শনিবার, ১৫ জুন ২০১৯ ০৩:০৬ ঘণ্টা

দুঃখ-ভালবাসার জমিয়তের শতবর্ষপূর্তিতে একজন আমার অনুভূতি

Share Button

দুঃখ-ভালবাসার জমিয়তের শতবর্ষপূর্তিতে একজন আমার অনুভূতি

হাসিবুর রহমান খান,গফরগাঁও,ময়মনসিংহ থেকে: জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম শতবর্ষে পদার্পণ করল চলতি বছরে। ১৯১৯ সনে ভারতীয় উপমহাদেশে ইসলামী রাজনৈতিক দল হিসাবে অাত্মপ্রকাশকারী এই প্রতিষ্ঠানটির প্রতি রইলো অনেক অনেক শুভকামনা এবং যাদের শ্রম,ত্যাগ ও অাত্মনিবেদনে শতবর্ষ ধরে সংগঠনটি সগৌরবে সঞ্চালিত হয়ে অাসছে তাদের দুনিয়া – অাখিরাতের কল্যাণ কামনা করে লেখাটি শুরু করছি।
জন্মলগ্ন থেকে এই জমিয়তের সাথে পরিচিত অামি। অগাধ ভালবাসাও রয়েছে জমিয়ত ও জমিয়তের নেতা-কর্মীদের প্রতি। কিন্তু অাজ পর্যন্ত জমিয়তের সদস্য হতে পারিনি অামি। হয়ত এটা অামার অযোগ্যতা, অামার ব্যর্থতা। জমিয়তের সাধারন একজন সদস্য হওয়ার প্রবল ইচ্ছে থাকার পরও হতে পারিনি সদস্য। অামি অামার উপজেলায় বস্তুত জমিয়তের কোন ধরনের দৃশ্যমান রাজনৈতিক কার্যক্রম পরিচালিত হতে দেখি নাই। তাই কার কাছে যাবো,কার সাথে যোগাযোগ করলে জমিয়তের সদস্য হতে পারবো, তা সত্যিই এক গোলকধাঁধা অামার কাছে। শতবর্ষ পরেও যদি কোন সংগঠনের সাংগঠিক তৎপরতায় এতটুকু নির্লিপ্ততা থাকে, তাহলে বর্তমান দায়িত্বপ্রাপ্তদের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ হতেই পারে এক্ষেত্রে। মনে রাখতে হবে, জমিয়ত বর্তমান নেতৃত্বের কাছে পূর্বসূরিদের এক অামানত।

যদিও অামি জমিয়তের সদস্য না, জমিয়তের সাথে রাজনৈতিকভাবে সম্পৃক্ত না, তবুও জমিয়তকে ভালবাসার অধিকার অামার রয়েছে। অামি যদিও জমিয়তের কেউ না, তবুও জমিয়ত অামার। তাই ভালবাসার জমিয়তের কোন ব্যর্থতা অামার দৃষ্টিগোচর হলে ব্যথিত হই,যেমন অানন্দিত হই জমিয়তের সাফল্যে। ব্যথা অার ভালবাসার স্থান থেকেই অাজ জমিয়তকে মূল্যায়ন করতে চাই অামি অামার মত করে। কেউ যদি এতে মর্মাহত হন, তাহলে মাফ চেয়ে নিচ্ছি শুরুতেই। অাশাকরি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন অামার এই ধৃষ্টতাটুকু।

#জমিয়তের ব্যর্থতা: অামার দৃষ্টিতে জমিয়তের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা হলো- বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষ জমিয়তকে রাজনৈতিক দল হিসাবে চিনেনা। ২০০৮ সনের খেজুরগাছ প্রতীকে অামার এক শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তি নির্বাচনে অংশ নিলে,নির্বাচন কেন্দ্রিক প্রচারণায় ভোটারদের কাছে গিয়েছি। সেই অভিজ্ঞতার অালোকে বলতে হচ্ছে ৯৯% ভোটার জমিয়তকে চিনে না। তারা জামাত অার জমিয়তকে এক ভেবেছে। মুষ্টিমেয় মাদরাসা পড়ুয়া ব্যতীত জনসাধারণ ও ভোটাররা জমিয়ত বিষয়ে কোন জ্ঞান রাখে না। এ বিষয়টাই জমিয়তের সব থেকে বড় ব্যর্থতা। ২২ মার্চ ১৯৭১ সনে বাংলাদেশে জমিয়ত রাজনৈতিক দল হিসাবে প্রতিষ্ঠা হলেও, রাজনৈতিক দল হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে না পারাটা জমিয়তের চরম ব্যর্থতা বলেই অামি মনে করি।

