শনিবার, ০৬ এপ্রি ২০১৯ ০৬:০৪ ঘণ্টা

ঐতিহ্য ধ্বংস না করেও হাসপাতাল তৈরি করা সম্ভব

Share Button

ঐতিহ্য ধ্বংস না করেও হাসপাতাল তৈরি করা সম্ভব

 

সৈয়দ মবনু:

আমরা কি জাতি হিসাবে এতই মূর্খ যে ঐতিহ্য সংরক্ষনের কথা বললে প্রশ্ন জাগে মনে, ‘আমাদের আসলে কিসের প্রয়োজন? ঐহিত্য সংরক্ষণ? না সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য হাসপাতাল?’ আমাদের কি এই বুঝ নেই যে, মা এবং স্ত্রীর প্রয়োজন ক্ষেত্র বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ স্ব স্ব জায়গায়? আমাদের জীবনে মা যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি গুরুত¦পূর্ণ স্ত্রীও। এখানে কাউকে উপেক্ষার সুযোগ নেই। তেমনি হাসপাতাল এবং ঐতিহ্য দুটাই স্ব স্ব ক্ষেত্রে আমাদের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ। তাই দুটাকেই রক্ষা করতে হবে জাতীয় প্রয়োজনে। একটাকে আরেকটার মোকাবেলায় দাঁড় করিয়ে মানুষের আবেগকে ব্লাকমেইল করা যাবে না। যারা এমন মূর্খ প্রশ্ন করে আমাদের আবেগকে ব্লাকমেইল করতে চাচ্ছেন তাদের জ্ঞানের অবস্থা দেখে লজ্জায় বাকশূন্য হতে হয়। আর যারা ঐহিত্য সংরক্ষণের বিষয়টিকে দেশের আর্ত-সামাজিক অবস্থার প্রেক্ষিতে এক ধরনের বিলাসীতা হিসেবে আখ্যায়িত করছেন তারা মূলত ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কে সম্পূর্ণ অজ্ঞ ছাড়া কিছুই নয়। কোন জাতি যখন তাদের ঐতিহ্যকে ধ্বংস করতে থাকে তখন বুঝতে হবে এই জাতি তার আত্মপরিচয়হীনতায় রয়েছে।

আমরা জানি, বাংলাদেশে স্বাস্থ্য সেবার মান এখনও অনেক নিম্নে অবস্থান করছে। ২০১১ খ্রিস্টাব্দের বিশ্বব্যাংকের একটি তথ্যানুসারে বাংলাদেশে প্রতি ৩০০০ জনের জন্য একটি হাসপাতাল বেড রয়েছে। আট জনের মধ্যে একজন গর্ভবতী নারী ডাক্তারি প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ব্যক্তির নিকট প্রসবকালীন সেবা প্রহন করেন এবং এবং মোট গর্ভবতী মায়ের অর্ধেকেরও কম গর্ভকালীন স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করেন। তাই এখানে উচিৎ অসংখ্য হাসপাতাল তৈরি করা। বাংলাদেশে খাস জায়গার এখনও অভাব নেই। সিলেটের চারদিকে অসংখ্য খাস জায়গা রয়েছে। রয়েছে সিলেট শাহী ঈদগাস্থ টিভি হাসপাতালের প্রচুর জায়গা। সরকার ইচ্ছে করলে ঐতিহ্যের স্মারক ইবনে সিনা ছাত্রাবাসের ভবনটি রক্ষা করেও শাহী ঈদগাহের টিভি হাসপাতালের খাস জায়গায় কিংবা অন্য যেকোন জায়গায় হাসপাতাল তৈরি করতে পারে। খাদিম নগরে রয়েছে সিলেট রেডিও-এর জন্য খরিদ করা প্রচুর জায়গা, সরকার ইচ্ছে করলে সেখানেও একটি অত্যাধুনিক হাসপাতাল তৈরি করতে পারে। এতে ঐতিহ্যের স্মারক ভবনটি রক্ষা পায়।

যারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ২৫০ শয্যার ‘সিলেট জেলা হাসপাতাল’ ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন ২০১৮ সালের ৩০ জানুয়ারি। বর্তমানে কাজ অনেক দূর এগিয়ে গেছে। হঠাৎ করে এর বিরোধিতা কেন? যারা ভিন্নমত পোষণ করছেন তারা যদি এটি শুরুতে করতেন তাহলে হয়তো বিকল্প একটি স্থান নির্ধারণের সুযোগ থাকতো।’ তাদের কাছে প্রশ্ন আপনারা কি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অবগত করেছেন, এই ভবনটি যে আমাদের ঐতিহ্যের অংশ এবং আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সময় এখানে গণহত্যা সংগঠিত হয়েছে? আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বারবার ঘোষণা দিয়েছেন, উন্নয়নের নামে ঐতিহ্যকে ধ্বংস করা যাবে না এবং কোনভাবেও কোথা থেকে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ধ্বংস করা যাবে না। এই ভবনকে ভেঙে হাসপাতাল তৈরির ভিত্তিপ্রস্তর করার আগে কি কেউ প্রধানমন্ত্রীকে অবগত করেছেন তা আমাদের ঐতিহ্যের অংশ এবং এই ভবনের মধ্যে ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের ৯ এপ্রিল দায়িত্ব পালনকালে কুখ্যাত পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে শল্য বিভাগের প্রফেসর ডা. শামসুদ্দীন আহমদ, ডা. শ্যামল কান্তি লালা, নার্স মাহমুদুর রহমান, পিয়ন মো. মুহিবুর রহমান ও মোখলছেুর রহমান, অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার কোরবান আলী সহ মোট ন’জন নির্মমভাবে শহীদ হয়েছিলেন? আমাদের বিশ্বাস, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তা জানলে ভবনটি ভাঙা বন্ধের নির্দেশ দিতেন। কেউ কেউ বলেন, মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডক্টর এ কে আব্দুল মোমেন নাকি বলেছেন সিলেট জেলা হাসপাতালের কাজ বন্ধ হয়ে গেলে এর জন্য যে বরাদ্দ সেই অর্থ চলে যাবে। সুতরাং পরবর্তীতে এই হাসপাতাল নির্মাণ অনেকটা অনিশ্চিত হয়ে পড়বে।’ সিলেট জেলা হাসপাতালের কাজ বন্ধ হয়ে যাক তা আমাদের কারো কাম্য নয়। আমরা শুধু চাই এই ভবনটি না ভেঙে হাসপাতাল নির্মাণ হোক। মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শ্রদ্ধেয় বড়ভাই সাবেক অর্থমন্ত্রী যখন এই ভবনের সংনক্ষনের কথা বলেন তখন আমিও সামনে ছিলাম। তিনি খুব দুঃখ প্রকাশ করেছেন এই ভবন ভেঙে ফেলা হবে সংবাদ পেয়ে এবং পরেরদিন নিজে গিয়ে পরিদর্শন করেন ভবনটি। আমাদের বিশ্বাস মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিজেও কষ্ট পাচ্ছেন এই ভবনটির জন্য। কিন্তু তিনি টাকার চলে যাওয়ার চিন্তায় কিংকর্তব্য বিমূঢ়। মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী যদি মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানকে সাথে নিয়ে দয়া করে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে বিষয়টি সম্পর্কে কথা বলেন তাবে সমস্যার অনেক সমাধান হয়ে যেতো।

আমাদের সাধারণ নাগরিকদের উচিৎ নিজেদের অবস্থান থেকে ঐতিহ্য ধ্বংসের প্রতিবাদ করে সাথে সাথে দাবী করা চন্ডিপুল, কোমারগাঁও, খাদিম, ফেঞ্চুগঞ্জ এবং গোলাপগঞ্জ সড়কের দিকে একেকটি হাসপাতাল নির্মাণ করার, এতে সিলেট শহরের উপর যানবাহন এবং জনমানুষের অনেক ছাপ কমবে। পাশাপাশি গ্রামাঞ্চলের মানুষ ভাল সেবা লাভ করবে। ওসমানী হাসপাতাল থেকে গ্রামের মানুষদের ছাপ কমলে শহরের মানুষ ভাল সেবা লাভ করবে।

এই সংবাদটি 1,056 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com