বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০১৯ ০৬:০৬ ঘণ্টা

আমেরিকায় তিন মুসলিম শিক্ষার্থীকে হত্যা; ঘটনার চার বছর পরে খৃষ্টান হত্যাকারীর স্বীকারোক্তি

Share Button

আমেরিকায় তিন মুসলিম শিক্ষার্থীকে হত্যা; ঘটনার চার বছর পরে খৃষ্টান হত্যাকারীর স্বীকারোক্তি

ডেস্ক রিপোর্ট :

আমেরিকাতে গত চার বছর আগে তিন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আততায়ীদের হাতে হত্যাকান্ডের শিকার হন। তাদের সবাই মুসলিম ছিলেন। হত্যাকান্ডটি ঘটার ৪ বছর পরে এসে এই অপরাধ স্বীকার করেছে একজন আমেরিকান খৃষ্টান।

গতকাল বুধবার (১২ জুন) ৫০ বছর বয়সী ক্রেইগ স্টিফেন হিকস হত্যাকান্ডটি ঘটানোর দায় স্বীকার করেছে উত্তর ক্যারোলিনার একটি আদালতে। এর ফলে দেশটিতে বসবাসরত মুসলিমদের মাঝে ব্যাপক আতংকভাব সৃষ্টি হয়েছে।

পুলিশ ক্রেইগের স্বীকারোক্তির উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, ২০১৫ সালে ক্যারোলিনার চাপেল হিলে জিয়া বারাকাত (২৩) নামের এক মুসলিমের বাড়িকে টার্গেট করে এলোপাথাড়ি গুলি ছোড়ে ক্রেইগ স্টিফেন হিকস। এতে বাড়িওয়ালা, তার স্ত্রী ইয়ুসরা আবু সালেহ (২১) এবং তার ১৯ বছর বয়সী বোন রাজিন আবু সালেহা নিহত হন।

জিয়া বারাকাত ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়েরর দন্তচিকিৎসা বিভাগে অধ্যয়নরত ছিলেন। বাকি দুজন একই প্রতিষ্ঠানের অন্য দুটি বিভাগে পড়তেন। নিহত হওয়ার মাত্র দুই মাস আগে ইয়ুসরা আবু সালেহকে বিয়ে করেছিলেন জিয়া বারাকাত।

পুলিশ বলেছে, গাড়িপার্কিং এর জায়গা নিয়ে বিরোধের সূত্রে হত্যাকান্ডটি ঘটান প্রতিবেশী ক্রেইগ। তবে জিয়া বারাকাতের স্বজনদের ভাষ্য ভিন্ন। তারা বলেন, ধর্মীয় বিরোধের অজুহাতেই জিয়া বারাকাতকে হত্যা করেছে খৃষ্টান সন্ত্রাসীটি।

উল্লেখ্য, নিহত হওয়ার অল্পকিছু দিন পরের গ্রীষ্মের ছুটিতে তুরস্কে সফর করার সব ব্যবস্থা করে রেখেছিলো জিয়া বারাকাত পরিবার। তুরস্কে আশ্রয় নেয়া প্রায় ৩৫ লক্ষ সিরীয় শরণার্থীদের মাঝে যারা দাঁতের রোগে আক্রান্ত তাদের সেবা দেয়ার লক্ষ্যে তারা এই সফরের ব্যবস্থা করেছিলো।

এই সংবাদটি 1,254 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com