বুধবার, ০১ মে ২০১৯ ০৩:০৫ ঘণ্টা

মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (রহঃ): সোনালী দিনগুলির সূখানুভূতি

Share Button

মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (রহঃ): সোনালী দিনগুলির সূখানুভূতি

 

খালেদুজ্জামান : শান্তশিষ্ট বহমান ক্ষুদ্র তটিনীতে বিশাল জলধির উত্তাল তরঙ্গমালা আছড়ে পড়লে তরঙ্গীনির বক্ষ যেমন প্রশস্ত হয়ে যায়। কানায় কানায় ভরে ওঠে অথৈ জলে। সুবিশাল জলরাশির বিক্ষুদ্ধ উর্মিমালার রুপালী কান্তি যেমন তাকে আকৃষ্ট করে। তার নির্লিপ্ততা যেমন প্রবাহিনীকে হাতছানী দিয়ে ডাকে। বারিধির গর্ভে নিজেকে বিলীন করে দেয়ার জন্য যেমন সে ব্যাকুল হয়ে উঠে। অবশেষে একসময় প্রচন্ড অস্থিরতা আর ব্যাকুলতার বোঝা নিয়ে বাধার সমস্ত প্রাচীর ডিঙ্গিয়ে সাগর বক্ষে ঝাঁপ দিয়ে সলিল সমাধি করেই তবে ক্ষ্যান্ত হয়। নিজের অস্তিত্ব নিয়ে বারীশের জলে মিশে একাকার হয়ে যায়। বাংলাদেশের বিশিষ্ট আন্তর্জাতিক আলেমে দ্বীন, প্রখ্যাত ইসলামী চিন্তাবিদ ও গবেষক, ইসলামী সাহিত্য ও সাংবাদিকতার পথিকৃত, বর্ষীয়ান ইসলামী রাজনীতিক, অখন্ড বাংলায় ইসলামের প্রাচীনতম মুখপত্র মাসিক মদীনার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান রহঃ এর সাথে প্রথম সাক্ষাত ও পরবর্তীর নিয়মিত সান্নিধ্যে আমার অবস্থাও ঠিক তেমনই হয়েছিলো। সবেমাত্র যখন কিছু বুঝতে ও দুকলম বাংলা পড়তে শিখেছি তখন থেকেই দেখতাম আব্বার পঠিত মাসিক মদীনার সংখ্যাগুলি স্তুপাকারে ঘরের মাচায় রাখা থাকত। তিনি মাসিক মদীনার একজন নিয়মিত পাঠক ছিলেন। মাসের শুরুতে মাসিক মদীনা প্রাপ্তির সঙ্গে সঙ্গে সম্পাদকীয় থেকে শুরু করে প্রশ্নোত্তর কলাম পর্যন্ত পুরো পত্রিকা এক নিমিষে পড়ে ফেলার চিরাচরিত পাঠোভ্যাস তার বৈচিত্রময় জ্ঞানের জগতে বহুমাত্রিকতা দান করেছিলো। এখনো মনে পড়ে তখন সম্ভবত মিযান জামাতে পড়ি। কোনো এক ছুটি উপলক্ষ্যে বাড়িতে ছিলাম। ফজরের নামাযে ঘটনাক্রমে কোনো ভূলবশতঃ নামাযে সিজদায়ে সাহু করি। নামায শেষে সিজদায়ে সাহুর কারণ জিজ্ঞাসা করলে আমি বললাম অমুক জায়গায় একটু ভূল হয়েছিলো তাই সিজদায়ে সাহু দিয়েছি। তিনি বললেন এ ধরনের ভূলে সিজদায়ে সাহু ওয়াজিব হয় না। আমি তখন নিশ্চুপ হয়ে ভাবলাম এটা তার ঈর্ষনীয় ধীশক্তি ও মাসিক মদীনা পাঠের অসামান্য অবদান।


সেই শিশুকাল থেকেই মাসিক মদীনা ও বাংলা তাফসীরে মা’আরেফুল কুরআনের পরিচয় সূত্রে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান সাহেবের সুমহান ব্যক্তিত্বের সাথে মোটামুটি পরিচিত ছিলাম। প্রাপ্ত বয়সে উপনীত হওয়ার পর যখন খান সাহেবের বিভিন্ন বইপত্র পড়ার সুযোগ হয় তখন তাকে আরেকটু গভীরভাবে জানার সুযোগ হয়। ক্রমেই তার মহান ব্যক্তিত্বের প্রতি ঝুঁকে পড়ি। তাকে দুচোখ ভরে না দেখার যন্ত্রণায় ব্যাকুল হয়ে উঠি। কখনো এভেবে বিচলিত হয়ে উঠতাম যে, হয়ত বা এ মহান ব্যক্তিকে দুচোখ ভরে দেখার সৌভাগ্য বুঝি এ দূর্ভাগার কপালে জুটবে না। আশা-নিরাশার দোলাচলে অবশেষে প্রতীক্ষার তমাশাচ্ছন্ন দীর্ঘ রজনী কেটে গেলো এবং দুরাশার আকাশে কালো কাদম্বিনী বিদূরিত হলো। আশার দূর দিগন্তে আলোর বার্তা নিয়ে সুবহে সাদিক উঁকি দিলো। চারিদিকে যখন রবির স্মিগ্ধ আলো প্রস্কুটিত হলো। হৃদয়ে আনন্দের হিল্লোল বইতে শুরু করলো। তখন আমি চলতে শুরু করলাম সেই রাজপথে। যে রাজপথ আমার চির কাংখিত। চির প্রত্যাশিত।


