বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রি ২০১৯ ০১:০৪ ঘণ্টা

দক্ষিণ সুরমায় তালামীযের উদ্যোগে খৎনা ক্যাম্পিং সম্পন্ন

Share Button

দক্ষিণ সুরমায় তালামীযের উদ্যোগে খৎনা ক্যাম্পিং সম্পন্ন

সিলেট রিপোর্ট

বাংলাদেশ আনজুমানে তালামীযে ইসলামিয়ার সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ ফখরুল ইসলাম বলেছেন, বর্তমান সময়ে আমাদের দেশের সরলপ্রাণ মুসলমানদেরকে শবে বরাতের মতো বরকতময় রাত থেকে বিরত রাখতে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে । শবে বরাত অস্বীকার করা কিংবা এ বিষয়ে কোন বর্ণনা নেই বলা মূর্খতার শামিল। কেননা বিশুদ্ধ বহু হাদীসগ্রন্থে এ সম্পর্কে বর্ণনা রয়েছে। এমনকি যারা শবে বরাত অস্বীকার করেন তাদের মান্যবর ব্যক্তিরাও এ রাতের ফযিলত স্বীকার করেছেন এবং এ বিষয়ে সহীহ হাদীস রয়েছে তাও বলেছেন। দেশের মুসলিম সমাজকে শবে বরাত নিয়ে সকল অপপ্রচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহবান জানান তিনি।তিনি আরো বলেন, মকবুল রাতসমূহে আমাদের নেক আমলে মনোনিবেশ করতে হবে। পাশাপাশি অপ্রয়োজনীয় ও অনর্থক কাজ ও কুসংস্কার থেকে বেঁচে থাকতে হবে।
মঙ্গলবার সকালে কামাল বাজারস্থ মনোয়ারা গনি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশ আনজুমানে তালামীযে ইসলামিয়া দক্ষিণ সুরমা থানা শাখার উদ্যোগে “পবিত্র শবে বরাতে আমাদের করণীয়-বর্জনীয়” শীর্ষক সেমিনার ও গরীব অসহায় শিশুদের ফ্রি খৎনা ক্যাম্পিং অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
দক্ষিণ সুরমা থানা তালামীযের সভাপতি মুহাম্মদ আলাউদ্দিন পাশার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক হাফিজ শামসুল ইসলামের পরিচালনায় উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সহ সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ উসমান গনি, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহর সিলেট জেলার প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল মালিক,আলহাজ্ব তাহির আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ আজম আলী,এম সি কলেজ তালামীযের সাবেক সভাপতি শেখ শফি উদ্দিন,সিলেট পূর্ব জেলা তালামীযের অর্থ সম্পাদক লাবিবুর রহমান লাভলু, দাউদ পুর ইউনিয়ন তালামীযের সভাপতি সোহেল আহমদ,আওয়ামিলীগ নেতা মাসুক আহমদ, নিশ্চিন্ত পুর মাদরাসার শিক্ষক মাওলানা সোলেমান আহমদ, অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা আল ইসলাহ সদস্য হাফিজ রওশন আহমদ,আহসান উল্লাহ হাফিজিয়া মাদরাসার শিক্ষক হাফিজ মাসুক আহমদ,সংগঠনের দক্ষিণ সুরমা থানা সহ সভাপতি রেদ্বওয়ান রাজা, সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম,প্রচার সম্পাদক নিজাম উদ্দিন,সহ প্রচার সম্পাদক ফখরুল ইসলাম,অফিস সম্পাদক সায়েম আহমদ ইমন,তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয় সম্পাদক বদরুল ইসলাম,সদস্য খায়রুল ইসলাম, তেতলী ৫ ও ৬ আঞ্চলিক শাখার সভাপতি আব্দুল মছব্বির,মোল্লার গাও পশ্চিম আঞ্চলিক শাখার সভাপতি জয়নাল আবেদীন,কামাল বাজার ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ আহমদ,রায়হান আহমদ, আব্দুল কাদির ও শাহিন আহমদ প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,006 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com