#সার্বজনীন হতে না পারা: এই দেশের ৯০% ভোটারই মাদরাসা শিক্ষিত নয়। স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়ারাই সর্বাধিক সংখ্যক ভোটার। জমিয়ত বিগত দিন গুলোতে এই ভোটারদের কাছে যেতে ব্যর্থ হয়েছে। শুধুমাত্র মাদরাসা পড়ুয়াদের উপর নির্ভর করে রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালিত করা একটি অাত্মঘাতী রাজনৈতিক কৌশল বৈ কিছু নয়। সফল হতে হলে অবশ্যই মাদরাসা শিক্ষিতদের পাশাপাশি স্কুল-কলেক-বিশ্ববিদ্যালয়-কৃষক-শ্রমিক-পেশাজীবীদের কাছে যেতে হবে জমিয়তকে।

#ধারাবাহিকভাবে নির্বাচনে অংশ না নেয়া:
জোটবদ্ধ নির্বাচন করার কারণে তেমন ভাবে জমিয়ত পাদপ্রদীপের অালোতে অাসতে পারেনি। তাই স্থানীয় নির্বাচনগুলোতে(ইউনিয়ন পরিষদ,উপজেলা পরিষদ,পৌরসভা,সিটি কর্পোরেশান) অংশ নিয়ে জনগণের মাঝে পরিচিত হতে হবে। কিন্তু জমিয়তের এসব নির্বাচন কেন্দ্রিক তেমন কোন তৎপরতা দেখা যায় না।

তৃণমূলে সাংগঠনিক তৎপরতার অভাব:
শুধু কেন্দ্রীয় কমিটি,জেলা কমিটি কোন দলকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করতে পারেনা। যে দলের তৃণমূল যত শক্তিশালী, সে দলের ভিত্তি তত মজবুত। জমিয়তের দেশব্যাপী তৃণমূলে গণসম্পৃক্ততা নেই। তৃণমূল শক্তিশালী না করতে পারাটা জমিয়তের একটি ব্যর্থতা।

সফলতা:
একটি রাজনৈতিক দলের প্রধান লক্ষ হল জনকল্যাণ করা। জমিয়ত রাষ্ট্র কল্যাণ ও জনকল্যাণে ব্যাপক অবদান রেখেছে প্রতিষ্ঠার পর থেকেই। বৃটিশবিরোধী অান্দোলনে অবিস্মরণীয় অবদন রেখেছে জমিয়ত। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে অবদান রাখার জন্য তৎকালীন জমিয়ত সভাপতি পেয়েছিলেন -‘বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা মৈত্রী সম্মাননা। তাছাড়া টিপাইমুখ বাঁধ কেন্দ্রীক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (র:) এর নেতৃত্বে লংমার্চ জমিয়তের উল্লেখযোগ্য রাষ্ট্র কল্যাণমূলক পদক্ষেপ।

উত্তরণের পথ: এক্ষেত্রে জমিয়ত সিলেট বিভাগের জমিয়তের সাংগঠনিক কার্যক্রমকে অনুকরণ করতে পারে। সারাদেশের মধ্যে সিলেটেই জমিয়ত সবচেয়ে শক্তিশালী। তাদের বিভাগীয়,জেলা ও তৃণমূলে মেলবন্ধন চমৎকার। এর সুফলও ‘সিলেট জমিয়ত’ পাচ্ছে হাতে নাতে।
এককভাবে সংসদীয় নির্বাচন করার সামর্থ্য তাদের হয়েছে বহু অাগেই। সাম্প্রতিক ‘সিলেট জমিয়ত’ ইউপি, উপজেলা,সিটি কর্পোরেশান নির্বাচনে অংশ নিয়েও সফল হচ্ছে। কেন্দ্রীয় জমিয়ত সিলেটের অনুকরণে দেশব্যাপী কার্যক্রম পরিচালনা করলে সফল হবে অাশাকরি।

পরিশেষে অাবারো জমিয়তের সাফল্য কামনা করছি। দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে জমিয়তকে অন্যতম দল হিসাবে প্রতিষ্ঠার অান্দোলন বেগবান হোক। লন্ডনে অায়োজিত শতবর্ষ উৎযাপন অনুষ্ঠান সফল হোক। সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ুক এক দূর্বার জমিয়ত।

এই সংবাদটি 1,025 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com