সোমবার, ২৪ জুন ২০১৯ ০৬:০৬ ঘণ্টা

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও কাতারের আমীরকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ দিলেন মুরসীর ছেলে

Share Button

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও কাতারের আমীরকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ দিলেন মুরসীর ছেলে

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান কাতারের আমীর তামিম বিন হামাদ আলে ছানীকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানিয়েছেন সম্প্রতি কারাগারে ইন্তেকাল করা মিসরের সাবেক প্রেসিডেন্ট মুহাম্মাদ মুরসীর ছেলে আবদুল্লাহ বিন মুরসী।

আলজাজিরাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে আবদুল্লাহ বিন মুরসী বলেন, তার বাবাকে যারা সমর্থন দিয়েছেন বিশেষ করে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান কাতারের আমীর তামিম বিন হামাদ আলে ছানীকে বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ। এছাড়াও তিনি কাতারের সাবেক আমীর শেখ খলীফা বিন হামাদ আলে ছানী ও মালয়েশিয়ার সরকারপ্রধান মাহাথিরকেও ধন্যবাদ।

তিনি দুঃখের সঙ্গে জানান, তার বাবার মৃত্যুর জন্য নিজ দেশ মিসরে শোক পালন করতে দেয়নি দেশটির সরকার। কিন্তু প্রিয় ফিলিস্তিনি জনগণ আল কুদসে প্রয়াত ওই নেতার জন্য পবিত্র আল আকসা মসজিদে গায়েবী জানাজা দেন।

আবদুল্লাহ বলেন বিশ্বের লাখো মানুষ আমার বাবার জন্য দোয়া করেছেন। আমি এ জন্য সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

গত ১৭ জুন আদালতে শুনানি চলাকালে বন্দী অবস্থায় ইন্তেকাল করেন মিশরের সাবেক প্রেসিডেন্ট শহীদ মুহাম্মাদ মুরসী। তিনি ছিলেন মিশরের প্রথম নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট।

আরব বসন্তের গণআন্দোলনে বাধ্য হয়ে স্বৈরশাসক হুসনী মোবারক ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর নির্বাচনের মাধ্যমে মুসলিম ব্রাদারহুড নেতা মুহাম্মাদ মুরসী ক্ষমতায় আসেন।

কিন্তু ক্ষমতা গ্রহণের মাত্র এক বছরের মাথায় প্রতিরক্ষামন্ত্রী সেনাপ্রধান আবদুল ফাত্তাহ আল সিসির রক্তক্ষয়ী সেনা অভ্যুত্থানে মুরসীকে ক্ষমতা থেকে সরে যেতে হয়। অবৈধভাবে ক্ষমতার দখল নেন আল সিসি। বন্দী করা হয় মুরসীকে।

মুরসীকে অবৈধভাবে ক্ষমতাচ্যুত করার ঘটনায় মিশরজুড়ে জনগণ ক্ষিপ্ত হয়ে মাঠে নেমে আসে। আল সিসি’র অধীনস্থ সেনাবাহিনী নির্মম ও বর্বর কায়দায় দমন করে মুরসীর হাজার হাজার সমর্থকদের।

ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর থেকেই মুরসী ছিলেন সিসির কারাগারে বন্দী। তার বিরুদ্ধে আনা হয় একেকের পর এক সাজানো অভিযোগ। দেয়া হয় দণ্ড।

সর্বশেষ গত ১৭ জুন ছিল একটি মামলার শুনানি। আদালতের বিশেষ ধরণের এক খাঁচার ভিতরে মুরসীকে রেখে আদালতের কার্যক্রম চলছিল। এসময় বিচারকের অনুমতি নিয়ে মুরসী বক্তব্য রাখেন। তার বক্তব্য শেষ হওয়ার আগেই আদালত বিরতি দেয়। এই বিরতির মধ্যেই অসুস্থ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন মুহাম্মাদ মুরসী। প্রায় ২০ মিনিট আদালতের সেই বিশেষ খাঁচায় অসুস্থ অবস্থায় পরে ছিলেন তিনি। তার আইনজীবীরা উপস্থিত কর্মকর্তাদের কাছে মুরসীর সাহায্যের জন্য আবেদন করেন। কিন্তু দীর্ঘ সময় মাটিতে পরে থাকলেও তাকে কোনরকম সাহায্য করেনি সিসি’র অনুগত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

অসুস্থ হয়ে পরে যাওয়ার পরেও চিকিৎসা না দিয়ে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়ায় এই ঘটনাকে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ও বিশ্লেষকরা ‘হত্যাকাণ্ড’ বলেই অবহিত করেছেন।

এই সংবাদটি 1,308 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com