শনিবার, ০৪ মে ২০১৯ ০৮:০৫ ঘণ্টা

`যাকাত` ফেয়ারের মাধ্যমে দেশ উপকৃত হতে পারে : পরিকল্পনা মন্ত্রী

Share Button

`যাকাত` ফেয়ারের মাধ্যমে দেশ উপকৃত হতে পারে : পরিকল্পনা মন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট: বাংলাদেশে কোটিপতির সংখ্যা যেমন বাড়ছে তেমনি আয় বৈষম্যও বাড়ছে বলে মনে করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান। তার মতে,‘২০০৮ সালে যখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে তখন দারিদ্র্যের হার ছিল ৪৪ শতাংশ। বর্তমানে তা ২০ থেকে ২১ শতাংশে নামিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। একই সঙ্গে দেশে কোটিপতির সংখ্যা বাড়ছে, আয় বাড়ছে; এটি একদিকে ভালো খবর। তবে কোটিপতি বা আয় বৃদ্ধি মানুষের সঙ্গে দেশে আয় বৈষম্যও বাড়ছে। এটা একটি খারাপ দিক। সবকিছুই মাথার রাখতে হবে।’

শনিবার রাজধানীর ফার্মগেটের কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে (কেআইবি) ৭ম যাকাত মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন। সেন্টার ফর যাকাত ম্যানেজমেন্ট (সিজেডএম) যাকাত ফেয়ারের আয়োজন করে।

মেলায় মন্ত্রী আরও বলেন, ‘যাকাতের মাধ্যমে দারিদ্রতা দূর হতে পারে। তবে দেশের বিশাল একটি অংশ যাকাত বিষয়ে সচেতন নয়। যাকাতের মধ্যেও দারিদ্র্য দূরের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত আছে। সরকারের সকল প্রকল্পে দরিদ্র্যরা কতটুকু উপকৃত হবে তা মাথায় রাখা হয়। কর মেলা করে আমরা উপকৃত হয়েছি। যাকাত ফেয়ারের মাধ্যমে দেশ উপকৃত হতে পারে।

মেলায় যাকাত সংক্রান্ত পরামর্শ ডেস্ক, বিভিন্ন ইসলামিক বই ও যাকাতভিত্তিক বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরার জন্যে কয়েকটি স্টল রয়েছে। মেলা উপলক্ষে ‘আয় বৈষম্য কমাতে যাকাত ও কর’ শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বক্তারা জানান, দেশে ৩০ হাজার কোটি টাকা যাকাত আদায়ের সম্ভাবনা থাকলেও সরকারিভাবে আদায় হচ্ছে মাত্র কয়েক কোটি টাকা। ব্যক্তির নিজস্ব উদ্যোগে দেওয়া যাকাত বড় অবদান রাখছে না। এজন্য যাকাত আদায় ও বণ্টনে প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোর প্রতি তাগিদ দেন তারা।

মির্জ্জা আজিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে এতে আরও বক্তব্য রাখেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রাক্তন উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম, প্রাক্তন প্রধান নির্বাচন কমিশনার বিচারপতি আব্দুর রউফ, এনবিআরের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আব্দুল মজিদ প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,051 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com