২০১০ সালের আগে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রদত্ত মাওলানা খান সাহেবের ছবি দেখা ছাড়া সরাসরি সাক্ষাত পরিচয় লাভের সুযোগ হয়নি। ২০১০ সালে যখন ঢালকানগর মাদরাসায় ভর্তি হই তখনকার কথা। এক জুমার দিনে কয়েকজন বন্ধুবান্ধব মিলে মাওলানা আব্দুল গাফফার সাহেবের সুপ্রসিদ্ধ হৃদয় বিগলিত বয়ান শুনার জন্য গেন্ডারিয়াস্থ রেলষ্টেশন জামে মসজিদে জুমার নামায পড়তে যাই। ফেরার সময় খান সাহেবের বাসার সামনে দিয়ে ডি.আই.টি প্লট জামে মসজিদের পথ ধরে সামনে এগুচ্ছি। তখনো জানতাম না যে, এটা খান সাহেবের বাসা। হঠাৎ দেখি সামনে বিপরীত দিক থেকে ফেরেশতা সূলভ শুভ্র পোষাকে সজ্জিত, মাঝারী ও উল্লম্ব আকৃতির দৈহিক কাঠামো, সুঠাম দেহী, প্রশস্ত বক্ষ, যাকে স্বাধীনচেতা ও উন্নত শিরের প্রতিবিম্ব আখ্যায়িত করা যায়, চওড়া চেহারার রক্তিম আভায় উদ্ভাসিত ঔজ্জল্য, থুতনীর নীচে একগুচ্ছ আধাপাকা দাড়ি, দ্বীপ্ত চোখ, সদা প্রসন্ন অবয়ব কিছুটা উন্মুখর, ললাটে আত্মবিশ্বাসের দৃঢ়তা এবং আকাশ ছোঁয়া হিম্মত পরিস্কুট, পরিহিত পোষাকে নেতৃস্থানীয় আভিজাত্য ও কৌলিন্যের ছাপ, খোশ মেজাজ ও সৌম্যশান্ত প্রকৃতি, মাথায় সাদা সুতির কাজ করা লম্বা কিশতি টুটি, যাতে তার স্বতন্ত্র ব্যক্তিত্ব প্রকাশিত, বার্ধ্যক্যের ভারে নুয়ে পড়া এক মহান ব্যক্তি দৃঢ় পদক্ষেপে ধীর লয়ে দুজন ব্যক্তির কাঁধে ভর দিয়ে সামনে এগুচ্ছেন। ভীড়ের মধ্যেও বহিরাগত মুসুল্লীরা তাঁকে সামনে যাওয়ার জন্য জায়গা করে দিচ্ছেন। তার এসব স্বতন্ত্রতা বহু মানুষের ভীড়ের মধ্যেও আমার মতো অপরিচিত ও অচেনা যুবকের দৃষ্টি আকৃষ্ট করতে সক্ষম হয়। আমি রাস্তার একপাশে সড়ে গিয়ে পাশের একজনকে জিজ্ঞাসা করলাম এ লোকটি কে? মনে তো হয় খুব অভিজাত ও নেতা গোছের লোক? তার উত্তর শুনে আমি বিমূঢ় হয়ে পড়ি। ইনিই আমার কাংখিত স্বপ্ন পুরুষ, আশার বাতিঘর, মুসলিম বিশ্বের কিংবদন্তি মাওলানা মুহিউদ্দীন খান। এই আমার দেখা মাওলানা মুহিউদ্দীন খান রহঃ এর প্রথম প্রতিচিত্র। তখন অন্যান্য সাথীদের কি অবস্থা হয়েছিলো জানি না। তবে আমার অবস্থা ছিলো বিস্ময়ে অভিভূত। খুশীতে মাতোয়ারা আর আনন্দে আত্মহারা। আমার আহ্লাদের মুক্ত বিহঙ্গরা তখন দু’ডানা মেলে বিচরণ করছে লাল-নীল আর ধূসর নীলিমায়। চরম প্রাপ্তির উচ্ছ্বাস ও পরম তৃপ্তি লাভের দীপ্তি ও উজ্জল আলোকচ্ছটা ঝলমল করে উঠে মুখাশ্রী জুড়ে। অনেকক্ষণ ঘাড় ঘুরে তার প্রস্থানের পথ পানে শুধু চেয়ে থাকলাম। তখন শুধু দেখছি আর ভাবছি কিভাবে এ মানুষটি তার বর্ণাঢ্য জীবনের প্রতিটি শাখা-প্রশাখায় অসামান্য অমরকীর্তি বিচিত্র রঙ্গে রাঙ্গিয়ে তুলছেন। এমন কি জীবনের শেষ বেলা ভূমিতে দাঁড়িয়েও তার সেই উদ্দাম চিন্তাশক্তি, দূর্দম কর্মস্পৃহা, দূরদর্শী বিচক্ষনতায় বার্ধক্য জনিত শারীরিক দূর্বলতা এতটুকু ভাটার আঁচড় ফেলতে পাড়েনি। সম্বিত ফিরে পাওয়ার পর এভেবে শুধু অনুতাপ আর অনুশোচনার দহনে দগ্ধ হতে লাগলাম যে, মুসলিম বিশ্বের এই আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্ব ঘরের এতো কাছে থাকতেও তাকে এতোদিন কেনো জানার সুযোগ হলো না। একি আমাদের মতো ক্ষুদে শিক্ষনবীশদের অযোগ্যতা না আমরা যে পরিবেশে লালিত পালিত হচ্ছি তার প্রতিকূল অবস্থা? আমরা দ্বীনী ঘরানার লোক হওয়া স্বত্বেও দ্বীনী শখসিয়াত বা ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে আমদের জ্ঞানের দীনতা দেখে সেদিন খুবই অসহায়ত্ব ও অপরাধবোধ জাগ্রত হয়েছিলো। সামান্যতম দ্বীনের শাখা ও গৌনগত বিষয়ে চিন্তাধারার মতভিন্নতার কারণে আমাদের পরস্পরের মধ্যে যে অঘোষিত প্রভেদ সৃষ্টি হয়ে যায়, তা বিভিন্ন সময়ে মাওলানা খান সাহেবকে পীড়া দিতে দেখেছি। তিনি বলতেন এটাও আমাদের পরস্পরের প্রতি অহিংস মনোভাব, ভক্তি ও শ্রদ্ধাবোধ, উদারতা ও সৌহার্দ রক্ষার পথে চরম অন্তরায়। যাহোক সেদিনের সেই সংক্ষিপ্ত দর্শন লাভের পর তার একান্ত সান্নিধ্য ও নিবিড় সঙ্গ লাভের অদম্য স্পৃহা ক্রমেই আমাকে অস্থির করে তুললো। কিন্তু তার মতো আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্বের সাথে আমার মতো দেশের অজপাড়াগাঁয়ের অখ্যাত এক শিক্ষানবীশের জন্য সরাসরি সাক্ষাত ও কথাবার্তা রীতিমত দুঃসাহসের ব্যাপার বলে মনে হলো। অবশেষে সবকিছুর অবসান ঘটে শুরু হলো সেই পথচলা। ভয়, উৎকণ্ঠা আর আশা ও আনন্দের মাঝে কম্পমান দুরুদুরু মন নিয়ে পৌঁছে গেলাম বাসার দুয়ারে। সাথে ছিলেন ইসমাঈল ভাই। এর আগেও তিনি কয়েকবার এসেছেন বিধায় তিনিই গেট নক করলেন। গেট দিয়ে ঢুকতেই দক্ষিণ পার্শ্বে আধুনিকতার চোখ ধাঁধাঁনো জমকালো পরিবেশ মুক্ত সাদামাটা ওয়েটিং রুমে ঢুকে দেখি খান সাহেব পত্রিকা পড়ছেন। রুমের প্রতিটি ছত্রে ছত্রে যেনো খান সাহেবের মহান ব্যক্তিত্বের গাম্ভীর্য ও আভিজাত্যের দ্যুতি ছড়িয়ে পড়ছে। কোনো সাড়া শব্দ নেই। নিঃশব্দ পরিবেশে আমরা সালাম দিয়ে প্রবেশ করলাম। আগন্তুকদ্বয়কে দেখে তিনি আমাদের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করলেন। আমরা মুসাফাহার জন্য এগিয়ে গেলে তিনি দু’হাত প্রসারিত করে দিলেন। আমরা পরম তৃপ্তি ও শ্রদ্ধার সাথে মুসাফাহা করলাম। তিনি পাশেই সোফার উপর বসার জন্য ইংগিত করলেন। এরপর ইসমাঈল ভাইকে আমার পরিচয় সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি সহপাঠী ও আপনার গুনগ্রাহী বলে পরিচয় দিলেন। এরপর শুরু হলো মুগ্ধ ও বিমুগ্ধ হওয়ার পর্ব। আশ্চর্য ও বিস্ময়ে বিমূঢ় হওয়ার পালা। কিছু শেখা ও তা নিজের জীবনে প্রতিফলন করার পালা, যাকে বলে আতিথেয়তা। জীবনের এ ক্ষুদ্র পরিসরে হরেক রকমের অতিথি আপ্যায়ন দেখেছি। কিন্তু এমন অতিথি আপ্যায়ন কোথাও দেখিনি। গৃহ পরিচারককে ডেকে নাস্তার কথা বলে খোশ গল্পে মগ্ন হলেন।

মাওলানা খান সাহেবের আতিথেয়তা ছিলো প্রবাদতুল্য। ভারত পাকিস্তানের অনেক শীর্ষস্থানীয় উলামায়ে কেরাম খান সাহেবের বাসায় অতিথি হয়ে রাত যাপন করেছেন এমন ঘটনা বহু আছে। খান সাহেবের সাথে সর্ম্পক হওয়ার পর থেকে তার মৃত্যু পর্যন্ত কয়েকশবার তার বাসায় আসা যাওয়া হয়েছে। কখনো খালি মুখে আসতে দেননি। ঘরে কিছু না থাকলেও নিদেনপক্ষে বড় এককাপ ভর্তি দুধ চায়ের সাথে লেক্সাস বা বেকারী বিস্কুট না খেয়ে আসার উপায় ছিলো না। দস্তরখানে নিজের গাঁ ঘেষে বসিয়ে নিজের পাত থেকে মাছ-গোশত তুলে অধমের পাতে তুলে দিয়ে তৃপ্তি ভরে খাইয়েছেন। হুযুর ঈদের আগেই ঈদের দাওয়াত দিয়ে রাখতেন। ঘটনাক্রমে যে বছর সালে যাই সে বছর পূর্ব অবগতি ছাড়াই কাকরাইল মসজিদ থেকে বসুন্ধরাস্থ গ্রামীণ ফোন অফিস মসজিদের ইমাম মাওলানা আবুল কাসেম সাহেবকে নিয়ে হুযুরের সাথে দেখা করতে যাই। ঈদের দিন অপ্রত্যাশিত ভাবে আমাকে দেখে খুব খুশী প্রকাশ করলেন। কুশলাদি বিনিময়ের পর কিছু না খেয়ে যেনো না যাই গৃহপরিচারককে ডেকে বলে দিলেন। বলাবাহুল্য হুযুর তখন একা সিঁড়ি বেয়ে নীচে নামতে পারতেন না বিধায় সবসময় দ্বিতলের নিজ বেডরুমেই থাকতেন। আমিও হুযুরের বেডরুমে বসেই কথাবার্তা বলতাম এবং দেখা করে চলে আসতাম। সেবার কোনো এক অনিবার্য কারণবশত হুযুরের রুম থেকে বের হয়ে নীচে না খেয়েই চলে আসি। পরবর্তী এক চিল্লার পর যখন দেখা করতে যাই তখন প্রথমেই অভিযুগের সুরে বললেন সেদিন খাবার না খেয়েই চলে গেলে কেনো? আমি বিস্ময়ে হতবাক হয়ে গেলাম যে, সেদিনের ঘটনা আমার কাছে নেহায়েত তুচ্ছ মনে হলেও হুযুর অনেক গুরুত্বর মনে করে বসে আছেন। এমন ঘটনা যেনো আর পূনরাবৃত্তি না হয়, সে সতর্কবাণী শুনালেন। সেই প্রথম দিনেই তিনি ইচ্ছা করলে আর দশ জনের মতো কিছু কথা বলে আচ্ছা ঠিক আছে বলে বিদায় করতে পারতেন। আমাদের মতো না খান্দাদের কিছুই করার ছিলো না। শুধু “বড়রা সময়ের খুব কদর করে” বলে অশান্ত আত্মাকে মিথ্যা প্রবোধ দিতে ব্যর্থ চেষ্টা করতাম। কিন্তু প্রথম সাক্ষাতেই তিনি হৃদয়-মন উজার করে যে অকৃত্রিম ভালোবাসা, উদারতা ও মহানুভবতার পরিচয় দিলেন তথাকথিত এই প্রগতিশীলতার যুগে তার নজীর মেলা ভার। আমাদের কাছে পেয়ে এমন আলাপ আর খোশগল্প জুড়ে দিলেন, মনে হচ্ছিলো যেনো হৃদয়ের সবটুকু তাপ ও উত্তাপ নিংড়ে দিচ্ছেন। তার সান্নিধ্যে এক মূহুর্ত না বসে সে মনোমুগ্ধকর চিত্র বোঝার উপায় নেই। আহ! কি যে হৃদয় জুড়ানো, আত্মা প্রশান্তকারী, চিত্র বিনোদনকারী আলাপ। খোশগল্প। আলাপ তো নয়, এক একটি ইতিহাস। সেই প্রথম দিনের তার অমায়িক ব্যবহারে আমার সকল জড়তা কেটে যায়। আমার অন্তরে তার প্রতি যে ভক্তি শ্রদ্ধা ও আকর্ষন ছিলো তা শতগুনে বেড়ে যায়। সেই থেকে মৃত্যু পর্যন্ত তার সাথে আমার সর্ম্পক বৃদ্ধিই পেয়েছে বৈকি কখনো সামান্যতমও চির ধরে নি।

