শনিবার, ০৬ জুলা ২০১৯ ০৫:০৭ ঘণ্টা

সিলেটের ন্যায্য পাওনা ও একটি ফতোয়া

Share Button

সিলেটের ন্যায্য পাওনা ও একটি ফতোয়া

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :

পাক-ভারতের স্বাধীনতা ছিল হিন্দুর ছয়শ’ বছর এবং মুসলমানদের একশ’ নব্বই বছর পর পরাধীনতার শৃঙ্খল মুক্তি। আজকের স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ একটি দীর্ঘ ঐতিহাসিক সংগ্রাম ও ক্রম অগ্রসরমান বিবর্তনের ফসল। ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দের ১৪ আগস্ট পাকিস্তান এবং ১৫ আগস্ট ভারত স্বাধীনতা লাভ করে। সিলেটকে পূর্ববাংলা থেকে কেটে আসাম প্রদেশের সাথে যুক্ত করা হয়। আসাম প্রদেশের দু’টি বিভাগের ১২টি জেলা ছিল। সুরমা ভ্যালিতে ছিল ৫টি জেলা। ভারতের বড়লাট লর্ড মাউন্টব্যাটেন ১৯৪৭ সালের ৩ জুন এক ঘোষণায় বলেন :সিলেট হিন্দুস্থানে যাবে না পাকিস্তানে আসবে এ নিয়ে একটি গণভোট অনুষ্ঠিত হবে। গণভোট অনুষ্ঠিত হয় ১৯৪৭ সালের ৬ ও ৭ জুলাই। সোম ও মঙ্গলবার। মুসলিম লীগের (পাকিস্তানের ভোটের প্রতীক ছিল কুড়াল এবং কংগ্রেসের (হিন্দুস্থানের) প্রতীক ছিল কুঁড়েঘর। গণভোটে সিলেট পাকিস্তানে আসার পক্ষে ভোট পড়ে, ২,৩৯,৬১৯টি এবং হিন্দুস্থানে যাওয়ার পক্ষে ভোট পড়ে ১,৮৪,৪১টি। আফসোস, সীমানা কমিশনার রেড ক্লিফের কারসাজিতে প্রায় ৫৬ হাজার ভোট বেশি পাওয়ার পরও হিন্দুস্থানে চলে যায় সিলেটের পাওনা সাড়ে তিন থানা। সিলেটকে পাকিস্তানভুক্তির পক্ষে
মাওলানা সহুল হোসাইনের একটি ফতোয়া কাজ করেছিলো প্রবল ভাবে। এসময় প্রচারাভিযানের জন্য সিলেট আসেন লিয়াকত আলী খান হোসেন শহীদ সোহরাওয়াদী (১৮৯৩-১৯৬৩), মাওলানা আকরম খাঁ (১৮৬৮-১৯৬৮) ইউসুফ আলী চৌধুরী, আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ, নূরুল আমীন, পীর বাদশাহ মিয়া, সৈয়দ মোয়াজ্জম উদ্দিন হোসেন, ছাত্রনেতা শাহ আজিুর রহমান, ফজলুল কাদের চৌধুরী, শেখ মুজিবুর রহমান প্রমুখ শতাধিক রাজনৈতিক ও ছাত্র নেতাগণ। সিলেট শহরের কুমারপাড়া নিবাসী হাজী উছমান মিয়া মার্চেন্ট-এর বন্দর বাজারের একটি গুদাম ঘর খালি করে রেফারেন্ডাম অফিস স্থাপন করা হয়।
