সিলেটে ইমামদের সামনে মেয়েদের নাচ-গান, বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিবাদ

প্রকাশিত: ১০:১০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৯, ২০১৬

সিলেটে ইমামদের সামনে মেয়েদের নাচ-গান, বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিবাদ

সিলেট রিপোর্ট:  সিলেট জেলা প্রশাসনের একটি অনুষ্ঠানে ইমাম ও আলেম সমাজের উপস্থিতিতে মেয়েদের নাচ-গান উপস্থাপন করায় জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। জাতীয় ইমাম সমিতিসহ বিভিন্ন সংগঠন  তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্তকরেছেন। পৃথক পৃথক বিবৃতিতে ইসলামী নেতারা আয়োজক কর্তৃপক্ষকে অবিলম্ভে তদন্ত সাপেক্ষে সুষ্টু সমাধানের  আহবান জানান। জাতীয় ইমাম সমিতি ও মাদানী কাফেলা বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দ ইমামদের সামনে এমন আচরণের তীব্র নিন্দা জানিয়ে প্রতিবাদ পাঠিয়েছেন। সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য বিবৃতি গুলো হুবহু তুলে ধরা হলো:
বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতি সিলেট মহানগরীর নেতৃবৃন্দ বলেছেন, সিলেট জেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত বাল্যবিবাহমুক্ত সিলেট ঘোষণা অনুষ্ঠানে সাবালিকা মেয়েদের নৃত্য প্রর্দশন তারপর পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত কুরআন অবমাননার নামান্তর। যেখানে কুরআন শরীফ তেলাওয়াত হয় সেখানে আল্লাহর রহমত বর্ষিত হয়, কিন্তু ইফা সিলেটের গণশিক্ষার শিক্ষক ও প্রশিক্ষণরত ইমামদের সামনে নাচ-গান প্রর্দশন কোনো ইসলাম বিদ্বেষী মহলের ষড়যন্ত্র বলে মনে করেন ইমাম নেতৃবৃন্দ।
বিবৃতিতে ইমাম নেতৃবৃন্দ বলেন, ইফার ডিজি  কর্তৃক ২০১০ সালে মার্কিন তরুণ-তরুণী দিয়ে ব্যালেড্যান্স এর পুনরাবৃত্তি হল বাংলাদেশের আধ্যাত্মিক রাজধানী খ্যাত পুণ্যভূমি সিলেটে। ইমামগণ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সাবালিকা মেয়েরা নেচে গেয়ে সরকারের উন্নয়ন ফিরিস্তি বর্ণনা করার একমাত্র মাধ্যম নয়। এটা না করে প্রজেক্টরের মাধ্যমে উন্নয়ন কার্যক্রমের বর্ণনা দেয়া সমিচিন। তারা মনে করেন, এরূপ নৃত্যের মাধ্যমে দেশে ইভটিজিং প্রবণতা বৃদ্ধি, নারী নির্যাতন, যুবক-যুবতীদের চরিত্রের অধঃপতন, আইন শৃংখলার অবনতি হচ্ছে। কলেজ ছাত্রী খাদিজার উপর হামলাকারী বদরুলদের দৌরাত্ম ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতিনিয়ত পত্রিকার পাতায় স্কুল কলেজে পড়–য়া মেয়েদের উপর নির্যাতনের ভয়াল চিত্র বেড়েই যাচ্ছে। ইমাম নেতারা আরো বলেন, কিছু দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গ স্কুল-কলেজে পড়–য়া মেয়েদের পোষাক-আশাকের ব্যাপারে লাগামহীন বক্তব্যের কারণে উঠতি বয়সের ছেলে-মেযেদের চলাফেরা সমাজকে ভাবিয়ে তুলেছে।
বিবৃতিদাতারা হচ্ছেন, সিলেট মহানগর ইমাম সমিতির সভাপতি মাওলানা হাবীব আহমদ শিহাব, সহ সভাপতি মাওলানা ওয়ারিস উদ্দীন, মাওলানা আহমদ হোসাইন , মাওলানা শফিকুর রহমান, মুফতি বুরহান উদ্দীন, ক্বারী মাওলানা মুখতার আহমদ, মাওলানা হিফজুর রহমান, সেক্রেটারী মাওলানা সিরাজুল ইসলাম, জয়েন্ট সেক্রেটারী মাওলানা সুহাইব আহমদ, মাওলানা নুর আহমদ কাসেমী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা রফিকুল ইসলাম, মুফতি মাওলানা আব্দুর রহমান শাহজাহান, কোষাধ্যক্ষ মাওলানা ক্বারী শহিদ আহমদ, প্রচার সম্পাদক মাওলানা আশিকুর রহমান, দফতর সম্পাদক মাওলানা আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।

মাদানী কাফেলা :
এদিকে, মসজিদের সম্মানিত ইমামদের সামনে মেয়েদের দিযে নাচ-গান করানোর ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন মাদানী কাফেলা বাংলাদেশ এর নেতৃবৃন্দ। বুধবার এক বিবৃতিতে কাফেলার সভাপতি মাওলানা রুহুল আমীন নগরী ও সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী বলেছেন, ইসলামে নাচ-গান নিষিদ্ধ। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে, গত ৮ নভেম্বর মঙ্গলবার সিলেট নগরীর আরামবাগের একটি কনভেনশন সেন্টারে সিলেট জেলাকে বাল্যবিয়েমুক্ত ঘোষণা করা উপলক্ষে স্থানীয় জেলা প্রশাসন আয়োজিত সম্মেলনে বিপুল সংখ্যক মসজিদের ইমামের উপস্থিতিতে মেয়েদের দিয়ে নাচ-গান উপস্থাপন করা হয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয় এরূপ কার্যকলাপ ইসলাম কখনো সর্মথন করেনা।

উল্লেখ্য যে, সিলেট জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের সচিব এনএম জিয়াউল আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মোঃ জামাল উদ্দিন আহমেদ। সিলেটের জেলা প্রশাসক মোঃ জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন কালেক্টরেট জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা শাহ আলম। জানা গেছে, অনুষ্ঠানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রশিক্ষণরত শতাদিক ইমামগণ ছাড়া ও বিভিন্ন পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।আলেম-উলামা তথা মসজিদের সম্মানিত ইমামগণের উপস্থিতিতে মেয়েদের দিয়ে নৃত্য ও গান পরিবেশন করা হয়েছে। এতে ইমামগণ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

এই সংবাদটি 151 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com