মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯ ১২:০৬ ঘণ্টা

বাগেরহাটে নয়, না ফেরার দেশে গেলেন দুই বান্ধবী!

Share Button

বাগেরহাটে নয়, না ফেরার দেশে গেলেন দুই বান্ধবী!

ডেস্করিপোর্ট:
বাগেরহাট যাওয়ার অনেক দিনের শখ ছিল ফাহমিদার। সুন্দরবন, ষাটগম্বুজ মসজিদ আর খানজাহানের সমাধির কথা অনেক শুনেছেন তিনি। কিন্তু স্বচক্ষে দেখা হয়নি কোনদিন। এ নিয়ে বাগেরহাটের বাসিন্দা সহপাঠী সানজিদাকে প্রায়ই বেড়াতে যাওয়ার কথা বলতেন ফাহমিদা। বান্ধবীর আগ্রহ দেখে ঈদের পর বাগেরহাট বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলেন সানজিদা।

পরিকল্পনা অনুযায়ী গেল রবিবার রাতে সিলেট থেকে উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনে রওয়ানা হন দুই বান্ধবী। সিলেট থেকে ঢাকা, এরপর ঢাকা থেকে বাগেরহাট যাওয়ার কথা ছিল তাদের। কিন্তু একসাথে বাগেরহাট ঘুরে দেখা হয়নি দুই বান্ধবী ফাহমিদা ও সানজিদার। মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার বরমচালে রবিবার রাতে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনায় না ফেরার দেশে পাড়ি জমান দুই বান্ধবী। তাদের মৃত্যুর সংবাদে সিলেট নার্সিং কলেজে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

নিহত সানজিদা আক্তার ও ফাহমিদা ইয়াসমিন ইভা দু’জনই সিলেট নার্সিং কলেজের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী। ২০১৭ সালে তারা ভর্তি হয়েছিলেন সিলেট নার্সিং কলেজে। আর একবছর পড়ালেখার পর তারা ছয়মাসের ইন্টার্নি করে নার্স পেশায় নিজেদেরকে নিয়োজিত করার কথা ছিল। কিন্তু মর্মান্তিক ট্রেন দুর্ঘটনা তাদের সেই স্বপ্ন কেড়ে নিয়েছে।

সানজিদা বাগেরহাট জেলার মোল্লাহাট থানার ভানদরখোলা গ্রামের মো. আকরাম মোল্লার মেয়ে এবং ফাহমিদা ইয়াসমিন ইভা সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার জালালপুরের আব্দুল্লাহপুর গ্রামের আব্দুল বারীর মেয়ে।

বাংলাদেশ নার্সেস এসোসিয়েশন সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক ইসরাইল আলী সাদেক সিলেটভিউকে জানান, সানজিদার সাথে বাগেরহাট বেড়াতে যাচ্ছিল ফাহমিদা। নার্সিং কলেজের এ দুই ছাত্রী পড়ালেখায়ও বেশ মেধাবী ছিল। ট্রেন দুর্ঘটনায় তারা নিহত হওয়ার খবর পাওয়ার পর সিলেট নার্সিং কলেজ, নার্সিং এসোসিয়েশন ও ফাহমিদার পরিবারের সদস্যরা কুলাউড়ায় ছুটে যান।

তিনি আরও জানান, ফাহমিদার পরিবারের সদস্যরা তার মরদেহ গ্রামের বাড়ি দক্ষিণ সুরমার জালালপুরে নিয়ে যান। অন্যদিকে সানজিদার মরদেহ বিকেল ৩টার দিকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। এরপর মরদেহ নেয়া হয় তার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সিলেট নার্সিং কলেজে। সেখানে তার মরদেহ দেখে সহপাঠী ও শিক্ষকরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। পরে সেখানে জানাজার নামাজ শেখে সানজিদার মরদেহ ওসমানী হাসপাতালের মরচ্যুয়ারিতে রাখা হয়।

এই সংবাদটি 1,345 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com