বুধবার, ০৩ জুলা ২০১৯ ০১:০৭ ঘণ্টা

দাওরায়ে হাদীসে সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ মাদরাসা আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর

Share Button

দাওরায়ে হাদীসে সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ মাদরাসা আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর

রুহুল আমীন নগরী,সিলেট রিপোর্ট: কওমি মাদরাসা সমুহের সম্মিলিত বোর্ড আল হাইআতুল উলয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের অধীনে অনুষ্ঠিত দাওরায়ে হাদীসের ৩য় কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে আজ ৩ জুলাই বুধবার সকাল ১১টায় । পুরুষদের মধ্যে মেধা তালিকায় ২ য় স্থান লাভ করেছেন হাসান আল মাহমুদ (নাহিয়ান) জামেয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর,বিয়ানীবাজার, সিলেট। ফলাফলে দেখা যায় , ২ য় (ক) ১০৯৩৩ হাসান আল মাহমুদ (নাহিয়ান) জামেয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর, আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর, বিয়ানী বাজার, সিলেট ৯৩০।
সম্মিলিত মেধাতালিকায় ২য় স্থান লাভ করায় আমরা সিলেট রিপোর্ট ডটকম এর পক্ষ থেকে নাহিয়ানকে আন্তরিক মোবারকবাদ জানাচ্ছি। একই সাথে জামিয়া কর্তৃপক্ষের প্রতি ও আমাদের অভিনন্দন। আমরা এই সাফল্যের ধারাবাহিকতা কামনা করছি। জামিয়ার আঙ্গুরার শিক্ষক মাওলানা ফরহাদ আহমদ সিলেট রিপোর্টকে জানান, নাহিয়ানের পিতার নাম হাফিজ আবুল কালাম। সিলেট নগরীর পূর্ব শাহি ঈদগাহ তাদের বাসা। স্থায়ী ঠিকানা: ইনামতি, ব্রাক্ষ্মণগ্রাম, জকিগঞ্জ, সিলেট। নাহিয়ান ভাইবোনের মধ্যে ৩য়। লেখাপড়া মুতাওয়াসসিতা ২য় থেকে দাওরাহ পর্যন্ত জামিয়া আঙ্গুরায়। বর্তমানে চলতি বছর সিলেট নগরীর দারুল হুদার মুহাদ্দিস হিসেবে কর্মরত পাশাপাশি জামেয়াতুশ শারইয়ায় ইফতা বিভাগে অধ্যয়নরত। এর আগে মিশকাত জামাতে আযাদ দ্বীনী এদারা বোর্ডে ১ম স্থান অধিকার করেন নাহিয়ান।

সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

নাম: জামিয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর, বিয়ানীবাজার, সিলেট, বাংলাদেশ।

নামকরণ: শায়খুল ইসলাম সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী রাহ. এর অন্যতম খলীফা আঙ্গুরা নিবাসী শায়খ তাজাম্মুল আলী রাহ. প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে একদা স্বপ্নে দেখলেন যে, এ মাদরাসাটির নাম রাখা হবে জামিয়া মাদানিয়া। তারই এ স্বপ্নের ভিত্তিতে মাদরাসাটির নামকরণ করা হয় জামিয়া মাদানিয়া।

অবস্থান: বাংলাদেশের আধ্যাত্মিক রাজধানী সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার কুড়ারবাজার ইউনিয়নের আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর গ্রামে কুশিয়ারা নদীর দক্ষিণ তীরে জামিয়ার অবস্থান।

প্রতিষ্ঠাকাল: ১৯৬১ সালের ১৫ই এপ্রিল মুতাবিক ১৩৮১ হিজরির ১৭ই সফর, মঙ্গলবার।

প্রতিষ্ঠাতা: ঐতিহ্যবাহী এ জামিয়ার প্রধান প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন বিয়ানীবাজার উপজেলার গোবিন্দশ্রী গ্রামের বরেণ্য শিক্ষাবিদ মাওলানা শায়খ শিহাবুদ্দীন রাহ.। তার সাথে ছিলেন আরো কয়েকজন জানবাজ মর্দে মুজাহিদ। তাঁরা হলেন—— মাওলানা মুসদ্দর আলী রাহ. আকাখাজানা, মাওলানা খলিলুর রাহমান রাহ. পাতন, মাওলানা মুকাদ্দাস আলী রাহ. আকাখাজানা, মাওলানা শায়খ আব্দুল হাই রাহ. মাথিউরা, মাওলানা আব্দুল ওয়াহহাব দা. বা. , দেউলগ্রাম, জনাব ক্বারী যহুরুল হক রাহ. আঙ্গারজুর, মাওলানা মুসলিম উদ্দিন রাহ. রানাপিং, মাওলানা বশির উদ্দিন রাহ. আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর, মাওলানা নিমার আলী রাহ. শালেশ্বর ও মাষ্টার আরজুমন্দ আলী রাহ.আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর।

