শনিবার, ১৩ জুলা ২০১৯ ১০:০৭ ঘণ্টা

শাসক প্রিয় আলেম জাহান্নামি!

Share Button

শাসক প্রিয় আলেম জাহান্নামি!

তাজ উদ্দিন হানাফী:

আলেম নবীদের উত্তরসূরী। তাদের কাজ নবীদের। বিশেষ করে শেষ উম্মতের আলেম, যাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব। আল্লাহ নবীকে বললেন হে নবী আমি তোমার জন্য তুর পাহাড়কে স্বর্ণ বানিয়ে দেই। প্রতিউত্তরে নবীজি বলেন হে আল্লাহ ক্ষুদার্ত থাকাই আমার প্রিয়। গরীব থাকাই আমার আস্তিন।নবীজি কখনো পেট ভরে আহার্য করেননি। আলোহীন চুলা ছিলো। পেটে ছিলো পাথর। সাহাবীরা ও ছিলেন সেই পথের যাত্রী।
দুনিয়াকে ভয় পেতেন।শুধু ভয় নয় তার ভয়ে কাপতেন ও। কিন্তু উত্তরসূরীদের উপরে একটা সময় বিপদ আসবে। তারা বিক্রি হবে। তারা দুনিয়ার মোহে আক্রান্ত হবে। উত্তরসূরীরা চাইবে দুনিয়া। তাহলে দুনিয়া কেমন হবে?
উম্মত দাঁড়াবে কোথায়?শেষ জমানায় বেশি জাহান্নামী হবে আলেমরা। আলেমরা হবে জাহান্নামের খোরাক। তারা যুদ্ধ করবে প্রাচুর্য নিয়ে। তারা হিকমত আর ইলম নিয়ে ঝগড়া করবে। তারা সৃষ্টি করবে ফিতনা। আলেমদের ফিতনায় মানুষ বিভক্ত হবে। অনেক গ্রুপ হবে,কেহ ইলম অন্বেষণ করবে তর্ক করার জন্য।কেহ ইলম অর্জন করবে দুনিয়ার সম্মানের জন্য।
কেহ ইলম অর্জন করবে দুনিয়ার প্রাপ্য সুখের জন্য। কেহ ইলম অন্বেষণ করবেনা আল্লাহকে ভয় করার জন্য। শাসকদের দরোজায় দরোজায় ধন্না দিবে। শাসকদের খুশি করার জন্য বিশেষ উপটৌকন দিবে। বিশেষ বিশেষণ বা উপাধী দিবে।
এরা হবে জাহান্নামী। হাতেম রহঃ মক্কায় প্রবেশ করে চাকচিক্য দেখে বলেছিলেন এটি কি ফেরাউন এর শহর? নাকি মোহাম্মদ সাঃ এর শহর?লোকেরা আশ্চর্য হলেও তিনি প্রমাণ করেছিলেন এই চাকচিক্য মোহাম্মদ সাঃ এর নয়।

কা’ব (রহঃ)বলেনঃ শেষ জামানায় এমন আলেম হবে।যারা মানুষদের দুনিয়ার প্রতি অনাসক্ত হতে বলবে।কিন্তু নিজেরা দুনিয়ার প্রতি আসক্তি থাকবে তাদের। মানুষদের ভয় দেখাবে,নিজেরা ভয় পাবেনা। মানুষকে শাসকবর্গের নিকট যেতে বারণ করবে। কিন্তু নিজেরা শাসকবর্গের কাছে যাবে। আখেরাত কে নয় এরা অবলম্বন করবে দুনিয়াকে। মুখের জোরে খাবে। ধনিদের কাছে বসাবে,ফকিরদের নয়। এরা ইলম নিয়ে লড়াই করবে। যেভাবে মহিলারা পুরুষ নিয়ে লড়াই করে থাকে।

ইবনে মাসউদ রাযিঃ বলেন,অধিক রেওয়াত দ্বারা ইলম হয়না।ইলম হচ্ছে খোদাভীতি।
হাসান বসরী( রহঃ) বলেন,যত খুশী ইলম শিখো,কিন্তু আমল না করলে এই ইলম বেকার।
কেননা বোকাদের উদ্দেশ্য ইলম শিখে রেওয়াত করা। আর আলিমদের উদ্দেশ্য নিজেকে পাহারা দেওয়া।

ইমাম মালিক বলেনঃ আখেরাতের আলেমদের আরেকটি বৈশিষ্ট হল।শাসকবর্গ থেকে দূরে থাকা।
কেননা দুনিয়া মিষ্ট,আর এই মিষ্টতার চাবি শাসকদের হাতে।

