃতিসন্তান।১৯৩৭ সালে অবিভক্ত বাঙলার প্রথম স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং ১৯৪০ এর ২৯ মার্চে নির্বাচিত অবিভক্ত বাঙলায় আইন সভার প্রথম স্পিকার।তিনি ছিলেন একজন কমিনিস্ট চিন্তা-চেতনা লালনকারী! তিনি বর্তমান বাংলাদেশের সিপিবির সভাপতি ও বুদ্ধিজীবী হায়দর আকবর খান রনো এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দর আকবর খান ঝুনো’র আপন নানা।
(সূত্রঃইংলিশ উইকিপিডিয়া)

এভাবে শুরু থেকে জমিয়তে দেওবন্দীদের তুলনায় অ-দেওবন্দী এবং নানা মত-পথের লোক সংখ্যা বেশি ছিল।সুতরাং জমিয়ত দেওবন্দীদের সংগঠন হলো কী করে?জমিয়তকে শুধু দেওবন্দীদের সংগঠন বলা ও লালন করাটা বাস্তবতা বিবর্জিত! হ্যাঁ,শীর্ষ নেতৃত্ব ছিল দেওবন্দীদের হাতেই।
আচ্ছা! জমিয়তে অগণন অ-দেওবন্দী, বাতিলপন্থী এবং আহলে সুন্নত বিরুধী লিডারদেরকে নিয়ে চললে তারা কী আহলে সুন্নতের রক্ষা কবচ হিসেবে কাজ করবেন?অবশ্যই না!
সুতরাং জমিয়ত আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের সংরক্ষকও নয়!তবে জমিয়ত কীসের সংরক্ষক?
জমিয়ত মূলত মুলক ও মিল্লাত তথা দেশ ও জাতির সংরক্ষক!ধর্মীয় যেসব বিষয়ে হক-বাতিল সর্বশ্রেণির উলামা একমত,সেসব বিষয়াবলি সামনে রেখে জমিয়তের আদর্শ, লক্ষ-উদ্দেশ্য ও কর্মসূচি প্রণয়ন হয়েছিল এবং হতো।
জাগ্রত কর্মী তদ্বিষয়ে আমাকে “জমিয়তুল উলামা কিয়া হায়?”গ্রন্থের শত শত পৃষ্ঠা বের করে দেখালেন।
হ্যাঁ,আহলে সুন্নতের সংরক্ষক হলো দারুল উলূম দেওবন্দ!
যেদিন থেকে বাংলাদেশে জমিয়তকে আহলে সুন্নতের সংরক্ষক জ্ঞান করা হলো, ঠিক সেদিন থেকে এটি একটি প্রাইভেট কোম্পানি লিমিটেডে পরিণত হলো!যা জমিয়ত ও রাজনীতির আদর্শের খেলাফ!

জাগ্রত কর্মী আরো প্রমাণ করে দেখালেন যে,অসংখ্য বিল ইত্তেফাক দেওবন্দী জমিয়ত করেন নাই!যাদের সংখ্যা দেওবন্দী জমিয়তীদের চেয়ে বহুগুণ বেশি!যাদের যোগ্যতা দেওবন্দী জমিয়তীদের চেয়ে কম ছিল না!ছিলেন হাম পাল্লা!এমনকি তাঁদের কেউ কেউ জমিয়তের আদর্শের সাথে একমত না হতে পেরে বিরুধীতাও করেছেন!কেউ কেউ ভিন্ন নামে রাজনৈতিক সংগঠনও করেছিলেন!!
আমার সাক্ষাতলাভ জনৈক জাগ্রত জমিয়ত কর্মীর প্রমানসহ সব বাতচিত একটি পোস্টে তুলে ধরা সম্ভবপর নয়!
জমিয়তী ভাইয়েরা জমিয়ত করুন বুঝে-শোনে করুন!আলাল বাসীরাহ করুন!
প্লিজ জমিয়তকে একটি মখমছা বানাইয়েন না!নতুবা ফসল কখনও গোলায় ওঠবে না এবং কাজের নামে আকামই বেশি হবে বৈকি!!!

এই সংবাদটি 1,017 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com