মঙ্গলবার, ০৯ এপ্রি ২০১৯ ০৬:০৪ ঘণ্টা

শরী’আতে শবে বরা’আত বলে কিছু আছে কী?

Share Button

শরী’আতে শবে বরা’আত বলে কিছু আছে কী?

 

মাওলানা মুফতি নূরুল আলম জাবের:  শবে বরা’আতের ফজীলত নির্ভরযোগ্য হাদীস দ্বারা প্রমাণিত। সম্মিলিত কোনো রূপ না দিয়ে এবং এ রাত উদযাপনের বিশেষ কোনো পন্থা উদ্ভাবন না করে শক্তি ও সামর্থানুযায়ী বেশি বেশি ইবাদত করাও নির্ভরযোগ্য রেওয়ায়েত দ্বারা প্রমাণিত।
এখানে শবে বরা’আতের ফজীলত ও করণীয় বিষয়ে কিছু হাদীস যথাযথ উদ্ধৃতি ও সনদের নির্ভরযোগ্যতাসহ উল্লেখ সম্মানিত পাঠক মহলের সামনে তুলে ধরছি।
প্রথম হাদীস:
হজরত মু’আজ ইবনে জাবাল রা.বলেন, রাসূল সা.ইরশাদ করেন আল্লাহ তা’আলা ১৫ শা’বানের রাতে সৃষ্টির দিকে রহমতের দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষপোষণকারী ব্যতীত আর সবাইকে ক্ষমা করে দেন।
(সহীহ ইবনে হিব্বান,হাদীস নং ৫৬৫৬, সিলসিলাতুল আহাদিসিস সহীহাহ- ৩/৩১৫)
দ্বিতীয় হাদীস:
হজরত আ’লা ইবনুল হারেস থেকে বর্ণিত,হজরত আয়েশা রা. বলেন,একরাতে রাসূল সা. নামাজে দাঁড়ান এবং এত দীর্ঘ সিজদা করেন যে,আমার ধারণা হলো তিনি হয়তো মৃত্যুবরণ করেছেন,আমি তখন উঠে তাঁর বৃদ্ধাঙ্গুলী নাড়া দিলাম, এবং তাঁকে স্ব-চেতন পেলাম। তাই আমার বিশ্বাস হলো যে,তিনি জীবিত আছেন। অতঃপর আমি আমার বিছানায় ফিরে এলাম। যখন তিনি সিজদা থেকে উঠলেন এবং নামাজ শেষ করলেন,তখন আমাকে লক্ষ করে বললেন, হে হুমায়রা /আয়েশা! তোমার কি এ আশংকা হয়েছে যে,আল্লাহর রাসূল তোমার হক্ব নষ্ট করবেন? আমি উত্তরে বললাম না,ইয়া রাসূলুল্লাহ! তবে আপনার দীর্ঘ সিজদা থেকে আমার আশংকা হয়েছিলো আপনি মৃত্যুবরণ করেছেন কিনা? রাসূল সা. জিজ্ঞেস করলেন,তুমি কি জান এটা কোন রাত? আমি বললাম আল্লাহ ও তাঁর রাসূলই এ সম্পর্কে অধিক জ্ঞাত। রাসূল সা. তখন ইরশাদ করেন, এ রাতটি অর্ধ শা’বানের রাত। আল্লাহ তা’আলা এ রাতে তাঁর বান্দাদের প্রতি বিশেষ করুনার দৃষ্টি দেন এবং ক্ষমা প্রার্থীদের ক্ষমা করেন ও অনুগ্রহ প্রার্থীদের অনুগ্রহ করেন। আর বিদ্বেষপোষণকারীদের স্বীয় অবস্তার ওপড় ছেড়ে দেন। হিংসা পরিত্যাগ না করা পর্যন্ত তাকে ক্ষমা করেন না।(শো’আবুল ঈমান,হাদীস নং-৩৮৩৫,আত তারগীব ওয়াত তাওহীব ২/২৪২,আদ দূররুল মানসুর ৬/২৭)
