রবিবার, ২৬ মে ২০১৯ ০৪:০৫ ঘণ্টা

রমজানে ঈমানী মৃত্যুই তিনি কামনা করতেন

Share Button

রমজানে ঈমানী মৃত্যুই তিনি কামনা করতেন

 

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : ১৯ রমজান (২৫ জুন ২০১৬) ইফতারের পূর্বমুর্হূত পরম প্রিয় মাওলার সান্নিধ্যে চলে যান তিনি। মা-বাবা উভয়ই চির বিদায় নেন মোবারক রমজানেই। রমজানেই যেনো তার ঈমানী মৃত্যু হয় ,এমন কথা শুনেছি তার জবানেই। অবশেষে একজন মদীনা ওয়ালার চিরবিদায় সেই রমজানেই হলো। ….বলছিলাম ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের কথা। যিনি জীবনের অধিকাংশ সময় অতিবাহিত করেছেন বই-কলম-খাতার জগতে। যে বই হল, জ্ঞানের আধার। যুগযুগ ধরে মানুষের চিন্তা-ভাবনার প্রতিফলন ঘটেছে বইয়ের পাতায়। অতীতের মনীষীদের সীমাহীন জ্ঞান ভান্ডারের পরিচয় লাভের জন্য বই হলো সর্বোত্তম মাধ্যম। মানুষ তার সাধনার ফল বিধৃত রেখে গেছে বইয়ের পাতায়। মানব জাতির ইতিহাস বর্ণিত হয়েছে বইয়ের মধ্যে। ভবিষ্যতেও মানুষ একদিন এই বইয়ের মাধ্যমে তার অতীতকে জানবে। জ্ঞান আহরণে বইয়ের বিকল্প নেই। এই বইয়ের পাতার কালো অক্ষরে অমর হয়ে আছে মানুষের আত্মার চিরন্তন দ্যুতি। সারকথা অতীতকে জানতে হলে বই-ই একমাত্র সম্বল। মাওলানা মুহিউদ্দিন খান হলেন এই বইয়ের জগতে এক স্বপ্নদ্রষ্টা, নির্মাতা। বাংলা ভাষায় ইসলামী পঠন-পাঠন সামগ্রীর চাহিদা পূরণে মাসিক মদীনা সম্পাদকের অবদান সর্বজন স্বীকৃত। সাহিত্য সাংবাদিকতায় আলেম সমাজকে উৎসাহিত করতে সর্বদা ফিকির করেন, তরুণ প্রজন্মের আলেমদের সর্বতোভাবে পৃষ্ঠপোষকতা করে যাচ্ছেন তিনি। সংবাদপত্র জগতে প্রকাশনা, পরিচালনা ও সম্পাদনার ক্ষেত্রে তিনি যে বৈপ্লবিক ভূমিকা পালন করে চলেছেন বাংলা ভাষা ও সাহিত্য চর্চার ক্ষেত্রে তা এক অবিস্মরণীয় অধ্যায় ও স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। পবিত্র তাফসিরে মারেফুল কোরআনসহ তিনি ১০৫টি গ্রন্থ অনুবাদ/রচনা করেন। মাতৃভাষায় সীরাত সাহিত্যেও যে অবদান রেখেছেন, তা বিরল। তিনিই বাংলায় সীরাত চর্চার পথিকৃৎ।
তিনি সমাজসেবা,ইসলামি রাজনীতি, শিক্ষা, ধর্মপ্রচার, সাহিত্য- সংস্কৃতি চর্চা তথা বাংলাভাষায় ইসলামী সাহিত্যের ব্যাপক চর্চা, প্রচার প্রসারে যিনি নিজস্ব পরিমন্ডল তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন এমনি একজন জ্ঞান তাপস, গুণীজন হলেন মাওলানা মুহিউদ্দীন খান। দেশ ও জাতির কল্যাণে দীর্ঘ অর্ধশতাব্দিব্যাপী তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে গেছেন। নিরপেক্ষ দৃষ্টিতে যুক্তির আলোকে বিচার করলে নিঃসন্দেহে মূল্যায়নের মানদন্ডে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান শতাব্দীর একজন শ্রেষ্ঠ কৃতী সন্তান। মাতৃভাষায় ইসলামী পঠন-পাঠনে তার অবদানের জাতীয় স্বীকৃতি (মরনোত্তর) সময়ের দাবি। বাংলাভাষা ভাষীদের মধ্যে সীরাত চর্চার বিরল নজীর তিনি স্থাপন করেছেন। তার লিখিত, অনূদিত গ্রন্থাবলী মুসলিম মিল্লাতের জন্য (আকর) লাইফ গাইড হয়ে থাকবে। মহাগ্রন্থ আল কোরআনের ব্যাখ্যাগ্রন্থ বঙ্গানুবাদ তার জীবনের সাফল্যের এক মাইলফলক। এছাড়া দেশের প্রাচীনতম বাংলা পত্রিকা ‘মাসিক মদীনা’র মাধ্যমে মাতৃভাষায় দ্বীন ইসলাম প্রচারে ব্যাপক অবদান রেখেছে,এখনো যাচ্ছে।

