শনিবার, ০৪ মে ২০১৯ ১০:০৫ ঘণ্টা

৪০তম বিসিএস প্রিলিতে অনুপস্থিত ৮৩ হাজার

Share Button

৪০তম বিসিএস প্রিলিতে অনুপস্থিত ৮৩ হাজার

ডেস্করিপোর্ট: নকলমুক্ত পরিবেশে ৪০তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ কেন্দ্রের ৩২৯টি হলে একযোগে পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন। এ পরীক্ষার জন্য ৪ লাখ ১০ হাজার ৯৬৩ জন নিবন্ধন করলেও ৩ লাখ ২৭ হাজার ৫২৫ জন প্রার্থী এ পরীক্ষায় উপস্থিত ছিলেন। এ পরীক্ষায় অনুপস্থিত ছিলেন ৮৩ হাজার ৪৩৮ জন প্রার্থী। শতকরা ৭৯ দশমিক ৭০ শতাংশ উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকে, এ পরীক্ষায় বহিষ্কার হয়েছেন ৫ প্রার্থী। শুক্রবার বিকালে কমিশন এমনটাই জানিয়েছে। সরকারি কর্ম কমিশন জানিয়েছে, ৪০তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার জন্য ঢাকা কেন্দ্রে লিপিবদ্ধ প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ২ লাখ ১৬ হাজার ২৬১ জন। আর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন এক লাখ ৬৭ হাজার ৫০৮ জন প্রার্থী। অনুপস্থিত ছিলেন ৪৮ হাজার ৭৫৩ জন। চট্টগ্রাম কেন্দ্রে লিপিবদ্ধ প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ৩৭ হাজার ১১৩ জন। আর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন ২৯ হাজার ৪৯৬ জন প্রার্থী। অনুপস্থিত ছিলেন ৭ হাজার ৬১৭ জন।

রাজশাহী কেন্দ্রে লিপিবদ্ধ প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ৩৮ হাজার ৮৪৪ জন। আর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন ৩১ হাজার ৯৬৫ জন প্রার্থী। অনুপস্থিত ছিল ৬ হাজার ৮৭৯ জন। খুলনা কেন্দ্রে লিপিবদ্ধ প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ২৯ হাজার ২৬৩ জন। আর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন ২৩ হাজার ৭৮৪ জন প্রার্থী। অনুপস্থিত ছিলেন ৫ হাজার ৪৭৯ জন।

বরিশাল কেন্দ্রে লিপিবদ্ধ প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ১১ হাজার ৯৭২ জন। আর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন ৯ হাজার ৪৬৭ জন প্রার্থী। অনুপস্থিত ছিলেন ২ হাজার ৫০৫ জন। সিলেট কেন্দ্রে লিপিবদ্ধ প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ১৬ হাজার ৯১৪ জন। আর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন ১৩ হাজার ৮৫০

জন প্রার্থী। অনুপস্থিত ছিলেন ৩ হাজার ৬৪ জন। রংপুর কেন্দ্রে লিপিবদ্ধ প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ৩২ হাজার ৩২৪ জন। আর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন ২৭ হাজার ২৬১ জন প্রার্থী। অনুপস্থিত ছিলেন ৫ হাজার ৬৩ জন। ময়মনসিংহের কেন্দ্রে লিপিবদ্ধ প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ২৮ হাজার ২৭২ জন। আর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন ২৪ হাজার ১৯৪ জন প্রার্থী। অনুপস্থিত ছিলেন ৪ হাজার ৭৮ জন।

এ পরীক্ষায় ৫ পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এরা সবাই ঢাকা কেন্দ্রের ছিলেন। ১১০৩৯৯৬২ ও ১১১০৮৯৭১ রেজিস্ট্রেশন নম্বরধারী প্রার্থী ডিবি পুলিশ কর্তৃক আটক ও বহিষ্কার হয়েছেন। পরীক্ষার কেন্দ্রে ডিভাইস নিয়ে আসার কারণে ১১১০৮১১১ রেজিস্ট্রেশন নম্বরধারী এবং মোবাইল আনার কারণে ১১১৩২০২১ রেজিস্ট্রেশন নম্বরধারী প্রার্থী রিপোর্টেড হয়েছেন। তাছাড়া ১১১৮১৭১৬ রেজিস্ট্রেশন নম্বরধারী পরীক্ষার নীতিমালা অনুসরণ না করার কারণে রিপোর্টেড হয়েছেন।

প্রতিবাদ জানিয়ে পরীক্ষা দেননি দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীরা : শ্রুতলেখক নিয়ে সরকারি কর্ম কমিশনের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ৪০তম বিসিএস পরীক্ষা বর্জন করেছেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী চাকরিপ্রার্থীরা। শুক্রবার সকালে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন কার্যালয়ের সামনে তারা প্রতীকী অনশন করেন। জানা যায়, শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে কমিশনের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন প্রায় ৭০ জন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী চাকরিপ্রত্যাশী। তারা চোখে কালো কাপড় বেঁধে প্রতিবাদ করেন। চাকরিপ্রত্যাশী দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী গ্র্যাজুয়েট পরিষদের ব্যানারে তারা এ প্রতিবাদ জানান। পরে দুপুর পৌনে একটার দিকে তারা প্রতীকী অনশন শেষ করেন।

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী চাকরি প্রার্থীরা বলছেন, তারা এসএসসি, এইচএসসি পরীক্ষায় মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের নীতিমালা এবং স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রুতলেখক-সংক্রান্ত নীতিমালা অনুযায়ী পরীক্ষা দিয়ে এসেছেন। কিন্তু কর্ম কমিশন স্বেচ্ছাচারী সিদ্ধান্ত নেওয়ার ফলে তাদের বিসিএস দেওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। ৯ এপ্রিল সরকারি কর্ম কমিশন কর্তৃপক্ষকে স্মারকলিপি দিয়ে তারা তাদের দাবি উত্থাপন করেছেন। কিন্তু কমিশনের পক্ষ থেকে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

চাকরিপ্রত্যাশী দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী গ্র্যাজুয়েট পরিষদের আহ্বায়ক মো. আলী হোসেন বলেন, ৩১ মার্চ সরকারি কর্ম কমিশন শ্রুতলেখক-সংক্রান্ত এক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। তাতে বলা হয়, ৪০তম প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কর্ম কমিশন শ্রুতলেখক সরবরাহ করবে। আমাদের অতীতের অভিজ্ঞতা ওই সিদ্ধান্তের ওপর আস্থাহীনতা তৈরি করেছে। কারণ কমিশনের শ্রুতলেখক দেওয়া হলে, সেটা আমাদের জন্য অসুবিধা হবে। তাই আমরা বিসিএস পরীক্ষা বর্জন করেছি। তিনি বলেন, আমাদের দাবি আগের নিয়ম অনুযায়ী বিসিএস পরীক্ষায় শ্রুতলেখকের ব্যবস্থা দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের জন্য করা হোক। নিয়মের কারণে আমরা পরীক্ষা দিতে পারলাম না। কিন্তু আমরাও তো টাকা দিয়ে ফরম কিনেছি। তাই দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের জন্য বিশেষ বিসিএসের ব্যবস্থা করা হোক।

এই সংবাদটি 1,006 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com