তৃতীয় হাদীস:
একদা হজরত আয়েশা রা.নবীজি সা.-কে না পেয়ে খুঁজতে বের হলেন,হুজুর সা.-কে জান্নাতুল বাক্বিতে পেলেন,তখন নবী কারীম সা. বললেন ১৪ শা’বান দিবাগত রাতে আল্লাহ তা’আলা প্রথম আকাশে অবতরণ করেন এবং বনু কালব গোত্রের পালিত ছাগলপালের শরীরের পশমের চেয়েও অধিক সংখ্যক বান্দাকে ক্ষমা করে দেন।
(তিরমিজী শরীফ-হাদীস নং-৭৩৬,ইবনে মাজাহ হাদীস নং ১৩৮৫)
চতুর্থ হাদীস:
হজরত আলী ইবনে আবি তালিব রা.থেকে বর্ণিত,নবী সা. ইরশাদ করেন,অর্ধ শা’বানের রাত যখন আসে,তখন তোমরা এ রাত্রি ইবাদত বন্দেগীতে মগ্ন থাকো এবং দিনের বেলা রোজা রাখো। কেননা এ রাতের সূর্যাস্তের পর আল্লাহ তা’আলা প্রথম আকাশে অবতরণ করেন এবং বলেন, কোনো ক্ষমাপ্রার্থী আছে কি? আমি তাকে ক্ষমা করে দেব।আছে কি কোনো রিজিকপ্রার্থী? আমি তাকে রিজিক দেব।কোনো বিপদগ্রস্থ আছে কি? আমি তাকে বিপদমুক্ত করব। এভাবে সুবহে সাদিক পর্যন্ত আল্লাহ তা’আলা মানুষের প্রয়োজনের কথা বলে তাকে ডাকতে থাকেন।
(ইবনে মাজাহ,হাদীস নং-১৩৮৪, বায়হাক্বী শো’আবুল ঈমান হা.নং.৩৮২২, আত তারগীব ওয়াত তাওহীব ২/২৪২)
মাত্র কয়েকটি হাদীস পেশ করা হলো। হাদীসের কিতাবে আরো বহু হাদীস রয়েছে।
উল্লেখিত হাদীস সমূহের সনদ (সূত্র) বিষয়ক আলোচনা:
১ম হাদীসের সনদ : হাদীসটি সহীহ, এ জন্যই ইমাম ইবনে হিব্বান রাহ. একে কিতাবুস সহীহ-এ বর্ণনা করেছেন।ইমাম মুনজিরী,ইবনে রজব,কাস্তাল্লানী,জুরকানী,নূরুদ্দীন হাইসামী এবং অন্যান্য হাদীস বিশারদগণ এ হাদীসকে আমলযোগ্য সহীহ বলেছেন।
(দেখুন : তারগীব তারহীব ২/১১৮,৩/৪৫৯,লাত্বাইফুল মা’আরিফ ১৫১,মাজমাউজ জাওয়াইদ৮/৬৫,শারহুল মাওয়াহিব ১০/৫৬১)
* বর্তমান লা মাযহাবী (আহলে হাদীস) ভাইদের প্রসিদ্ধ শাইখ নাসীরুদ্দীন আলবানী রাহ. সিলসিলাতুল আহাদীসিস সহীহাহ গ্রন্থের ৩/১৩৫-১৩৯-এ এই হাদীসের সমর্থনে আরো আটটি হাদীস উল্লেখ করার পর লেখেন,এ সব রেওয়ায়েতের মাধ্যমে হাদীসটি নিঃসন্দেহে সহীহ প্রমাণিত হয়।
এরপর শাইখ আলবানী ওই সবলোকদের বক্তব্য খ-ন করেন,যারা কোনোধরণের খোঁজ-খবর ছাড়াই বলে দেন যে,শবে বরা’আতের ব্যাপারে কোনো সহীহ হাদীস নেই।তদ্রুপ শাইখ আব্দুর রাহমান মোবারকপুরী তাঁর তুহফাতুল আহওয়াজী গ্রন্থের ২/৫৩-এ শবে বরা’আতের হাদীসকে আমলযোগ্য প্রমাণিত করেছেন।
