বুধবার, ০১ মে ২০১৯ ০৫:০৫ ঘণ্টা

সিলেটের ঐতিহ্য সুরক্ষায় নাগরিক আন্দোলন এবং কিছু প্রশ্নোত্তর

Share Button

সিলেটের ঐতিহ্য সুরক্ষায় নাগরিক আন্দোলন এবং কিছু প্রশ্নোত্তর

সৈয়দ মবনু
:
আমরা যখন ঐতিহ্যবাহী আবুসিনা ছাত্রাবাসের ভবন রক্ষার দাবী করতে শুরু করি তখন আমাদেরকে বিভিন্নজন বিভিন্ন কথা বলতে থাকেন। প্রথমে তারা বলেন, আমরা নাকি হাসপাতালের পরিবর্তে জাদুঘর করতে চাচ্ছি। জনগণকে উত্তেজিত করতে তারা প্রশ্ন করেন-হাসপাতাল না জাদুঘর?

সাধারণ মানুষ কেন আমিও এমন প্রশ্নের উত্তরে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে বলবো অবশ্যই হাসপাতাল। আমরা যখন ভেঙে বললাম, ঐতিহ্য রক্ষা করেও হাসপাতাল করা যায়। ৬ এপ্রিল ২০১৯ খ্রিস্টাব্দে এবিষয়ে আমার একটি বইও প্রকাশিত হয়। হয় বিভিন্ন মতবিনিময় সভা। আমাদের সবার একটিই কথা, আমরাও হাসপাতাল চাই, তবে ঐতিহ্য রক্ষা করে। সাথে সাথে আমরা দেখিয়ে দেই ঐতিহ্যবাহী আবুসিনা ছাত্রাবাসের ভবন রক্ষা করে সিলেট শহরের কোথায় কোথায় হাসপাতাল তৈরি করা সম্ভব। সিলেটের শাহী ঈদগাহ তো যক্ষ্মা হাসপাতাল অকেজু হয়ে রয়েছে। টিভি হাসপাতালের জায়গা অন্যরা দখল করে বসে আছেন। এখন ধীরে ধীরে যক্ষ্মা হাসপাতালের জায়গাও হয়তো দখল হয়ে যাবে। আমরা দাবী করেছি যক্ষ্মা হাসপাতালের জায়গায় নতুন হাসপাতাল তৈরি করলে প্রথমত ঐতিহ্য রক্ষা পায়, দ্বিতীয়ত শহরের প্রধান সড়কে যানজট-মানুষজট হ্রাস পায়, তৃতীয়ত দরাগাহ-আলিয়া মাদরাসার মাঠ-স্টেডিয়াম ইত্যাদির শব্দ-দোষণ থেকে হাসপাতালের রোগীরা রক্ষা পায়।

যারা প্রশ্ন করেন, হাসপাতাল না জাদুঘর তাদের মুর্খতা দেখে আমার মধ্যে আরেকটু মুর্খতা বৃদ্ধি পেয়ে প্রশ্ন জাগে ধানের গাছের আগা গুরুত্বপূর্ণ না জড়? ধান তো আগায় থাকে, জড় দিয়ে কি হবে? ইচ্ছা চিন্তে করুন তো, এটা কি কোন প্রশ্ন হলো? একদল বোঁকাকে দেখি মাঝেমধ্যে ফেসবুকে প্রশ্ন করে, তোমার কাছে মূল্যবান কে- মা না স্ত্রী? আচ্ছা চিন্তা করুন তো, এটা কি বুদ্ধিমানের প্রশ্ন হতে পারে? মা তো মায়ের জায়গায় মূল্যবান এবং স্ত্রী স্ত্রীর জায়গায়।

