সোমবার, ০৬ মে ২০১৯ ১১:০৫ ঘণ্টা

মোবাইলের কারণে এসএসসির ফলাফলে সিলেট পিছিয়ে !

Share Button

মোবাইলের কারণে এসএসসির ফলাফলে সিলেট পিছিয়ে !

সৈয়দ উবায়দুর রহমান,সিলেট রিপোর্ট:  প্রযুক্তির সাথে তাল মিলিয়ে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের মোবাইল আসক্তি বেড়েই চলছে। মোট মোবাইল ব্যবহারকারীর প্রায় ৬০ শতাংশই স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রী।পড়াশুনার পাশাপাশি যোগাযোগের জন্য এ যন্ত্রটি ব্যবহার করা হলেও প্রভাব পড়ে পড়াশুনার উপর। ক্লাশ চলাকালীন সময়ে ইনকামিং আউটগোয়িং কল, ফেসবুক-টুইটারের মতো শতাধিক সামাজিক বন্ধনের বন্ধুত্বে লিপ্ত হয়ে ক্লাশে অমনোযোগী হওয়া, রাতভর কমরেটে কথাবলার সুযোগ পেয়ে বাবা-মার চোখ ফাঁকি দিয়ে বিভিন্ন শ্রেণির মানুষের সাথে বন্ধুত্ব তৈরি করা, প্যাকেজরেটে দিনরাত আনলিমিটেড ডাউনলোড করাসহ বিভিন্ন সামাজিক এবং অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত হচ্ছে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীরা। প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেটে এর প্রভাব পড়েছে বলে মনে করছেন কেউ কেউ। চলতি বছর মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় সকল শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে এবারও সর্বনিম্নে রয়েছে সিলেট শিক্ষা বোর্ড।দেশের ৮টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে এবার এসএসসিতে পাশের হার ৮২ দশমিক ২০ শতাংশ। যা সিলেটের অবস্থান সর্বনিম্ন। ফলাফলের সার্বিক অবনতির কারণ হিসেবে চলতি বছরের গণিতে প্রশ্নপত্র কঠিন হওয়াকে চিহ্নিত করছেন সংশ্লিষ্টরা।পাসের হার ও জিপিএ-৫ কমার পেছনে কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. কবির আহমেদ জানান, সাধারণ গণিত প্রশ্নপত্র আগের বছরের তুলনায় একটু কঠিন হওয়ায় সার্বিক ফলে প্রভাব পড়েছে। সাধারণ গণিত বিষয়ে সিলেটের শিক্ষার্থীরা ফলাফল খারাপ করার কারণে এবার পরীক্ষার সার্বিক ফলাফল কিছুটা খারাপ হয়েছে।

