বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০১৯ ০৩:০৫ ঘণ্টা

ইউরোপের মোহে তরুণরা নৌকায়ও সাগর পাড়ি দেওয়ার ঝুঁকি নিচ্ছেন

Share Button

ইউরোপের মোহে তরুণরা নৌকায়ও সাগর পাড়ি দেওয়ার ঝুঁকি নিচ্ছেন

সিলেট রিপোর্ট: মাসে লাখ টাকা উপার্জন সম্ভব- এমন মরীচিকার পেছনে ছুটে ভূমধ্যসাগরে ডুবে প্রাণ দিচ্ছেন বাংলাদেশি তরুণরা। অভিবাসন বিশেষজ্ঞ এবং জনশক্তি খাত-সংশ্নিষ্টরা জানিয়েছেন, দেশে বেকারত্ব, বৈধ পথে বিদেশ যাওয়ার সুযোগ কমে যাওয়া এবং ইউরোপের মোহে তরুণরা অনেক সময় ডিঙি নৌকায়ও ভূমধ্যসাগর পাড়ি দেওয়ার ঝুঁকি নিচ্ছেন। দালালরা তরুণদের এ স্বপ্নকে পুঁজি করে পাতছে প্রতারণার ফাঁদ। সরকার অনুমোদিত বৈধ রিক্রুটিং এজেন্সির তালিকায় নেই এমন অনেক প্রতিষ্ঠানের  নাম বেরিয়ে আসছে।

ইন্টারনেটে পাওয়া ইউএনএইচসিআরের তথ্যানুযায়ী, গত এক দশকে অন্তত এক লাখ বাংলাদেশি ইউরোপে আশ্রয় চেয়েছেন। শুধু ২০১৫ সালেই আশ্রয়ের আবেদন করেন ১৮ হাজার বাংলাদেশি। যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান, লিবিয়া, সিরিয়া, ইরাকের সঙ্গে বাংলাদেশি নাগরিকরাও অবৈধ পথে ইউরোপ যাচ্ছেন।আইওএমের ২০১৭ সালের একটি জরিপে দেখা গেছে, ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইতালি ঢোকার চেষ্টা করছে যেসব দেশের নাগরিক, তার শীর্ষ পাঁচে আছে বাংলাদেশ।

গত ২ বছরে বিশেষ করে ২০১৮ সালে শুধু সিলেটে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার তরুন- তরুণী স্টুডেন্ট ভিসায় কানাডা, ফান্স, অমেরিকা সহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পাড়ি জমায়। আর এসব ভিসার প্রসেসিং করে দিচ্ছে নামি বেনামি বৈধ-অবৈধ বিভিন্ন এজেন্সী। নিম্মে ১০ লাখ থেকে কোন কোন ক্ষেত্রে ৬০ লাখ টাকা পর্যন্ত ব্যয় করতে হচ্ছে একেক জন স্টুডেন্ট ভিসার আবেদনকারিদের। একই ভাবে ওয়ার্ক ভিসায়ও চলছে রমারমা বানিজ্য। মোঃ সুলেমান আলী (২৮) পেশায় রাজমিস্ত্রি তিনি বলেন, আজ থেকে দু বছর আগে একটি এজেন্সীর মাধ্যমে ১৫ লাখ দিয়ে সৌদি আরব যান। সেখানে গিয়েই দেশে যা যা শুনে গিয়েছিলেন তার ঠিক বিপরীত দেখতে পান। তিনি যে কাজ জানেন তা তাকে দেওয়া হয়নি। ঠিক মতো খাবার থাকার জায়গা এমনকি দিন-রাত কাজ করে বেতন পান নি। অবশেষে ভিসার মেয়াদ শেষ হবার আগেই কোন রকম প্রাণ নিয়ে দেশে ফিরেন সুলেমান। দেশে ফিরে ওই এজেন্সীর সাথে যোগাযোগ করে কোন সুরাহা পাননি তিনি। সব খুঁয়িয়ে এখন দিশেহারা জীবন যাপন করছেন।

