সোমবার, ০৬ মে ২০১৯ ০৮:০৫ ঘণ্টা

ভুয়া আইনজীবী দেখতে আইনজীবীদের ভিড়

Share Button

ভুয়া আইনজীবী দেখতে আইনজীবীদের ভিড়

ডেস্করিপোর্ট:

গত কয়েকদিন ধরেই ঢাকা আইনজীবী সমিতির টাউট উচ্ছেদ কমিটির অভিযান চলছে। অভিযানে বিচারপ্রার্থীদের সাথে আইনজীবী পরিচয়ে প্রচারণাকারী একাধিক টাউট আটক হয়েছে। তবে গতকালের ঘটনা একটু ভিন্ন। বেলা দেড়টা। ঢাকা আইনজীবী সমিতির সামনে ব্যাপক জটলা। অনেক আইনজীবী ভিড় করে আছেন। দেখা গেল এক নারী আইনজীবীকে ঘিরে ভিড়। সবাই বলাবলি করছে, ‘এই নারী আইনজীবী তো আদালতে নিয়মিত প্র্যাকটিস করেন। তিনি নাকি ভুয়া!’ এর পরই অনেক আইনজীবীর চক্ষু চরকগাছ।

জানা গেল আইনের সনদ নেই ওই নারীর। সাত বছর ধরে নিয়মিত আদালতে প্র্যাকটিস করছেন। অনেক বিচারপ্রার্থীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন লক্ষাধিক টাকা।

ঢাকা আইনজীবী সমিতির ভবনের সামনে থেকে গতকাল রোববার (৫ মে) মোসাম্মৎ মৌ নামের এক ভুয়া নারী আইনজীবীকে আটক করেছে টাউট উচ্ছেদ কমিটি।

এ বিষয়ে টাউট উচ্ছেদ কমিটির অন্যতম সদস্য ইব্রাহিম খলিল জানান বলেন, ‘মোসাম্মৎ মৌ আদালতে অনেক প্রতারণা করেছেন। তিনি অনেক বিচারপ্রার্থীদের কাছ থেকে অনেক টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। অথচ তাঁর কোনো আইনের ডিগ্রি নেই। সাত বছর ধরে আইনজীবী পরিচয়ে প্রতারণা করে আসছেন। এ ছাড়া তিনি ঢাকা আইনজীবী সমিতির আইডি কার্ড জাল জালিয়াতি করেছেন।’

ইব্রাহিম খলিল বলেন, ‘টাউট মৌয়ের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় প্রতারণা ও জাল-জালিয়াতির অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। তিনি বর্তমানে হাজতে আছেন। সোমবার (আজ) ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে তাকে হাজির করা হবে।’

সুত্র: lawyersclubbangladesh.com

এই সংবাদটি 1,050 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com