মঙ্গলবার, ০৯ এপ্রি ২০১৯ ০২:০৪ ঘণ্টা

গা ঘেঁষে দাঁড়াবেন না: টি-শার্টের নেপথ্যকথা

Share Button

গা ঘেঁষে দাঁড়াবেন না: টি-শার্টের নেপথ্যকথা

ডেস্করিপোর্ট:

বাসে একজন নারী দাঁড়িয়ে আছেন যার গায়ে পরিহিত টি-শার্টে লেখা ‘গা ঘেঁষে দাঁড়াবেন না’ – বাংলাদেশের এরকম কয়েকটি ছবি গত কয়েকদিন ফেসবুক ব্যবহারকারীদের মাঝে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

ঢাকার একটি ইন্টারনেট ভিত্তিক নারীদের পোশাক ও অলঙ্কার তৈরির প্রতিষ্ঠান এই ডিজাইনের টি-শার্টটি তৈরি এবং বাজারজাত করেছে।

প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারীদের একজন এবং টি-শার্টের ডিজাইনার জিনাত জাহান নিশা বিবিসিকে বলেন, গণপরিবহনে নিজের সাথে হওয়া হয়রানিমূলক ঘটনার প্রতিবাদ হিসেবেই এ ধরণের পণ্য তৈরি করার চিন্তা আসে তার মাথায়।

“কয়েকবছর আগে পাবলিক বাসে একবার যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার পর প্রতিবাদ করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছিলাম।”

মিজ. নিশা জানান, একজন বয়স্ক ব্যক্তির দ্বারা যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার পর বাসেই প্রতিবাদ করেন তিনি, কিন্তু সেসময় সেখানে উপস্থিত মানুষজন তাকে সহায়তা না করে উল্টো প্রতিবাদ থামানোর জন্য তাকে চাপ দেন।

“নিজে হয়রানির শিকার হওয়ার পরও প্রতিবাদ করতে না পারা এবং উপস্থিত মানুষজনকে অন্যায়কারীর পক্ষ নিতে দেখে সেদিন খুবই অপমানিত হয়েছিলাম।”

ঐ ঘটনার আগেও যৌন হয়রানির শিকার হলেও সেবারের ঘটনা তার ওপর অন্যরকম প্রভাব ফেলেছিল বলে জানান মিজ নিশা।

এর পরপরই প্রতিবাদ হিসেবে ‘গা ঘেঁষে দাঁড়াবেন না’ লেখা একটি খোঁপার কাঁটা তৈরি করেন এবং তার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বাজারে ছাড়েন মিজ. নিশা।

“ছবি আঁকা, ডিজাইন করার মত কাজগুলোর মাধ্যমেই আমি আমার অনুভূতি শেয়ার করি এবং হালকা বোধ করি।”
খোঁপার কাঁটাটি তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে বাজারে ছাড়া হলেও এই পণ্যের মাধ্যমে বাণিজ্যিকভাবে লাভবান হওয়ার উদ্দেশ্য ছিল না বলে জানান মিজ নিশা।

তিনি মনে করেন, বাংলাদেশে গণপরিবহনে যৌন হয়রানির শিকার অধিকাংশ নারীই তাদের সাথে ঘটা অন্যায়ের প্রতিবাদ করেন না। ঐ নারীদের জন্য প্রতিবাদের একটি মাধ্যম হিসেবে গত বছর নববর্ষের আগে খোঁপার কাঁটাটি বাজারে ছেড়েছিলেন বলে জানান তিনি।

খোঁপার কাঁটাটি বাণিজ্যিক সফলতা না পেলেও ঐ পণ্য সম্পর্কে দারুণ ইতিবাচক সাড়া পাওয়ায় এবছরেও একই বার্তা সম্বলিত পণ্য বাজারে ছাড়ার পরিকল্পনা করেন বলে জানান মিজ নিশা।

“বাংলাদেশে ভিড়ের বাসে নারীদের যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার ঘটনা খুবই সাধারণ।”

তিনি বলেন, “বাসে ভিড়ের মধ্যে গায়ের সাখে ধাক্কা লাগাটা খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু অনেকেই ভিড়ের সুযোগটা নেন, যার প্রতিবাদ করা প্রয়োজন।”

মিজ নিশা বলেন, বাসে অনেক পুরুষের সাথেই ছোঁয়া বা ধাক্কা লাগলেও সেসব পুরুষের মধ্যে কারা সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করেন তা একজন নারী সহজেই বুঝতে পারেন।