দালালচক্রের খপ্পরে পড়ে প্রাণ গেছে অনেকের। ৯ মে’র ঘটনা লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে তিউনিসিয়ার উপকূলবর্তী ভূমধ্যসাগরে অভিবাসীবাহী নৌকাডুবিতে নিহত ২৭ দুর্ভাগা বাংলাদেশির কথা। প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত করে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি। আর এদের মধ্যে ১৯ জনই সিলেট বিভাগের। এর আগে সিলেটর ৬ জন নিহতের খবর পাওয়া গিয়েছিলো।
নিহতরা হলো- সিলেটের জিল্লুর রহমান, বিয়ানীবাজারের রফিক ও রিপন, গোলাপগঞ্জের মারুফ, ফেঞ্চুগঞ্জের লিমন আহমেদ, আব্দুল আজিজ, আয়াত ও আহমেদ, দক্ষিণ সুরমার জিল্লুর, সিলেটের আমাজল, সিলেটের কাসিম আহমেদ, বিশ্বনাথের খোকন, বেলাল, রুবেল, সিলেটের মনির, সুনামগঞ্জের মাহবুব, নাদিম, মৌলভীবাজারের ফাহা, মৌলভীবাজার কুলাউড়ার শামিম, নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার জয়া গ্রামের নাসির, ঢাকার টঙ্গীর কামরান, মাদারীপুর জেলার সজিব, শরীয়তপুরের পারভেজ, কামরুন আহমেদ মারুফ, কিশোরগঞ্জ জেলার আল-আমিন, জালাল উদ্দিন প্রমুখ। নৌকাডুবি থেকে বেঁচে যাওয়া শিশির বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিকে ফোনে জানান, বেঁচে যাওয়া ৬ জনের বাড়ি শরিয়তপুর জেলার নরিয়া থানার চারুগা গ্রামে। তারা হলেন, রাজিব, উত্তম, পারভেজ, রনি, সুমন ও জুম্মান।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির পারিবারিক যোগাযোগ পুনঃস্থাপন বিভাগের দায়িত্বরত পরিচালক ইমাম জাফর শিকার জনান, তিউনিসিয়া রেড ক্রিসেন্টে প্রাদেশিক প্রধান ডা. মাঙ্গি সিলাম এর মাধ্যমে জীবিত ৪ বাংলাদেশি নাগরিকের সঙ্গে ফোনালাপের মাধ্যমে পাওয়া তথ্য মতে ২৭ জনই বাংলাদেশি। এছাড়াও ৫ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত ৫ জনের মৃতদেহ দুর্ঘটনাস্থলের কাছাকাছি নেভি ক্যাম্পে রাখা হয়। তিনি বলেন, বেঁচে যাওয়া ১৬ জনের মধ্যে ১৪ জন বাংলাদেশি, একজন মিসরীয় ও একজন মরক্কোর নাগরিক রয়েছে।

লিবিয়া থেকে ছোট্ট নৌকায় চেপে বিপদসংকুল পথে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে পৌঁছানোর চেষ্টা করছিলেন তারা। সেই নৌকা ডুবে যারা মারা গেছেন তাদের অন্তত ৩৭ জন বাংলাদেশি। তিউনিসিয়ার একদল জেলে সাগর থেকে মোট ১৬ জনকে উদ্ধার করে। তাদের মধ্যে ১৪ জনই বাংলাদেশি। তারা বর্তমানে রয়েছেন তিউনিসিয়ার উপকূলীয় শহর জারজিসের একটি আশ্রয়কেন্দ্রে। তারা জানিয়েছেন কীভাবে দালালের খপ্পরে পড়ে এ পরিস্থিতির শিকার হয়েছেন। ভূমধ্যসাগরে এ নৌকা ডুবিতে যারা নিখোঁজ হন তাদের মধ্যে সাতজন সিলেটের বলে জানা গেছে। প্রিয় সন্তানদের মৃত্যুর খবরে সবার বাড়িতে নেমে এসেছে শোকের মাতম। ছেলের ছবি হাতে নিয়ে মায়ের বুকফাটা চিৎকার, বোনের আহাজারি, ভাইয়ের বিলাপ এলাকার বাতাস ভারী করে তুলেছে।

