শুক্রবার, ০৩ মে ২০১৯ ০৪:০৫ ঘণ্টা

সাংবাদিক ও সংগঠক তাজুল ইসলাম বাঙ্গালীর দাফন সম্পন্ন

Share Button

সাংবাদিক ও সংগঠক তাজুল ইসলাম বাঙ্গালীর দাফন সম্পন্ন

সিলেট রিপোর্ট: সিলেটের প্রবীণ সাংবা‌দিক ও সংগঠক, খেলাঘর এর সাবেক বিভাগীয় সম্পাদক, ছড়াকার তাজুল ইসলাম বাঙ‌ালী আর নেই (ইন্না‌লিল্লা‌হি…….রাজ‌িউন)। বৃহষ্পতিবার রাত ১টার দিকে নগরীর একটি হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হ‌য়ে‌ছিল প্রায় ৬০ বছর। তিনি স্ত্রী, ২ মেয়ে, ২ ছেলেসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।
বাদ জুম্মা বরইকান্দি শাহী ঈদগাহে তার নামাজে জানাযা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।
এর আগে শুক্রবার দুপুর ১২টায় তার লাশ সর্বস্থরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আনা হয়। এসময় খেলাঘরের সংগঠকরা সংগঠনের পতাকা দিয়ে তার কফিন আবৃত করেন। এর পর একে একে তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানান সিলেটের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সংগঠন ও সর্বস্থরের মানুষ।
তাজুল ইসলাম বাঙ্গালি দীর্ঘ দিন থেকে শিশুদের নিয়ে কাজ করছিলেন। খেলাঘরের মাধ্যমে নিয়ে শিশুদের একতাবদ্ধ করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করতেন। তাজুল ইসলাম বাঙ‌ালী কর্মজীবনে দৈনিক স‌ি‌লেটের ডাক,‌ বার্তা সংস্থা- বিএনএস, সিআইপ‌ি, মিডিয়া গাইড সহ বি‌ভিন্ন সংস্থায় কাজ ক‌রে‌ছেন। একজন ফ্রিল্যান্স সাংবা‌দিক হ‌ি‌সে‌বে অসুস্থ অবস্থায়ও কাজ কর‌তেন। তি‌নি জাতীয় সাংবা‌দিক সংস্থা, দ‌ক্ষিণ সুরমা প্রেসক্লাব, ছড়া মঞ্চ, বাংলা‌দেশ প‌য়েটস ক্লাব এর বি‌ভিন্ন দা‌য়িত্ব পালন ক‌রে‌ছেন।

অনলাইন প্রেসক্লাবের শোক প্রকাশ: সাংবাদিক তাজুল ইসলাম বাঙালির মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ। এক শোক বার্তায় সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহিত চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মকসুদ আহমদ মকসুদ আহমদ বলেন,সাংবাদিক তাজুল ইসলাম বাঙালির মুত্যুতে আমরা একজন আদর্শিক সংগ্রামী মানুষকে হারালাম যিনি কখনও অন্যায়ের সাথে আতাত করেননি। এ শূন্যতা সহজে পূরণ হবার নয়। তারা শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন এবং তার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন। এদিকে, সাংবাদিক ও সংগঠক তাজুল ইসলাম বাঙ্গালির মৃত্যুতে অনুরুপ শোক প্রকাশ করেছেন অনলাইন নিউজপোর্টাল আজকের সিলেট ডটকম’র প্রধান সম্পাদক এম. সাইফুর রহমান তালুকদার ও সম্পাদক রজত কান্তি চক্রবর্তী, সিলেট রিপোর্ট ডটকম এর সম্পাদক রুহুল আমীন নগরী। তারা এক শোক বার্তায় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

এই সংবাদটি 1,074 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com