খান সাহেবের সাথে যখন আমার পরিচয় তখন তিনি তার দীর্ঘ কর্মমুখর সংগ্রামী ও ব্যস্ততম জীবনের পড়ন্ত বেলায় উপনীত। পত্র-পত্রিকা আর বই-পুস্তক ও সাক্ষাত প্রত্যাশী অতিথিবৃন্দের সাথে পরামর্শ ও আলাপ আলোচনা করেই অলস সময় পার করতেন। সুতরাং যে সময় তার সাথে আমার সম্পর্কের সেতু রচিত হয়, তখন তার মতো বৈশ্বিক চিন্তাবিদ, পোড় খাওয়া ব্যক্তিত্বের দীর্ঘ জীবনের সঞ্চিত অভিজ্ঞতা ও লব্ধ বিশাল জ্ঞান ভান্ডার থেকে সিক্ত হওয়ার সর্বোৎকৃষ্ট সময় ছিলো। আমাদের মতো তৃষ্ণিত নবীন শিক্ষানবীশরা তার একান্ত নিবিড় সঙ্গ পেলে জীবনের এ মহৎ সুযোগ কিভাবে লুফে নিবে তা বলাই বাহুল্য। বিশেষত তিনি যদি নিজেই তার জ্ঞান ও অভিজ্ঞতার ঝুলি থেকে অকাতরে দান করতে লালায়িত হন। প্রথম দিনের সাক্ষাত ও খোশগল্পে আমার মস্তিস্কে এ চিন্তা বদ্ধমূল হয়ে যায় যে, তিনি শুধু সন্তান বৎসল আর বন্ধু বৎসল নন। বরং সমানভাবে অনুজ শিক্ষানবীশ বৎসল ও বটে। সুতরাং সেই যে আসা –যাওয়া, শেখা ও চিন্তা গ্রহণের ধারা সূচিত হলো তাতে আর কখনো ছেদ পড়েনি। বরং প্রতিনিয়ত তা আরো গভীর থেকে গভীরতর হয়েছে। প্রতিদিন ঢালকানগর মাদরাসায় আসর নামায পড়েই সোজা খান সাহেবের বাসায় গিয়ে উপস্থিত হতাম। কখনো দেখতাম তিনি নামায পড়ে সবেমাত্র দরবারী হলে বসেছেন অথবা সিঁড়ি বেয়ে ধীরে ধীরে নীচে নামছেন। এরপর টানা মাগারিব পর্যন্ত হুযুরের পাশে বা মুখোমুখি বসে শুধু শোনা ও শেখার পর্ব চলতে থাকতো। কতো ইতিহাস, তত্ত্ব, উপাত্ত্ব, দার্শনিক তথ্য, অতীত ও বর্তমান মুসিলম জাতির উত্থান পতনের অজানা গুপ্ত কাহিনী, অসংখ্য ঘাত প্রতিঘাত চড়াই উৎড়াই পেরিয়ে লদ্ধ অভিজ্ঞতার সার নির্যাস। তিনি যতই আলোচনা করতেন আমরা ততই আকৃষ্ট হয়ে পরতাম তার দৃষ্টির দূরদর্শীতা দেখে। নির্বাক হয়ে পড়তাম তার জ্ঞানের ব্যাপ্তিতা দেখে। মুগ্ধ হয়ে পড়তাম তার হৃদয়ের গভীরতা দেখে। বিমোহিত হয়ে পড়তাম তার প্রাণবন্ত আলোচনার সুমিষ্ট সুবাসে। হুযুরের আমৃত্যু চলছিলো আমাদের এ মধুর সম্পর্ক।


মাওলানা নিজের সমসাময়িক বা অনুজ শিক্ষানবীশ, পন্ডিত মনীষী ও চিন্তাশীলদের ব্যাপারে একটি বিশেষ মূল্যমান নিরুপন করে রাখতেন। এর মধ্যে বিশেষ একটি দিক ছিলো যাকেই তিনি শিক্ষানুরাগী হিসাবে দেখতেন তার আগ্রহকে মূল্যায়ন করতেন। নিজের মানসজগতে তাকে স্থান দিতেন। তাকে উদ্দেশ্য করে নিজের কিছু কথা বা কিছু অনুভূতি শেয়ার করতেন। তিনি প্রায়শই শিক্ষানবীশ, জ্ঞানীগুনীও বিদগ্ধজনের সানিধ্যে দীর্ঘ সময় কাটাতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করতেন। সাধারন মানুষের দৃষ্টিতে যারা অতিশয় গুরুত্বপূর্ণ ও মানী লোক বলে পরিচিত তাদেরকে তিনি খুব কমই প্রাধান্য দিতেন। যার মধ্যেই তিনি যোগ্যতার কিছুটা স্ফুরন দেখতে পেতেন তাকে আরো যোগ্যতর, কর্মক্ষম ও তার প্রতিভাকে আরো শানিত করার জন্য আন্তরিক চেষ্টা করতেন। এ ব্যাপারে তার মধ্যে নির্দিষ্ট কোনো অঞ্চল, ভাষা, বর্ণ বা বংশের প্রতি পক্ষপাতিত্ব করতে দেখি নি। বরং এ ধরনের সংকীর্ন পক্ষপাত মূলক মনোভাব থেকে তিনি ছিলেন যোজন দুরে। একদিন কথাচ্ছলে বললেন যে, তোমার কি আলিমের সার্টিফিকেট আছে। আমি বললাম এ সুযোগ কখনো হয়নি। তিনি বললেন তোমার আলিমের সার্টিফিকেট থাকলে মদীনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করে দেয়ার ব্যবস্থা করতাম। আর আমার চলাফেরার সামর্থ থাকলে নিজে গিয়ে তোমাকে ভর্তি করে দিয়ে আসতাম। সেদিনের তার সে উৎসাহমূলক বানীতে কি যে পুলকিত হয়েছিলাম তা বলে বুঝাতে পারবো না। বলাবাহুল্য আমরা যে একপেশী চিন্তা ও সীমাবদ্ধ পরিবেশে বড় হয়েছি তাতে সরকারী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করার কথা কল্পনাও করা যেতো না। সে যাক জীবনের আরেক তিক্ত অধ্যায়। এরপরো তিনি নিরাশ হলেন না। বললেন এক সময় কাগজ কলম নিয়ে এসো। মাওলানা সালীমুল্লাহ খান ও মাওলানা তাকী উসমানীর কাছে দু-কলম লিখে দেখি তোমাদের জন্য এদিকে কোনো বিহিত করা যায় কি না? হুযুরের দৃঢ় বিশ্বাস ছিলো একটা ব্যবস্থা হবেই। কিন্তু নিজেদের অযোগ্যতার কারণে হুযুরের লিখিত পত্র কি ঠিকানায় পাঠিয়েছিলাম জানি না। পরে আর কোনো উত্তর আসে নি। এরপরে আর কোনো চেষ্টা তদবীর ও করা হয়নি।