বর্তমান মুহতামিম: মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দিন।

শিক্ষকসংখ্যা: ৩৩ জন।

ছাত্রসংখ্যা: প্রায় ৯০০ জন।

কর্মচারী সংখ্যা: ০৮ জন।

আবাসিক ছাত্রসংখ্যা: প্রায় ৬০০ জন।

ফুযালা সংখ্যা: প্রায় ১২০০ জন।

হুফ্ফায সংখ্যা: প্রায় ৪০০ জন।

পরিচালনা পরিষদ: মজলিসে শূরা, মজলিসে আমেলা ও মজলিসে আম।

ভূমির পরিমাণ: প্রায় ৪ একর।

সিলেবাস: দারসে নেযামী (যুগোপযোগী পরিমার্জন ও সংযোজনসহ)।

শিক্ষাবোর্ড: আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তালীম বাংলাদেশ ও তানযীমুল মাদারিস সিলেট বিভাগ।

পাঠদানের সূচনা: ১৩৮১ হিজরির সফর মাস থেকে জামিয়ার শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। শুরুতেই প্রথম শ্রেণি থেকে ফযিলত (স্নাতক) ক্লাস পর্যন্ত সবক চলতে থাকে। ১৪০৫ হিজরির শাওয়াল মাসে ইসলামী শিক্ষার সর্বোচ্চ স্তর তাকমীল ফিল-হাদীস (টাইটেল) ক্লাস খোলা হয়। আল্লাহর অশেষ রহমতে অদ্যাবধি এখানে হাদীসের দারস চালু রয়েছে।

অবকাঠামো: জামিয়ার প্রাতিষ্ঠানিক ভবন পৃথক দুটি বিশাল এলাকা নিয়ে প্রতিষ্ঠিত। কুশিয়ারা নদীর দক্ষিণ তীর ঘেঁষে প্রায় এক একর জমি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে একাডেমিক ভবন। শিক্ষা বিভাগীয় সকল কার্যক্রম এখানেই পরিচালিত হয়। আধ-মাইল দক্ষিণে প্রায় তিন একর জমি নিয়ে প্রতিষ্ঠিত জামিয়ার বিশাল ছাত্রাবাস। আবাসিক ছাত্ররা এখানে অবস্থান করে।

জমিদাতাঃ

মাদরাসার পুরাতন ভবনের জমিদাতা: মরহুম আলহাজ আব্দুল কাদির কটু মিয়া, আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর।

মাদরাসার নতুন ভবনের জমিদাতাঃ যথাক্রমে:-

* মরহুম আলহাজ শফিক উদ্দিন, আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর। (জমির বৃহৎ পরিমাণ অংশ দাতা)

* মরহুম আলহাজ মুশাহিদ আলী সাহেবের পরিবারবর্গ, গোবিন্দশ্রী।

* মরহুম আলহাজ মুঈনুদ্দীন গং, আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর (উত্তর-পূর্বপার)।

* মরহুম আলহাজ অজিহ উদ্দিন গং, আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর।

জামিয়া যেসব গ্রাম নিয়ে প্রতিষ্ঠিত: আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর, গোবিন্দশ্রী, আকাখাজানা, আঙ্গুরা, লাউঝারী, শালেশ্বর, উত্তর আকাখাজানা, ফুলমলিক-ঘাগুয়া।

একাডেমিক তথ্য: জামিয়ার শিক্ষাবিভাগ তিন স্তরে বিভক্ত। ১.কিতাব বিভাগ ২.হিফয বিভাগ ৩.এ.সি.ই একাডেমী (শিশুশিক্ষা বিভাগ)।

কিতাব বিভাগ: কিতাব বিভাগের পাঁচটি মারহালা বা স্তর: ১.ইবতিদাইয়্যাহ (প্রাথমিক) ২.মুতাওয়াসসিতা (মাধ্যমিক) ৩.সানাবিয়্যা (উচ্চ মাধ্যমিক) ৪.ফযিলত (স্নাতক) ৫.তাকমীল (মাস্টার্স)। পাঁচ মারহালায় মোট ১২টি ক্লাস রয়েছে। এসব ক্লাসে তাফসীর, উলূমুল-কুরআন, হাদীস, উসূলুল-হাদীস, ফিক্বহ, উসূলুল-ফিক্বহ, আক্বাইদ, সিরাত, ফারাইজ, ইতিহাস, ইসলামী অর্থনীতি,আরাবী সাহিত্য, বালাগাত, আরাবী ব্যাকরণ নাহু- সারফ, যুক্তিবিদ্যা, বাংলা, ইংরেজি, ভূগোল, গণিত ইত্যাদি শাস্ত্র পড়ানো হয়।

