শনিবার, ০৬ এপ্রি ২০১৯ ০৪:০৪ ঘণ্টা

হেফাজতের ঐতিহাসিক লংমার্চ দিবস আজ

Share Button

হেফাজতের ঐতিহাসিক লংমার্চ দিবস আজ

ডেস্ক রিপোর্ট: অরাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের ঢাকা অভিমুখী লংমার্চের বর্ষপূর্তি আজ। ২০১৩ সালের ৬ এপ্রিল ১৩ দফা দাবিতে ঢাকা অভিমুখে লংমার্চ শেষে বিকেলে রাজধানীর শাপলা চত্বরকে ঘিরে বিশাল মহাসমাবেশ করে হেফাজতে ইসলাম। তাতে লাখ লাখ লোক অংশ নেয়। স্মরণকালের বিশাল ওই মহাসমাবেশ থেকেই পরে ৫ মে ঢাকা অবরোধের কর্মসূচি দেয়া হয়েছিল। আর ৫ মে অবরোধ শেষে শাপলা চত্বরে হেফাজত নেতাকর্মীরা অবস্থান নিলে রাতে তাদের অবস্থান সরাতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অভিযান চালায়। এই ঘটনায় অসংখ্য লোক হতাহত হয় বলে হেফাজতের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়। ওই রাতে শাপলা চত্বরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী হেফাজতের ঘুমন্ত কর্মীদের ওপর গণহত্যা চালিয়েছিল বলে হেফাজতের পক্ষ থেকে বক্তব্য বিবৃতিতে অভিযোগ করা হয়ে থাকে। অবশ্য ওই ঘটনার পর থেকে হেফাজতের প্রতি সরকারের কঠোর মনোভাবের কারণে হেফাজত এই পর্যন্ত কার্যত বড় ধরনের আর কোনো কর্মসূচি পালন করতে পারেনি।

হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক ও বেফাক সভাপতি আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বাধীন হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনের সূচনা হয় ব্লগে মহানবী সা:-এর প্রতি কটূক্তিকারী ব্লগারদের শাস্তির দাবিকে কেন্দ্র করে। অভিযুক্ত ব্লগারদের অনেকে শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চের সাথে সম্পৃত্ত এমন খবরে তখন সর্বত্র ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা প্রতিবাদে সোচ্চার হন। ফলে ৯ মার্চ হাটহাজারীতে উলামা সম্মেলনের মাধ্যমে হেফাজতে ইসলাম ১৩ দফা দাবিতে ৬ এপ্রিল ঢাকা অভিমুখে লংমার্চের কর্মসূচিসহ নানা কর্মসূচি ঘোষণা করে।

সংবিধানে আল্লাহর ওপর আস্থা ও বিশ্বাস পুনঃস্থাপন, মহানবীর অবমাননাকীরদের জন্য মুত্যুদণ্ডের বিধান করে আইন পাস, নাস্তিক-মুরতাদদের গ্রেফতার ও শাস্তি প্রদান, শিক্ষা ও নারী নীতি সংশোধনহ ১৩ দফা দাবি পরে বহুল আলোচিত দাবিতে পরিণত হয়।
গত বছরের ৬ এপ্রিল ঢাকা অভিমুখে লংমার্চ কর্মসূচি ছিল হেফাজতের আলোড়ন সৃষ্টিকারী প্রথম কর্মসূচি। ওই লংমার্চ শেষে রাজধানীতে ৫০ লাখ লোক জমায়েত করার ঘোষণা দেয় হেফাজত। ফলে এই কর্মসূচিকে ঘিরে উত্তেজনা দেখা দেয়। সরকার প্রথমে শাপলা চত্বরে সমাবেশের অনুমতি দিতে গড়িমসি করে। অন্য দিকে লংমার্চ প্রতিহত করতে সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটিসহ আওয়ামী লীগ ও বামঘেঁষা কিছু দল ও সংগঠন আগের দিন শুক্রবার থেকে ২৪ ঘণ্টার হরতালের ডাক দেয়। এ ছাড়া শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চ থেকে শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে সারা দেশে অবরোধ কর্মসূচি দেয়া হয়। এর আগে পরিবহন সমতির ব্যানারে ঢাকামুখী সকল যানবাহন ও নৌচলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। সরকারি দল সমর্থকেরা স্থানে স্থানে লংমার্চমুখী গাড়ি থামিয়ে দেয় এমন অভিযোগ করে হেফাজত। ফলে সারা দেশ এক দিন আগ থেকে ঢাকার সাথে সারা দেশের যোগযোগব্যবস্থা প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সরকার শেষ মুহূর্তে শর্তসাপেক্ষে শাপলা চত্বরে সমাবেশের অনুমতি দেয়। শনিবার সকাল থেকেই শাপলা চত্বরে সমবেত হতে থাকে মানুষ। দুপুরের আগেই লোকে লোকারণ্য হয়ে যায় পুরো মতিঝিল এলাকা। অবশ্য পরে ঢাকা অবরোধ, এক দিনের হরতাল এবং বিভিন্ন জেলায় শানে রেসালত সম্মেলনের কর্মসূচি ঘোষণার মধ্য দিয়ে সন্ধ্যার আগেই সমাবেশ শেষ করে হেফাজত।