মাওলানা খান সাহেবের একটি যুগান্তকারী চিন্তাধারা ছিলো বাংলাভাষায় সাধারণ জাগতিক শিক্ষায় শিক্ষিত বিশাল জনগোষ্ঠীর জন্য পর্যাপ্ত ধর্মীয় পঠন পাঠন সামগ্রী সরবরাহ করতে না পারলে এ দেশে ইসলামী আন্দোলন কখনো সফল হবে না। এ ছিলো হুযুরের দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের তিক্ত অভিজ্ঞতা। একদিন বাদ আসরের মজলিসে বলছিলেন, শোন আমার ক্ষুদ্র দৃষ্টিতে এ যুগে দ্বীনের সবচেয়ে বড় খেদমত হলো আরবী, ফার্সী ও উর্দূ ভাষায় ইলমের যে বিশাল জ্ঞান ভান্ডার রয়েছে তা বাংলাভাষায় রূপান্তর করা। মৃত্যুর বছর খানিক আগে এক মজলিস বলতেছিলেন, এখন খুব আফসোস হয় সারা জীবন যে ইসলামী হুকুমত প্রতিষ্ঠার জন্য আন্দোলন করলাম তার ফলাফল তো শুন্য। অনেক সময় সফলতার চূড়ান্ত পৌঁছেও অযোগ্যতা আর অন্তঃকলহ ও পদলোভী কিছু অদূরদর্শী ব্যক্তির কারণে তা ভেস্তে গেছে। এর চেয়ে রাজনীতির কন্টকাকীর্ণ পথে পা না বাড়িয়ে নিরলস ভাবে লেখালেখি করলেই মনে হয় জাতির বেশী উপকার হতো। মাওলানা খান সাহেব কর্মজীবনে সাংবাদিকতা ও বাংলাভাষায় ইসলাম চর্চাকে জীবনের ব্রত হিসাবে গ্রহণ করলেও দরস তাদরীস ও মাদরাসা শিক্ষাকে তিনি আদর্শ জাতি গঠনের ভিত্তিমূল মনে করতেন এবং এজন্য সার্বিক সহযোগীতা ও করতেন। রাবেতায়ে আলমে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির অন্যতম সদস্য হিসাবে তিনি মাসে যে এক লক্ষ ষাট হাজার টাকা ভাতা পেতেন তার সবটুকু তিনি নিজ গ্রামে প্রতিষ্ঠিত হেফয খানায় শিক্ষারত ইয়াতীম ছাত্রদের জন্য দান করে দিতেন। মৃত্যুর পূর্বে এ নিয়ে খুব উদ্বিগ্ন ছিলেন সে আমার পর ওদের কি হবে? মাদরাসা বন্ধ হয়ে যাবে না তো? সাভার রাজফুবাড়িয়া মাদরাসায় বেশ কিছু জমি ক্রয় করে দিয়েছিলেন। একদিন ফরিদাবাদ মাদরাসা প্রতিষ্ঠার স্মৃতিচারন করতে গিয়ে বললেন, যেদিন মাদরাসার ভিত্তিস্থাপন হবে, সেদিন শামছুল হক ফদিরপুরী (রহঃ) এর সাথে আমি সহ হুযুরের অনেক ভক্তবৃন্দ উপস্থিত ছিলাম। প্রথম কোপ দেয়ার সময় হুযুর আমার হাত ধরে কোদাল তুলে দিয়ে বললেন মাওলানা তুমিই প্রথম কোপ দাও। সেদিন অনিচ্ছাসত্তেও হুযুরের নির্দেশে প্রথম কোপ দিতে হয়েছিলো। যাত্রাবাড়ী মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে মাওলানা খান সাহেব ও তার সহকর্মী মাওলানা কাজী মু‘তাসিম বিল্লাহর যে যৌথ উদ্দ্যেগ ছিলো তাও একদিন শুনালেন। উল্লেখ্য যে দেশের খ্যাতিমান সমসাময়িক এই দুই প্রাজ্ঞ আলেমেদ্বীন একে অপরের প্রতি খুব সুউচ্চ ধারনা পোষন করতেন। মাওলানা খান সাহেব বলতেন আমার জীবনে এমন অসাধারণ ধীশক্তি সম্পন্ন কোনো আলেম দ্বিতীয় আর আউকে দেখিনি। মাওলানা কাজী সাহেবও এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, বাংলাদেশে বাংলাভাষায় ইসলাম চর্চায় মাওলানা মুহিউদ্দীন খান সাহেব যে কালজয়ী ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন, তাতে তিনি নিঃ সন্দেহে নোবেল পাওয়ার উপযুক্ত।

মাওলানা খান সাহেব হাফেয-কারী ও আলেম উলামাদের কে দ্বীন ও ইসলামের একেকটি স্তম্ভ মনে করতেন। তাদের বিপদাপদে সবসময় পাশে দাঁড়ানোকে নিজের নৈতিক কর্তব্য বলে জ্ঞান করতেন। একদিন কথা প্রসঙ্গে বলতেছিলাম লালবাগ মাদরাসায় যেদিন অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি সৃষ্টি করে মুহাদ্দেস হেদায়েততুল্লাহ সাহেব (রহঃ) এর মতো দুনিয়া বিরাগী সাধককে মাদরাসা থেকে বের করে দেয়া হয়, সেদিন ভূয়া অপবাদে মাগরিবের আগেই তখনকার সময়ে চৌদ্দ হাজার টাকা পরিশোধ করার আল্টিমেটাম দেয়া হয়। দুনিয়া বিরাগী আল্লাহর এ ওলী কোনো উপায়ান্তর না পেয়ে লালবাগ থেকে সোজা পদব্রজে আমার বাসায় এসে উপস্থিত হন। আমি তখন দ্বিতলে ছিলাম। মাওলানাকে ওয়েটিং রুমে বসতে দিয়ে গৃহপরিচারক এসে বললো, দাদা! লালবাগ থেকে একজন হুযুর এসেছেন এখনই আপনার সাথে দেখা করতে চায়। আমি নীচে এসে হুযুরের সামনে দাঁড়াতেই তিনি আমাকে জড়িয়ে ধরেই ডুকরে কেঁদে ওঠেন। আমি হুযুরকে সান্তনা দেয়ার পর হুযুর একটু থেমে ঘটনার আদ্যেপান্ত শুনালেন। আমি অভয় দিয়ে বললাম হুযুর আপনি বসেন দেখি কি করা যায়। তখন আমার কাছে নগদ এক হাজার টাকাও ছিলো না। আমার বাসার পাশেই এক ধনাঢ্য সুহৃদের বাসায় গেলাম। লোকটি আমার খুব ভক্ত ছিলেন। বাসায় গিয়ে দেখি তিনি নেই। অসময়ে আমার আগমন দেখে তার পর্দানশীন স্ত্রী আমাকে বসতে বলে জিজ্ঞাসা করলেন হুযুর কি সমস্যা বলেন। আমি বললাম এ মূহূর্তে আমার চৌদ্দ হাজার টাকা দরকার সপ্তাহ নাগাদ ইনশাআল্লাহ পরিশোধ করে দিবো। ভদ্র মহিলা সাথে সাথে টাকা বের করে দিলেন। আমি টাকা নিয়ে সোজা হুযুরের হাতে এনে দিলাম। তিনি বললেন এতো টাকা আমি তোমাকে কিভাবে পরিশোধ করবো? আমি বললাম কোনো চিন্তা করতে হবে না আপনি নিয়ে যান। হুযুর তখন আনন্দাতিশয্যে আমাকে বুকে জড়িয়ে জিজ্ঞাসা করলেন তুমি কি চাও বল, তোমাকে তাই দেবো। খান সাহেব বললেন হুযুর কিছুই চাই না শুধু আপনার পাদুকা মোবারকদ্বয় চাই। বলাবাহুল্য মুহাদ্দিস সাহেব হুযুর রহঃ লালবাগ মাদ্রাসা থেকে বের হওয়ার পর যাত্রাবাড়ী মাদ্রাসায় হুযুরের অবস্থান চুড়ান্ত হওয়া পর্যন্ত মাওলানা খান সাহেবের বাসাতেই অবস্থান করেন। এ ধরনের ঘটনাবলি হুযুরের জীবনে এক দুটি নয় অসংখ্য। হুযুরের এরকম ¯েœহময়ী সহযোগীতার শীতলজলে বান্দা অসংখ্যবার অবগাহন করে ধন্য হয়েছে। হুযুরের একান্ত ইচ্ছা এবং আদেশ ছিল কর্মজীবনে আমি ঢাকার বাহিরে যেন কোথাও না যাই। ঢাকার মতো ব্যস্ততম রাজধানী শহরে আমার মতো অযোগ্য, অকর্মাকে কে জায়গা দিবে? একথা বললে তিনি বলতেন হাজার কষ্ট হলেও এখানেই থাকো। আল্লাহ তোমার রাস্তা খুলবেন আমার আশা। অবশেষে হুযুরের দোয়ায় উত্তরা দারুল উলুম ও পরে জামিয়া কারিমিয়া রামপুড়া মাদ্রাসায় আমার নিয়োগ চূড়ান্ত হয়ে যায়। কিন্তু অনাকাঙ্খিত বিশেষ কিছু কারণে সেখানে আর যাওয়া হয়নি। পরিশেষে ঢাকার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে একটি অখ্যাত মাদ্রাসায় অধমের নিয়োগ হয়। মাদ্রাসার চেয়ে মাদ্রাসার পরিচালকের অবস্থা ছিল অত্যন্ত শোচনীয়। সংকীর্ন মনোভাব, অসম অহমিকা আর কর্তৃত্ববাদ ও দাবায়ে রাখার নীতির জ্বালায় কোন শিক্ষকই সেখানে দুই এক বছরের বেশি টেকসই হতে পারতো না। পর্বতসম ধৈর্য ও বিনয়ী লোকের জন্যও সেখানে স্থির হওয়া ছিল দায়। সুতরাং অনিবার্য কারন বশতঃ তিন মাসের মাথায় আমি স্বেচ্ছায় সেখান থেকে সোজা খান সাহেবের বাসায় চলে আসি। অসময়ে হঠাৎ আমার আগমন দেখে জিজ্ঞেস করলেন কি ব্যাপার? আমি বললাম আপনার রেডিওর চাকুরি ছাড়ার দশা আমারও হয়েছে। তিনি এই অল্প ইঙ্গিতে সব বুঝে নিলেন। বললেন যতদিন অন্য কোথাও ব্যবস্থা না হয় আমার বাসা তোমার জন্য উন্মুক্ত। এমন মহৎ প্রাণ লোক আর কোথাও পাব কি?