গণভোটের ফলাফল ১২ জুলাই ১৯৪৭ খ্রিষ্টাব্দে টেলিগ্রাম করে দিল্লীতে পাঠানো হয়। দুঃখের বিষয়, গণভোটের রায় প্রকাশের সময় সীমানা কমিশনের মেম্বারগণ নিজেরাই মতপার্থক্যে জড়িয়ে পড়েন। তখন কমিশনের চেয়ারম্যান ‘রোয়েদান’ আকারে নিজস্ব সিদ্ধান্ত প্রয়োগ করে সিলেটের অবিচ্ছেদ্য অংশ সাড়ে তিন থানা ভারতের ভাগে দিয়ে রায় ঘোষণা করেন। যদি গণভোটের রায় পুরোপুরিভাবে মানা হতো তাহলে সম্পূর্ণ সাবেক সিলেট জেলা এবং হাইলাকান্দি মহকুমাও পাকিস্তানে আসতো। অপরদিকে ত্রিপুরা রাজ্যও পাকিস্তানে আসতে বাধ্য হতো। ত্রিপুরার মহারাজা পাকিস্তানে যোগ দিতে রাজি ছিলেন। সিলেটের ঐতিহাসিক রেফারেন্ডামের প্রথম সারির নেতৃবৃন্দের মধ্যে মরহুম আবু আহমদ আব্দুল হাফিজ এডভোকেট, মরহুম দেওয়ান মোহাম্মদ আজরফ, মরহুম অধ্যাপক শাহেদ আলী, মরহুম নূরুল হক, মরহুম ফজলুর রহমান প্রমুখ ।
ঐতিহাসিক ফতোয়া:
সিলেটের ঐতিহাসিক রেফারেন্ডামে সিলেট সরকারি আলীয়া মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা ছহুল উসমানী র.’র একটি ফতোয়া জনগণের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগায়। ফতোয়াটি ছিল এরূপ : মুসলমান ভাইদের প্রতি আবেদন হযরত মাওলানা সহুল উসমানী সাহেব গত ১২ জুন ১৯৪৭ইং রোজ বৃহস্পতিবার হযরত শাহজালাল র.’র মাজারের দরগাহ শরীফ মসজিদ প্রাঙ্গণে ওয়াজের মাহফিলে কোরআন ও হাদিছের প্রমাণ দ্বারা যে বাণী দিয়াছেন তাহার সংক্ষিপ্ত বিবরণ : ১. ভোটের দ্বারা শ্রীহট্ট জিলার মুসলমানগণকে পাকিস্তান কায়েম করা সরহি জ্বেহাদ এবং প্রত্যেক মুসলমানদের জন্য ফরজে আইন। মুসলমান পুরুষ ও স্ত্রী যে কোন ব্যক্তি যেকোন যদি হেলায় উক্ত জেহাদে যোগদান না করেন তবে তাহারা কোরআন ও হাদিসের রায় দ্বারা মহাপাপী হইবেন। ২. যদি কোন মুসলমান উক্ত জেহাদে তাহার ধন বিলাইয়া দিয়ে বিরত হয়, তবে তাহার যাবতীয় ধন হারাম হইয়া যাইবে। ৩. যদি কোন মুসলমান উক্ত জেহাদের খবর পাওয়া মাত্র তাহার সমস্ত দুনিয়াদারী ছাড়িয়া উক্ত ভোট দান কার্যে সাহায্যের জন্য অবহেলা করে তবে কিয়ামতের দিন তাহাকে জবাব দিতে হইবে। ৪. যদি কোন মুসলমানের নিজের স্ত্রীর ভোট থাকে এবং আপন স্ত্রীকে ভোট দিতে বিরত রাখেন বা সাহায্য না করেন তবে সেই স্বামী শক্ত গোনাহগার হইবেন। ৫. যদি কোন মুসলমান তাহার জানা মতে নিঃসহায় (অন্ধ, আতুর, রোগী ইত্যাদি) মুসলমান স্ত্রী পুরুষ ভোটারকে সাহায্য করিয়া ভোটকেন্দ্রে লইয়া না যান তবে কিয়ামতের দিন তাহাকে আল্লাহর নিকট জবাব দিতে হইবে। ৬. জেহাদের সময় বিবি লোকের পর্দার কোনো কড়াকড়ির নিয়ম নাই। বোরখা যদি থাকে তবে ভাল, নতুবা চাদর দ্বারা শরীর ঢাকিয়া যাইতে হইবে। অবস্থা