সেই ১৩ দফাঃ

১। সংবিধানে ‘আল্লাহর উপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস পুনঃস্থাপন এবং কোরআন- সুন্নাহ বিরোধী সকল আইন বাতিল করতে হবে।

২। আল্লাহ্, রাসুল (সা.) ও ইসলাম ধর্মের অবমাননা এবং মুসলমানদের বিরুদ্ধে কুৎসা রোধে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে জাতীয় সংসদে আইন পাস করতে হবে।

৩। কথিত শাহবাগী আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী স্বঘোষিত নাস্তিক-মুরতাদ এবং প্রিয় নবী (সা.)’র শানে জঘন্য কুৎসা রটনাকারী কুলাঙ্গার ব্লগার ও ইসলাম বিদ্বেষীদের সকল অপপ্রচার বন্ধসহ কঠোর শাস্তিদানের ব্যবস্থা করতে হবে।

৪। ব্যক্তি ও বাক-স্বাধীনতার নামে সকল বেহায়াপনা, অনাচার, ব্যভিচার, প্রকাশ্যে নারী-পুরুষের অবাধ বিচরণ, মোমবাতি প্রজ্বলনসহ সকল বিজাতীয় সংস্কৃতির অনুপ্রবেশ বন্ধ করতে হবে।

৫। ইসলামবিরোধী নারীনীতি, ধর্মহীন শিক্ষানীতি বাতিল করে শিক্ষার প্রাথমিক স্তর থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর
পর্যন্ত ইসলাম ধর্মীয় শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক
করতে হবে।

৬। সরকারিভাবে কাদিয়ানিদের অমুসলিম ঘোষণা এবং তাদের প্রচারণা ও ষড়যন্ত্রমূলক সকল অপ-তৎপরতা বন্ধ করতে হবে।

৭। মসজিদের নগরী ঢাকাকে মূর্তির নগরীতে রূপান্তর
এবং দেশব্যাপী রাস্তার মোড়ে ও কলেজ-ভার্সিটিতে
ভাস্কর্যের নামে মূর্তি স্থাপন বন্ধ করতে হবে।

৮। জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ দেশের সকল মসজিদে মুসল্লিদের নির্বিঘ্নে নামাজ আদায়ে বাধা- বিপত্তি ও প্রতিবন্ধকতা অপসারণ এবং ওয়াজ-নসিহত ও ধর্মীয় কার্যকলাপে বাধাদান বন্ধ করতে হবে।

৯। রেডিও, টেলিভিশনসহ বিভিন্ন মিডিয়ায় দাড়ি-টুপি ও ইসলামী কৃষ্টি- কালচার নিয়ে হাসি-ঠাট্টা এবং নাটক-
সিনেমায় খল ও নেতিবাচক চরিত্রে ধর্মীয় লেবাস-পোশাক পরিয়ে অভিনয়ের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মের মনে ইসলামের প্রতি বিদ্বেষমূলক মনোভাব সৃষ্টির
অপপ্রয়াস বন্ধ করতে হবে।

১০। পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশব্যাপী ইসলাম বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত এনজিও এবং খ্রিস্টান মিশনারীদের
ধর্মান্তকরণসহ সকল অপ-তৎপরতা বন্ধ করতে হবে।

১১। রাসুলপ্রেমিক প্রতিবাদী আলেম- ওলামা, মাদরাসা ছাত্র এবং তৌহিদী জনতার ওপর হামলা, দমন-পীড়ন, নির্বিচার গুলিবর্ষণ এবং গণহত্যা বন্ধ করতে হবে।

১২। সারা দেশের কওমী মাদরাসার ছাত্র+শিক্ষক,ওলামা-মাশায়েখ এবং মসজিদের ইমাম-খতিবকে হুমকি-ধামকি ও ভয়ভীতি দানসহ তাদের বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে।

১৩। অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত সকল আলেম- ওলামা, মাদরাসা ছাত্র ও তৌহিদী জনতাকে মুক্তিদান, দায়েরকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং আহত ও নিহতদের ক্ষতিপূরণসহ দুষ্কৃতকারীদেরকে বিচারের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দিতে হবে।

এই সংবাদটি 1,015 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com