শনিবার, ০৪ মে ২০১৯ ০৫:০৫ ঘণ্টা

বড়লেখায় কালভার্ট ভাঙ্গার কারণে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল

Share Button

বড়লেখায় কালভার্ট ভাঙ্গার কারণে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল

ডেস্করিপোর্ট:

বড়লেখার পানিধার-মূছেগুল রাস্তার একটি কালভার্ট ভেঙ্গে বিশাল গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। প্রায় ৩ মাস ধরে এ রাস্তা দিয়ে চলাচলকারীরা মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

জানা গেছে, বড়লেখা পৌরশহরের পানিধার টু মূছেগুল পাকা রাস্তায় সিদ্দীকি বাড়ির পূর্ব পার্শের কালভার্টটিতে গত ৩ মাস পূর্বে ভেঙ্গে গর্তের সৃষ্টি হয়। ধীরে ধীরে গর্তের আকার বড় হতে থাকে। এ রাস্তায় প্রতিদিন পৌরসভা ও সদর ইউনিয়নের পানিধার, মূছেগুল ও হিনাইনগর গ্রামের ২-৩ হাজার মানুষ যাতায়াত করেন। কালভার্ট ভাঙ্গার কারণে অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে লোকজনকে চলাচল করতে হচ্ছে।

 

সরেজমিনে গেলে এলাকার বাসিন্দা লাল মিয়া, ফয়সল আহমদ, জাহিদ আহমদ, মঞ্জুর আহমদ প্রমূখ জানান, কালভার্টের গর্তের কারণে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি দুর্ঘটনা ঘটেছে। পৌরকর্তৃপক্ষ তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা না নেয়ায় ১০-১২ জন মোটরসাইকেল ও বাইসাইকেল আরোহী গর্তে পড়ে আহত হয়েছেন। কালভার্টটি দ্রুত নির্মাণ না করলে বড়ধরণের দুর্ঘটনার আশংকা রয়েছে।

পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী মো. কামরুল হাসান জানান, এ কালভার্র্টসহ মোট আটটি কালভার্ট নির্মানের টেন্ডার সম্পন্ন হয়েছে। অতিদ্রুত নির্মাণ কাজ শুরুর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই সংবাদটি 1,007 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com