সোমবার, ১০ জুন ২০১৯ ০৫:০৬ ঘণ্টা

বিশ্বনাথে আ.লীগ নেতা হত্যায় গ্রেফতার ২

Share Button

বিশ্বনাথে আ.লীগ নেতা হত্যায় গ্রেফতার ২

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি :

বিশ্বনাথে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সদস্য ও উপজেলার দেওকলস ইউনিয়নের পুরান সৎপুর গ্রামের সালিশী ব্যক্তিত্ব আহমদ আলী হত্যার রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। হত্যার ৩দিনের মাথায় এ ঘটনায় আটক প্রহরী জমির হোসেন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই সিকান্দর আলী (৭৫) বাদী হয়ে দায়ের করা মামলায় দু’জনকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- নিহত আহমদ আলীর মৎস্য খামারের প্রহরী ও সৎপুর খাসজান গ্রামের মৃত ময়না মিয়ার পুত্র জমির হোসেন (৩৫) এবং পুরান সৎপুর গ্রামের মৃত ফয়জুর রহমানের পুত্র ও সাবেক ইউপি সদস্য মতিউর রহমান ওরফে আব্দুল মতিন (৬৪)।
এ ঘটনায় আটক প্রহরী জমির রোববার আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে। ওইদিন রাত ১০টায় এক প্রেস ব্রিফিং-এ স্থানীয় সাংবাদিকদের বিষয়টি জানিয়েছেন বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মো. শামসুদ্দোহা পিপিএম। ওসি জানান, গ্রেফতারকৃত জমির হোসেন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে এবং আদালতে সে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে। মামলার অন্যান্য অভিযুক্তদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। সুষ্ঠু তদন্তের পর আদালতে মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করা হবে বলে জানান ওসি।
এদিকে, থানায় দায়ের করা মামলায় মৎস্য খামারের প্রহরী জমির হোসেন ও সাবেক ইউপি মেম্বার মতিউর রহমান ওরফে আব্দুল মতিন ছাড়াও দেওকলস ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাসুম আহমদ মারুফ সহ ৭ জনের নাম উল্লেখ এবং আরো ৪/৫ জনকে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামী করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেন- প্রহরী জমির হোসেন ও বিএনপি নেতা মাসুম আহমদ মারুফের বোন ফাতেমা বেগমের কাছে পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় এবং তাজপুর বাজারস্থ মৎস্য আড়ৎ এর কমিটি গঠন সহ এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করাকে কেন্দ্র করে অভিযুক্তরা সংঘবদ্ধ হয়ে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী তার (বাদীর) ভাই আওয়ামী লীগ নেতা আহমদ আলীকে হত্যা করেছে। হত্যাকান্ড ধামাচাপা দিতে আহমদ আলীকে হত্যা করে তার লাশ নিজ মৎস্য খামারের পুকুরে ফেলে রাখে ঘাতকরা।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বিশ্বনাথ থানার এসআই লিটন রায় বলেন, রোববার ভোরে উপজেলার হরিকলস এলাকা থেকে মামলার প্রধান অভিযুক্ত জমির হোসেনকে ও সন্ধ্যায় সৎপুর এলাকা থেকে অভিযুক্ত মতিউর রহমান ওরফে আব্দুল মতিনকে গ্রেফতার করা হয়।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার পর থেকে আহমদ আলীকে তার পরিবারের লোকজন মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করতে নাে পেয়ে এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে তাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। এরপর রাত আনুমানিক ১২টার দিকে নিজ মৎস্য খামারের পুকুর থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনার পর থেকে মৎস্য খামারের প্রহরী জমির হোসেন পলাতক ছিল। ফলে বিভিন্ন কারণে তার ও মাছুম আহমদ মারুফের দিকেই সন্দেহের তীর ছিল নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসীর। লাশের ময়না তদন্ত শেষে পরদিন শুক্রবার বিকেল ৬টায় জানাযার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে নিহত আহমদ আলীর দাফন সম্পন্ন করা হয়।

এই সংবাদটি 1,005 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com