বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০১৯ ০১:০৫ ঘণ্টা

ছাতকের ঘটনায় সাড়ে ৩শ’ জনের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা

Share Button

ছাতকের ঘটনায় সাড়ে ৩শ’ জনের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা

সিলেট রিপোর্ট: ছাতকে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় একটি পুলিশ অ্যাসল্ট মামলা এবং একটি হত্যা মামলায় কমপক্ষে সাড়ে ৩শ’ জনকে আসামী করা হয়েছে। আসামীদের মধ্যে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক শামীম আহমদ চৌধুরী, পৌরসভার প্যনেল মেয়র তাপস চৌধুরীসহ পৌরসভার ৯ কাউন্সির রয়েছে।

এস আই পলাশ সরকার বাদী হয়ে দায়ের করা পুলিশ অ্যাসল্ট মামলায় ৯৫ জনের নাম উল্লেখসহ ২শ’ জনকে এবং নিহত শাহাব উদ্দিনের স্ত্রী ফাতেমা বেগম বাদী হয়ে ১২ জনের নামোল্লেখসহ ৪০/৫০ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।
পুলিশ জানায়, এ ঘটনায় এ পর্যন্ত পুলিশ ২৮ জনকে আটক করা হয়েছে। অভিযান অব্যাহত রয়েছে। শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ও পুলিশের টহল অব্যাহত রয়েছে। সংঘর্ষের পর শহরের পরিস্থিতি এখন শান্ত রয়েছে।
প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার রাতে ছাতক শহরে দু’পক্ষের গোলাগুলির ঘটনায় শাহাব উদ্দিন নামের এক ভ্যান চালকের মৃত্যু হয়। শাহাব উদ্দিনের লাশ বুধবার রাতে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ছাতক থানার ওসিসহ কমপক্ষে ৩০ জন আহত হন। ওসি বর্তমানে ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এই সংবাদটি 1,006 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com