রবিবার, ১৪ জুলা ২০১৯ ০১:০৭ ঘণ্টা

মোহনগঞ্জে শিশু অপহরণে ব্যর্থ হয়ে পালিয়েছে অপহরণকারী মহিলা

Share Button

মোহনগঞ্জে শিশু অপহরণে ব্যর্থ হয়ে পালিয়েছে অপহরণকারী মহিলা

সোহেল আহম্মেদ :
নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে সাদমান (৩) ও সাদাফ (২) নামে দুই সহোদর ভাইকে অপহরণের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে এক অপহরণকারী মহিলা পালিয়ে গেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
আজ শনিবার (১৩ জুলাই) ভোর ৫ টার দিকে উপজেলার সমাজ সহিলদেও ইউনিয়নের হাছলা গ্রামের মো. তায়জুল ইসলামের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। তায়জুল ইসলাম হাছলা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক।
শনিবার বিকেলে সরেজমিনে উপস্থিত হয়ে তায়জুল ইসলামের স্ত্রী সাদীনা ইসলামের সাথে কথা বলে জানা যায়, শনিবার ভোর
৫ টার দিকে তাঁর স্বামী তায়জুল ইসলাম ফজরের নামাজ পড়ে বাহিরে হাঁটতে বের হন। এসময় তিনি ঘরের সদর দরজায় তালা না দিয়ে শুধু ভিড়িয়ে রেখেই বাহির হয়ে যান।
কিছুক্ষণ পর হঠাৎ করে সাদীনা ইসলামের চোখ খুললে তিনি দেখতে পান লম্বা জামা পরিহিতা হালকা পাতলা গড়নের একটি মহিলা খাটের পাশে দাঁড়িয়ে ঘুমন্ত শিশুদের কোলে নিতে চাইছে। খাটের পাশেই রাখা আছে মহিলাটির সাথে নিয়ে আসা একটি বড় সাইজের ব্যাগ। এটা দেখার পর সাদীনা খাট নেমে ওই মহিলাকে ধরে ফেলেন। দুজনের ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে অপহরণকারী মহিলা সাদীনার বাহুতে সজোরে কামড় দিলে সাদীনা তাকে ছেড়ে দেন এবং দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় অপহরণকারী মহিলাটি।
সাদীনা ইসলাম আরো জানান, এ ঘটনার পরপরই তার ও শিশু সাদমানের বমি হয়। ধারণা করা হচ্ছে, ওই মহিলা ঘরে ঢুকেই কোনকিছু স্প্রে করেছিলো যার প্রভাবে তাদের বমি হয়েছে।
মো. তায়জুল ইসলাম বলেন, আমি উপজেলা চেয়ারম্যান মো. শহীদ ইকবাল, ইউপি চেয়ারম্যান মো. আমিনুল ইসলাম সোহেল ও সাবেক থানা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা নূরুল ইসলামসহ মোহনগঞ্জ থানায় বিষয়টি অবহিত করেছি। ঘটনা তদন্ত করার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে থানা থেকে আমাকে জানানো হয়েছে।
মোহনগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শওকত আলী বলেন, মাস্টার তায়জুল ইসলাম থানায় এসে বিষয়টি অবগত করেছেন। তদন্তের পর ঘটনার সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এই সংবাদটি 1,050 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com