সত্য কথা বলতে কি হুযুরের বাসা আমার কখনো পরের বাসা মনে হয়নি। পাঁচতলা বিশিষ্ট হুযুরের বাসা ছিলো আলেম-উলামা, চিন্তাশীল পন্ডিত, রাজনীতিক ও ক্ষুদে শিক্ষনবীশ সবার জন্য উন্মুক্ত। ঘনঘন যাতায়াতে তিনি কখনো এমন ভাবভঙ্গি প্রকাশ করেন নি যাতে বুঝা যেতো যে তিনি আমার উপর বিরক্ত। আমার উপস্থিতিতে অনেক গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, হুযুরের বাল্যবন্ধু এসেছেন কিন্তু কখনোই তিনি আমাকে স্পষ্ট বা ঈঙ্গিতে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেননি। বরং মাঝে মধ্যে আমার পরিচয় দিতেন। হুযুর বার্ধক্য দূর্বলতা হেতু মসজিদে যেতে পারতেন না বিধায় বাসাতেই জামাত করে নামায পড়তেন। আমাদের নিয়মিত রুটিন ছিলো মাদরাসায় আসর পরে খান সাহেবের বাসায় গিয়ে একেবারে মাগরিব নামায পড়ে তারপর মাদরাসায় যাওয়া। মাগরিবের নামায বাসায় না পড়ে কিছুতেই যেতে দিতে চাইতেন না। এর এক কারণ ছিলো জামাত বড় হওয়া, দ্বিতীয় কারণ ছিলো উপস্থিত অন্যদের তুলনায় আমাদের পিছনে নামায আদায় করতে অধিক তৃপ্তিবোধ করতেন। একদিন বাসায় মাগরিবের নামায শেষে বিদায় নেয়ার জন্য হুযুরের অপেক্ষায় সোফায় বসেছি মাত্র। ইতি মধ্যে মাওলানা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীর কনিষ্ঠপুত্র সহ অনেক গন্যমান্য লোক এসে গোটা রুম ভর্তি হয়ে গেলে। অথচ হুযুর তখন কিছুত্ইে এ প্রকাশ হতে দিচ্ছিলেন না যে, এতো গন্য মান্য লোক এসেছে আমি চলে যাই এবং কোনো অস্বস্থিভাব বা বিরক্তিও প্রকাশ পাচ্ছিলোনা। অবশ্য আমি প্রথম দু, তিনবার সাক্ষাতে ও আচার আচারনেই বুঝাতে পেরেছিলাম এ ছিলো হুযুরের সহজাত ঔদার্য। আমি হুযুরের নাতীর বয়সতুল্য হলেও তিনি আমাকে সন্তানসম ¯েœহ করতেন। তার ¯েœহ ও মায়া মমতায় আমি কতবার যে সিঞ্চিত হয়েছি তা বলে শেষ করার মতো নয়। মাওলানা খান সাহেব আমাকে হাতে কলমে শিখানোর পরিবর্তে অধিক যে বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য করতেন তা হলো আমার চিন্তা ও মানসিকতার পরিপুষ্ট আহার যোগান দেয়া। ব্যক্তি, পরিবার ও সমাজ কেন্দ্রীক চিন্তার সংকীর্ণ পরিসীমা থেকে বৈশ্বিক চিন্তা আর ভোগ বিলাসিতার সোনালী হাতছানী থেকে কৃচ্ছতা, ত্যাগ ও বিলিয়ে দেয়ার মহোৎচিন্তা তিনি আমার নব যৌবনের মানসপটে এঁকে দেখার কাজটি খুব যুগসই করেছেন বলে আমার মনে হয়। মুসলিম মিল্লাত এবং ক্ষেত্রবিশেষে বাংলাদেশকে নিয়ে বিধর্মী বিজাতিদের পাতানো ষড়যন্ত্রের সুক্ষ্মজাল ও আমাদের দেশের তথাকথিত বুদ্ধিজীবিদের নির্বুদ্ধিতা ও অপরিপক্ক চিন্তার টুটি বিচ্যুতি তিনি আমাকে হাত ধরে শিখিয়েছেন। একথা বললে মোটেও অত্যুক্তি হবে না যে কয়েক যুগের নিবচ্ছিন্ন জ্ঞান সাধনায় হয়তো আমি যে তত্ত্বজ্ঞানের সন্ধান পেতাম না তার মতো হিমালয়সম অভিজ্ঞ ও পন্ডিত ব্যক্তির ছোঁয়ায় তা অতি সহজ্ইে পেয়ে গেছি। এজন্য বহির্বিশ্বে না পড়তে পারার যে সুপ্ত ব্যাথা ও যন্ত্রনা ছিলো তাও অনেকটা ঘুচে গেছে। দারুল উলূম দেওবন্দ যাওয়ার জন্য সেই কাফিয়া থেকে তিনবার আর পাকিস্তান যাওয়ার জন্য দু-বার চেষ্টা করে ও ব্যর্থ হয়েছি। প্রথমত পারিবারিকভাবে এমন কোন মহান ব্যক্তি ছিলো না যাদের ইশারাতেই অনেক আরাধ্য সাধ্য হয়ে যায়। দ্বিতীয় যাদের মধ্যস্থতায় দুঃসাধ্য কাজ সমাধা হয়ে যায় তাদের সাথে পূর্বপরিচিতি বা আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিলো না। নিতান্তই অজপাড়া গাঁয়ের উদ্যমী শিক্ষানবীশ এর নিরন্তন ব্যক্তিগত চেষ্টা তদবীর সত্বেও প্রতিকূল পরিবেশ ভেদ করা সম্ভবপর হয় নি। পরবর্তীতে অনেক হিসেব নিকেষ করে দেখেছি সমসামায়িক বহির্বিশ্ব পড়–য়াদের চেয়ে একাডেমিক ডিগ্রী অর্জনে পিছিয়ে থাকলেও হুযুরের দোয়ায় চিন্তা ও মানসিকতার দৈন্যদশা থেকে অনেক ভালো আছি।

১০
মসজিদ মাদারাসা নিঃসন্দেহে দ্বীনী খেদমতের সর্বোৎকৃষ্ট ময়দান। কিন্তু এটাই একমাত্র দ্বীনী খেদমতের সীমিত জায়গা নয়। মসজিদ মাদরাসা কেন্দ্রীক দ্বীনী খেদমত থেকে নিয়ে ইসলাম ও মুসলিম জাতিসত্বা নিয়ে খেদমতের বিস্তৃত ময়দানে যিনি আমাকে চলার স্বপ্ন দেখালেন তিনি মাওলানা মুহিউদ্দিন খান। আমি এটা স্পষ্টই বুঝতে পারি তাঁর সাথে আমার সম্পর্ক স্থাপনের পর আমার পূর্বলালিত চিন্তা-চেতনার মোড় পরিবর্তন করে চিন্তা কর্মে তিনি প্রচন্ড আলোড়িত করেছেন। সুতরাং তার আলোচনায় আমার ভাবাবেগ অনেকের কাছে অপরিমেয় বা আতিশয্য মনে হলেও যারা আমার ও খান সাহেব হুযুরের মধ্যকার আকাশ-পাতাল ব্যবধান সত্ত্বেও উভয়ের মধ্যে অন্তরঙ্গ সুগভীর সম্পর্কের কথা জানেন, তাদের কাছে তা মোটেও অত্যুক্তি বলে মনে হবে না।

