শুক্রবার, ০৫ জুলা ২০১৯ ০৬:০৭ ঘণ্টা

ঈমানী চেতনা ধ্বংসে যে ইসলামি শিক্ষা ও ইংরেজ

Share Button

ঈমানী চেতনা ধ্বংসে যে ইসলামি শিক্ষা ও ইংরেজ

রেজওয়ান অাহমেদ : ইখতিয়ার উদ্দীন মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজী ১২০০ খ্রিঃ সর্বপ্রথম বঙ্গদেশে অভিযান পরিচালনা করে মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। আর বাংলাদেশের বিভিন্ন মসজিদ মাদরাসা ও খানকা।

ম্যাক্সমুলারের মতে ১৭৫৭ খ্রিস্টাব্দের আগ পর্যন্ত বাংলাদেশে ৮০ হাজার মাদ্রাসা চালু ছিল। কিন্তু বৃটিশ সরকার বাংলা দখল করে মসজিদ-মাদরাসার খরচ নির্বাহের জন্য বরাদ্দকৃত ‘ওয়াক্ফ সম্পত্তি’ বাজেয়াপ্ত করলে ফেলে। একপর্যায়ে মাদরাসাগুলো ধীরে ধরে বন্ধ হয়ে যায়।

১৯৪৭ সালের পূর্বে প্রায় (২০০) দুইশত বছর মহাভারত শাসন করেছিল ইংরেজরা। ইংরেজদের শাসনামলের আগে, মহাভারতের শাসন ক্ষমতা ছিল মুসলমানদের হাতে। সে সময় মহাভারতে মাদরাসার সংখ্যা ছিল প্রায় ১২ লক্ষ।

সে মাদরাসাগুলো সরকারী কিংবা এলাকাভিত্তিক দান-সদক্বা, সাহায্য-সহযোগিতায় চলত না।
কারণ, সবগুলো প্রতিষ্ঠানের নামে ওয়াক্ফকৃত সম্পত্তি ছিল। যার মাধ্যমে সার্বিক আঞ্জাম দেয়া হত। তখনকার মাদরাসাগুলো ছিল স্বয়ংসম্পূর্ণ। আলিয়া বা ক্বওমী নামে আলাদা কোনো দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিলনা।

অালোচনা করছি আলিয়া মাদরাসা
প্রতিষ্ঠার কারণ
প্রতিষ্ঠাতা
উদ্দেশ্য
এবং বর্তমান অবস্থা ও কওমি মাদরাসা

প্রতিষ্ঠার কারণঃ- মহাভারত যখন মুসলমানের শাসন ক্ষমতায় ছিল, বৃটিশ ইংরেজরা ব্যবসার অজুহাতে মহাভারতে প্রবেশের অনুমতি চায় সরকারের কাছে। তখনকার ভারত সরকারের অনুমতি নিয়ে খ্রিষ্ট ১৭০০ শতাব্দীর শুরুর দিকে মহাভারতে প্রবেশ করে এবং ১৭০৬ খ্রিষ্টাব্দে মিস্টার হেকিংস্ এর নেতৃত্বে ২০৮ সদস্য বিশিষ্ট ইষ্ট-ইন্ডিয়া নামে একটি কোম্পানী গঠিত করে। এই ইষ্ট-ইন্ডিয়া কোম্পানীর ব্যবসার বাহানা বা ছদ্ধ্যবেশে, পঞ্চাশ বছর পর্যন্ত ভারতের শাষন ক্ষমতা দখলের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকে ইংরেজরা এবং ৫০ বছর পর তারা এ দেশের রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করে। অর্থাত- ১৭৫৭ সালে ভারতের শাসন ক্ষমতা ছিনিয়ে নেয়।

শাসন ক্ষমতা হস্তগত হওয়ার পরপরই ইংরেজরা মহাভারতের ১২ লক্ষ মাদরাসার সমস্ত ওয়াকফকৃত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে ফেলে। ফলে মাদরাসাগুলো ঠিকানাহীন হয়ে পড়ে।

এমতাবস্থায় ভারতের কোলকাতার ধর্মপ্রাণ মুসলমানেরা ইংরেজ সরকারের কাছে এই মর্মে দরখাস্ত করে যে, অাপনারা আমাদের ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলির সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করেছন, যে কারণে অামাদের প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ হয়ে গেছে।

অাপনাদের সরকারী খরচে কোলকাতায় অামাদের জন্য একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করে দিন। যাতে আমাদের মুসলমান সন্তানরা নিজেদের ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহন করার সুযোগ পায়।