“বাসে পুরুষদের সাথে ধাক্কা লাগলে বা তারা আমার গা ঘেঁষে দাঁড়ালে আমার কোনো সমস্যা নেই। আমাদের দেশে ভিড়ের বাসে সেরকম হতেই পারে। কিন্তু অনেকেই সেই অবস্থার সুযোগ নিতে চান, যা একেবারেই গ্রহণযোগ্য নয়।”

ফেসবুকে যেরকম প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে

‘গা ঘেঁষে দাঁড়াবেন না’ লেখা টি-শার্টের ছবি ভাইরাল হওয়ার পর এনিয়ে বিভিন্ন রকম আলোচনা-সমালোচনা তৈরি হয়েছে। এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন অনেকে, আবার অনেকেই এর সমালোচনা করছেন।

মোস্তাফিজুর নূর ইমরান নামের একজন এই উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেছেন , “লোকে তো অনেক কিছু্‌ই বলবে, লোকের কাজই বলা। এগিয়ে যাও।”

অনেকে প্রশংসা বা অনুপ্রেরণা দিয়ে মন্তব্য করলেও নেতিবাচক মন্তব্য করা মানুষের সংখ্যাই বেশি বলে মনে করেন মিজ. নিশা।

নেতিবাচক মন্তব্যকারীদের অধিকাংশই ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে নারীদের টি-শার্ট পরার বিষয়টির সমালোচনা করেছেন।

অনেকেই বলেছেন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় নারীদের এমন পোশাক পরা উচিত নয়। করিম নামের এক ব্যক্তি লিখেছেন, “মানুষের কমেন্টগুলো দেখুন।

আপনাদের বোঝা উচিত এটা বাংলাদেশ।”

অনেকেই ছবিগুলোকে বিক্রি বাড়ানোর কৌশল বলে মন্তব্য করেছেন।

কিন্তু জিনাত জাহান নিশা জানান, বিক্রি বাড়ানোর পদ্ধতি বা আলোচনায় আসার কৌশল হিসেবে এই পণ্য তৈরি করেননি তারা। বাংলাদেশের গণপরিবহন, রাস্তাঘাটে নারীরা যেমন হয়রানির শিকার হন তার প্রতিবাদ হিসেবে বাজারে ছেড়েছেন এই পণ্য।

“সামাজিক মাধ্যমে এই ছবিগুলো ভাইরাল করার উদ্যোগ কিন্তু আমাদের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়নি। যারা এগুলো নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করছেন, ছবি বিকৃতভাবে এডিট করে ট্রল করছেন, তারাই এটিকে ভাইরাল করেছেন,” বলেন মিজ নিশা।

তবে এভাবে সমালোচনা ছড়িয়ে পরার ফলে টি-শার্ট তৈরির উদ্দেশ্য সফল হয়েছে বলে মনে করেন মিজ. নিশা।

“যাদের উদ্দেশ্যে এই লেখা সম্বলিত টি-শার্ট তৈরি করা, তাদের গায়ে ঠিকই লেগেছে এবং তারাই কিন্তু এর সমালোচনা করছেন।”

 

ফেসবুক থেকে সংগ্রহিত আরো কয়েকটি মন্তব্য এখানে তুলে ধরা হলো:

Ahasan Nobi

এটা কোনো প্রতিবাদের ভাষা নয়,নোংরামি ছাড়া। এটা বাংলা সাংস্কৃতিককে অবমাননা করেছে, করেছে নারী জাতিকে খাটো।আপনি যে বিষয়টি তুলে ধরেছেন, আমি তার সাথে একমত।এবং এর প্রতিবাদ করা অতীব জরুরি।এজন্য আমাদের সকলের এগিয়ে আসা উচিত বলবোনা,কর্তব্য।
কিন্তু প্রতিবাদের ভাষাটা ভিন্ন হতে পারতো, হতে পারতো শালীন।কিংবা এই কথাটাই, এই মেয়েটার দ্বারা এই পোশাকে প্রকাশ না করে,আরো একটু শালীন রুচিসম্মত পোশাকের মাধ্যমে প্রকাশ করলে সকল মানুষকে পাশে পাওয়া যেত,বিকৃত মানসিক সম্পন্ন ছাড়া।তাছাড়া আপনি শুধু তুলে ধরেছেন “গাঁ ঘেঁষে দাড়াবেন না”। কিন্তু না,এখানে আরো ভয়ংকর অশালীন কথা ছিল।একটা কথা মনে রাখতে হবে,”যদি কেউ পরিবর্তন আনতে চা, তবে তা সমাজের মধ্যে থেকে করতে হবে,এর বাইরে গিয়ে নয়। “

Jabed Mia

ভিতরের কথা বলতে পারি না এটা ব্যাবসার প্রচার না কি অন্য কিছু কিন্তু একটু বলতে পারি লিখাটা ভাল তবে এটার ছেয়ে ভাল হবে “দেশের ভাল পরিবর্তন চাই” আমরা এইভাবে আমাদের বোনদেরকে মাদেরকে অসহায় অবস্থায় দেখতে চাই না । হাসিনা কয়েক বার ঐ বাসগুলো দিয়ে চলাফেরা করা উচিত । প্রাসাদে বসে দেশের অবস্থা বুঝা যায় না ……উপর থেকে আমেরিকা দেখা যেতে পারে নেমে দেখুন….