২য় হাদীসটি ইমাম বায়হাক্বী রাহ.বর্ণনা করার পর সনদের ব্যাপারে বলেছেন, মুরসালুন জায়্যিদুন, অর্থাৎ আমলযোগ্য।
৩য় হাদীসটি আমলের ক্ষেত্রে গ্রহণযোগ্য। সকল বর্ণনাকারী সিক্বাত,নির্ভরযোগ্য,সনদের মধ্যে ইনকেতা থাকায় ইমাম বুখারী রাহ.জয়ীফ বলেছেন। (সিলসিলাতুল আহাদীসিস সহীহাহ ৩/৩১৮)
৪র্থ হাদীসটির সনদ জয়ীফ। বর্ণনাকারীদের মধ্যে একমাত্র ইবনে আবি সাবুরাহ্র কারণেই হাদীসটি দূর্বল বলে গণ্য হয়েছে। তাই বলে উক্ত হাদীসটিকে মাওজু কিংবা জাল হাদীস বলা মোটেই ঠিক নয়।অদ্যাবধি কোনো ইমাম বা হাফিজুল হাদীস এ হাদীসটিকে জাল বলেননি। তা ছাড়া ইমাম ইবনুল জাওজী রাহ.,আল্লামা বুসাইরী রাহ.,আল্লামা আব্দুর রশীদ নোমানী রাহ.প্রমুখ উলামায়ে কেরাম যাঁরা সুনানে ইবনে মাজায় “মাওজু” জাল হাদীসগুলোকে সনাক্ত করেছেন। তাঁদের কেহই উল্লিখিত হাদীসটিকে “মাওজু” জাল হাদীসের তালিকায় অর্ন্তভূক্ত করেননি। এমনকি লা মাযহাবীদের মান্যবর আলেম আল্লামা শাওকানী রাহ.আল কাওয়াইদুল মাজমু’আ গ্রন্থে উক্ত হাদীসটিকে কেবল দূর্বল বলেছেন,জাল বলেননি।(বিস্তারিত দেখুন: সিয়ারু আ’লামিন নুবালা ৭/৩৩০-৩৩২,তাহজীবুত তাহজীব ১২/২৭)
আর মুহাদ্দিসীনে কেরামের সিদ্ধান্ত হলো ফাজায়েলের ক্ষেত্রে জয়ীফ হাদীস গ্রহণযোগ্য।
(কিতাবুল আজকার-৭, ফাতহুল কাদীর ১/৪৬৭,ফাতহুল মুবিন-৩২,আল আজবিবাতুল ফাজিলাহ-৫৭)
ফুক্কাহায়ে কেরামের দৃষ্টিতে শবে বরা’আত :
ফেক্বহে হানাফী:
আল্লামা ইবনে নুজাইম রাহ.,আল্লামা শামী রাহ.,আল্লামা আব্দুল হাই লকনোভী রাহ.,আল্লামা শুরুম্বুলালী রাহ.,শাইখ আব্দুল হক দেহলভী রাহ.,হাকীমূল উম্মত আশরাফ আলী থানভী রাহ.,মুফতি মুহাম্মাদ শফী রাহ.প্রমুখ ফেক্বাহবিদগণ শবে বরা’আতে শক্তি-সামার্থানুযায়ী জাগ্রত থেকে একাকিভাবে ইবাদত করা মুস্তাহাব বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন। (আল বাহরুর রাইক ২/৫২,রাদ্দুল মুহতার ২/২৪-২৫,মা সাবাতা বিসসুন্নাহ-৩৬,মারাকিউল ফালাহ-২১৯,জাওয়ালুস সুন্নাহ-১৭,শবে বরা’আতের হাক্বীক্বত-শায়খুল ইসলাম মুফতি তাকী উসমানী দা.বা.)
ফেক্বহে মালেকী:
ইবনুল হাজ্ব মালেকী রাহ.বলেন,সালাফে সালেহীনগণ এ রাতকে যথেষ্ট সম্মান করতেন এবং এর জন্য পূর্ব থেকে প্রস্তুতি গ্রহণ করতেন। ( আল মাদখাল-১/২৯২-২৯৩)