অপর দিকে অনেকেই ফলাফল বিপর্যয়ের কারণ হিসেবে মোবাইল ও ফেসবুক ব্যবহারকে দায়ি করেন। সিলেট বোর্ডে এ বছর ১ লক্ষ ১৩ হাজার ১৭১ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। এদের মধ্যে ছাত্র ৪৯ হাজার ১০৫ জন ও ছাত্রী ৬৪ হাজার ৬৬ জন। এবার পাস করেছে মোট ৮০ হাজার ১৬২ জন । এবার সারাদেশের এসএসসির গড় পাশের হার ৮২.৮০ শতাংশ। কিন্তু সিলেট বোর্ডের পাসের হার ৭০.৮৩ শতাংশ।
গত বছর এ হার ছিল ৭০.৪২ শতাংশ। পাসের হার কমার কারণ সম্পর্কে শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. কবির আহমেদ জানান, সাধারণ গণিত প্রশ্নপত্র আগের বছরের তুলনায় একটু কঠিন হওয়ায় সার্বিক ফলে প্রভাব পড়েছে। গত বছর গণিত বিষয়ে ৭৬ দশমিক ৬১ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করে। এবার পাস করেছে ৭৫ দশমিক ২১ শতাংশ।
সিলেট বোর্ডে এ বছর ১ লক্ষ ১৩ হাজার ১৭১ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। এদের মধ্যে ছাত্র ৪৯ হাজার ১০৫ জন ও ছাত্রী ৬৪ হাজার ৬৬ জন। এবার পাস করেছে মোট ৮০ হাজার ১৬২ জন । গত বছরের তুলনায় এ সংখ্যা ৩ হাজার ৪৫২ জন বেশী হলেও এবার কমেছে জিপিএ-৫। গত বছর জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৩ হাজার ১৯১ জন। কিন্তু এবার পেয়েছে ২ হাজার ৭৫৭ জন। এর মধ্যে ছাত্র ১ হাজার ৪২৬ এবং ছাত্রী ১ হাজার ৩৩১ জন। এবার সিলেট বিভাগের ৮৯৬টি স্কুলের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে ২২টি স্কুলের পাসের হার শতভাগ। অর্থাৎ এসব স্কুলের সকল পরীক্ষার্থী পাস করেছে। তবে, ২০১৮ সালে এ সংখ্যা ছিল ২৩টি। কোন শিক্ষার্থীই পাশ করেনি বা শতভাগ শিক্ষার্থী অকৃতকার্য এমন কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবারও সিলেটে নেই।
সিলেট বোর্ডে এ বছর বিজ্ঞান বিভাগে মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিলো ২৩ হাজার ৫৬৭ । এ বিভাগে পাশের হার ৯৪ দশমিক ১৭। মানবিক বিভাগে মোট পরীক্ষার্থী ৭৯ হাজার ২১৫ এবং পাশের হার ৬৩ দশমিক ০৫। ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে পাশের হার ৭৭ দশমিক ২৫। এ বিভাগে পরীক্ষার্থী ছিলেন ১০ হাজার ৩৮৯ জন।
এবার সুনামগঞ্জ জেলা থেকে এসএসসিতে ২৪ হাজার ৭শত ৫০জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে উত্তীর্ণ হয় ১৭ হাজার ৮শত ৭৯ জন। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৬৪ জন । এ জেলার পাসের হার ৭২.২৪ শতাংশ।
হবিগঞ্জ জেলা থেকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ২১ হাজার ৭শত ৭৮জন শিক্ষার্থী। পাস করেছে ১৫ হাজার ৬শত ৪৮ জন। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৫০ জন। হবিগঞ্জ জেলায় গড় পাশের হার ৭১ দশমিক ৫৩ শতাংশ।
সিলেট জেলা থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ৪১ হাজার ৮শত ৫৬ জন শিক্ষার্থী । এর মধ্যে পাস করেছে ২৯ হাজার ৪শত ৬০ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ৪শত জন । সিলেটে গড় পাশের হার ৭০ দশমিক ৩৮ শতাংশ।
মৌলভীবাজার জেলা থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ২৪ হাজার ৬শত ৮৮জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে পাস করেছে ১৭ হাজার ১শত ৭৫জন। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬৩৮ জন । মৌলভীবাজারে পাসের হার ৬৯.৫৭ শতাংশ।
উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে সিলেট বোর্ডে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলো ১ লাখ ৮ হাজার ৯২৮ জন ছাত্র-ছাত্রী। এর মধ্যে পাস করে ৭৬ হাজার ৭১০ জন ।

এসএসসির ফলাফল কেনো এই ফলাফল বিপর্যয়? এই প্রশ্নের জবাবে কয়েকজন অভিভাবক মোবাইল ফোন ব্যবহার এবং ফেসবুকে অধিক সময় ব্যয় করার কারনেই এমন বির্পযয় ! নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন অভিভাবক দু:খ প্রকাশ করে বলেন, হক্কল সময় দেখি মোবাইলে টিপাটিপি-পুয়ায় পরীক্ষায় ভালাখরতো কিলাখান-রাইত-দিন খালি ফেইসবুক না কিতা,খালি অতাত সময় কাটায়,এর লাগিই ফেইল করছে”।

এই সংবাদটি 1,034 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com