সিলেটবৃহস্পতিবার , ১০ নভেম্বর ২০১৬
  1. Breaking News
  2. অন্যান্ন
  3. অপরাধ
  4. অর্থনীতি
  5. আইন-আদালত
  6. আজ-কাল
  7. আন্তর্জাতিক
  8. আমাদের পরিবার
  9. আরও
  10. আলোচিত সংবাদ
  11. ইসলাম
  12. কলাম
  13. কৃতিত্ব
  14. খেলা-ধোলা
  15. জাতীয়
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দুই লাখ ভোট বেশি পেয়েও হিলারির হার !

Ruhul Amin
নভেম্বর ১০, ২০১৬ ১:১৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ডেস্ক রিপোর্ট:
যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে ইলেকটোরাল ভোটের মারপ্যাঁচে ডোনাল্ড ট্রাম্প বাজিমাত করলেও ভোটারদের বেশিরভাগের সমর্থন গেছে পরাজিত প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের বাক্সেই। ট্রাম্পের চেয়ে দুই লাখ ১৯ হাজার ৭৬২ ভোট বেশি পেয়েও হতাশায় ডুবতে হয়েছে তাকে।

বর্তমান শতকে ২০০০ সালে বিল ক্লিনটনের কাছে জর্জ ডব্লিউ বুশ সিনিয়র, ২০০৮ সালে জর্জ বুশ জুনিয়নের কাছে আল গোর এবং ২০১২ সালে বারাক ওবামার কাছে মিট রমনি পপুলার ভোট বেশি পেয়েও হেরে যান ইলেকটোরাল ভোট কম পাওয়ায়।

২০১২ সালে রিপাবলিকান পার্টির নেতা মিট রমনি ডেমোক্রেট প্রার্থী বারাক ওবামার কাছে হেরে যাওয়ার পর ৮ নভেম্বরের ভোটে জয়ী ডোনাল্ড ট্রাম্প তার টুইটারে লিখেছিলেন, ‘গণতন্ত্রের জন্য ইলেকটোরাল কলেজ একটি অভিশাপ’। অথচ চার বছর পর এই একই সুবিধা পেয়েছেন ট্রাম্প।

তারও আগে ১৯ শতকে অ্যান্ড্রু জ্যাকশন, স্যামুয়েল টিলডেন এবং গ্রোভার ক্লেভেলেন্ডকেও এই তিক্ত অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যেতে হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদ মাধ্যম সিএনএনের তথ্য অনুযায়ী ৮ নভেম্বরের ভোটে ডোনাল্ড ট্রাম্প ইলেকটোরাল ভোট পেয়েছেন ২৯০টি, যা প্রয়োজনীয় সংখ্যকের চেয়ে ২০টি বেশি। আর তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হিলারি ক্লিনটন পেয়েছেন ২৩২টি ভোট।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পদ্ধতি, পপুলার ভোটে নির্বাচিত হয় ইলেকটোরাল কলেজের প্রতিনিধিরা।  প্রতিটি রাজ্যের জনসংখ্যার ভিত্তিতে এই ইলেকটোরাল ভোট নির্ধারিত থাকে। কোনো রাজ্যে কেউ পপুলার ভোট একটি বেশি পেলেও সবগুলো ইলেকটোরাল ভোট তার পকেটেই যায়।

যুক্তরাষ্ট্রে ডেমোক্রেট এবং রিপাবলিকান অধ্যুষিত রাজ্যগুলো প্রায় নির্ধারিত। অর্থাৎ এক দলের সমর্থন বেশি-এমন রাজ্যে অন্য দলের জয়ের ঘটনা বিরল। এর বাইরে কিছু রাজ্য থাকে যেগুলো সুইং স্টেট বলা হয়, নির্বাচনের আগে যেগুলো ব্যাটেল গ্রাউন্ড হিসেবে পরিচিতি পায়। এবার এমন নয়টি রাজ্য আলোচনার কেন্দ্রে ছিল। এগুলো হলো ফ্লোরিডা (২৯ ইলেকটোরাল ভোট), নর্থ ক্যারোলিয়া (১৫ ইলেকটোরাল ভোট), পেনসিলভানিয়া (২০ ইলেকটোরাল ভোট), কলরাডো (৯ ইলেকটোরাল ভোট), নিউ হ্যাম্পশায়ার (৪ ইলেকটোরাল ভোট), নিউ ম্যাক্সিকো (৫ ইলেকটোরাল ভোট), ওহিও (৬ ইলেকটোরাল ভোট) নেভাডা (৬ ইলেকটোরাল ভোট) এবং আইওয়া (৬ ইলেকটোরাল ভোট)।

এর মধ্যে নিউ ম্যাক্সিকো এবং নেভাডায় হিলারি জিতলেও বাকিগুলোতে জিতে যান ট্রাম্প। এর মধ্যে ফ্লোরিডায় দুই প্রার্থীর ভোটের ব্যবধান ছিল ১.৩ শতাংশ। কিন্তু তাতেও ২৯ টি ভোট যায় ট্রাম্পের পক্ষে। আর বাকি পাঁচ রাজ্যে পপুলার ভোটে দিতে ট্রাম্প ইলেকটোরাল ভোট বেশি পান ৮৫টি। আর নিউ হ্যাম্পশায়ারের ফলাফল এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত প্রকাশ হয়নি।

এই ব্যাটল গ্রাউন্ডের মধ্যে কেবল ফ্লোরিডা এবং কলরাডোয় জিততে পারতেন, তাহলেই প্রেসিডেন্ট হয়ে যেতেন হিলারি।

পপুলার ভোটের চিত্র

সিএনএনের প্রতিবেদন অনুযায়ী ৮ নভেম্বরের ভোটে হিলারি ক্লিনটনকে সমর্থন জানিয়েছেন মোট ৫ কোটি ৯৭ লাখ ৫৫ হাজার ২৮৪ জন ভোটার। যা শতকরা হিসাবে ৪৭.৭ শতাংশ। আর ট্রাম্প চেয়েছেন পাঁচ কোটি ৯৫ লাখ ৩৫ হাজার ৫২২ ভোট। যা শতকরা হিসাবে ৪৭.৫ শতাংশ।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবারের ভোটে পপুলার ভোটের পাশাপাশি ইলেকটোরাল ভোটেও হিলারির সহজ জয়ের সম্ভাবনার কথাই বলাবলি হচ্ছিল। কিন্তু হিলারির সম্ভাব্য রাজ্য উইসকিনসন এবং পেনসিলভানিয়ার পাশাপাশি সুইং স্টেট নর্থ ক্যারোলিনা, ফ্লোরিডা ও ওহিওর জয় ট্রাম্পকে নিয়ে যায় হোয়াইট হাউজের পথে।