শুক্রবার, ১২ জুলা ২০১৯ ১১:০৭ ঘণ্টা

বাংলা সাহিত্য চর্চায় সিলেটের লেখকদের অসামান্য অবদান রয়েছে – তৈমুররাজা চৌধুরী

Share Button

বাংলা সাহিত্য চর্চায় সিলেটের লেখকদের অসামান্য অবদান রয়েছে – তৈমুররাজা চৌধুরী

সিলেট রিপোর্ট : ভারতের আসাম রাজ্যের দৈনিক সাময়িক প্রসঙ্গ’র সম্পাদক তৈমুররাজা চৌধুরী বলেছেন, বাংলা সাহিত্য চর্চায় সিলেটের লেখকদের অসামান্য অবদান রয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে নারী লেখকরা তাদের দক্ষতা দিয়ে সাহিত্যে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন। সমাজ এবং সংসারকে উপলব্ধি করে তার আনন্দ-বেদনা সবার মাঝে তুলে ধরার চেষ্টা করেন। বর্তমান প্রজন্ম বই পড়া থেকে সরে যাচ্ছে। তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহার তাদের মেধা শক্তি জ্ঞান চর্চার প্রয়াস বিনষ্ট করছে। তাই নতুন প্রজন্মকে বই পড়ার প্রতি উৎসাহী করে জ্ঞান বৃদ্ধি করে সুন্দর সমাজ বিনির্মাণের জন্য করতে হবে।
পাণ্ডুলিপি প্রকাশন সিলেট প্রকাশিত বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও গল্পকার অপর্ণা নন্দী দীপা’র গল্পগ্রন্থ ‘নীরবে নিভৃতে কেউ কাঁদে কেউ হাসে’ এর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। গত বৃহস্পতিবার রাতে নগরীর জেলরোডস্থ একটি অভিজাত হোটেলে আয়োজিত ‘নীরবে কেউ কাঁদে কেউ হাসে’ এর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচকের বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট গবেষক, লেখক, শিক্ষাবিদ প্রফেসর নন্দলাল শর্মা।
পাণ্ডুলিপি প্রকাশন’র প্রকাশক ও লেখক বায়েজীদ মাহমুদ ফয়সলের সভাপতিত্বে ও সিলেট এক্সপ্রেসের রিপোর্টার তাসলিমা খানম বীথির পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সাংবাদিক কলামিস্ট আফতাব চৌধুরী, সাংবাদিক মুহাম্মদ ফয়জুর রহমান, শিক্ষাবিদ কবি লে.কর্ণেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ, সমাজসেবী ডা. মোস্তফা শাহজামান চৌধুরী বাহার, গল্পকার সেলিম আউয়াল, লেখক কলামিস্ট বেলাল আহমদ চৌধুরী এবং লেখক অনুভূতি ব্যক্ত করেন অপর্ণা নন্দী দীপা ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার নন্দী।
প্রধান আলোচকের বক্তব্যে প্রফেসর নন্দলাল শর্মা বলেন, একজন নারী সমাজ, সংসারের সাথে মিশে তার মন থেকে অনেক জিনিস উপলব্ধি করতে পারেন। ধনী-গরীব, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সামাজিক বৈষম্যের কথা অপর্ণা নন্দী তার লেখায় তুলে ধরেছেন। যার মাধ্যমে আমরা সমাজের ভালো খারাপ দিক অনেক বিষয়ে জ্ঞান লাভ করতে পারবো।
মুহাম্মদ ফয়জুর রহমান বলেন, সিলেটের লেখালেখির ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় অর্পণা নন্দী এগিয়ে যাবেন। বিশেষ করে আজকের অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি প্রখ্যাত সাংবাদিক তৈমুররাজা চৌধুরীর উপস্থিতি খুব ভালো লাগছে। তার মাধ্যমে আমাদের দুই অঞ্চলের সাংবাদিকদের পারস্পরিক সম্পর্ক-বন্ধুত্ব আরো সুদৃঢ় হবে।

লে.কর্নেল সৈয়দ আলী আহমদ বলেন, আমাদের কথা সাহিত্যে শাহেদ আলীর মতো কৃতী পুরুষ আছেন। একই সমতলে তাঁর কালজয়ী গল্প। গল্পে ভূগোল থাকবে, ইতিহাস থাকবে, আবেগ থাকবে, বর্ণনা থাকবেÑতাহলেই সার্থক গল্প লেখা সম্ভব।
সাংবাদিক-কলামিস্ট আফতাব চৌধুরী বলেন, আমাদের নতুন প্রজন্মের মধ্যে বই পাঠে অনীহা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাদেরকে বই পাঠে উৎসাহী করে তুলতে হবে, অন্যথায় আমাদের ভবিষ্যত অন্ধকার।
লেখক অনুভূতি ব্যক্ত করে অর্পণা নন্দী দীপা বলেন, আমি আমার লেখায় আমাদের জীবনের আলো-অন্ধকার, আনন্দ বেদনার কথা তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।
সভাপতির বক্তব্যে বায়েজীদ মাহমুদ ফয়সল বলেন, প্রাচীনকাল থেকে বাংলা সাহিত্যে সিলেট অঞ্চলের লেখকরা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন। এই ধারাবাহিকতায় অর্পণা নন্দী দীপাও এগিয়ে যাবেন। তিনি নিয়মিত লেখালেখি চর্চার মাধ্যমে বাংলা সাহিত্যে নিজের একটি ভাল অবস্থান করে নিতে পারবেন বলে আমার বিশ্বাস।

এই সংবাদটি 1,038 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com