সোমবার, ০৬ মে ২০১৯ ০৫:০৫ ঘণ্টা

সুনামগঞ্জের ৩ উপজেলায় বাঁধ ভেঙ্গে হাওরে পানি

Share Button

সুনামগঞ্জের ৩ উপজেলায় বাঁধ ভেঙ্গে হাওরে পানি

সিলেট রিপোর্ট:
গতকয়েকদিনের বৃষ্টির ফলে পাহাড়ি ঢলে ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর,জামালগঞ্জ,ধর্মপাশা উপজেলার কয়েকটি বাঁধ ভেঙ্গে ও বাঁধ উপচে বিভিন্ন হাওরে পানি প্রবেশ করছে। হাওর গুলো হল,হালির হাওর,খরচার হাওর,গোরাডুবা,বোয়ালা,লালু গোয়ালা,গোরমা,মাটিয়ান হাওর,বেহেলি,শনির হাওরসহ কয়েকটি হাওর। স্থানীয় এলাকাবাসী জানান,গত শনিবার (৪ মে) রাত ১২টায় জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলী ও রহমতপুর এলাকা দিয়ে শনির হাওরে এবং বদরপুর ও নিতাইপুর এলাকা দিয়ে হালির হাওরে পানি প্রবেশ করার ফলে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ রয়েছে,প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি ও স্থানীয় মেম্বার মনছার নেতৃত্বে বাঁধটি মজবুত করে তৈরি না করে বাঁধটি বালু দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। যার ফলে বাঁধটি পানির চাপে সহজ ভেঙ্গে গেছে।

রবিবার (৫ মে) সকালে প্লাবিত এলাকা পরিদর্শনে আসেন জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রিয়াংকা পাল। এ সময় তিনি বলেন,বাঁধ নির্মাণে কোন
গাফিলতি হয়েছে প্রমাণ পাওয়া গেলে কোন ছার পাবে না কেউ কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানায়,চলতি বোরো মওসুমে জামালগঞ্জ উপজেলায় ২৪ হাজার ৬৬০ হেক্টর ও তাহিরপুর উপজেলায় ১৮ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে ধান চাষ করা হয়। হালির হাওর ও শনির হাওরের ২০ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো চাষ করা হয়েছিল। বেশী ভাগ ধান কাটা হয়েছে। এ পর্যন্ত হাওর এলাকায় মোট এক লাখ ৭২ হাজার হেক্টর জমির মধ্যে এক লাখ ৬১হাজার হেক্টর জমির ধান কাটা হয়েছে। আর হাওর ছাড়া মোট ৫২ হাজার হেক্টর জমির মধ্যে কাটা হয়েছে ২৬ হাজার হেক্টর জমির ধান। সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বকর সিদ্দিক ভূঁইয়া জানান,হাওরে পানি প্রবেশ করার খবর পেয়ে সকাল থেকে বিভিন্ন হাওরের বাঁধ পরিদর্শন করেছি। হাওরের ধান কাটা শেষ প্রযার্য়ে। কিছু জমি এখনো বাকি আছে সেগুলো কাটছে কৃষকগন। পানি বাড়ার পূর্বই ধান গুলো কাটা শেষ হয়ে যাবে।

এই সংবাদটি 1,001 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com