বিবেচনায় যে কোনো মতেই ভোট দিতে হইবে। ৭. যদি শ্রীহট্ট জিলার মুসলমানরা নিজের ইচ্ছাকৃত গাফিলতির দরুন শ্রীহট্ট জেলকে পাকিস্তানের অন্তর্ভূক্ত হইতে বিরত থাকেন তবে বর্তমান মুসলমানদের ভবিষ্যৎ বংশধররা কেয়ামতের ময়দানে দাঁড়াইয়া খোদার নিকট বলিবেন, ঐ আমাদের পূর্ব পুরুষ মুসলমানগণ, আমাদিগকে দারুল ইসলামে যাইতে বাধা দিয়েছেন, উহাদের উপযুক্ত শাস্তি হউক। ৮. শ্রীহট্ট জিলা পাকিস্তানের অন্তর্ভূক্ত হইলে খাইতে পাইব না, কাপড় পাইব না, দুঃখ-কষ্ট ভোগ করব, এই সকল শয়তানের চক্রান্ত ছাড়া আর কিছুই নহে। এই সকল কোনো প্রশ্নই আসিতে পারে না। দেশকে পাকিস্তানের অন্তর্ভূক্ত করতে হবে নতুবা হিজরত করিয়া এই দেশ ছাড়িয়া যাইবে। ৯. এই বার ভোট দেয়া কোনো ব্যক্তি বিশেষকে নয়, কোনো প্রতিষ্ঠানকে নয়, আমাদের নবী হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা (সা.) এর প্রাণের চেয়েও প্রিয় জিনিস দারুল ইসলাম অর্থাৎ পাকিস্তান বানাবার জন্য ভোট দিবেন। উপরোক্ত উপদেশগুলো তিনি প্রায় দুই ঘণ্টা তকবির করিয়া সকলকে বুঝিয়েছেন। মোনাজাত করার সময় তিনি বিলাপের সূরে ক্রন্দন আরম্ভ করেন এবং বলেন: হে পরওয়ারদেগার! এখনও শ্রীহট্টের অনেক মুসলমান পাকিস্তানের বিরোধিতা করছেন, তাহাদেরকে দারুল ইসলাম কায়েম করার জন্য একত্রিত করিয়া দাও।’’
দোয়ার সময় উপস্থিত প্রায় তিন হাজার মুসলমান বিলাপের সুরে ক্রন্দন আরম্ভ করেন। সেই করুণ মর্মবিদারক দৃশ্য ভাষায় বর্ণনা করা অসম্ভব।
কিভাবে কার স্বার্থে সিলেটের ন্যায্য পাওনা সাড়ে তিন থানা ভারতের অংশ হয়ে গেল? জওহর লাল নেহরুর সাথে মাউন্ট ব্যাটেনের গভীর বন্ধুত্ব ছিল। জওহরলাল ছিলেন বিপতœীক। মাউন্ট ব্যাটেনের স্ত্রী এডউইনা মাউন্ট ব্যাটেন এবং জওহরলালের কন্যা অষ্টাদশবর্ষী উদ্ভিন্ন যৌবনা ইন্দিরা গান্ধীকে নিয়ে তখন অনেক রঙ্গ রসের মুখরোচক উপাখ্যান প্রচলিত ছিল। মাউনব্যান্টেনের ছোট মেয়ে পামেলা মাউন্টব্যাটেনের বই ‘ইন্ডিয়া রিমেম্বার্ড এ পার্সোনেল একাউন্ট অব দি মুমেন্ট অব ট্রেন্সফার অব পাওয়ার।’ স্মৃতিচারণমূলক বইয়ে মাউন্টব্যাটেন কন্যা লিখেছেন : আমার বয়স তখন সতেরো। আমি বাবা-মার সাথে ভারতে ছিলাম। আমার মা’র বয়স তখন প্রায় চৌচল্লিশ বছর। ঐ সময় আমি ভারতে পনেরো মাস অবস্থান করি।