তিউনিসিয়ার রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির কর্মকর্তা মঞ্জি স্পেমের মাধ্যমে বেঁচে যাওয়া দুই বাংলাদেশির সঙ্গে যোগাযোগ করে বিবিসি বাংলা। তারা হলেন সিলেটের সিজু আহমেদ ও একই জেলার গোলাপগঞ্জের মাহফুজ আহমেদ। তিউনিসিয়ার জারজিস শহরের একটি আশ্রয়কেন্দ্রে রয়েছেন তারা। টেলিফোনে তারা ঘটনার বর্ণনা দিয়ে সিজু জানান, ঢাকা থেকে দুবাই। দুবাই থেকে ত্রিপোলি। ছয় মাস আগে যাত্রা শুরু করেন। দালাল ধরে যান তিনি। দালাল তাকে বলেছিল, লিবিয়া থেকে লোকজন আবার ইতালি যাচ্ছে, ওখানে জীবনযাত্রা অনেক ভালো। বলেছে জাহাজে করে একেবারে ইতালিতে পৌঁছে দেবে। কিন্ত তিন মাস আমাদের আটকে রেখেছে একটা রুমে, আমাদের অনেক কষ্ট দিয়েছে। ৮২ জন বাঙালি। একটা টয়লেট। ঠিকমতো খেতে দেয়নি। তিন দিনে একদিন খাবার দেয়। মারধর করে। গোসল করি না তিন মাস। তিনি বলেন, আমরা ছিলাম দেড়শ’ লোক। একটি মাছ ধরার ট্রলারে করে আমাদের মধ্য সাগরে নিয়ে যায়। সেখান থেকে ছোট নৌকায় তোলা হয়। দুটি নৌকা ছিল। একটি নৌকা শুনেছি ইতালি চলে গেছে। একটি নৌকায় তোলা হয়েছিল ৬০ জন। আর আমাদের নৌকায় তুলেছিল ৮০ জনের ওপরে। ছোট নৌকাটি পাঁচ আঙুল পানির ওপর ভেসে ছিল। ঢেউ ওঠার সঙ্গে সঙ্গে নৌকা উল্টে গেছে।

যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশগুলো থেকে মানুষ প্রাণ বাঁচাতে ইউরোপের দিকে ছুটছে। কিন্তু বাংলাদেশিরা কেন যাচ্ছেন? এ প্রশ্নে ব্র্যাক মাইগ্রেশনের প্রধান শরিফুল ইসলাম হাসান জানান, এর প্রধান কারণ ইউরোপের মোহ। তরুণদের ধারণা, ইউরোপ যেতে পারলেই লাখ লাখ টাকা উপার্জন করতে পারবেন। গত বছরের জুনে প্রকাশিত ইউরোপীয় পরিসংখ্যান দপ্তর ইউরোস্ট্যাটের হিসাব অনুযায়ী, অবৈধভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) প্রবেশ করা নাগরিকের সংখ্যা বিচারে বাংলাদেশের অবস্থান ৩০টি দেশের মধ্যে ১৬তম। ২০০৮ সাল থেকে সেখানে অবৈধভাবে গেছেন ১ লাখ ৪ হাজার ৫৭৫ বাংলাদেশি। ২০০৮ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত ৯৩ হাজার ৪৩৫ জন বাংলাদেশি অবৈধ অনুপ্রবেশ করেছেন। ২০১৬ সালে অনুপ্রবেশ করেছেন ১০ হাজার ৩৭৫ জন। চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত সংখ্যাটি সোয়া থেকে দেড় লাখে দাঁড়িয়েছে বলে ধারণা করা হয়। ইউরোপ থেকে তাদের তাড়াতে ১২ মিলিয়ন ইউরো বরাদ্দ করেছে ইইউ। অবৈধভাবে ইউরোপ গিয়ে ধরা পড়ে দেশে ফেরা তরুণদের সহায়তা করে ব্র্যাক মাইগ্রেশন। তাদের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা থেকে শরিফুল ইসলাম হাসান জানান, গত এক দশকে ১৮ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে ভূমধ্যসাগরে ডুবে। কিন্তু ১৯ লাখ মানুষ ইউরোপ প্রবেশ করতে পেরেছেন। ইউরোপ যেতে মরিয়া তরুণরা মনে করেন তার কিছু হবে না। যে করেই হোক যেতে পারবেন। দালালরাও তাদের আশ্বস্ত করে- কিছু হবে না। এ ভরসাতেই লাখ লাখ টাকা খরচ করে ইউরোপে যাওয়ার ঝুঁকি নেন তারা।

