বৃহস্পতিবার, ০২ মে ২০১৯ ১২:০৫ ঘণ্টা

তিন জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরল ৭ প্রাণ

Share Button

তিন জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরল ৭ প্রাণ

ডেস্করপেোর্ট:

তিন জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় বৃহস্পতিবার সকালে সাতজন নিহত হয়েছেন। রাজশাহী, বাগেরহাট ও লক্ষ্মীপুর জেলায় এসব দুর্ঘটনা ঘটে।

এই তিন দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ১৭ জন।

রাজশাহী ব্যুরো: রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় ভটভটির সঙ্গে সংঘর্ষে যাত্রীবাহী বাস উল্টে খাদে পড়ে তিনজন নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন।

বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার দিকে চারঘাট-বাঘা মহাসড়কে উপজেলার মীরগঞ্জ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- ডাল মিল শ্রমিক মনোয়ারা বেগম ও হাওয়া বেওয়া এবং বাসের হেলপার হানিফ আলী। মনোয়ারা বাঘা উপজেলার বান্দা বটতলা গ্রামের মুনসুর আলীর স্ত্রী। হাওয়া বেওয়া হরিরামপুর দাঁড়পাড়া গ্রামের নিয়ত মন্ডলের স্ত্রী।

বাঘা থানার ওসি মহসেন আলী জানান, বাঘা থেকে রওনা হয়ে বাসটি রাজশাহী যাচ্ছিল। পথে ভটভটির সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে বাসটি উল্টে খাদে পড়ে ঘটনাস্থলেই ৩ জন নিহত হয়েছেন।

লক্ষ্মীপুরে প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরে ট্রাকচাপায় দুখু মিয়া নামের এক সিএনজি চালিত অটোরিকশার চালক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো দুজন।

বৃহস্পতিবার ভোরে লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের উত্তর তেমুহনী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- নুর হোসেন ও ইব্রাহিম। এর মধ্যে নুর হোসেনের আবস্থা আশংকাজনক।

সদর হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আনোয়ার হোসেন জানান, আহতদের মধ্যে নূর হোসেনের অবস্থা আশংকাজনক। তাকে দ্রুত ঢাকায় নেয়ার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ভোর ৬টার দিকে লক্ষ্মীপুর বাস ট্রার্মিনাল এলাকা থেকে ছেড়ে আসা দ্রুত গতির একটি ট্রাক উত্তর তেমুহনী এলাকায় দাঁড়িয়ে থাকা চারটি সিএনজি চালিত অটোরিকশাকে চাপা দেয়। এতে চালক দুখু মিয়া ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। এসময় আহত হন আরও দুজন। আহতদের সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লোকমান হোসেন জানান, ঘাতক ট্রাকটিকে জব্দ করা হয়েছে। তবে চালক ঘটনার পর পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

বাগেরহাট প্রতিনিধি: জেলার রামপাল উপজেলার মানিডাঙ্গা এলাকায় ট্রাক ও মাহেন্দ্রর মুখোমুখি সংঘর্ষে ৩ জন নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৫ জন।

রামপাল হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক মলয় রায় বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে খুলনা-মোংলা মহাসড়কের রামপালের চেয়ারম্যানের মোড় এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মাহেন্দ্রটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ট্রাকটির সামনে চলে গেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই ৩ জন মারা যান। আহতের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এই সংবাদটি 1,006 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com