এই প্রস্তাবে ইংরেজ সরকার তখন চিন্তা করলো যে, রাষ্ট্রভাষা ফারসিকে পরিবর্তন করে সে স্থলে ইংরেজি প্রতিষ্ঠা করা কঠিন । এবং ফারসি জানা হিন্দু-মুসলমানদের সংখ্যাও বেশী।
যেহেতু প্রশাসন পরিচালিত হচ্ছে প্রচলিত ফার্সি ভাষায় রচিত আইন অনুসারে। এ কারণে প্রশাসনের জন্য, বিশেষ করে বিচার বিভাগের জন্য প্রয়োজন হলো আরবি, ফার্সি ও বাংলা ভাষায় দক্ষতা। এ ছাড়া মুসলিম আইনের ব্যাখ্যা ও মামলায় রায় দেওয়ার জন্য প্রয়োজন ছিল অনেক মৌলভী ও মুফতির।
এসব বিষয় চিন্তা করে ইংরেজ সরকার এই আবেদনের প্রেক্ষিতে তখনকার সরকার প্রধান- লর্ড ওয়ারেন্ট হেষ্টিংস ১৭৮১ খ্রিষ্টাব্দে কোলকাতা আলিয়া মাদরাসা নামে মুসলামানদের একটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত করে।
এটাই উপ-মহাদেশের সমস্ত আলিয়া মাদরাসার সর্বপ্রথম মাদরাসা।
এই অালিয়া মাদরাসা প্রতিষ্ঠার করে ইংরেজ সরকার মুসলিম জাতির হাত থেকে প্রশাসন বিভাগ হস্তান্তরিত করে।

প্রতিষ্ঠাতাঃ- ক্ষমতা ছিনতাইকারী ইংরেজ সরকারের প্রধান- লর্ড ওয়ারেন্ট হেষ্টিংস প্রতিষ্ঠা করেন আলিয়া মাদরাসা ।

তাহলে আমরা এক কথায় বলতে পারি যে, যে মাদরাসাকে দেশের মানুষ আলিয়া মাদরাসা নামে চিনে, সে মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা ও জন্মদাতা হল, ইংরেজ সরকারের প্রধান- লর্ড ওয়ারেন্ট হেষ্টিংস।

এদিকে ইংরেজদের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে, তৎকালীন উপ-মহাদেশের বড় অালেম আল্লামা শাহ্ আব্দুল আযীয মুহাদ্দিসে দেহলবী রহ. ইংরেজদের বিরুদ্ধে জালিম বলে ফতোয়া দিলেন। সাথে সাথে ইংরেজদের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণাও দেন। এই ঘোষণা বা ফতোয়ার ভিত্তিতে, ভারত বর্ষের সকল মুসলমান, স্বাধীনতা আন্দোলনে প্রাণ-পণে ঝাঁপিয়ে পড়ে। যার ফলে শেষ পর্যন্ত হাজার হাজার মুসলমান তথা-আলেমদের রক্তের বিনিময়ে ইংরেজদের হাত থেকে ভারত স্বাধীনতা লাভ করে।

ইংরেজ সরকারের প্রধান লর্ড ওয়ারেন্ট হেষ্টিংস প্রতিষ্ঠিত আলিয়া মাদ্রাসা, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই এর ব্যয়বহন ও সকল দিক-নির্দেশনা চলে সরকারীভাবে।
এজন্য অালিয়া মাদরাসাকে সরকারী মাদরাসা বলেও অভিহিত করা হয়।

উদ্দেশ্যঃ- যখন ভারত স্বাধীনতা আন্দোলনে মুসলমানরা ঝাপিয়ে পড়ে, তখন কোন উপায়ন্তর না পেয়ে, ইংরেজ সরকার কোলকাতা আলিয়া মাদরাসা নিয়ে পুতুল খেলার পরিকল্পনা করে। তখন সরকারের সঙ্গি-সাথিরা পরামর্শ দিয়েছিল, কোলকাতা আলিয়া মাদরাসা বন্ধ করে দেয়ার জন্য। কিন্তু সরকার প্রধান তা প্রত্যাখ্যান করে এ কথাটি বলেছিল,
এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমেই একদিন মুসলমানদের ঈমানী চেতনা ধ্বংস হবে। আজ না হলেও দু’শ বছর পরে বাস্তবায়িত হবে।

কি ছিল সেই কৌশল? লর্ড ওয়ারেন্ট হিষ্টেংস কোলকাতা আলিয়া মাদরাসার প্রথম থেকে একাধারে ২৬ জন প্রিন্সিপাল নিয়োগ করেছে, যারা প্রত্যেকে ছিল একেকজন খৃষ্টান। এখন সাধারণ বিবেকেও একটি প্রশ্নের উদয় হবে যে, মাদরাসা হল কুরআন-হাদিসের পাঠশালা, যেখানের একজন প্রিন্সিপাল হওয়া উচিত ছিল, প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষকের চেয়ে ইল্ম-আমল ও যোগ্যতার দিক থেকে বেশী পারদর্শী। সেখানে যদি মুসলমানদের চির দুশমনের হাতে থাকে এই গুরু দায়িত্ব, তাহলে শিক্ষার্থীরা এ মাদরাসা হতে কুরআন-হাদিসের কতটুক ইলিম বা জ্ঞানার্জন করতে পারবে?
এরপর ধীরে ধীরে কোলকাতা আলিয়া মাদরাসার পাঠ্যসূচী হতে মেশকাত শরীফ, তাফসীরে বায়যাবী শরীফ বাদ দিয়ে দিল।

