বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০১৯ ০১:০৫ ঘণ্টা

জিয়া পরিবারের জনপ্রিয়তা ও শেখ হাসিনার দেশে ফেরা

Share Button

জিয়া পরিবারের জনপ্রিয়তা ও শেখ হাসিনার দেশে ফেরা

 

প্রকৌশলী আ হ ম মনিরুজ্জামান দেওয়ান মানিক: আজ ৩০ মে মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৮ তম শাহাদাত বার্ষিকী।
বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ জানাযা অনু্ষ্টিত হয়েছিলো শহীদ রাষ্ট্রপ্রতি জিয়াউর রহমানের ১৯৮১ সালে। আর দ্বিতীয় বৃহৎ জানাযা হয়েছে তারই কনিষ্ঠ পুত্র আরাফাত রহমান কোকো’র ২০১৫ সালে। সময়ের ব্যবধান ৩৪ বছর। কত- চড়াই- উৎরাই পাড়ি দিয়ে অতিবাহিত হয়েছে এ দীর্ঘ সময়। একটু ভাটা পড়েনি জিয়া পরিবারের জনপ্রিয়তায়। অাস্থার ঘাটতি দেখা দেয়নি কখনও। সুযোগ পেলেই বাংলাদেশের জনগণ তাদের দ্ব্যর্থহীন সমর্থন ব্যক্ত করেন জিয়া পরিবারের প্রতি। শহীদ জিয়ার বিধবা পত্নী দেশনেত্রী সাবেক সফল জনপ্রিয় প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া প্রতিবার যতটি সংসদীয় আসনে নির্বাচন-করেন তাতে সর্বোচ্চ ভোটেবিজয়ী হন। পরাজয়ের নজীর তার নেই। যেখানেই তিনি জনসভা করেন দেশের মানু্ষ হুমড়ি খেয়ে পড়ে সেখানে। জনসভা রুপান্তরিত হয় জনসমুদ্রে।
জানাযার প্রসঙ্গটি নিয়ে আসার কারণ- জনপ্রিয়তা মাপার ইহা এক মোক্ষম সুযোগ। জানাযায় মানু্ষ শরীক হয় সশ্রদ্ধ চিত্তে, হৃদয় নিংড়ানো ভালবাসা নিয়ে এ দুটি জানাযা ছিল নজীর বিহীন এবং ইতিহাস সৃষ্টিকারি।গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার পুনরুদ্ধারের চলমান গণআন্দোলন – একদিকে অবরোধ ও দেশজুড়ে সহিংসতা। অপরদিকে ঘরে বাইরে পুলিশি নির্যাতন, গুম- খুন ও দেশে গণগ্রেফতার। সব মিলে এক ভীতিকর পরিবেশ। তার ওপর কোকো’র জানাযা কেন্দ্রীক ভয়ভীতি তাড়া করছিল সরকারকে । জানাযা উপলক্ষ্যে ঢাকায় লোক সমাগম যাতে কম হয় সেজন্য পথে পথে বাধা সৃষ্টি করে রেখেছিল সরকার’ও। এতসব প্রতিকুলতার মধ্যেও গণমাধ্যমের রির্পোট অনুযায়ী জানাযা ছিল এক জনসমুদ্র। সীমানা ছিল ততোদুর দৃষ্টি যায় যতদূর ছিল লোকে লোকারণ্য। কোকো’র কফিনের পাশে আরেকবার জড়ো হয়েছিল দ্বিতীয় বাংলাদেশ।
স্বাধীন বাংলাদেশের সূচনালগ্ন থেকে আজ অবধি জাতির সব বিপদে হাল ধরেছে এই পরিবার। শহীদ রাষ্ট্রপ্রতি জিয়াউর রহমান কোনো রাজনীতিবিদ ছিলেন না তখন। তিনি ছিলেন মাত্র ৩৫ বছরের এক যুবক ৮ম ইস্টবেঙ্গল রেজিমেন্টের একজন মেজর। জাতি এক অনিবার্য যুদ্ধের মুখোমুখি কিন্তু দিক নির্দেশনা দেয়ার কেউ নেই। পরিস্থিতির নাজুকতা উপলদ্ধি করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এগিয়ে এসেছিলেন ৩৫ বছরের এই যুবক তৎকালীন মেজর শহীদ জিয়াউর রহমান-। চট্রগ্রামের ষোল শহরে অস্টম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের সেনা সদস্যদেরকে জড়ো করলেন রেজিমেন্টের খেলার মাঠে ২৫ শে মার্চের রাত- ১১- ৩০ মিনিটে এবং দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে ঘোষণা দিলেন ” উই রিভোন্ট ” – আমরা বিদ্রোহ করলাম। অত:পর ঝাঁপিয়ে পড়লেন পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সম্মুখ যুদ্ধে। ইহাই ছিল স্বাধীনতার পক্ষে প্রথম বিদ্রোহ । ২৬ শে মার্চ- কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে তিনি ঘোষণা দিলেন স্বাধীনতার। এই ঘোষণার সূত্র ধরেই ২৬ শে মার্চ- বাংলাদেশের জাতীয় ও স্বাধীনতা দিবস।

