বুধবার, ১৭ জুলা ২০১৯ ১২:০৭ ঘণ্টা

মুসলিম ছাত্রছাত্রীদেরকে রাম কৃষ্ণ’র স্লোক পড়িয়ে প্রসাদ বিতরণে হেফাজত নেতার প্রতিবাদ

Share Button

মুসলিম ছাত্রছাত্রীদেরকে রাম কৃষ্ণ’র স্লোক পড়িয়ে প্রসাদ বিতরণে হেফাজত নেতার প্রতিবাদ

সিলেট রিপোর্ট ডেস্কঃ  হিন্দু সম্প্রদায়ের রথযাত্রা উপলক্ষ্য চট্টগ্রামের ১০টি স্কুলের মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে ইস্কন প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দির-এর ফুড ফর লাইফ এর উদ্যোগে ‘কৃষ্ণ প্রসাদ’ বিতরণ করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক ও হাটহাজারী মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা আশরাফ আলী নিজামপুরী।

গতকাল(১৬ জুলাই) মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে প্রেরিত বিবৃতিতে তিনি বলেন, ইসলামের পূণ্যভূমি বন্দর নগরী চট্টগ্রামে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মুসলিম ছাত্রছাত্রীদেরকে রাম কৃষ্ণ’র স্লোক পড়িয়ে প্রসাদ বিতরণের দৃশ্যটা খুবই ন্যক্কারজনক ও মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে মারাত্মক আঘাত দেওয়ার শামিল। মুসলিম শিশুদের হিন্দুপ্রেমী করে গড়ে তোলার এক হীন ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবেই মুসলিম ছাত্রছাত্রীদের মাঝে প্রসাদ বিতরণ করা হয়েছে।

মাওলানা নিজামপুরী আরো বলেন, আমরা বহু আগে থেকেই লক্ষ্য করছি আমাদের এই স্বাধীন বাংলাদেশ ও দেশের জণগণকে নিয়ে বিভিন্ন মহল গভীর ষড়যন্ত্র করছে। বিশেষ করে পার্বত্য চট্টগ্রামকে একটি স্বতন্ত্র রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তুলতে ইহুদী খ্রিস্টান ও হিন্দুসম্প্রদায়ের লোকেরা সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। মুসলমানদের ঈমান আকিদা ধ্বংস করতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে। ভারতের মতো বাংলাদেশেও হিন্দুত্ববাদের প্রসার ঘটানোর নানা চেষ্টা চলছে। এই দেশের সুন্দর সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে বিনষ্ট করে আগ্রাসী শক্তিকে ঢুকার অজুহাত তৈরি করতে চাচ্ছে। আমরা মনে করি আজকের এই ন্যক্কারজনক ঘটনা সেই কর্মসূচির অংশ বিশেষ।

মাওলানা আশরাফ আলী নিজামপুরী আরো বলেন, আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে জানতে পেরেছি, ইস্কন হিন্দুদের কোন সংগঠন নয়, হিন্দুবেশধারী ইহুদীদের একটি সংগঠন। বাংলাদেশের গোয়েন্দা সংস্থার সাবেক প্রধানদের কথা- বাংলাদেশে ‘র’ বইয়ের ১৭১ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে- “‘ইস্কন নামে একটি সংগঠন বাংলাদেশে কাজ করছে। এর সদর দফতর ভরতের নদীয়া জেলার পাশে মায়াপুরে। মূলত: এটা ইহুদীদের একটি সংগঠন বলে জানা গেছে। এই সংগঠনের প্রধান কাজ হচ্ছে বাংলাদেশে উস্কানিমূলক ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করা, যার উদ্দেশ্য হচ্ছে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি।”

তিনি বলেন, এই দাঙ্গার মতো পরিবেশ তৈরির এমনও উদ্দেশ্য হতে পারে, যাতে বাংলাদেশের হিন্দুদেরকে রক্ষার অজুহাত সামনে এনে শিবসেনা ও হিন্দুত্ববাদি বিজেপির সাহায্য চেয়ে আগ্রাসী সেনা বাংলাদেশে ঢুকাতে পারে।

মাওলানা নিজামপুরী বলেন, দেশের অখণ্ডতা ও শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার বৃহৎ স্বার্থে ইসকন’সহ শিবসেনার দেশীয় এজেন্টদের বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। পাশাপাশি দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব এবং ধর্মীয় সম্প্রীতি রক্ষার জন্য অনতিবিলম্বে ৯০% মুসলিম অধ্যুষিত দেশে ইসকানের সকল কার্যক্রমের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হোক। এছাড়াও চট্টগ্রামের ১০ স্কু্ল কর্তৃপক্ষকে বিচারের মুখোমুখি করারও দাবি জানান তিনি।

এই সংবাদটি 1,822 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com