সোমবার, ০৬ মে ২০১৯ ০৪:০৫ ঘণ্টা

সিলেটের ২২টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীর শতভাগ পাস

Share Button

সিলেটের ২২টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীর শতভাগ পাস

সিলেট রিপোর্ট: চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষায় সিলেট মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের অধীনে সিলেটের ২২টি প্রতিষ্ঠানের শতভাগ শিক্ষার্থীরা পাস করেছে।

সোমবার (৬ মে) বেলা ১২টায় শিক্ষা বোর্ডের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে এ ফলাফল ঘোষণা করার সময় এ তথ্য জানান সিলেট শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কবির আহমেদ।

এসময় তিনি বলেন, এবছর সিলেট বিভাগের মোট ২২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে যার সকল পরীক্ষার্থীরা পাস করেছে।

এদিকে চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষায় বেড়েছে পাসের হার। এবছর পাস করেছে ৭০ দশমিক ৮৩ শতাংশ শিক্ষার্থী। যা গতবছরের থেকে দশমিক ৪১ শতাংশ কম। গতবছর পাসের হার ছিলো ৭০ দশমিক ৪২ শতাংশ।

প্রসঙ্গত, এবার সিলেট শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এবারের পরীক্ষায় মোট অংশগ্রহণ করেন ১লাখ ১৩ হাজার ১৭১ জন শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে ছাত্র ৪৯ হাজার ১০৫ জন ও ছাত্রী ৬৪ হাজার ৬৬ জন।

ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, সিলেট জেলা থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ৪১ হাজার ৮শত ৫৬ন শিক্ষার্থী যার মধ্যে পাস করে ২৯ হাজার ৪শত ৬০ জন। এর মধ্যে ১হাজার ৪শত জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। যার মধ্যে ছাত্র ৭৪৪ ও ছাত্রী ৬৫৬ জন। সিলেটে গড় পাশের হার ৭০ দশমিক ৩৮ শতাংশ।

অপর দিকে মৌলভীবাজার জেলা থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ২৪ হাজার ৬শত ৮৮জন শিক্ষার্থী যার মধ্যে পাস করে ১৭ হাজার ১শত ৭৫জন। এর মধ্যে ৬শ্ত ৩৮ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। যার মধ্যে ছাত্র ২শত ৯৭জন ও ছাত্রী ৩শত ৪১ জন। মৌলভীবাজারে পাসের হার ৬৯.৫৭ শতাংশ।

অন্যদিকে সুনামগঞ্জ জেলা থেকে এসএসসিতে ২৪ হাজার ৭শত ৫০জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে উত্তীর্ণ হয় ১৭ হাজার ৮শত ৭৯ জন। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ শত ৬৪ জন শিক্ষার্থী। যার মধ্যে ছাত্র ১৩২ ও ছাত্রী ১৩২ জন। সুনামগঞ্জ জেলার পাসের হার ৭২.২৪ শতাংশ।

আর হবিগঞ্জ জেলা থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ২১ হাজার ৭শত ৭৮জন শিক্ষার্থী যার মধ্যে পাস করে ১৫হাজার ৬শত ৪৮ জন। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৫০ জন। যার মধ্যে ছাত্র ২৫৩ ও ছাত্রী ২০২ জন। মৌলভীবাজার জেলায় গড় পাশের হার ৭১ দশমিক ৫৩ শতাংশ।

এই সংবাদটি 1,022 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com