সোমবার, ০৬ মে ২০১৯ ০৪:০৫ ঘণ্টা

শিশু নাঈম মায়ের বুকে ফিরলো যুবক হয়ে

Share Button

শিশু নাঈম মায়ের বুকে ফিরলো যুবক হয়ে

ডেস্করিপোর্ট:

‘বাড়ি যাব …। মায়ের কাছে ঘুমাবো। বাড়ি গিয়ে মাঠে যাবো। ছাগলের জন্যি ঘাস কাটবো।’ আড়ষ্ট কণ্ঠে কথাগুলো বলছিলেন বাকপ্রতিবন্ধী যুবক নাঈম হাসান (২০)। নিখোঁজের ১৩ বছর পর মায়ের সান্নিধ্যে এভাবেই অনুভূতি প্রকাশ করেন নাঈম। মা-বাবাও সন্তানকে ফিরে পেয়ে খুশি। সবার চোখে মুখে খুশির ঝিলিক।

রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে যশোর সার্কিট হাউস চত্বরে বাবা-মা ও সন্তানের অন্যরকম অভিব্যক্তিতে আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। মাগুরার আদালতের নির্দেশে যশোরের জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আওয়াল নাঈমকে তার বাবা-মায়ের হাতে তুলে দেন। এ সময় সমাজসেবা অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার সুবর্ণখোলা গ্রামের ওমর আলী বিশ্বাস ও আছিয়া বেগম দম্পতির ছেলে নাঈম হাসান। ২০০৭ সালের ১৪ মে মাগুরার তৎকালীন প্রথম শ্রেণির আদালতের নির্দেশে তাকে যশোর কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানো হয়। দীর্ঘদিন এখানেই বন্দি ছিল নাঈম। চলতি বছরের ২৯ এপ্রিল মাগুরার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের নির্দেশে নাঈম হাসানকে তার পরিবারে ফিরিয়ে দেওয়া হলো।

নাঈমের মা আছিয়া বেগম বলেন, ‘ঢাকার মোহাম্মদপুরে বসবাস করতাম। ২০০৬ সালের ৮ এপ্রিল নাঈম সেখান থেকে হারিয়ে যায়। এরপর অনেক জায়গায় তাকে খুঁজেছি। থানায় জিডি করেছিলাম। কিন্তু কোথাও সন্ধান পাইনি। একমাস আগে আমাদের বাড়ির পাশের একজন আনসার সদস্য যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে বদলি হয়ে এসেছেন। তিনি নাঈমকে দেখে আমাদের সন্ধান দেন। এরপর এখানে এসে তাকে চিনতে পেরেছি। কর্মকর্তাদের জানালে তারা প্রমাণ দিতে বলেন। এরপর জন্মসনদ, চেয়ারম্যানের প্রত্যায়নপত্র জমা দিয়েছি। আদালতের নির্দেশে ছেলেকে ফিরে পেলাম। খুব খুশি হয়েছি। সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

নাঈমের বাবা ওমর আলী বিশ্বাস বলেন, ‘আমার চার ছেলে মেয়ে। নাঈম মেজ। ওকে ফিরে পেয়ে আমরা খুব খুশি। সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল মাসুদ বলেন, ‘২০০৬ সালের ৮ এপ্রিল ঢাকার মোহাম্মদপুর থেকে নিখোঁজ হয় ৭ বছর বয়সী বাকপ্রতিবন্ধী নাঈম। ২০০৭ সালের মে মাসে মাগুরার শ্রীপুর থেকে উদ্ধার হয় সে। ওই বছরের ১৪ মে মাগুরার তৎকালীন প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে যশোর কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে (তৎকালীন) পাঠানো হয়। ১২ বছর ধরে নাঈম এখানে ছিল। সে কথা বলে অস্পষ্ট। নিজের নাম ছাড়া পরিচয় বলতে পারতো না। সে খুব চঞ্চল। একমাস আগে কেন্দ্রের এক আনসারের মাধ্যমে তার পরিবারের সন্ধান মিলেছে। দীর্ঘদিন পরে হলেও তাকে পরিবারে ফিরিয়ে দিতে পারলাম। এটা খুবই আনন্দের।’

যশোরের জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আওয়াল বলেন, ‘দীর্ঘদিন পর নাঈম তার পরিবার ফিরে পেয়েছে। তারা খুবই আনন্দিত। তাদের মিলিত করতে পারায়, আমারও খুশি। নাঈম ভালো থাকুক, এটাই প্রত্যাশা করি।’

অনুষ্ঠানে নাঈমের বাবা মায়ের হাতে ১০ হাজার টাকা তুলে দেওয়া হয়। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবা অধিদপ্তর উপ-পরিচালক অসিত কুমার সাহা, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, জেলা সমাজসেবা অফিসের সহকারী পরিচালক আসাদুল ইসলাম, প্রবেশন অফিসার মাসুম বিল্লাহ, যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের সাইকো সোস্যাল কাউন্সেলর মুশফিকুর রহমান।—————-সুত্র-ইত্তেফাক

এই সংবাদটি 1,016 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com