হুজুর (সাঃ,) বলেনঃ যে জঙ্গলে থাকে সে জুলুম করে।যে শিকারের পিছনে থাকে সে গাফিল হয়।
এবং যে বাদশাহর কাছে যায় সে ফিতনায় পড়ে।
তিনি আরো বলেন অতিসত্বর তোমাদের উপর শাসকবর্গ নিযুক্ত হবে। তাদের কিছু কাজ হবে ভালো। এবং কিছু হবে মন্দ।যে ব্যক্তি তাদের সাথে পরিচিত হবেনা,সে দোষমুক্ত থাকবে।যে তাদেরকে খারাপ মনে করবে।সে বেচে যাবে।

সুফিয়ান সওরী বলেনঃ জাহান্নামে একটি জঙ্গল রয়েছে। তাতে আলেমরা থাকবে।যে আলেমরা শাসকদের সাক্ষাত করতে যায়।

হুজাইফা (রাযিঃ) বলেনঃ নিজেকে ফেতনা থেকে বাচিয়ে রাখো। জিজ্ঞেস করা হলো ফেতনা কি?
তিনি বললেন শাসকের দরোজা।

হুজুর সাঃ বলেন, আলেমগন রাসুলের আমানতদার,যে শাসকের সাথে উঠাবসা করলো,সে রাসুলের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করলো।

সায়ীদ ইবনে মুসাইয়্যেব বলেনঃ যখন আলেমকে দেখ,শাসকবর্গকে ঘিরে রেখেছে। তার কাছ থেকে বেচে থাকো।কেননা সে চুর।

ইমাম আওযায়ী বলেনঃ আল্লাহর কাছে সে আলেমের চেয়ে মন্দ কেউ নয়।যে শাসনকর্তার কাছে যায়।

হজুর (সাঃ)বলেনঃ সর্বনিকৃষ্ট আলেম যে শাসকের কাছে যায়।

মকহুল দামেশকী বলেনঃ যে ব্যক্তি কুরআন শিখে দ্বীনের জ্ঞান আহরণ করে। এরপর এই ইলম দিয়ে শাসকদের সংসর্গ অবলম্বন করে। সে পদে পদে দোযখের অগ্নিতে প্রবেশ করে।

সামনুন বলেনঃ আলেমের জন্য এই কথাটি অনেক মন্দ কথা,যে কেউ তার মজলিসে এসে শুনে যে সে শাসনকর্তার কাছে এই আলেম চলে গিয়েছে।

হাসান বসরী বলেনঃকোন আলিম যদি শাসকের কাছে যায়,তাহলে সে মোনাফেকি থেকে বাচতে পারেনা।

হযরত আবু যর গিফারী রাযিঃ সালমা রাযিঃবলেন হে সালমা তুমি শাসকের দরোজায় যেয়োনা কারণ তুমি তাদের দুনিয়া থেকে তখনই কিছু অংশ পাবে। যখন তারা তোমার দ্বীন থেকে উৎকৃষ্ট অংশটি নিয়ে নিবে।

ইমাম গাযযালী বলেনঃ শয়তান আলেমদের ধোকা দেয় এই কথা বলে, যে তুমি শাসকদের কাছে গেলে,তাদেরকে উপদেশ দিলে তারা জুলুম থেকে ফিরে আসবে।শরীয়তের বিধিবিধান তাদের মধ্যে চলে আসবে। এটি শয়তানের একটি ধোকা।

ওমর ইবনে আব্দুল আজীজ হাসান বসরীকে একটি চিঠি লিখেনঃ হামদ সালাতের পর নিবেদন আপনি আমাকে এমন লোকের সন্ধান দিন যাদের কাছ থেকে আমি আল্লাহর ব্যাপারে সাহায্য নিতে পারি। হাসান বসরী জবাবে লিখেনঃ দ্বীনদার আপনার কাছে যাবার নয়। তারাতো আপনার কাছে যাবেনা। সুতরাং আপনি অভিজাত ব্যক্তিদের নিয়ে থাকেন।অথচ আব্দুল আজীজ ছিলেন সকল শাসক থেকে দুনিয়া বিমূখ।তাহলে আজকের শাসকদের সান্নিধ্যে কতইনা ভয়াবহ।

আলেমরা যদি শাসকপ্রিয় হয়ে পড়েন,তাহলে মহাপ্রলয় ছাড়া আর কিসের অপেক্ষা করা যায়?
এই যুগের বেশীর ভাগ আলেম শাসকপ্রিয়।কেহ দুনিয়া প্রিয়।কেহ নাম জোশঃ প্রিয়। প্রায় সব আলেম অন্বেষণ করছে একটি জিনিস,সেটি দুনিয়া। আমি অপেক্ষা করছি একটি ঝঞ্জা বায়ুর।যে বায়ু নিষ্কাশন করবে পেট পূজারী আলেমদের।
নিক্ষেপণ করবে আগুনের খাদ্যে।

এই সংবাদটি 1,422 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com