১১
আমাদের দেশে দুই শ্রেণীর লোকেরা ধর্মীয় রাজনীতি চর্চা করেন। একশ্রেণী যারা ইসলামের স্বার্থ রক্ষা করে রাজনীতি করেন। অর্থাৎ মুসলিম সমাজের কোনো স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় রক্ষা করতে গিয়ে ইসলামের মৌল নীতিমালা বা বিধানের সামান্যতম ক্ষতি বা বিকৃতিসাধন তারা মেনে নেন না। দেওবন্দী চিন্তাধারার অনুসারীদের মধ্যে এর প্রাবল্য বেশী। দ্বিতীয় শ্রেণী যারা মুসলিম স্বার্থ প্রাধান্য রেখে রাজনীতি চর্চা করেন। এরা মুসলিম জাতিকে অতি প্রগতিশীল ও আধুনিকায়ন করার জন্য ইসলামকে কাটছাট করতে প্রস্তুত। স্যার সৈয়দ ও মাওলানা মুওদুদীর চিন্তা ধারার অনুসারীদের মধ্যে এই প্রবনতা বেশি পরিলক্ষিত হয়। আমার ক্ষুদ্র বিবেচনায় প্রচলিত ধারার এই দুই শ্রেণীর কোনটিকেই তিনি সঠিক মনে করতেন না। বরং অপ্রয়োজনীয় বাড়াবাড়ি ও সীমালংঘন থেকে মুক্ত করে উভয় ধারাকে সমন্বিত ও একিভূত করার তার একটি নিজস্ব চিন্তাধারা ছিল। এজন্য উভয় শ্রেণীর উদারপন্থীরা মওলানা খান সাহেবকে নিজেদের ঘরানার লোক ভাবতেন এবং পরামর্শ গ্রহণ করতেন। তাদের কাছে তিনি ছিলেন খুব নিন্দিত। পক্ষান্তরে উভয় শ্রেণির কট্ররপন্থীরা তাকে ভিন্ন মতাদর্শের লোক মনে করতেন এবং এজন্য তাদের কাছে তিনি কিছুটা উপেক্ষিত ছিলেন। বলাবাহুল্য এটা ছিল মাওলানার একান্তই রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি। পক্ষান্তরে দ্বীন ও শরিয়তের ব্যাখ্যা দানের ক্ষেত্রে ওলামায়ে দেওবন্দের প্রদত্ত্ব ব্যাখ্যাকেই সঠিক ও নির্ভূল মনে করতেন। এজন্য মওদুদীবাদীদের অনুসারীগণ জীবন ভর চেষ্টা করেও তাকে দলে ভেরাতে পারেন নি। এটা নিঃসন্দেহে মওলানার অত্যন্ত বিচক্ষনতা ও দূরদর্শিতার আরেক আশ্চর্য। শীর্ষস্থানীয় উলামায়ে দেওবন্দের সাথে মাওলানার অসম্ভব রকমের সখ্যতা ও হৃদ্যতা ছিলো। তৎকালীন পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের প্রথিতযশা উলামায়ে দেওবন্দের সাথে তার সম্পর্ক ছিলো অত্যন্ত ঈর্ষনীয় পর্যায়ের। এ সম্পর্কে অনেক ঘটনাই মাঝে মধ্যে বলতেন। একদিন বাদ আসরের নিয়মিত মজলিসে বলছিলেন তৎকালীন করাচীতে অনুষ্ঠিতব্য উলামা কনফারেন্সে যোগদানের উদ্দেশ্য করাচী যান। সেখানে আহুত মেনমানবৃন্দের থাকার জন্য নির্ধাারিত ভি,আই,পি হোটেলে উঠে ব্রিফকেস রেখে ফ্রেশ হয়ে আল্লামা ইউসুফ বিন্নূরীর সাথে সাক্ষাত করার জন্য তার প্রতিষ্ঠিত করা”িস্থ জামিয়ায় যান। আল্লামা তখন আসরের নামাযের জন্য ওযু করছিলেন। ওযু শেষ করে ঘাড় ঘুরেই আমাকে পিছনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে কুশলাদী জিজ্ঞাসার পর কিছুটা উস্মাকন্ঠে বললেন, কি হোটেল ওয়ালা মাওলানা! হোটেলবাজী শুরু করেছো? এখনি হোটেলে গিয়ে সব নিয়ে আমার মাদরাসায় চলে এসো। এরপর যদি কখনো শুনি করাচী এসে আমার মাদরাসায় না উঠে অন্য কোথাও উঠেছো তাহলে তোমার সাথে আমার আড়ি। এ কথোপকথনে বিজ্ঞ পাঠকের কাছে সহজেই অনুমেয় আল্লামা বিন্নুরীর সাথে খান সাহেবের কী গভীর সম্পর্ক ছিলো। খান সাহেবের যে বিষয়টি আমাকে খুব অভিভূত করতো তাহলো তার উদ্ভাদবৃন্দ ও মুরুব্বীদের প্রতি তার অগাধ ভক্তি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা। এযুগে এগুনটি ক্রমেই বিলুপ্ত হতে চলছে। বর্তমান যুগের মাদরাসা পুড়য়া ছাত্রদের হালচিত্র দেখে আফসোস করে বলতেন, আলিয়ার কথা তো বলাই যায় না, কওমী মাদরাসার ছাত্রদের মধ্যে আশাব্যঞ্জক সে আমল আখলাক দেখতাম তাও এখন হ্রাস প্রাপ্ত। খান সাহেব মুসলিম উম্মাহর বৃহত্তর ঐক্যের স্বার্থে ছোট খাটে বিতর্কিত বিষয় নিয়ে কখনোই সময় অপচয় করতেন না এবং এ ব্যাপারে তার শুভাঙ্খীদেরকে বিশেষ ভাবে উপদেশও দিতেন। একদিন মাগরিব নামায পর আমাকে বললেন একটু দাঁড়াও। এরপর তিনি তার গবেষনাগারে গিয়ে লাল মলাটবদ্ধ একটি দুই ফর্মার বই আমার হাতে দিয়ে বললেন পড়। আমি দু-এক পৃষ্ঠা দেখে বললাম হুযুর এ পুরা বইটিই আপনার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার আর গালাগালিতে ভরা। আমি এর উত্তর লিখবো। হুযুর বললেন নিয়ে যাও। মূলতঃ খান সাহেবের মাসিক মদীনায় প্রশ্নোত্তর পর্বে আল্লাহর সিফাতে মুতাশাবিহা সম্পর্কে প্রদত্ত জবাবের বিরুদ্ধে আহলে হাদিসদের বিষোদ্গার ছিল। সুতরাং স্পর্শকাতর এ মাসালাটির জবাব আমি দু-তিন দিনের মধ্যে ২৮ পৃষ্ঠার একটি আরটিকেল লিখে হুযুরের হাতে দিলাম। হুযুর দেখে বেশ খুশি হলেও ফেতনার আশংঙ্কায় তা মাসিক মদিনায় ছাপেন নাই।

১২
হুযুর কোন ব্যাপারে অতিরঞ্জিত কোন কিছু শুনলে মাঝে মধ্যে খেদোক্তি করতেন। একদিন বাদ আসরের মজলিসে কথা প্রসঙ্গে পটিয়া মাদ্রাসার সাবেক মুহতামিম নন্দিত আলেমে দ্বীন মাওলানা হারুন ইসলামাবাদী সম্পর্কে কথা উঠলে আমি বললাম হুযুর আমার মনে হয় বাংলাদেশের কওমি পড়ুয়া আলেমদের মধ্যে তিনিই একমাত্র আলেম যিনি চৌদ্দটি ভাষায় পান্ডিত্য এবং আরব আমিরাতে প্রধান বিচারপতির পদ অলংকৃত করতে সক্ষম হয়েছিল। হুযুর আমার কথা শুনে অত্যন্ত গুরুগম্ভীর কন্ঠে বললেন “মানুষ যে কত রকম পাদা পাদবার পারে তা না দেখে বিশ্বাস হয় না”। হুযুরের কথা শুনে আমি চাপা হাসি রোধ করতে পারলাম না। অতঃপর হুযুর মূল ঘটনা আনুপূর্বক বলা শুরু করলেন। আমি একদিন নয়াপল্টনস্থ নোয়াখালী টাওয়ারে আমার অফিসে বসে আছি, ইতিমধ্যে হাজি বশীরুদ্দীন সাহেব এক নওজয়ান আলেম নিয়ে এসে বললেন ছেলেটা খুবই মেধাবী। দাওরা পড়েছে কিন্তু বাংলা কিছুই জানে না। ছেলেটাকে আপনার হাতে দিয়ে গেলাম যা যা শেখানো দরকার শেখাবেন। এরপর আমি ক্লাস ওয়ান এর বাংলা থেকে নিয়ে ক্লাস এইটের বাংলা পর্যন্ত এক বছরেই ওকে পড়িয়ে দেই। ছেলেটা আসলেই খুব মেধাবী ছিল। এত অল্প সময় আর কাউকে এত অধিক পড়া পড়াতে পারি নাই। এর পর থেকে আমার সাথে সব সময় থাকতো। কয়েক বছর পর আমিরাত দুতাবাস থেকে এক ভদ্রলোক আমার অফিসে এসে আমিরাতের সুপ্রিম কোর্টে দোভাষী চাকুরীর প্রস্তাব দিল। লোভনীয় মোটা অংকের বেতন। আমি বললাম আমার দ্বারা সম্ভব না। এসব কাজ ফেলে বাইর মুলুকের বিলাসী জীবন যাপনে সখ নেই। যতই অপারগতা প্রকাশ করি সে নাছরবান্দা। অবশেষে আমার স্থির সিদ্ধান্ত দেখে অনোন্যপায় হয়ে বলল তাহলে আপনার পছন্দের একজন দেন। আমি কথা দিলাম। লোকটি চলে যাওয়ার পর হারুনকে ডাকলাম হারুন! আমীরাত যাবা? ভালো বেতন আছে। হারুন বলল হুযুর অনেক দিনই তো আপনার কাছে থাকলাম এবার জীবনোপকরনের ব্যবস্থারও কিছু করার দরকার। চাকুরীটা হলে মন্দ হয় না। এভাবে ওর আমীরাত যাওয়া। আর ওখানে বিভিন্ন মিশ্র ভাষাভাষী লোকের সাথে ওঠাবসা করতে করতে মেধাবী হিসাবে সে কয়েকটি ভাষা রপ্ত করেছিল সত্য্ তবে চৌদ্দভাষায় পান্ডিত্য এটা তোমাদের বাতুলতা বৈকি। আমি মোহাবিষ্ট হয়ে তার বণর্না শুনে শুধু বিস্মিত হলাম এ ভেবে যে আল্লামা হারুন ইসলামাবদীর মতো দেশের নন্দিত আলেমের সোনালী জীবনের বাগডোরও তার হাতেই নিয়ন্ত্রিত হয়েছে। না জানি এ আবার কোন মহাপুরুষ। খান সাহেব অবশ্য একদিন বলছিলেন আমার হাতে যারা পড়েছে তারা সবাই কোনো না কোনো ভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। হুযুর বলতেন আমি এ হাতে যত গাছ লাগিয়েছে সব গাছেই এতো অধিক ফল ধরতো যে, আশপাশ লোকেরা দেখে আশ্চর্যবোধ করত।
১৩
হুযুরের একটি বিশেষ গুন ছিলো না জানা কোনো বিষয় কারো কাছে জিজ্ঞাসা করতে লজ্জাবোধ করতেন না। অধমের সাথে হুযুরের এ জাতিয় ঘটনা বহুবার হয়েছে। একবার আমি শশুরালয়ে অবস্থান করছিলাম। হঠাৎ সকাল বেলা দেখি খান সাহেব হুযুরের ফোন। রিসিভ করে আমি সালাম দিলাম। এরপর হুযুর জিজ্ঞাসা করলেন সহীহ বুখারী এবং সহীহ মুসলিমের মধ্যে পার্থক্য কি? আমার যতুটুক জানা ছিলো আমি জবাব দিলাম।
১৪
হুযুরের একটি ব্যতিক্রমী চিন্তাধারা ছিলো জ্ঞানীগুনী নারী জগত নিয়ে। তিনি বিশ্বাস করতেন শিক্ষিত নারী জগত ছাড়া আদর্শ জাতি গঠন অসম্ভব। নেপোলিয়ানের ভাষায় আমাকে একটি আদর্শ মা দাও আমি তোমাদের আদর্শ জাতি উপহার দেবো। এজন্য নাতী বা কন্যাতুল্য যে সমস্ত পরিচিত মেয়েদের মধ্যে হুযুর প্রতিভা দেখতেন তাদেরকে লেখালেখি ও বিদ্যা চর্চার জন্য উর্দ্বুদ্ধ করতেন। তাদের সাফল্য দেখে হুযুর খুব উজ্জীবিত হতেন। আমার জানা মতে কবিতা সুলতানা, মাহমুদাতুর রহমানের মতো বেশ কিছু নারী লেখিকা হুযুরেরই হাতে গড়া ফসল। আমার আব্বা কবিতা সুলতানার লেখার খুব গুনগ্রাহী পাঠক ছিলেন। আব্বা একদিন বলছিলেন এই যে খান সাহেবের কথাই ধর তার এতো বড় হওয়ার পিছনে কিন্তু তার মায়ের অবদানই বেশী। যে সময়ে তার মহিয়সী মা শিশু মুহিউদ্দীন খানকে যে উচ্চভিলাষী স্বপ্ন দেখাতেন তা তো এ যুগের মায়েদের মধ্যেও বিরল।