হিফয বিভাগ: হিফয বিভাগে নিতান্ত স্বল্পসময়ে হুফফাজুল কুরআনের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত অভিজ্ঞ হাফেয সাহেবান দ্বারা কুরআনে কারীমের হিফয করানো হয়।

এ.সি.ই একাডেমী: এ.সি.ই একাডেমী হচ্ছে শিশুশিক্ষা বিভাগ। এই বিভাগে তিনবছর মেয়াদী কোর্সে কোমলমতি শিশুদেরকে ইসলামের বুনিয়াদী শিক্ষা দেয়া হয়। পাশাপাশি বাংলা, গণিত, ইংরেজিসহ সাধারণ শিক্ষার প্রাথমিক স্তরও পড়ানো হয়।

প্রাতিষ্ঠানিক অবকাঠামো: প্রাতিষ্ঠানিক প্রশাসনকে প্রধানত পাঁচটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে।

১.ইহতেমাম বিভাগ ২.শিক্ষা বিভাগ ৩.বোর্ডিং বিভাগ ৪.কুতুবখানা বিভাগ ৫. ইমারত বিভাগ।

সহযোগী বিভাগসমূহ: মূল ৫টি বিভাগের সহযোগী হিসেবে আছে আরো ৭টি বিভাগ। ১.ফাতওয়া বিভাগ ২.প্রকাশনা বিভাগ ৩.কম্পিউটার প্রশিক্ষণ বিভাগ ৪.আরবী ভাষা ও সাহিত্য প্রশিক্ষণ বিভাগ ৫.বাংলা ভাষা ও সাহিত্য প্রশিক্ষণ বিভাগ ৬.তথ্য ও গবেষণা বিভাগ ৭.বক্তৃতা প্রশিক্ষণ বিভাগ ।

সহযোগী তানযীম: জামিয়ার কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে আঞ্জাম দিতে রয়েছে ৬টি সহযোগী সংগঠন। ১.আশ-শিহাব পরিষদ ২.আল-হিলাল ছাত্র সংসদ ৩.চেতনা সাহিত্য পরিষদ ৪.আশ-শিহাব পরিষদ ইউকে ৫.ইক্বরা ফাউন্ডেশন ইউকে ৬.ইক্বরা ফাউন্ডেশন ইউএসএ।

আয়ের উৎস: মৌসুমী চাঁদা, ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের মুক্তহস্তে দান, যাকাত, সাদাক্বা, ফিতরা, নিয়মিত দাতাসদস্যদের এককালীন চাঁদা, ছাত্রদের বিভিন্ন ফি, উৎপন্ন ফসল বিক্রি বাবত আয় ইত্যাদি।

ব্যয়ের খাত: জামিয়ার ব্যয়খ্যাত মোট পাঁচটি: ১.জেনারেল ফান্ড ২.ইমদাদ (গরীব ও এতিমখানা) ফান্ড ৩.বিল্ডিং ফান্ড ৪.মসজিদ ফান্ড ৫.কুতুবখানা ফান্ড। পাঁচ ফান্ডে বার্ষিক খরচ প্রায় দুই কোটি টাকা।

আক্বীদা: আহলুসসুন্নাত ওয়াল জামাআত এর অনুসারী।

মাসলাক: চিন্তা-চেতনায় জামিয়া দারুল উলূম দেওবন্দের আদর্শে বিশ্বাসী।শাহ ওয়ালিউল্লাহর বিপ্লবী চেতনা এবং মুজাদ্দিদে আলফেসানীর সমাজসংস্কারের প্রেরণা লালন করে জামিয়া। সবধরনের বিদআত এবং কুসংস্কারের বিরুদ্ধে জামিয়ার ভূমিকা। পীরপূজা, কবরপূজাসহ সকল প্রকার শিরক বিদআতের শেকড় উপড়াতে জামিয়া বদ্ধপরিকর।

মাশরাব: আত্মশুদ্ধির ক্ষেত্রে জামিয়া তাসাউফচর্চায় বিশ্বাসী। চিশতিয়া, সাবেরিয়া, সোহরাওয়ার্দিয়া এবং নক্বশবন্দিয়া এই চার তরীক্বায় সুলূকের মেহনত করে থাকে জামিয়া।

