শনিবার, ১৩ এপ্রি ২০১৯ ০৯:০৪ ঘণ্টা

মিডিয়ায় বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ- চায় সাধারণ মানূষ

Share Button

মিডিয়ায় বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ- চায় সাধারণ মানূষ

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার: সংবাদপত্র ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া দুটি- শিল্প বৈশিষ্ট্য হলেও দূটিই শক্তিশালী গণমাধ্যম । আমাদের দেশে টিভি চ্যানেলের প্রসার ঘটার আগ পর্যন্ত সংবাদপত্রই ছিল- প্রধান সংবাদমাধ্যম । এমনকি বিগত শতকে টেলিভিশনের বিপুল জনপ্রিয়তার সংবাদপত্র বা মূদ্রিত গণমাধ্যমের সংহত অবস্থানকে কেউ নাড়াতে পারেনি। সে সময়’ টেলিভিশন সংবাদমাধ্যমের চেয়ে বিনোদন মাধ্যম হিসেবেই বেশি সমাদৃত ছিল-। কিন্তুু সাম্প্রতিককালে অনেক ইলেকট্রনিক মিডিয়া ২৪ ঘন্টাই সংবাদ- পরিবেশন করে মূদ্রিত গণমাধ্যমকে এক ধরনের ঝুঁকিতে ফেলেছে । কেননা মানূষ কোন মাধ্যম থেকে খবরটি পেল, সেটি গুরুত্বপুর্ণ নয়, গুরুত্বপুর্ণ হলো কদ দ্রুত খবরটি পাওয়া যায়।

অস্বিকার করার উপায় নেই, বিশ্বব্যাপী সংবাদপত্র বা মূদ্রিত গণমাধ্যমের মন্দা চলছে। বিশেষ করে উন্নত পশ্চিমা বিশ্বে অনেক নামকরা পত্রিকা বন্ধ হয়ে গেছে। দুটি- পত্রিকা একীভূত হওয়ার ঘটনারও ঘটেছে । সম্প্রতি আমাদের দেশসহ অনেক দেশে অনেক পত্রিকার মূদ্রণ – সংস্করণ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে । অনেক খ্যাতনামা পত্রিকার প্রচার সংখ্যা কমে গেছে। এই প্রচার সংখ্যার সঙ্গে বিজ্ঞাপন ব্যবসার সম্পর্কটি অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত। পত্রিকা একটি বিক্রয়যোগ্য পণ্যও বটে। পাঠকের চাহিদা কমে গেলে আয়ের প্রধান উৎস বিজ্ঞাপনও কমে যায়। মূদ্রিত দৈনিক পত্রিকা প্রকাশিত হয় ২৪ ঘন্টা পর, আর বৈদ্যুতিক ইলেকট্রনিক মাধ্যম প্রতি ঘন্টায় এমনকি মিনিটে মিনিটে হালনাগাদ খবর পরিবেশন করে থাকে। সাম্প্রতিক একাধিক জরিপ অনুযায়ী বিশ্বের অন্যান্য স্থানে পত্রিকার পাঠক’ কমে গেলেও এশিয়ায় পাঠক কমেনি। বরং চীন ও দক্ষিণ এশিয়ায় প্রতিটি দেশে পত্রিকার প্রচার সংখ্যা বেড়েছে । গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞদের মতে আগামী ২০- ২৫ বছর দক্ষিণ এশিয়ায় সংবাদপত্রের প্রচার- সংখ্যা কমার আশস্কা নেই। এর সাজামিক, রাজনৈতিক ও মনস্তত্ত্বিক কারণ আছে। দক্ষিণ এশিয়ার মানু্ষ অনেক বেশি রাজনীতি সচেতন। একজন রাজনীতি সচেতন মানুষের জন্য কেবল তথ্য পাওয়াই যথেষ্ট নয়, তথ্যের সঙ্গে তিনি বিশ্লেষণ পেতে চান।