কাছে আসার গল্প

“গা ঘেঁষে দাঁড়াবেন না” কথাটির মধ্যে একজন নারীর আৰ্তনাদ আছে, আছে তীব্র অস্বস্তি আর বেদনার নীলউপদ্রব, আছে কামুক পুরুষের প্রতি অনল ঘৃণা৷ এই কথাটিতে নারী চাইছে সুরক্ষা ও প্রীতিকর জীবনধারা৷ নারী চাইছে রক্ষিত সম্ভ্রম ও গচ্ছিত শ্রদ্ধা৷

“গা ঘেঁষে দাঁড়াবেন না” কথাটির অনুরোধ-আবদার ইসলাম বলে আসছে আদিকাল থেকে৷ তাই যাঁরা কাৰ্যত মুসলমান তাঁরা এই আবেদন পালন করে আসছে আদিকাল থেকেই৷ ফলে কাৰ্যত মুসলিম পুরুষগুলো প্রেমসুধায় মোহিত কামুক নিজ অৰ্ধাঙ্গিনীর প্রতি৷ আর অন্য নারীদের প্রতি মা ও কন্যা রূপে শ্রদ্ধাশীল ও স্নেহশীল৷
তেমনি প্রকৃত ইসলামি নারীগুলোও রূপে-ঢঙে-সাজের উষ্ণ চাহনির উদ্ধাহু আকৰ্ষণে ধরাশায়ী করে স্বামীকে৷ আর অন্য পুরুষদের বেলায় থাকে সার্বিক সংযত৷

কিন্তু নারী যখন নগ্নপ্রায় কাপড় পরে, পীনোন্নত বক্ষ উদামপ্রায় রেখে কামুক সাজে ও দৃশ্যে চলতে থাকে তখন কি একজন পুরুষ বলতে পারে: “সুড়সুড়ি দেবেন না”৷

মেয়ে:
এই যে মিস্টার, আপনি কেন সুড়সুড়ি নেবেন? আপনার কি মা-বোন-মেয়ে নেই? আপনি কেন নারীকে নিজের শয্যাশায়ী ভাবছেন?

ছেলে:
পুরুষ গা ঘেঁষে দাড়ালে, গা ঘেঁষে বসলে কিংবা গা টপকে সামনে গেলে আপনার কেন সুড়সুড়ি লাগে? আপনি কেন অস্বস্তিতে ভোগেন? আপনি কেন পুরুষের স্পৰ্শে কামভাব লাভ করেন? আপনার কি বাবা-ভাই-ছেলে নেই? তাদের সাথে কি আপনার স্পৰ্শ ঘটে না; তখনও কি আপনি কামুক হয়ে ওঠেন?

তৰ্কহীন সমাধান:
পুরুষ দৃষ্টি সংযত করো!
নারী সুড়সুড়ি দেয়া বন্ধ করো!

ভেবেছিলাম লিখবো কাছে আসার গল্পটি; থাক আরেকদিন হপ্পে!

বেহায়া বজ্জাতের মাথায় কতো কেজি গোবর আছে দেখে নিন! শ্লোগানটার পক্ষে সাফাই গাইলেন মাসুদা ভাট্টি! আচ্ছা বলুন তো “ধুমপান সাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর” লেখা থাকার পরও কয়জনে সিগারেট খাওয়া বাদ দিছে? এমন টাইপের ডায়ালগকে তিনি সাপোর্ট করে কী বুঝালেন? ভাট্টির কথায় আমরা মনে করি “গা ঘেঁষে দাড়াবেন না” মানে এটার বিপক্ষে কথা না বলে বরং কাছে যান, ঘেঁষে দাড়ান, মজা লুটেন, অশ্লীলতায় ঝুঁকে পড়েন, চরিত্রকে ধ্বংস করেন এমনটাই বলতে চাচ্ছেন তিনি! বৈ কি? নতুবা ঢালাওভাবে সুন্দরী মেয়েদের দিয়ে গায়ে লাগিয়ে এসব প্রচারণার মানে কি?

 

 

 

এই সংবাদটি 1,081 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com