১৫
মাওলানা খান সাহেব হুযুরের বড় সফলতা আমি মনে করি তিনি ধর্মকর্ম থেকে যোজন থেকে দূরে অবস্থিত আধুনিক শিক্ষিত জনদের মধ্যে এক বিরাট ধর্মীয় পাঠক সমাজ তৈরী করতে সক্ষম হয়েছিলেন। আমাদের আলেম সমাজের মধ্যেও অনেক লেখক আছেন। কিন্তু তাদের পাঠকপ্রিয়তা ও বাহবা নিজের ভক্তজনদের মধ্যে সীমিত। আমার ক্ষুদ্র অভিজ্ঞতা ও জানা মতে তাদের লেখায় ভাষার লালিত্য ও সঠিক শব্দ চয়নের নিদারুন দীনতা ভিন্ন মতালম্বী পাঠক আকর্ষন তো দূরের কথা নিজের একান্ত ভক্তকুলের মধ্যেও যারা একটু সাহিত্য রসবোধ রাখেন তাদেরকেও দারুন হতাশাগ্রস্থ করে। একদিন আসরের পর হুযুরের নিয়মিত মজলিস সবেমাত্র বসেছি তখন দেখি সোফা টেবিলের উপর অত্যন্ত গুরুগম্ভীর তথ্য সমৃদ্ধ একটি বই। বইয়ের ভিতরের প্রথম পৃষ্ঠায় তিন লাইনের দীর্ঘ লকবের পর হুযুরের নাম। লেখক দেশের একজন খ্যাতনামা আলেম। আমি বইটি আগেও দেখেছি। তথাপি বইটি হাতে নেয়ার সঙ্গে সঙ্গে হুযুর বললেন তথ্য আছে বটে লালিত্য নেই। ভালো পাঠক আকর্ষন করতে পারবে না। আসলে ভাষায় লালিত্য না থাকলে চরম ধৈর্য নিয়েও বেশীক্ষন পাঠ অব্যাহত রাখা যায় না। এ ধরনের বই পীর মুরীদ বা ছাত্র উস্তাদের সম্পর্ক ছাড়া বাইরে প্রায় অচলই বলা যায়। শরৎ, বঞ্চিম, রবি ঠাকুরদের আজেবাজে লেখাও আমাদের মতো মৌলবীদের সম্মোহনী শক্তির মতো আকর্ষন করে। কিন্তু আমাদের লেখা? সে মানের লেখক এখনো হাতে গোনা দশ বারোর উর্দ্ধে হবে? মানহীন এই লেখালেখির প্রাচুর্যতাও হুযুরকে মাঝে মধ্যে দুশ্চিতায় ফেলতো। শরীফ মুহাম্মদ, ড.আ.ফ.ম খালেদ হোসেনের লেখার হুযুর প্রশংসা করতেন। এ সম্পর্কে অনেক স্মৃতিই আছে বা এখানে লেখা সম্ভব নয়।