প্রিয় বন্ধুরা, মা মায়ের জায়গায়, তেমনি স্ত্রী স্ত্রীর জায়গায় মূল্যবানের মতোই আমি মনে করি ঐতিহ্য ঐতিহ্যের জায়গায় এবং হাসপাতাল হাসপাতালের জায়গায় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমরা কোথাও জাদুঘরের কথা বলিনি। এই ভবনকে সংরক্ষণ করে সঠিকভাবে হেফাজতের জন্য প্রশ্ন উঠলে বলা হয়, ভবনটি নিজেই একটি জাদুঘর, এখানে সিলেট জেলা যাদুঘর তৈরি করা যেতে পারে। কথাটা মূলত বলেছেন, সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।
আমি কোন রাজনীতি করি না। তবে ন্যায্য দাবী যে দলই করে তাদের পক্ষে থাকি। আমার কিছু পরিচিত বন্ধু ফেসবুকে কিংবা দেখা হলে বলেন, এখানে ঐতিহ্য রক্ষার দাবী তো একটি ব্যানার মাত্র। মূলত বামরা এখানে এই আন্দোলনকে কেন্দ্র করে সংঘবদ্ধ হচ্ছে তাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য। আমি প্রশ্ন করি তাদেরকে, কে আন্দোলন করছে সেটি কি মূল বিষয়, না কি নিয়ে আন্দোলন হচ্ছে তা মূল বিষয়? আমার তো কোন দলীয় পরিচয় নেই, আবার সেখানেও কোন দলীয় ব্যানার নেই। এই আন্দোলনের ব্যানারে লেখা আছে নাগরিক সমাজের কথা। আমি এই রাষ্ট্রের একজন আদর্শ নাগরিক। আমি যেতেই পারি সেখানে। সেখানে বেশিরভাগ মানুষ বাম, আপনারা ডানরা না আসলে কি আর করার আছে, বামরাই নাগরিকদের নেতৃত্ব দেবে। আমরা নাগরিক সমাজের জন্য কে নেতৃত্ব দিচ্ছে সেটা বিষয় নয়, বিষয় হলো কিসের জন্য তারা আন্দোলন করছে। একজন শ্রম দিবে, টাকা দিবে, সময় দিবে, আর আপনি যদি আশা করেন আপনার কোন অবদান ছাড়া কাজের শেষে লাভের অংশ আপনার বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হোক, তা তো কেউ মানবে না। বামরা যদি আন্দোলন-সংগ্রামে মাঠে থাকে তবে ফলাফলটাও তারা নেবে, তাই বাস্তবতা। আমার তো কোন দল বা গোষ্ঠি নেই। আমি তো আর চাইলেও পৃথক কোন প্লাটফরম তৈরি করতে পারবো না, আর মূলত চাইও না। তাই যারা আন্দোলন-সংগ্রাম করছে তাদের সাথে শুধু সহমতের জন্য মাঝেমধ্যে গিয়ে পাশে দাঁড়াই। তাই এখানে ডান-বাম কিংবা ইসলামিক আমার বিষয় নয়। আমাকে কোন ঘরই তাদের নিজের মনে করে না। আমি কারোই অন্ধ অনুসারী নয়। যেহেতু অন্তর দেখা যায় না, তাই কেউ অন্তরের খবর না জেনে বিভ্রান্ত হয়ে বিভিন্ন অপবাদ দিয়ে থাকে আমাকেও।
কেউ কেউ বলেন, যারা টাকার অংশ পেয়েছেন তারা এটা ভেঙে হাসপাতালের পক্ষে। যারা টাকা পাননি তারা টাকা পাওয়ার জন্য দৃষ্টি আকর্ষনের জন্য আন্দোলন করছেন। আর আমরা নাগরিক সমাজ হচ্ছি ছাগলের তৃতীয় ছানা। কথাটা কারো কারো জন্য সত্য হলেও হতে পারে। কিন্তু আমি যাদেরকে ভবন রক্ষার আন্দোলনে এখনও দেখছি তারা কেউ এমন বলে মনে হচ্ছে না। বাকি তো জানেন অন্তর্জামী। আর এত সন্দেহ বুকে নিয়ে চলা যায় না। কেউ কোন স্বার্থে করলে আমাদের কিছু আসে যায় না। আমরা আছি আমাদের জাতীয় স্বার্থ নিয়ে।
আমার বিষয় সিলেটের ঐতিহ্যের সুরক্ষা। হয়তো আমরা সফল হবো, হয়তো সফল হবো না। তবে মনে শান্তনা পাই কিছু চেষ্টা করেছি বলে।

এই সংবাদটি 1,091 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com