রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯ ০৫:০৬ ঘণ্টা

‘কানাইঘাটের স্মরণীয় বরণীয় যাঁরা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

Share Button

‘কানাইঘাটের স্মরণীয় বরণীয় যাঁরা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

সিলেট রিপোর্ট:

সাবেক সচিব ও রাষ্ট্রদূত কবি মোফাজ্জল করিম বলেছেন, নানা বৈচিত্রের মধ্যে সৃষ্টিকর্তা মানুষকে প্রেরণ করেছেন। পৃথিবীর কথা ভাবার সাথে সাথে নিজের কথাও ভাবতে হবে। নিজে কি করছি তা নিয়ে নিজের বিবেকের সাথে চিন্তা করতে হবে। অনেক মানুষ আছে যারা তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত থাকে। আমাদের সবাইকে জাতি, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের বিপদে-সংকটে পরস্পরের পাশে দাঁড়াতে হবে। সকলকে মানুষ হিসেবে একে অন্যের প্রতি ভালোবাসা সৃষ্টি করতে হবে। মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সেবার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে । তাতে করে একটি সমাজ ও দেশের পরিবর্তন সম্ভব, কল্যাণময় সমাজ গঠন সম্ভব।


পান্ডুলিপি প্রকাশন সিলেট প্রকাশিত বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, লেখক ও গবেষক মুহাম্মদ আব্দুর রহীমের তৃতীয় গ্রন্থ ‘কানাইঘাটের স্মরণীয় বরণীয় যাঁরা’ এর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।


শনিবার সিলেট কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাহিত্য সভা কক্ষে প্রকাশনার অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, সমাজসেবী ও সংগঠক কবি সরওয়ার ফারুকী। অনুষ্ঠানে লেখক অনুভূতি ব্যক্ত করেন ‘কানাইঘাটের স্মরণীয় বনণীয় যাঁরা’ গ্রন্থের লেখক মুহাম্মদ আব্দুর রহীম।


পান্ডুলিপি প্রকাশনের প্রকাশক লেখক বায়েজীদ মাহমুদ ফয়সলের সভাপতিত্বে এবং কবি মোশাররফ হোসেন সুজাত ও শাহজান শাহেদের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, মদন মোহন কলেজের সাবেক প্রিন্সিপাল রোটারিয়ান লে.কর্নেল (অব.) এম.আতাউর রহমান পীর, সিলেট প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি মুকতাবিস-উন-নূর, শিক্ষাবিদ কবি ও ঔপন্যাসিক লে.কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ, সিলেট প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি এম.এ হান্নান, কবি ডা. এম.এ জলিল চৌধুরী, লেখক ও গবেষক বেলাল আহমদ চৌধুরী, সিলেট ছাত্র যুব কল্যাণ ফেডারেশনের সভাপতি এইচ.এম.আব্দুর রহমান, ফ্রান্স বাংলা প্রেস ক্লাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট দেলওয়ার হোসেন সেলিম। নাঈমুল ইসলাম গুলজারের পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক শাহজাহান সেলিম বুলবুল, তরুণ সংগঠক তারেক হাসান চৌধুরী, সংগঠক ও সমাজসেবী আব্দুল গফুর, সংগঠক আব্দুল্লাহ আল ফারুক, সাংবাদিক তওহীদুল ইসলাম, কবি সংগঠক আলমগীর চৌধুরী, সমাজকর্মী ও সংগঠক শিপলু আমীন চৌধুরী। এছাড়াও অনুষ্ঠানে কানাইঘাটের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।


প্রধান অতিথির বক্তব্যে কবি মোফাজ্জল করিম আরো বলেন, মুহাম্মদ আব্দুর রহীমের গ্রন্থের মধ্যেমে কানাইঘাটের ইতিহাস ঐতিহ্যের কথা নতুন প্রজন্ম জানতে পারবে। যারা দেশের জন্য এবং মানুষের জন্য কাজ করেছেন শহীদ হয়েছেন সেইসব মহান ব্যক্তিদের কথা জানতে পারবেন। মুহাম্মদ আব্দুর রহীম তার এ গ্রন্থের মাধ্যমে কানাইঘাটবাসীর জন্য অতুলনীয় অবদান রাখতে সক্ষম হয়েছেন। যারা এখন দেশের জন্য এবং মানুষের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তাদের কথাও নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে। তাদেরকে উৎসাহ জোগাতে হবে।


রোটারিয়ান লে.কর্নেল (অব.) এম.আতাউর রহমান পীর বলেন, কানাইঘাট হচ্ছে সমৃদ্ধ অঞ্চল। কানাইঘাটের অনেক বরণ্য মানুষ রয়েছেন যারা দেশের জন্য ত্যাগ স্বীকার করে গেছেন। তাদেরকে সকলের মাধ্যে তুলে ধরা উচিত। নতুন প্রজন্ম এবং আগামী প্রজন্মকে সমৃদ্ধ ইতিহাস জানাতে হবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মুকতাবিস-উন-নূর বলেন, নতুন প্রজন্ম হচ্ছে আমাদের দেশের সম্পদ। তাদেরকে ইতিহাস এবং ঐতিহ্যের কথা জানানো উচিত। যার ফলে তারা উৎসাহ নিয়ে আগামী দিনের সমৃদ্ধির লক্ষ্যে অগ্রসর হবে। মুহাম্মদ আব্দুর রহীমের এই গ্রন্থের মতো এ ধরনের প্রচেষ্টার মাধ্যমে ইতিহাস ধরে রাখা সম্ভব।
লে.কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ বলেন, নতুন প্রজন্মকে আরো জানাতে হলে দেশ বরণ্য মানুষকে তাদের সামনে তুলে ধরতে হবে। সিলেট অঞ্চলের প্রত্যেক জায়গায় যারা দেশ এবং মানুষের মাঝে অতুলনীয় কাজ করে গেছেন বা করে যাচ্ছেন তাদের কথা তুলে ধরতে হবে। তাতে করে ইতিহাসের প্রতি এবং বর্তমানে যারা সমাজ ও দেশের প্রতি কাজ করে যাচ্ছেন তাদের দেখে নতুন প্রজন্মের ভেতর উৎসাহ উদ্দিপনা জাগ্রত হবে।
লেখক অনুভূতি ব্যক্ত করে মুহাম্মদ আবদুর রহীম বলেন, আমাদের সবাইকে ইতিহাস সচেতন হতে হবে। এজন্যে প্রত্যেককে নিজেদের অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে।

এই সংবাদটি 1,009 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com