সোমবার, ১৩ মে ২০১৯ ০৩:০৫ ঘণ্টা

এখনো ইউরোপেই যেতে চান ফেঞ্চুগঞ্জের বিলাল

Share Button

এখনো ইউরোপেই যেতে চান ফেঞ্চুগঞ্জের বিলাল

ডেস্ক রিপোর্ট :

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের বাসিন্দা বিলাল। বয়স ৩০। টগবগে এ যুবক উন্নত জীবনের আশায় ইউরোপ পাড়ি জমাতে চেয়েছিলেন। এজন্য তিনি ‘গুডলাক’ ছদ্মনামের এক দালালের কাছে যান। দালালের মনভোলানো কথায় বিশ্বাসও জন্মেছিল তার। যে কারণে গুডলাকের হাতে তুলে দিয়েছিলেন সাত হাজার মার্কিন ডলারের সমপরিমান অর্থও। এ অর্থ যোগান দিতে তাকে বিক্রি করতে হয়েছে জমি।

শেষ পর্যন্ত তিনি ইউরোপের পথে পাড়ি জমিয়েছিলেনও। তবে নৌকাডুবির কারণে ইউরোপের মাটিতে পা রাখা হয়নি তার। বৃহস্পতিবার ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে বেঁচে যাওয়াদের একজন তিনি। নৌকায় করে লিবিয়া উপকূলের জুওয়ারা এলাকা থেকে ইউরোপের ইতালির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছিলেন তিনিও। তবে এর আগেই রাবারের তৈরি ‘ইনফ্লেটেবেল’ নৌকাটি ডুবে যায়। এতে অন্তত ৬০ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু হয়, যাদের অধিকাংশই বাংলাদেশি। নিহতদের মধ্যে ৬ সিলেটির পরিচয় শনাক্ত করা হয়েছে।

ভূমধ্যসাগরে ৬ সিলেটীর সলিল সমাধি !

আর ১৬ জনকে জীবিত উদ্ধার করেছে তিউনিসিয়ার জেলেরা, এদের মধ্যে ১৪জনই বাংলাদেশী; তাদের একজন বিলাল। বর্তমানে রয়েছেন তিউনিসিয়ার উপকূলীয় শহর- জারজিসের একটি আশ্রয় কেন্দ্রে। তবে, তিনি এখনও ইউরোপে যেতে চান। তার ভাষ্য, ‘আমরা তো সবকিছু হারিয়েছি। আমার এখন কিছুই নেই’, তবে ইউরোপেই যেতে চাই, যাতে করে সেখানে গিয়ে কিছু অর্থ উপার্জন করতে পারি।’

ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবে বাংলাদেশীসহ ৬৫ অভিবাসীর মৃত্যু

বার্তা সংস্থা এএফপিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “বেঁচে থাকার সব আশা ছেড়ে দিয়েছিলাম। তারপর আল্লাহ যেন আমাদের বাঁচাতে এই জেলে নৌকা পাঠালেন।” এই সাক্ষাৎকারে কীভাবে বাংলাদেশের সিলেট থেকে ইউরোপের পথে যাত্রা শুরু করেছিলেন তিনি তাও বলেছেন।

তিনি বলেন, “এই দালাল আমাকে বলেছিল, আমরা বেশ ভালো জীবনযাপন করতে পারবো। আমরা তাকে বিশ্বাস করেছিলাম।আমি নিশ্চিত যত লোককে সে এভাবে পাঠায়, তাদের বেশিরভাগই মারা যায়।”

ভূমধ্যসাগরে নিহত অপর সিলেটির পরিচয় শনাক্ত

ছয় মাস আগে তাদের যাত্রা শুরু হয়। প্রথমে তারা যান দুবাই। সঙ্গে ছিল আরও দুজন। সেখান থেকে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে। সেখান থেকে আরেকটি ফ্লাইটে লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপলিতে।

বিলাল জানান, ত্রিপলিতে আরও প্রায় ৮০ জন বাংলাদেশি তাদের সঙ্গে যোগ দেন। এরপর পশ্চিম লিবিয়ার কোন একটা জায়গায় একটি রুমে তাদের তিন মাস আটকে রাখা হয়।

“আমার মনে হয়েছিল, আমি লিবিয়াতেই মারা যাব। আমাদের দিনে মাত্র একবার খাবার দেয়া হতো। অনেকসময় তারও কম। আশি জন মানুষের জন্য সেখানে টয়লেট ছিল একটি। আমরা শৌচকর্ম পর্যন্ত করতে পারতাম না। আমরা খাবারের জন্য কান্নাকাটি করতাম।”

বিবিসিকে নৌ ডুবিতে বেঁচে যাওয়া সিলেটের সিজুর: দেশে ফিরে গিয়ে কি করবো, কোন মুখে দেশে যাব?

একদিন তাদের উত্তর-পশ্চিম লিবিয়া থেকে একটি বড় নৌকায় তোলা হয়। এরপর সাগরের মাঝে তাদের আরেকটি ছোট নৌকায় তোলা হয়। তবে ঢেউয়ে এই ছোট নৌকাটি সাথে সাথে ডুবে যেতে শুরু করে। আমরা সারারাত ধরে সাঁতার কেটে ভেসে থাকি। বিলাল বলেন, “বেঁচে থাকার সব আশা ছেড়ে দিয়েছিলাম। তারপর আল্লাহ যেন আমাদের বাঁচাতে এই জেলে নৌকা পাঠালেন।”

বেঁচে যাওয়া যাত্রীরা বলছেন, তাদের সহযাত্রীদের সবাই ছিলেন পুরুষ। এর মধ্যে ৫১ জন ছিলেন বাংলাদেশের। তিন জন মিশরের। এছাড়া মরক্কো, শাদ এবং আরও কয়েকটি আফ্রিকান দেশেরও কয়েকজন ছিলেন। জেলেরা মোট ১৬ জনকে উদ্ধার করেন যাদের ১৪ জন বাংলাদেশি। বাকী দুজনের একজন মরোক্কোর, একজন মিশরের।

গোলাপগঞ্জের মাহফুজের জবানিতে নৌকাডু্বির করুণ কাহিনী

রেড ক্রিসেন্টের কর্মকর্তা মনজি স্লিম বলেন, “যদি তিউনিসিয়ার জেলেরা এদের দেখতে না পেত, এদের কেউই আসলে বাঁচতো না এবং এই ঘটনার কথাও হয়তো আমরা জানতে পারতাম না।”

এই বেঁচে যাওয়া মানুষদের সামনে এখন তিনটি পথ খোলা আছে। তারা হয় নিজ দেশে ফিরে যেতে পারে, অথবা জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থার মাধ্যমে আশ্রয় চাইতে পারে। অথবা তিউনিসিয়াতেই তাদের ভাগ্য পরীক্ষা করতে পারে।

-বিবিসি বাংলা অবলম্বনে

এই সংবাদটি 1,016 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com