মাওলানা মুহিউদ্দীন খান সকল মহলের নিকট একজন পরিচিত মুখ। আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও তিনি এদেশের শীর্ষস্থানীয় জ্ঞানী-গুণী ব্যক্তিত্ব হিসেবে সমাদৃত। ইসলামের মননশীল ও সাবলীল উপস্থাপনা এবং খেদমতে খালক’র তথা জনকল্যাণের জন্যও তিনি স্বীয় কর্মগুণেই ইতিহাসে স্থান করে নিয়েছেন। আমাদের দেশে অনেক লোকই জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন এবং প্রতি বছরই পাচ্ছেন। নিরপেক্ষ বিচারের মাধ্যমে যোগ্য এবং দেশ-জাতির জন্য অবদান রেখেছেন এমন ব্যক্তিকে চিহ্নিত করে যদি জাতীয় পুরস্কার প্রদান করা হয় তাহলে মাসিক মদীনা সম্পাদক, বহুগ্রন্থ প্রণেতা মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে জাতীয় পুরস্কার প্রদান করা সময়ের দাবী। মুসলিম সাংবাদিকতার জনক মাওলানা মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদী, মাওলানা আকরম খাঁ, ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ এবং মজলুম জননেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর উত্তরসুরী হিসেবেই মাওলানা মুহিউদ্দীন খান জাতীয় পর্যায়ে বহুবিধ কর্মকান্ডে অবদান রেখে গেছেন। গুণীজনের কর্মের স্বীকৃতিস্বরূপ তার জীবদ্দশায় পুরস্কার দেয়া উচিত। আর এক্ষেত্রে দল ও মতের উর্ধ্বে উঠতে হবে, গুণী ব্যক্তি কোন দলের, তার আদর্শ কি এসব না দেখে তার কর্মের সঠিক মূল্যায়ন করতে হবে। এটাই স্বাভাবিক। আশার কথা হল মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে ‘জালালাবাদ স্বর্ণ পদক’ প্রদান করছে সিলেটের জালালাবাদ লেখক ফোরাম। ২০০৯ সালের ১৯ মার্চ সিলেটবাসীর পক্ষে মাওলানা খানের হাতে স্বর্ণপদক তুলে দেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের জনপ্রিয় মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরান। মাওলান মুহিউদ্দীন খানের প্রতিটি লেখা, ইসলামী জ্ঞানের এক একটা রতœ ভান্ডার। বাংলাদেশ তথা মুসলিম বিশ্বের দাওয়াত কর্মী এবং ইসলামী আন্দোলনের কর্মীরাই তাঁকে একজন পথ প্রদর্শক, মর্দে মুজাহীদ বলে মনে করেন। ১৯৯৬ সালের আগে তাকে দেখার সুযোগ আমার হয়নি, কিন্তু তিনি সে সময়ই আমার ও আমার মত আরও অনেক নবীনের কাছে হয়ে উঠেছিলেন এক কিংবদন্তীর নায়ক, প্রেরণার বাতিঘর।
দেশের শীর্ষস্থানীয় নির্ভীক কলম সৈনিক মুহিউদ্দীন খান প্রায় অর্ধ শতাব্দী কাল যাবত এ দেশের সাহিত্য-সংস্কৃতি ও সাংবাদিকতার পরিমন্ডলে একজন সুদক্ষ শিল্পী হিসেবে বিচরণ করছেন। তিনি জীবনের শুরুতে তমুদ্দুন মজলিস ও হাকিম আজিজুল ইসলামের সম্পাদনাধীন সাপ্তাহিক নেজামে ইসলাম পত্রিকার সাথে কাজ করেছেন দীর্ঘদিন। আজকের ইসলামিক ফাউন্ডেশন, কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাক, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম,ইসলামী ঐক্যজোট গঠন,পূর্ণগঠনে তার বিশেষ অবদান রয়েছে। তিনি আজীবন ইসলামি সঙগঠন সমুহের মধ্যে ঐক্যরে সেতুবন্ধনের জন্য কাজ করেগেছেন। তার মতো সর্বত্যাগি ও বহুদর্শী আলেম বর্তমান বাংলাদেশে নেই।
আজকের এই দিনে তাকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি। আল্লাহপাক যেনো তার সকল দ্বীনী কর্মসমুহ কবুল করে তাকে জান্নাতের মেহমান হিসেবে কবুল করেন। আমীন।

এই সংবাদটি 1,009 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com