ফেক্বহে শাফেয়ী:
ইমাম শাফী রাহ. বলেন, গোটা বছরে পাঁচটি নির্দিষ্ট রাত এমন আছে যাতে যাতে বেশি বেশি দু’আ কবুল হয়ে থাকে। যথা-১.জুমু’আর রাত, ২.ঈদুল আজহা,৩. ঈদুল ফিত্র,৪. রজব মাসের ১ম রাত, ৫.শা’বানের ১৫ তম রাত। এ রাত্রিগুলোতে ইবাদত করাকে আমি মুস্তাহাব মনে কার।(কিতাবুল উম্ম -১/২৩১)
ফেক্বহে হাম্বলী:
শাইখ ইবনে মুফলিহ হাম্বলী রাহ., মানসুর আল বাহুতী রাহ.,ইবনে রজব হাম্বলী রাহ.সহ প্রমুখ ফেক্বাহবিদগণ শবে বরা’আতে ইবাদত করা মুস্তাহাব বলেছেন।(আল মাবদা ২/২৭,কাশফুল ক্বিনা ১/৪৪৫, লাত্বাইফুল মা’আরিফ ১৫১-১৬০)
মোদ্দাকথা: চারো মাযহাব তথা সকল উলামায়ে কেরামদের মতে শবে বরা’আতের ফজিলত স্বীকৃত এবং এ রাতে ইবাদত করা মুস্তাহাব।
লা মাযহাবীদের অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব আল্লামা ইবনে তাইমিয়া রাহ.-এর ফতোয়া :
১৫ শা’বানের রাতে একা একা নফল নামাজ এবং ইবাদত করা উত্তম। কেননা এর ফজিলত সংক্রান্ত বহু হাদীস এবং আছার বর্ণিত হয়েছে।( আল ফাতাওয়াতুল কুবরা)
লা মাযহাবী ভাইদের প্রতি আবেদন :
শবে বরা’আত সম্পর্কে আপনাদের কোনো আপত্তি থাকলে সমাজে বিভ্রান্তি না ছড়িয়ে প্রথমে আপনাদেরই অনুকরণীয় ও মান্যবর ব্যক্তিত্ব শাইখুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া রাহ.-এর ইকতেজাউস সিরাতিল মুসতাক্বীম ২/৬৩১-৬৪৩,লা মায়হাবীদের নেতা শাইখ আলবানী রাহ.-এর সিলসিলাতুল আহাদীসিস সহীহাহ ৩/১৩৫-১৩৯,
লা মায়হাবী আলেম আল্লামা মোবারকপুরী রাহ.-এর তুহফাতুল আহওয়াজী ২/৫৩ কিতাবসমুহ অধ্যয়ণ করুন। আপনাদের আপত্তি দূর হয়ে যাবে ইন শা আল্লাহ।
শবে বরা’আতে করণীয় ও বর্জনীয় :
করণীয় : অধিক হারে নফল ইবাদত,যেমন-কুরআন তেলাওয়াত,যে কোনো সূরা দিয়ে নফল নামাজ,জিক্র-আজকার,কবর জিয়ারত,দু’আ,ইস্তেগফার। উক্ত ইবাদতসমূহ সমবেতভাবে নয় বরং একাকি করতে হবে।
উল্লেখ্য: উক্ত রাতে কোনো ধরা বান্ধা বিশেষ নিয়মে নফল নামাজ পড়া হাদীস দ্বারা প্রমাণিত নয়। শবে বরা’আতের পরদিন ১৫ শা’বান রোজা রাখা মুস্তাহাব তবে শা’বানের ১৩,১৪ ও ১৫ তারিখে রোজা রাখা সর্বোত্তম।
শবে বরা’আতে বর্জনীয় :
১.জামাতবদ্ধ হয়ে মসজিদে জিক্র-আজকার,দু’আ-দুরূদ পাঠ করা। কনেনা এতে ইবাদতের মানসিকতা থাকে না বরং একটা রুসুম বা রেওয়াজ পালন করা হয়,যা অনেক ক্ষেত্রে বিদ’আতে পরিণত হয়ে যায়।
২.মাইক দিয়ে ওয়াজ-নসিহত,শবিনাখতম। এতে ইবাদত,অসুস্থব্যক্তিরবিশ্রাম,কর্মব্যস্ত মানুষের কাজ,লেখাপড়ায় ব্যঘাত সৃষ্টি হয়,মুসলমানদের অযথা কষ্ট দেয়া হয়। যা শরীয়তের দৃষ্টিতে কোনোভাবেই বৈধ নয়।
৩.মাজারে মাজারে ঘুরাঘুরি করা। মুল্লা-মুন্সি ডেকে কবর জিয়ারত করানো, হাদীসে তো কবর জিয়ারত করার কথা এসেছে,করানোর কথা কোথায়ও নেই।
৪. জামাতের সহিত সালাতুত তাসবীহ বা তাহাজ্জুদের নামাজ পড়া।
৫.আতশবাজি,হালুয়া,রুঠি,শিরনি-তাবাররুক,মেলা বসানো,প্রচলিত মিলাদ-কিয়াম,ইত্যাদি।
আল্লাহ তা’আলা আমাদের কুরআন-সুন্নাহর আলোকে সঠিকভাবে বুঝে শবে বরা’আতে আমলসহ শরীয়তের যাবতীয় হুকুম পালন করার তাওফীক দান করুন। আমীন।
লেখক:মুহাদ্দিস ও মুফতি,জামেয়া ইসলামিয়া দারুল হাদীস দরগাহে হজরত শাহপরাণ রাহ.সিলেট।
মোবাইল: ০১৭১৬৮২৬০৬৩

এই সংবাদটি 1,181 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com