রবিবার, ১৪ এপ্রি ২০১৯ ০৬:০৪ ঘণ্টা

বাংলা হিজরী সন একটি ছোট্ট ভুল!

Share Button

বাংলা হিজরী সন একটি ছোট্ট ভুল!

 

মাওলানা শায়খ উছমানগণী:
বাংলা সনের সূচনা মোঘল সম্রাট আকবরের আমলে। তৎকালিন রাজ সভার পণ্ডিৎ আমির ফতেহ উল্লাহ সিরাজী সম্রাটের নির্দেশে এর প্রবর্তন করেন। তার পূর্ব পর্যন্ত ভারত বর্ষে মুসলিম শাসকগণ হিজরী সন ব্যবহার করতেন। হিজরী সন চান্দ্র মাস অনুযায়ী হিসেব করা হতো বিধায় প্রতি বছর ১০ বা ১১ দিন এগিয়ে যেতো। এভাবে প্রতি তিন বছরে ১ মাস এগিয়ে আসতো বছর। তখন অর্থনীতির প্রধান খাত ছিল কৃষি। রাষ্ট্রীয় আয়ের প্রধান উৎস ছিল খাজনা। আর খাজনা আদায়ের উপযুক্ত সময় ছিল ফসল তোলার সময়। কিন্তু হিজরী চান্দ্র বর্ষের শুরু ও শেষ সব সময় ফসল তোলর সময়ে হয় না বিধায় খাজনা আদায়ে অসুবিধা হতো। এ সমস্যা সমাধানের জন্য মহামতি আকবর একটি নতুন পঞ্জিকার প্রয়োজন অনুভব করেন এবং পণ্ডিৎ মোল্লা ফতেহ উল্লাহ সিরাজীকে এই পঞ্জিকা প্রবর্তনের দায়িত্ব দেওয়া হয়।
মির ফতেহ উল্লাহ সিরাজী হিজরী সনকে মূল ধরে তৎকালে প্রচলিত সৌর বর্ষের বাংলা মাসগুলোকে ব্যবহার করে এবং সম্রাট আকবরের সিংহাসনারোহনের বছরকে প্রথম বছর ধরে একটি পঞ্জিকা প্রবর্তন করেন; যার নাম দেন ‘হিজরী বাংলা সন’বা ‘ফসলী সন। কালের বিবর্তনে তা আজ বাংলা সন বা বাংলা সাল হিসেবে পরিচিত।
মনে করি সম্রাট আকবরের সিংহাসনারোহনের সনটি ছিল হিজরী ৯০০। এবং মৌলভী ফতেহ উল্লাহ সিরাজীর ক্যালেন্ডারে যাকে হিজরী সৌর বর্ষ- ৯০১ ধরা হয়েছে। কথা হলো সৌর বর্ষ হয় ৩৬৫ দিনে আর চান্দ্র বর্ষ হয় ৩৫৪ বা ৩৫৫ দিনে। তবে পিছনের ঐ ৯০০ বছরকে সৌরবর্ষে রূপান্তরিত করতে গেলে আনুমানিক ২৭ বছর বিয়োগ করতে হতো, তা কিন্তু করা হয়নি। সুতরাং বর্তমান বাংলা সনটি হিজরী চান্দ্র বর্ষ যেমন ঠিক থাকলো না তেমনি সঠিকভাবে হিজরী সৌর বর্ষেও রূপান্তরিত হলো না। না ঘোড়া, না গাধা মানে খচ্চর। আর জিহরী সন ও বাংলা সনের বিদ্যমান যে পার্থক্য (১৪৩৬-১৪২১= ১৫ বছর প্রায়) তাও একই কারণে সংঘটিত হয়েছে।
সন সময়ের ব্যবধান বা দূরত্ব নির্দেশ করে। বর্তমানে বাংলা ১৪২৬ সন, এটি বুঝায় হিজরত হয়েছিল আজথেকে ১৪২৬ বছর তথা ১৪২৬ x ৩৬৫ = ৫,২০,৪৯০ দিন পূর্বে। কিন্তু এই ১৪২৬ এর মধ্যে ৯০০ হলো ৩৫৪ ও ৩৫৫ দিনের বছর অবশিষ্ট ৬২১ হলো ৩৬৫ দিনের বছর। তাই প্রকৃত ১৪২৬ বছর বলতে সময়ের যে দূরত্ব বুঝা যেতো এই ১৪২৬ বলতে তা বুঝা যাবে না।
উল্লেখ্য যে, সৌদী আরব ও ইরানসহ মধ্য প্রাচ্যের দেশগুলোতে হিজরী চান্দ্র বর্ষের পাশা পাশি হিজরী সৌর বর্ষও ব্যবহৃত হয়। দুটি সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র বিধায় এতে অসুবিধা হয় না, বরং সুবিধা হয়।

এই সংবাদটি 1,086 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com