১৬
হুযুরের সাথে আমার দীর্ঘ ছয় বছরের সম্পর্কের মধ্যে কোনো পত্র আদান প্রদান হয়নি। কারণ এতো দীর্ঘ সময়ে কখনো এমন দূরত্ব সৃষ্টি হয়নি যে পত্র আদান প্রদান করার প্রয়োজন হয়। এছাড়া কখনো বিশেষ প্রয়োজন হলে মোবাইলেই যোগাযোগ হতো। সুতরাং হুযুরের লিখিত পত্রের মাধ্যমে আমার ও হুযুরের মধ্যে সুগভীর সম্পর্ক বুঝানো অসম্ভব। তথাপি মুহাম্মাদপুরস্থ লালমাটিয়া মাদরাসায় আমার নিয়োগের প্রাক্কালে এক বিশেষ প্রয়োজনে হুযুর দুই লাইন মন্তব্য লিখে দিয়েছিলেন। আমার ক্যাবলাকান্ত চেহারা, জীর্নশীর্ণ শরীর আর অল্প বয়স দেখে খান সাহেবের সাথে আমার সম্পর্কের বিষয়টি যে কোনো সচেতন ব্যক্তিকে সন্দিহানে নিপতিত করা আশ্চর্যের বিষয় নয়। হুযুরের কাছে সমস্যার কথা বললে হুযুর সাথে সাথে টেবিল থেকে নিজস্ব প্যাড দিয়ে বললেন, লেখ আমি বলছি, হামদ ও সালাতের পর মাওলানা খালেদুজ্জামান আমার অত্যন্ত ঘনিষ্ট ও আস্থাভাজন ব্যক্তি। ইলম, আখলাক ও সাদাকাতে সে অত্যন্ত প্রশংসনীয়। সে আমর পত্রিকা মাসিক মদীনার প্রশ্নোত্তর কলামের লেখক। আমার তত্ত্বাবধানে সে ২০১৩ ইং থেকে এ যাবত এ বিভাগে খুব যোগ্যতা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছে এবং ভবিষ্যতেও আমি তাকে এ কাজের জন্য যোগ্য মনে করে এ বিভাগের দায়িত্ব অর্পন করছি। তার দৈনন্দিন জীবন ও আচার-আচারণে আমি অত্যন্ত আশাবাদী। দোয়া করি আল্লাহ পাক তার জীবনে সার্বিক সাফল্য দান করুক। দুআন্তে হুযুরের স্বহস্তে স্বাক্ষর। লেখা শেষ হলে হুযুর একবার পড়ে দেখে বললেন এটা সযতেœ কাছে রেখে দিও। সেদিন ¯েœহাতিশয্যে অনেক আশীবার্দ মূলক কথা বলেছিলেন। যা আজো আমার কাছে হিসেবে মিলে না। কথাস্থলে হুযুরকে জিজ্ঞাসা করলাম আপনার অবর্তমানে কার কাছে যাবো। হুযুর একটু কি যেনো চিন্তা করে বললেন আর কারো কাছে তোমার যেতে হবে না ইনশাআল্লাহ তোমার কাছেই লোকেরা আসবে। এটা কি হুযুরের আবেগী কথা ছিলো না দূরদর্শীতা তা আল্লাহই ভালো জানেন। এরপর মাথায় হাত দিয়ে দোয়া করে বিদায় দিলেন। আমার প্রতি হুযুরের আস্থার চরম বহিঃ প্রকাশ ছিলো মাসিক মদীনার সবচেয়ে পাঠক প্রিয় কলাম প্রশ্নোত্তর বিভাগ আমার দায়িত্বে ন্যস্ত করা। এটা হুযুর হঠাৎ করেই দেননি। এর আগে মাঝে মধ্যে দু-একটি প্রশ্নের কাজ করিয়ে নিতেন এবং আমার প্রদত্ত উত্তর দেখে সন্তোষ প্রকাশ করতেন। ছয়-সাত মাস কুড়ানো মানিকের পাতায়ও কাজ করিয়েছেন। তবে মাসিক মদীনার পূর্ণ প্রশ্নোত্তর বিভাগ আমার হাতে ছেড়ে দিবেন তা আমার কল্পনায়ও ছিলোনা। এ বিভাগের নিয়মিত পাঠকদের এ বিষয় দিবালোকের মতো পরিস্কার যে মাসিক মদীনায় শুধু ফিকহ সংক্রান্ত প্রশ্নই করা হয় না বরং ইতিহাস, রাজনৈতিক, ভৌগলিক, মনীষী চারন, বিবিধ পরার্মশ, দর্শন, তত্ত্ব ও তথ্য সমৃদ্ধ বিচিত্র রকমের প্রশ্ন করা হয়ে থাকে। সুতরাং মাসিক মদীনায় প্রশ্নোত্তর বিভাগে আমার মতো অযোগ্য ও নাখান্দার কাজ করা আকাশ কুসুম কল্পনা বৈকি? এজন্য যেদিন হুযুর আমাকে এ প্রস্তাব দিলেন আমি বললাম এ গুরুত্বপূর্ণ ও স্পর্শকাতর বিভাগটি কোনো ভালো মুফতী বা দারুল ইফতায় দিলে ভালো হয়। হুযুর প্রতিত্তরে বললেন বাবা দিয়েছিলাম কয়েকজনকে। সব গুলিয়ে ফেলে। দোয়া করি তুমি এ কাজ কর কোন সমস্যা হবে না। ইনশাল্লাহ। তবে হুযুর একটি মৌল নীতিমালা বলে দিয়েছিলেন যে, মাওলানা আশরাফ আলী থানভী, মাওলানা হোসাইন আহমাদ মাদানী, মুফতী কেফায়েতুল্লাহ, রশিদ আহম্মদ গাঙ্গুহী, মাওলানা ইলিয়াছ রহঃ প্রমুখ আকাবেরের মাসলাক ও চিন্তাধারা মোতাবেক কাজ কর। আমি মনে করি হুযুরের এ কথায় স্পষ্টভাবে প্রমানিত হয় যে, মওদুদী বাদের সাথে তার নুন্যতম সম্পর্ক ছিল না। বরং ক্ষেত্র বিশেষে তাদের সাথে অনেক মতাদর্শে বাদানুবাদও হয়েছে। খান সাহেব হুযুর ছিলেন নির্মোহ ও নিরহংকার। একদিন কৌতুল বশতঃ জিজ্ঞাসা করলাম হুযুর গেন্ডারিয়ায় কেন বাড়ী করলেন। এর থেকে একটি ভাল জায়গায় বাড়ী করলেও তো পারতেন। হুযুর উদাস কন্ঠে বললেন, থাকার একটা জায়গা হলেই হলো। শুন আমার থেকে টাকা ধার নিয়ে অনেকে শান্তিনগরে বহুতল ভবন তৈরি করে আছে। অথচ সে টাকা আজও পরিশোধ করে নি।
১৭
মাওলানা খান সাহেবের ব্যক্তিত্ব ছিল আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে অত্যন্ত প্রভাবশালী ও গ্রহণ যোগ্য। আলেম সমাজের মধ্যে এ ধরনের ব্যক্তিত্ব নেই বললেই চলে। সৌদিআরবের রাজ পরিবারের সাথে খান সাহেবের সখ্যতা ছিল বেশ ঈর্ষানীয়। তিনি সৌদিতে রয়েল প্যালেস এর দূর্লভ সম্মান পেতেন। লন্ডন থেকে খান সাহেবকে বাহরুল উলুম তথা বিদ্যাসাগর উপাধি দেওয়া হয়েছে। উম্মুল কুরা, মদীনা বিশ্ববিদ্যালয় ও জামিয়া আজহারের মত বিশ্ব বিখ্যাত বিদ্যাপীঠে তার সুপারিশ অসম্ভবরকম মূল্যায়িত হতো। আফসোস শুধু তিনি দাড়ী টুপিওয়ালার দায়ে প্রতিভা বিনাশী এদেশে যথাযোগ্য মূল্যায়িত হন নি। তার অনেক জুনিয়ররাও এদেশে বাংলা একাডেমিক ও একুশে পদক পুরস্কার পেয়েছেন। অথচ রাষ্ট্রীয় ভাবে তার অজস্য সাহিত্য সেবা কোন স্বীকৃতই দেওয়া হয় নি। অথচ বাংলা একাডেমির প্রথম ১০ জন প্রতিষ্ঠাতা সদস্যর অন্যতম একজন তিনিও ছিলেন। জওহরীই জওহরীকে চেনে। তিনি এদেশে মূল্যায়িত না হলেও বহির্বিশ্বে ঠিকই মূল্যায়িত হয়েছে। কলিকাতা স্বর্ণ পদক পেয়েছে। মৃত্যুর প্রায় ছয় মাস আগে নোবেলের পরে জাপান সরকারের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক পুরস্কার গ্রহণ করার জন্য আমন্ত্রিত হয়েছিলেন। কিন্তু শারিরীক অসুস্থ’্যতা ও অক্ষমতার দরুন তিনি যেতে পারেন নি। আমি বললাম আপনার কোন ছেলেকে আপনার প্রতিনিধি হিসেবে পাঠাতে পারেন। হুযুর বললেন এখন আর ওসব দরকার নেই। আসলে দুনিয়ার পুরস্কারের প্রতি হুযুরের তেমন কোন আকর্ষন ও মোহ ছিল না। হুযুরের সম্পর্কে যদি বিস্তারিত লিখতে যাই তাহলে আরেকটি “জীবনের খেলাঘরে” তৈরি হয়ে যাবে। হুযুরের লিখিত আত্মজীবনী কোন পরিকল্পিত রচনা ছিল না। বিধায় তা পূর্ণ করতে পারেন নি। ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালে হুযুরকে দেখতে গেলে আহমদ বদরুদ্দিন ভাইয়ের সাথে অনেক কথাচ্ছলে তিনি জানালেন যে আমি “জীবনের খেলাঘরে” পূর্ণ করার জন্য আব্বাকে বলেছিলাম। কিন্তু অসুস্থার কারণে আব্বা লিখতে অপারগতা প্রকাশ করিলে আমি বললাম আপনি মুখে বলেন আর আমি লিখি। আব্বা এতেও অনাগ্রহ প্রকাশ করলে আমি আপনার কথা বলেছিলাম যে ঠিক আছে তাহলে আপনার ওনাকে (অধমকে) ডেকে আনি। আপনার কথাগুলি উনি লিখে দিক। তখন আব্বা বললেন আর বেশি লেখতে গেলে অনেকের গোমর ফাঁস হয়ে যাবে। তার চেয়ে যেভাবে আছে থাকতে দাও।
১৮
নিস্কলুষ সত্ত্বা তো একমাত্র আল্লাহর আর পুত পবিত্রময় জীবন একমাত্র তার রাসূলের (সাঃ)। খান সাহেবের আলোকিত ব্যক্তিত্ব অনেক জ্ঞানীগুনী পন্ডিতদের কাছে বিভিন্নভাবে আলোচিত ও সমালোচিত হতে পারে। তবে তার অসাধারণ প্রজ্ঞা, ঈর্ষনীয় মেধা, সূক্ষ্ম দূরদর্শীতা, নিরবচ্ছিন্ন অধ্যবসায়, ইসলাম ও ধর্মের জন্য নিরলস সংগ্রাম, আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে তার প্রভাব বিস্তারকারী ব্যক্তিত্ব, দ্বীন প্রচার প্রসারে তার ব্যাকুলতা ও অস্থিরতা, নিষ্ঠা, সততা, হক ও সত্যর জন্য আপোষহীন মনোভাব, নিঃসন্দেহে দ্বিমত প্রকাশের উর্দ্ধে। হুযুরের সাথে আমার শেষ সাক্ষাত হয় মৃত্যুর প্রায় সাপ্তাহ দুয়েক আগে কাকরাইলস্থ ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে। প্রায় দুঘন্টা যাবৎ হুযুরের সাথে অত্যন্ত মধুর সময় কাটানোর পর বিদায়ের মুহুর্তে তিনি আমার মাথা কোলের কাছে টেনে নিয়ে আদর ¯েœহ করত দোয়া করলেন। বাবা আবার এসো আর আমার মাসিক মদীনাকে মেরে ফেলো না বাঁচিয়ে রেখো। এই ছিল হুযুরের আমার সাথে সর্বশেষ কথা। শেষোক্ত কথাটি ইতিপূর্বেও হুযুর প্রায় পাঁচ ছয়বারের মত আমাকে বলেছেন। আমার অবর্তমানে মাসিক মদীনা ছেড়ে দিওনা। আমার স্টাফ তোমার সাথে কোন খারাপ ব্যবহার করলেও আমার দিকে তাকিয়ে পত্রিকার সাথে লেগে থেকো। হুযুর চলে গেলেন ১৯শে রমজানে। কি আশ্চর্য আধ্যাতিœক শক্তি আমি এখন অনুভব করি। হুযুর মৃত্যুর প্রায় দু বছর আগ থেকে আমাকে বারবার বলতেন, আমার মনে হয় যে আল্লাহ আমাকে রমজান মাসেই নিবেন। একেই বলে আল্লাহর ওলিদের এলহাম বা ফেরাসাত। এখন আমি একা, নিঃস্ব, অসহায় ও এতিম। জানিনা নিশাচর এ মুসাফিরের জীবনে সেই সুহসীনি ভোর কবে আসবে। আর লিখতে পারছিনা । আল্লাহ তুমি হুযুরকে যথাযোগ্য সম্মানে ভূষিত কর। আমিন।

লেখক, গবেষক, তরুণ আলেমেদ্বীন
মাওলানা খালেদুজ্জামান
মুহাদ্দিস
জামি‘আ ইসলামিয়া লালমাটিয়া
মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

এই সংবাদটি 1,030 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com