শুক্রবার, ৩১ মে ২০১৯ ০৪:০৫ ঘণ্টা

সাদাক্বাতুল ফিৎর, গুরুত্ব ও তাৎপর্য

Share Button

সাদাক্বাতুল ফিৎর, গুরুত্ব ও তাৎপর্য

শাহ মাহমুদুর রশীদঃ

ক্ষণস্থায়ী এ ধরার অধিবাসিদের অন্যতম মানব জাতি, যারা সামাজিক জীব হিসেবে খ্যাত, তাই যে যত সম্পদ আর পতিপত্তির অধিকারি হোক না কেন, অন্য মানবের মুখাপেক্ষী তাকে হতেই হয়। তবে সমাজের অবস্থা হল, বিত্তবানগন যদিও কোন কোন ক্ষেত্রে গরীব/দরিদ্রদের মুখাপেক্ষী, অনেক ক্ষেত্রে তা প্রভাব ফেলতে পারেনা।
বরং তার বিপরিত, অর্থাৎ গরীব/দরিদ্রশ্রেণী যে বিত্তবানের মুখাপেক্ষী, তা পদে পদে প্রমাণিত হয়। মহান স্রষ্টার কাছে পার্থিব এ জগতের ধনী দরিদ্রের পার্থক্য বলতে কিছু নেই। কারণ তিনি সর্বময় ক্ষমতার অধিকারি। আর সৃষ্টিকুল নিজ ক্ষমতায় কিছুই করতে পারেনা। এবং এ নশ্বর জগতের ধন সম্পদ তার কাছে কোন বিষয়ই নয়। যেমন মহান আল্লাহ তালার বানী, আল্লাহই ধনী আর তোমরা সকলই হচ্ছ গরিব/ফকির। (সুরা মুহাম্মাদ আয়াত ৩৮)
অন্য আয়াতে ঘোষনা, হে লোক সকল, আমি তোমাদিগকে সৃষ্টি করেছি নর নারী হিসেবে এবং তোমাদেরকে জাতি/গোষ্ঠি গত ভাবে পৃথক করে দিয়েছি যাতে তোমরা পরষ্পরে পরিচিত হতে পার নিশ্চয় তোমাদের মধ্যে আল্লাহর কাছে সম্মানিত হবে সেই যে তোমাদের মধ্যে অধিক খোদাভিরু। (সুরা হুজুরাত আয়াত ১২)
উভয় আয়াত দ্বারাই ধনীর ধনের বা বংশধরের বংশ গৌরবের কোন মর্যাদা প্রমাণিত হওয়া তো দূরবর্তী কথা, আকার ইঙিতে এগুলোর প্রতি নিরুৎসাহের আভাষ পাওয়া যায়। শুধু তাই নয় নবী রাসুলগণের ইমাম, মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ স. এর হাদীস দ্বারা সুষ্পষ্ট হয়ে যায় যে, গরিব / দরিদ্রের মর্যাদা মহান স্রষ্টার নিকট বেশী, যেমন হাদীসের বানী, হযরত আনাস রা.থেকে বর্ণিত, নিশ্চয় রাসুল স. বলেন হে আল্লাহ আমাকে মিসকিনদের অন্তর্ভূক্ত হিসেবে জিবিত রাখো এবং তাদের সাথে মৃত্যুও দান কর এবং তাদের সাথে আমাকে কিয়ামতেরদিন পুনঃজিবিতও করো।
এ জাতিয় প্রার্থনা শুনে হযরত আয়েশা রা. জিজ্ঞেস করলেন, হে রাসুল স. এমন দোওয়া কেন করলেন? তার জবাবে রাসুল স. বললেন নিশ্চয় তারা (অসহায় গরীব ) ধনীদের থেকে চল্লিশ বৎসর আগে জান্নাতে প্রবেশ করবে। অতএব হে আয়েশা কোন গরীব তোমার কাছে কিছু চাইলে তাকে খালি হাতে ফিরত দেবেনা যদিও একটি খেজুরের অংশই হোক না কেন, হে আয়েশা গরীব অসহায়দের ভালবাসবে তাদেরকে আপনজন মনে করবে এতে আল্লাহ পাক কিয়ামতের দিন তোমাকে আপনজন করে নিবেন ( তিরমিজী শরীফ জুহদ অধ্যায়)
কোরআন হাদীসে গরীব অসহায়দের পরকালিন এত মর্যাদা আর সম্মান দেয়ার পর মহান স্রষ্টা ইহকালিন সামাজিক ভারসাম্য বজায় রাখার তরে মুমিন মুসলমানদের ভ্রাত্যিত্বপূর্ণ বন্ধন অঠুট রাখার জন্য ফরমান জারী করে দিয়েছেন, এবং তোমাদের সম্পদের মধ্যে রয়েছে অসহায় ও বঞ্চিতদের অধিকার, (সুরা জারিয়া আয়াত ২১) অন্য আয়াতে ঘোষনা, তোমাদের নিকট আত্মিয়, মিসকিন, অসহায়, এবং পথিকদেরকে তাদের অধিকার দান কর,(সুরা বনি ইসরাঈল আয়াত ২৭)
আলোচ্য উভয় আয়াতেই প্রমাণিত যে, ধনী বা বিত্তশালীদের কাছে গরীব অসহায়দের অধিকার রয়েছে।
আর এগুলো আদায় করার জন্য মহান আল্লাহ সময়ে সুযোগে অবস্থার পরিপেক্ষীতে নানান বিধান নির্ধারণ করে দিয়েছেন, যেমন যাকাত, ফিৎরা, কাফ্ফারা, কুরবানি, মান্নত, নফল বা অতিরিক্ত দান খয়রাত।
এখানে আলোচ্য বিষয় হচ্ছে সদকাতুল ফিৎর বা ফিৎরা। যা আল্লাহ পাক ঈদুল ফিতরের দিন সুবহে সাদিকের সময় যার নিকট যাকাত ফরজ হওয়ার পরিমান অর্থ সম্পদ থাকে তার উপর এ ফিৎরা আদায় করা ওয়াজিব। যা নিজের পক্ষ থেকে ও নাবালিগ সন্তানাদির পক্ষ থেকেও আদায় করা ওয়াজিব। আর যাদের উপর ওয়াজিব নয় তারাও চাইলে নফল হিসেবে দান করলে অনেক সাওয়াবের অধিকারি হবে।
এ ফিৎরার মধ্যে মহান আল্লাহ পাক যেমনিভাবে গরীবদের সাহায্যের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন এমনিভাবে দানকারি ব্যক্তির সারা রোজা মাসের রোজাগুলো পালনে যে সমস্থ ত্রুটি বিচ্যুতি হয়েছে তার শুণ্যস্থান পূরনের ব্যবস্থাও করে দিয়েছেন।
তাই প্রত্যেক মুমিন মুসলমানগন নির্দিষ্ট সময়ের আগে আগেই সদক্বাতুল ফিৎর আদায় করার ব্যপারে যত্নবান হওয়া আবশ্যকিয়।

লিখক পরিচিতিঃ
সাবেক খতীব, পুরাতন থানা জামে মসজিদ
সদর মৌলভীবাজার।

এই সংবাদটি 1,015 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com