শুক্রবার, ১৪ জুন ২০১৯ ০৭:০৬ ঘণ্টা

যুব কল্যাণ তহবিল

Share Button

যুব কল্যাণ তহবিল

যুব বেকারত্ব লাঘবে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এই লক্ষে শক্তিশালী করা হচ্ছে সরকারের যুবকল্যাণ তহবিল। প্রথমবারের মতো এই তহবিলে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অর্থও নেয়া হচ্ছে। দেশের দুই কোটি বেকারের কর্মসংস্থানের উদ্দেশ্যে এই তহবিলের কার্যক্রম পরিচালিত হবে। এ ব্যাপারে সরকারের বক্তব্য হচ্ছে, যুবকল্যাণ তহবিল পুরোপুরি কার্যকর হলে যুবকরাই এ থেকে বেশি উপকৃত হয়। অনেক ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং বেসরকারি কোম্পানী নানা জায়গায় তাদের এই কর্পোরেট স্পেশাল রেসপনসিবিলিটি (সিএসআর) এর টাকা ব্যয় করবে। এই ধরনের কল্যাণমুখী কাজে ব্যয় করলে এতে দুটি উপকার আসবে। প্রথমে বেকারদের কর্মসংস্থান হবে এবং সেই সঙ্গে জাতীয়ভাবে দেশ উপকৃত হবে। দেশের চালিকাশক্তি হিসেবে পরিচিত যুব সমাজ জাতীয় জীবনের সর্বক্ষেত্রেই ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে সক্ষম। কিন্তু আমাদের যুব সমাজের একটা বড় অংশ বেকারত্বের দংশনে জর্জরিত।
দেশের জনগোষ্ঠীর মধ্যে পাঁচ কোটি ছয় লাখ যুবক। এর মধ্যে বেকার যুবকের সংখ্যা দুই কোটি ২৮ লাখ। দরিদ্র যুবকের সংখ্যা এক কোটি ৫৭ লাখ। আর শিক্ষিত যুবকের সংখ্যা দুই কোটি ৭৯ লাখ। দেশে দশ কোটি ৪১ লাখ ভোটারের মধ্যে এক তৃতীয়াংশ তরুণ। অপরদিকে বর্তমানে দেশের ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সী তরুণদের ৪০ শতাংশেরই নেই শিক্ষা ও চাকরি। তাছাড়া, চাকরিতে ঢোকার প্রশিক্ষণও নেই তাদের। সরকারি পরিসংখ্যানে বেরিয়ে এসেছে এসব তথ্য। সব মিলিয়ে দেশে তরুণ বেকারের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমাদের দেশের সার্বিক অগ্রগতির পেছনে যতোগুলো অন্তরায় হিসেবে কাজ করছে, এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বেকারত্ব। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে, জনগোষ্ঠীর যে অংশটি কোন জাতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ, সেই তরুণদের মধ্যেই বেকারত্ব বেশি। আর এই যুব বেকারত্ব নিরসনের লক্ষে সরকার গঠন করেছে যুবকল্যাণ তহবিল। মূলত আত্মকর্মসংস্থান ও দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষে ২০১৬ সালে যুবকল্যাণ অধ্যাদেশ (১৯৮৫) রহিত করে যুবকল্যাণ আইন ২০১৬ পাস হয়। এই আইনের আরো উদ্দেশ্য হচ্ছে স্বেচ্ছাসেবী যুব সংগঠনগুলোকে প্রকল্প ভিত্তিক আর্থিক সহায়তা প্রদান এবং সামাজিক ক্ষেত্রে অসাধারণ অবদানের জন্য যুবকদের পুরস্কৃত করা।
বর্তমানে যুবকল্যাণ তহবিলে যে অর্থ রয়েছে, এ থেকে অর্জিত সুদ দিয়ে যুব সংগঠনগুলোকে সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত অনুদান দেয়া হচ্ছে। এই অনুদানের পরিমাণ ৫০ হাজার টাকায় উন্নীত করা হচ্ছে। যুবসংগঠনগুলো এই অনুদানের টাকায় বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এর প্রভাব পড়ছে সামাজিক উন্নয়ন ও স্বাবলম্বী হওয়ার ক্ষেত্রে। ইতোমধ্যেই সংগঠনগুলো অনেক সাফল্য রেখেছে। সর্বোপরি, সার্বিক উন্নয়নের মূল ¯্রােতধারায় জনগণের এক তৃতীয়াংশ যুব সম্প্রদায়কে সম্পৃক্ত করা অত্যন্ত জরুরি। আর এ খাতে যুব কল্যাণ তহবিল উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে বলেই আমরা আশা করছি।

এই সংবাদটি 1,001 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com