বর্তমান অবস্থাঃ- আজ আমরা সেই আড়াই-তিনশ বছর আগের ইংরেজ সরকারের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন দেখতে পাচ্ছি এই আলিয়া মাদরাসার মাধ্যমে।

একটু লক্ষ্য করলেই দেখা যায়- দাড়ি খাটো, খ্রষ্টানী ডিজাইনের চুল কাটা, শর্ট পঞ্জাবী, শার্ট-৮৮পেন্ট টাউজার, সহ- ভ্রান্তমবাদ ও রাজনীতি যা কওমি মাদরাসার অাবনা ছাত্রদের মাঝে দেখা যায়না
এর কারণ কি?
কারণ হলো প্রত্যেক জিনিষ তার মূলে ফিরে যায়। অালিয়া মাদরাসার মূলে হলো খ্রিষ্টান।
সামন্য হলেও তাদরে অাছর পড়বে।
তারা ইসলামি শিক্ষায় শিক্ষত হলেও ইসলামি চেতনা তাদের মঝে তৈরি হবেনা।

কওমি মাদরাসাঃ- ২০০৫-০৬ সালে জোট সরকারের শেষ দুই বছর কওমি সনদ স্বীকৃতি বাস্তবায়নের নেপথ্যে ছিল এনএসআইয়ের তৎকালীন মহাপরিচালক মেজর জেনারেল রেজাকুল হায়দার চৌধুরীর সরাসরি হস্তক্ষেপ এবং ইন্ধন….

গতবছর সেই কওমি স্বীকৃতি পেয়েছে।
বছরও হয়নি, স্বীকৃতি প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হওয়ার মুহূর্তে যাদের অনেকে বক্তব্য, ফেসবুক পোস্ট, লাইভ অথবা অনলাইন পোর্টালে দাওরায়ে হাদিসের সনদ মাস্টার্সের সমমান স্বীকৃতির ব্যাপারে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করেছিলেন।
অাজ তাদের অন্যতম একজন কওমি শিক্ষা বিস্তৃতির নামে কওমি মাদরাসায় নিয়মতান্ত্রিক শিক্ষা গ্রহণ না করে ও নিজেকে কওমি পরিচয়ে দিতে বড় অাগ্রহের সাথে অালোচনায় এসেছেন!
এটাকে এড়িয়ে চলা ঠিক হবেনা।
হয়তো নিছক কোনো দীর্ঘমেয়াদী ষড়যন্ত্রের প্লান হবে। কওমি হাইকমান্ড এনিয়ে ভাবতে হবে।

কওমি মাদরাসা শুধুমাত্র একটি সনদ বা সার্টিফিকেট অর্জনের মাধ্যম নয়। কাগজের সার্টিফিকেট অর্জন আর ইলমে দ্বীন অর্জনকে জাতীর কাছে সমান করার চক্রান্তের সূচনা এটা ।

অামি অাশ্চর্য!
এক পরিক্ষায় পাসকরেই অালেম হওয়া যায়?

অাফসোস করি!
আমাদের কওমি মাদরাসার সিস্টেমের জন্য।
প্রাথমিক মাধ্যমিক উচ্চমধ্যমিক কোনো পরীক্ষায় অংশগ্রহণ না করে একলাফে মাস্টার্স পরীক্ষায় কিভাবে অংশগ্রহণ করা যায় ?

অামরাও আলিয়া মাদরাসায় পরীক্ষা দিয়েছি
SSC তে উত্তীর্ণ হয়ে HSC তে ভর্তি হতে হয়েছে।
এভাবে পর্যায়ক্রমে মাস্টার্স পর্যন্ত যেতে হয়েছে।

বিঃদ্রঃ
পাশ্চাত্য শিক্ষা প্রবর্তনের ফলে জাতির মানসিকতা জাতির সম্মান, স্বাধীনতা ও অস্তিত্বের প্রতি দৈনন্দিন এক হুমকিসরূপ বিরাজ করছে।
কওমি মাদরাসা সংস্কার শিক্ষার মাধ্যমে দ্বীনের মধ্যে নতুন নতুন মনগড়া ত্বরীক্বার উদ্ভাবন যেন না হয়।
মানুষ যেখানে পতিত হয় সেখান থেকে উত্থানের পদক্ষেপ নিতে হয়।
তাই কওমি মাদরাসায় পড়ালেখা না করে সরাসরি দাওরায়ে হাদিসে ভর্তির পদ্ধতি বন্ধ সহ যাবতীয় সকল বিষয়কে নিয়ে পর্যালোচনা করতে হবে।
অনুভূতি জাগ্রত হলে উন্নতির পথ সুপ্রশস্ত হয়।

এই সংবাদটি 1,071 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com