এব্যাপারে সিলেটের বিশিষ্ট গবেষক সৈয়দ মোস্তফা কামাল বলেন, ’’ত্রিপুরার মহারাজা পাকিস্তানে যোগদানের ইচ্ছা প্রকাশ করায় তাকে বিষ প্রয়োগে হত্যা করা হয়। ত্রিপুরার মহা রাণী ছিলেন বিহারের ময়ূরভতেইর হিন্দু রাজার কন্যা। কংগ্রেস নেতা প্যাটেল এই মহিলাকে তার পিতার মাধ্যমে ত্রিপুরা থেকে নিয়ে সীমানা কমিশনার রেড ক্লিককে ভেট বা উপহার দেন। রাণী সেখানে এক সপ্তাহ ছিলেন। এরপর সব কিছু ওলটপালট হয়ে যায়। সীমানা কমিশনার রেড ক্লিদের সাথে সিলেটের নেতৃবৃন্দ করিমগঞ্জে সাক্ষাৎ করেন। তারা দেখতে পান নেহরু কন্যা ইন্দিরাগান্ধীও রেড ক্লিফের পাশে বসা। প্রতিনিধিদল খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন রেডক্লিফের সিলেটে বাউন্ডারী নির্ধারণের সফরে ইন্দিরা গান্ধী তার সফরসঙ্গী ছিলেন। পরে তারা বিষয়টি জিন্নাহ্ সাহেবকে জানালে তিনি আফসোস করে জবাব দেন, ‘আমরা জানতাম, রেড ক্লিফ ঘুষখোর বা অর্থলুলোপ নন কিন্তু তিনি যে এতটা লেডি কীলার তা অবহিত ছিলাম না। ’’
১৯৭৪ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত মি. কলিন্সের ‘ফ্রিডম এ্যাট মিডনাইট’ বইতে জিন্নাহ সাহেবের হাজারো বদনাম করা হলেও কিঞ্চিৎ সত্য প্রকাশ করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, একমাত্র জিন্নাহ সাহেবের কারণেই ভারত বিভক্ত হয়েছে। তাই তিনি এমন পাকিস্তান দিলেন যাতে ছয় মাসেই আবার সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে যায়। ভারত ভাগ হওয়ার পর। কংগ্রেসী হিন্দু এবং কংগ্রেস সমর্থক মুসলমানরা হতাশায় ভেঙে পড়েন। তখন তাদের কাছে গোপন বার্তা আসে, ‘ঘাবড়াবেন না, পাকিস্তান একেবারেই ক্ষণস্থায়ী। অচিরেই সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে যাবে। (সুত্র: নিত্যদিনের আঁচালী: বোরহান উদ্দিন খান)।
স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের প্রতি ভারতের মনোভাব এখন কোন পর্যায়ে এ নিয়ে সূধী মহলে সংশয় সন্দেহ রয়েছে। ফারাক্কা বাঁধ, সবক’টি নদীর মুখে বাঁধ নির্মাণ, বর্ষায় পানি ছেড়ে ডুবিয়ে মারা বন্ধুত্বের লক্ষণ নয়। সীমান্ত এলাকায় পাখীর মত গুলি করে মানুষ মারা ও বন্ধুত্বের পরিচয় বহন করে না। তাই মাতৃভূমি রক্ষায় আমাদেরকে আরো কঠোর-সাহসী,সংগ্রামি হতে হবে,আমাদের ন্যায্য পাওনা ফেরত পেতে হবে।
লেখক: মুহাম্মদ রুহুল আমীন ,সদস্য সচিব-জালালাবাদ লেখক ফোরাম। ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

এই সংবাদটি 1,084 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com