বিদেশে বাংলাদেশিদের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ দিন দিন কমে যাওয়াকে অবৈধ পথে তরুণদের পা বাড়ানোর একটি কারণ বলে মনে করা হয়। ২০১৭ সালে বাংলাদেশ থেকে ১০ লাখ আট হাজার কর্মী বিদেশ যান। পরের বছর যান সাত লাখ ৩৪ হাজার। চলতি বছরেরও জনশক্তি রফতানি নিম্নমুখী। সৌদি আরব, ওমান ও কাতার ছাড়া আর কোনো দেশে বড় সংখ্যায় বাংলাদেশি কর্মীরা যেতে পারছেন না। মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার বন্ধ প্রায় আট মাস। সংযুক্ত আরব আমিরাতের বাজার বন্ধ প্রায় অর্ধ যুগ।

মিসিং মাইগ্রেন্টস প্রজেক্ট নামের একটি সংস্থা জানায়, ২০১৪ সালে ৮৯১ জন, ২০১৫ সালে দুই হাজার ৮৮৪ জন, ২০১৬ সালে দুই হাজার ৪৭৪, ২০১৭ সালে দুই হাজার ৭২, ২০১৮ সালে এক হাজার ৫৮৮ এবং ২০১৯ সালে এখন পর্যন্ত ৮৭৮ জন অভিবাসন প্রত্যাশী নিহত হয়েছেন।

আইওএম বলেছে, চলতি বছরের প্রথম মাসে পাঁচ হাজার ৯৮৯ অভিবাসন প্রত্যাশী ও শরণার্থী সাগরপথে ইউরোপে পৌঁছেছেন। এ সময় সলিলসমাধি হয়েছে ২০৮ জনের। শুধু জানুয়ারি মাসে বিশ্বব্যাপী নিহত ও নিখোঁজ অভিবাসন প্রত্যাশী ও শরণার্থীর সংখ্যা ছিল ৩০৯ জন। আইওএম জানায়, ২০১৪ থেকে ২০১৮ সাল ইউরোপ যাওয়ার চেষ্টাকালে ৩০ হাজার ৫১০ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু হয়েছে। ইউএনএইচসিআর ভূমধ্যসাগরে উদ্ধার তৎপরতা বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছে। সংস্থার ভূমধ্যসাগর বিষয়ক বিশেষ দূতে ভিনসেন্ট কোচেটেল বলেন, অন্যথায় এমন ট্র্যাজেডি সামনের দিনগুলোতে আরও দেখতে হবে।

ভূমধ্যসাগর বিশ্বের সবচেয়ে প্রাণঘাতী সংযোগস্থল (ক্রসিং)। চলতি বছরের প্রথম চার মাসে লিবিয়া থেকে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে যাওয়ার পথে প্রতি তিনজনে একজনের মৃত্যু হয়। আইওএমের হিসাবে, চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে ভূমধ্যসাগরে ডুবে মারা গেছেন ৪১০ অভিবাসনপ্রত্যাশী। গত বছর প্রতিদিন এখানে মারা গেছেন ছয় অভিবাসী। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে গত ১ মে পর্যন্ত সাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে পৌঁছেছেন ১৬ হাজার ৮০৬ অভিবাসনপ্রত্যাশী। গত বছর এই সংখ্যা ছিল ২২ হাজার ৪৩৯ জন। স্বৈরশাসক মুয়াম্মার গাদ্দাফির মৃত্যুর পর থেকে লিবিয়া একটি অরাজক রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। তাই ইউরোপ পাড়ি দেওয়ার প্রধান ট্রানজিট রুট হয়ে উঠেছে লিবিয়া।

 

এই সংবাদটি 1,061 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com