মাযহাব: জামিয়া সাধারণ মুসলমানদের জন্যে নির্দিষ্ট এক ইমামের অনুসরণ ওয়াজিব মনে করে। এক্ষেত্রে জামিয়া হানাফী মাযহাবের অনুসারী। তবে অন্যান্য সকল ইমামকে যথাযথ সম্মান ও শ্রদ্ধা করে এবং মাযহাব বিরোধীদের ভূমিকাকে অপসন্দ করে।

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য: ● আল্লাহ তায়ালার সন্তষ্টি অর্জন। ● সাহাবায়ে কেরাম, আইম্মায়ে মুজতাহিদীন, আকাবিরে দ্বীন ও সালাফে সালিহীনের গবেষণালব্ধ জ্ঞানের আলোকে কুরআন-হাদীসের সঠিক শিক্ষা দান। ● একদল যোগ্য ওরাসাতে আম্বিয়া তৈরি। ● পড়ালেখার পাশাপাশি ছাত্রদেরকে বক্তৃতা লিখনিসহ যুগচাহিদার উপযোগী করে গড়ে তোলা।● ইলমের সাথে আমলের সমন্বয় সাধন। প্রত্যেক ছাত্রকে আলিমে বা-আমল হিসেবে গড়ে তোলা। ● ইসলাম বিরোধী সকল অপশক্তি, ছদ্মবেশী তাবৎ বাতিলের শক্ত প্রতিরোধ। ● বিশুদ্ধ আক্বিদার প্রসার। শিরক-বিদআতের মূলোৎপাটন। সবধরনের গোমরাহী থেকে সমাজকে রক্ষা করা এবং কুসংস্কারমুক্ত ইসলামী সমাজ গড়ে তোলা।

বৈশিষ্ট্যঃ
● হিফযুল কুরআন বিভাগসহ শিশুশ্রেণি থেকে তাকমীল ফিল হাদীস পর্যন্ত শিক্ষাব্যবস্থা। ● হুফফাজুল কুরআনের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত অভিজ্ঞ হাফেয সাহেবানের তত্ত্বাবধানে নিতান্ত স্বল্পসময়ে কুরআনে কারীমের হিফয সমাপন। ● প্রশিক্ষিত শিক্ষকমণ্ডলী দ্বারা পরিচালিত প্রাণবন্ত কিন্টারগার্ডেন বিভাগ। ● ত্যাগী ও দক্ষ শিক্ষকদের নিরলস পাঠদান।● নৈতিক চরিত্র গঠনে প্রাতিষ্ঠানিক তারবিয়াতের পাশাপাশি তাবলীগের মেহনত। ● শিক্ষার্থীদের সৌহার্দপূর্ণ আন্তরিক পরিবেশ। ● শহুরে কোলাহলমুক্ত শান্ত মনোরম গ্রাম্য পরিবেশ। ● একাডেমিক ভবন থেকে পৃথক আবাসন ব্যবস্থা।● ঝামেলামুক্ত প্রশস্ত নিরিবিলি ছাত্রাবাস।● ছাত্রাবাসে সার্বক্ষণিক শিক্ষকদের নেগরানী। ● বাংলা ও আরবী ভাষা চর্চার অবারিত সুযোগ। ● অভিজ্ঞ শিক্ষক দ্বারা কম্পিউটার প্রশিক্ষণ। ● হস্তলিপি শিক্ষা। ● লেখালেখি, বক্তৃতা ও বিতর্কের নিয়মিত প্রশিক্ষণ। ●নিয়মিত বাংলা ও আরবী দেয়ালিকা প্রকাশ। ● নিয়মিত বার্ষিক ম্যাগাজিন আল-হিলালসহ বিভিন্ন উপলক্ষে বুলেটিন, সাময়িকী, স্মারকসহ গুরুত্বপূর্ণ প্রকাশনা।
পরিশিষ্ট: জামিয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর এক ঐতিহ্যবাহী দ্বীনী মারকায। দীর্ঘ প্রায় ছয় দশক ধরে মুসলিম উম্মাহর স্বার্থরক্ষায় জামিয়া বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। দ্বীনের এই দুর্ভেদ্য দুর্গকে টিকিয়ে রাখতে হলে প্রয়োজন আমাদের সকলের আন্তরিক দোয়া, সুপরামর্শ ও সার্বিক সহযোগিতা। আল্লাহ তায়ালা যেন আমাদের সকলকে দ্বীনের খেদমতের জন্য কবুল করেন।

এই সংবাদটি 1,690 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com