স্বাধীনতার তিন বছরের মধ্যে জাতি পড়ে আরেক মহাবিপদে। মরহুম শেখ মুজিবুর রহমান- একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রবর্তন করেন। রুদ্ধ হয়ে যায় বাক- ব্যক্তি- ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা। অত:পর ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট শেখ মুজিব নিহত হন তিনি। তারপর রাষ্ট্রপ্রতি হিসেবে শপথ নেন তাঁর অন্যতম ঘনিষ্ঠ সহকর্মী ও মন্ত্রী পরিষদের এক হেভিওয়েট সদস্য- খন্দকার মোশতাক আহমদ। গঠিত হয় নতুন আওয়ামী সরকার ও মন্ত্রীসভা। তাদের তিন মাসের শাসনামলে অসন্তোষ দেখা দেয় সেনাবাহিনীতে। সংগঠিত হয় গণ অভ্যুত্থান পাল্টা অভ্যুত্থান । এমনকি এক বিপদ সংকুল মুহুর্তে, আবার আবির্ভূত হন শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ত্রাণকর্তার ভূমিকায়। ১৯৭৫ এর ৭ নভেম্বর সিপাহি – জনতার বিপ্লবের মধ্যে দিয়ে তৎকালিন সেনাপ্রধান জেনারেল জিয়াউর রহমান ব্যর্থ অভ্যুত্থানের বন্দীদশা থেকে মুক্ত হন। সময়ের অনিবার্যতা তাকে এনে দেয় ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে। তাঁর সুযোগ্য নেতৃত্বে অচিরেই পাল্টে যায় দেশের চেহারা। দেশের মানু্ষ এই প্রথম উপলদ্ধি করতে পারে সত্যিই তারা স্বাধীনতা অর্জন করেছে এবং একটি স্বাধীন দেশ পেয়েছে, যা তাঁদের ইচ্ছায় পরিচালিত হচ্ছে । বাংংলাদেশের মানূষ আশার আলো দেখতে পায় অর্থনৈতিক মুক্তি ও স্বনির্ভর দেশ গড়ার লক্ষ্যে গৃহিত শহীদ জিয়ার ১৯ দফা কর্মসূচীতে। মাত্র ৬ বছরের সুশাসনে তিনি স্থান করে নেন দেশবাসীর অন্তরে, হয়ে উঠেন তাঁদের একেবারেই আপনজন। ক্ষমতা গ্রহণ করেই শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান- বাক- ব্যক্তি- ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা পুনরুজ্জীবিত করেন এবং বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেন। যেজন্য তাঁকে বাংলাদেশের বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জনক বলা চলে। তিনি জিয়াউর রহমান হচ্ছেন আধুনিক বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টাও তিনি।
আমার কাছে সেদিন জিয়াকে মনে হয়েছিল তিনি যেন সেই হ্যামিলনের বংশীবাদক, যার বাঁশির সুরে হ্যামিলন নগরীর সব শিশু-কিশোর যে যেখানে ছিল তার পেছনে পেছনে ছুটে চলেছে।জেনারেল জিয়া তৎকালীন রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে হীনম্মন্যতায় ভোগা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে তার প্রাইড ফিরিয়ে দেন। তিনি সেনাবাহিনীকে জাতীয় সেনাবাহিনীর মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করেন। পুনর্গঠনের উদ্যোগ নেন।
সেনাবাহিনীকে সুপ্রশিক্ষিত, পেশাগতভাবে সুদক্ষ, অস্ত্র ও সমর সম্ভারে সুসজ্জিত করার লক্ষ্যে সর্বাত্মক মনোযোগ দেন। অতি অল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পেশাদক্ষ ও দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী হিসেবে জনগণের পূর্ণ শ্রদ্ধা ও আস্থা অর্জন করে। জাতীয় স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তার মূর্তপ্রতীকে পরিণত হয় আক্ষরিক অর্থেই।জিয়া দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করতেন জণগণ এবং জণগণই একমাত্র সব ক্ষমতার উৎস। তিনি রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়ে প্রথম যে কাজটি করেন তা হল সামরিক সরকারের পূর্ণ বেসামরিকীকরণ। তিনি সব রাজনৈতিক দলকে গণতন্ত্র চর্চার পূর্ণ সুযোগ সৃষ্টি করে দেন।
আওয়ামী লীগ তখন একটা কঠিন সময় অতিক্রম করছিল। দলের অনেক শীর্ষ নেতা মোশতাক সরকারে যোগদান করেছিল। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ভারতে অবস্থান করছিলেন। জিয়া তাকে নিজ দেশে সম্মানে ফিরে আসার সাদর আহ্বান জানান। তাকে গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে পূর্ণ সহযোগিতার নিশ্চয়তা প্রদান করেন।