অন্যের ভাবনার সঙ্গে নিজের ভাবনাকে মিলিয়ে নিতে চান। অন্যদিকে দক্ষিণ এশিয়ায় প্রতিটি দেশের অর্থনীতি দ্রুত বিকশিত হচ্ছে । শিক্ষার হাড় বাড়ছে। সেই- সঙ্গে মানুষের জীবনযাত্রার মান বেড়েছে, বেড়েছে জীবনযাপনের চাহিদা। সে কারনে একজন পাঠক’ কেবল দেশ – বিদেশের খবর জানতেই পত্রিকা পড়েন না তিনি তার দৈনন্দিন চাহিদা ও প্রয়োজনের বিষয়টি পত্রিকায় পেতে চান, যা বৈদ্যুতিক মাধ্যমে সব সময় সম্বভ হয়না ।
বাংলাদেশে বর্তমানে অসংখ্য টিভি চ্যানেল থাকলেও এর অতিমাত্রা কয়েকটি বড় শহর ও আশপাশের এলাকায়ই সীমিত । সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারই ভরসা। সম্প্রতি বেসরকারি পর্যায়ের কয়েকটি এফএম রেডিও চালু হলেও তাও মেট্রোপলিটন এলাকার বাইরে যেতে পারেনি। সে ক্ষেত্রে এখনো বিশাল জনগোষ্ঠী সংবাদপত্রকেই তাদের একমাত্র তথ্য- পাওয়ার এবং ভাবনা যোগানোর মাধ্যম বলে মনে করে। তা ছাড়া স্যাটেলাইট মাধ্যমে বেসরকারি টিভি চ্যানেলের বাইরে যে বিশাল জনগোষ্ঠী আছে, তারা এর বাইরেই থেকে যাচ্ছেন। বাংলাদেশে বর্তমানে দৈনিক – সাপ্তাহিক মিলে পত্রিকার মোট প্রচার সংখ্যা মোটেও কম নয় । অথচ প্রতি বছর ১৫ থেকে ২০ লাখ শিক্ষিত তরুণ’ যুক্ত হচ্ছে । তাদের সবার হাতে এখনো পত্রিকা পৌচ্ছানো সম্বভ হচ্ছে না । অনেকে সামর্থ্যের অভাবে পত্রিকা কিনতে পারছেন না। যে হাতে মানুষের অর্থনৈতিক সফলতা বাড়ছে, সেই- হাড়ে পত্রিকার পাঠক’ বাড়েনি। অর্থাৎ পত্রিকার পাঠক’ বাড়ানোর সুযোগ আছে কিন্তুু সেই- সুযোগটি কাজে লাগানোর উদ্দ্যেগ গ্রহণ করা হচ্ছে না।

সাংবাদিকতা মানুষের কথা বলার জন্য । বিশেষ করে সাধারণ মানুষের যাদের দেখার কেউ নেই, পক্ষে বলার মতো কেউ নেই । তাদের সত্যিটুকু তুলে ধরাই হচ্ছে মূলত সত্যিকারের সাংবাদিকের আনন্দ । কিন্তু একটি গোষ্ঠী আজ একে প্রতিহত করার জন্য সব চেষ্টা করে । এরা ক্ষমতায় থাকলে এ কর্মকাণ্ডে রাষ্ট্র রবাহত জড়িয়ে পড়ে । সত্য স্তব্ধ করার পন্থা বহুমাত্রিক। বর্তমান যুগে এই মাত্রিকতা এতো ভয়াবহ যে, সাংবাদিকতা আজ থাকবে কিনা তা নিয়েই এখন প্রশ্ন উঠেছে । বিশ্বের দুটি বিখ্যাত সংস্থা বিশ্বের সংবাদমাধ্যমর ওপর দৃষ্টি রাখে এবং প্রতি বছর কোন দেশ সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা কতটুকু ছাড় দেয় তা স্তর নির্ণয় করে । যেমন- ফ্রিডম হাউস ও রিপোর্টারস উইদাউট বর্ডারস কয়েক বছর ধরে ফিনল্যান্ডে, নেদারল্যান্ডস, ও নরওয়েকে এই ” রেংকিংয়ে ” প্রথম, দ্বিতীয় , ও তৃতীয় স্থানে রেখেছে । এই দূটি সংস্থাই মন্তব্য করেছে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব হয়েছে সর্বাধিক দক্ষিণ এশিয়ায় এবং এই নিম্নমূখী ধস এখনো অব্যাহত । অর্থাৎ – স্বাধীন সংবাদমাধ্যম মানুষের স্বাধীনতার উন্নতি এবং সুন্দর জীবন নিশ্চিত করনের প্রধানত একমাত্র পথ।

সদস্য- ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন ( ডিইউজে ) ও আহবায়কঃ জাতীয় জনতা-ফোরাম

এই সংবাদটি 1,014 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com