বাংলাদেশের তদানীন্তন রাজনীতির বাস্তবতা জেনারেল জিয়াকে জাতীয় রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে বাধ্য করে। তার ছিল গণতন্ত্রের প্রতি পূর্ণ বিশ্বাস। সত্যিকারের গণতন্ত্রের চেতনায় তাড়িত হয়ে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন, যুদ্ধ পরিচালনা করেছিলেন।
রাষ্ট্র ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হওয়ার প্রথম সুযোগেই তিনি সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনী বাতিল করে বহুদলীয় গণতন্ত্রের পুনঃপ্রবর্তন ঘটান। সংবাদপত্রসহ গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ফিরিয়ে আনেন। অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যে তিনি কৃষিবিপ্লব ও শিল্পের বিকাশ ঘটান। জাতিকে একটি মর্যাদাশীল সম্মানজনক অবস্থানে দাঁড় করান।
এদিকে স্বৈরা-শাসনের যাঁতাকলে গণতন্ত্র আরেকবার পিষ্ট হলে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের পত্নী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া নেতৃত্বের হাল ধরেন এবং দূর্বার গণআন্দোলনের মধ্য দিয়ে এরশাদের পতন ঘটিয়ে গণতন্ত্র পূনঃপ্রতিষ্ঠা করেন। শেখ হাসিনার আন্দোলনের ফসল সেনা সমর্থিত জরুরী সরকারের হাতে আরেকবার বন্দী হয় গণতন্ত্র, বাক ও ব্যক্তি- স্বাধীনতা।
বেগম খালেদা জিয়ার আপোষহীন মনোভাবের সামনে টিকতে পারেনি তারাও । চরম ধৈর্য্য সহকারে পরিস্থিতি মোকাবেলা করেন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। শুধুই গণতন্ত্র পূনঃপ্রতিষ্টার লক্ষ্যে ব্যক্তি- ও দলীয় স্বার্থ উপেক্ষা করে জাতীয় স্বার্থকে গুরুত্ব দিয়ে নিশ্চিত পরাজয় জেনেও তিনি ফখরুদ্দীন – মঈনউদ্দীনের নীল নকশার নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেন। ২০০৮ এর এই নির্বাচনটি ও যদি ‘সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হত তাহলে বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন জোটই তখনকার সময়ে আবারও বিজয়ী হতো । উক্ত প্রহসনের নির্বাচনের পর থেকে সুবিধাভোগী বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে আবার হরণ করা হয়েছে গণতন্ত্র । হরণ করা হয়েছে বাক- ব্যক্তি- ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা এবং সর্বোপরি মানুষের ভোটের অধিকার। এরশাদের ভাষায় শেখ হাসিনা তাঁর চাইতেও বড় স্বৈরাশাসক। এই স্বৈরা-শাসকের হাত থেকে দেশ ও মানু্ষ বাঁচাতে এবং গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার পুনরুদ্ধারের দূর্বার গণআন্দোলন এবারও পনেরো মাস দরে স্বৈরাচার শেখ হাসিনার রোষানলে মিথ্যাচার আক্রোশে কারাগারে বন্দী জীবনযাপন করে নেতাকর্মীদের দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া । ৪৮ বছরের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে মনে হয়, অন্যদের কাজ যেনতেন ক্ষমতায় এসে জাতির গলা টিপে ধরা । গণতন্ত্র হত্যা করে একনায়কতন্ত্র আর স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করাই হচ্ছে এই স্বৈরাশাসক শেখ হাসিনার একমাত্র কাজ। আর অন্যদিকে জিয়া পরিবারের কাজ হচ্ছে জাতিকে এহেন বন্দীদশা থেকে মুক্ত করে আনা । ইহাই যেন নিয়তি ইহাই সঠিক গণতান্ত্রিক মূল্যায়ন এবং জাতি হিসেবে বাংলাদেশের জনগণ ইহাই কামনা করে জিয়া পরিবারের প্রতি । পরিশেষে শহীদ জিয়াউর রহমানের আজ শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে গভীর সমবেদনা, শ্রদ্ধা ও তাঁহার রুহের আত্নার মাগফেরাত কামনাকরি মহান আল্লাহর দরবারে আমিন।

লেখকঃ সিনিয়র সহ-সভাপতি চান্দপুর জেলা কচুঁয়া উপজেলা বিএনপি ও আহবায়কঃ জাতীয় স্বরণ মঞ্চ।

এই সংবাদটি 1,027 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com