শুক্রবার, ১৯ জুলা ২০১৯ ১২:০৭ ঘণ্টা

আখলাক মানুষের মজ্জাগত বিষয়

Share Button

আখলাক মানুষের মজ্জাগত বিষয়

হাফিজ মাওলানা সৈয়দ সুহাইল আহমদ:
ইসলামে আক্বিদা বিশ্বাস ও ইবাদত মালার পর তৃতীয় স্থান হচ্ছে আখলাক ও নৈতিকতার। অর্থাৎ ব্যক্তি তার পিতামাতা পরিবার পরিজন, আত্নীয় স্বজন, বন্ধু বান্ধব, পাড়া প্রতিবেশী, দেশবাসী, বিশ্বের সকল মুসলিম তথা গোটা মানবজাতির সাথে এমন ভাল আচরণ করবে যার ভিত্তিতে তাকে একজন সুশিল ও চরিত্রবান লোক বলে আখ্যায়িত করা যায়।

অভিধান প্রণেতাগণ লিখেছেন أخلاقআখলাক শব্দটি خلقখুলুক এর বহুবচন অর্থ মানুষের স্বভাব, চরিত্র ও শিষ্টতা।
আল্লামা কুরতুবী রহঃ বলেন আখলাক মানুষের সেই স্বভাব ও মজ্জাগত বিষয়কে বলা হয় যা মানব জাতির প্রতিটি ব্যক্তির মাঝে বিদ্যমান, কারও মধ্যে কম কারও মধ্যে বেশি । ভাল গুণের প্রাধান্য থাকলে তো ঠিকই আছে আর যদি প্রাধান্য থাকে মন্দ গুণের তাহলে চেষ্টা করে যেতে হবে যাতে তা উত্তম গুণে পরিবর্তীত হয়ে যায়। কারও উত্তম গুণাবলী দূর্বল হলে তার উচিৎ চরিত্রবানদের সাথে উঠাবসা করা, যাতে সে গুণে শক্তি সঞ্চয় হয়ে। (ফাতহুল বারী খন্ড ১০ পৃষ্ঠা ৪৫৯)।

সমাজকে ভাল করতে হলে ভাল আচার ব্যবহারের তালিম দেওয়া অপরিহার্য
প্রত্যেক যুগেই নবী রাসূল চরিত্র ভাল করার জন্যে ও মানুষকে আহবান করেছেন।সর্বশেষ নবী হযরত মুহাম্মদ সা: তার অবির্ভাবের অন্যতম মুখ্য উদ্দেশ্য ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন إنما بعثت لاتمم مكارم الأخلاق আমি ত প্রেরিত হয়েছি উত্তম চরিত্রের পূর্ণতা বিধানের জন্য (কানযুল উম্মাল খন্ড ২পৃষ্ঠা ৫)।মহান আল্লাহ তাকে সারা বিশ্বের চরিত্র শিক্ষাদাতাদের উপর বিশেষভাবে বৈশিষ্ট্যমন্ডিত করেছিলেন। এর প্রত্যয়নে এরশাদ হচ্ছে وانك لعلي خلق عظيم আপনি অবশ্যই উত্তম চরিত্রের অধিকারী।
হযরতে আনাস রা:থেকে বর্ণিত জনৈক (খায়বারের অধিবাসী) ইয়াহূদী নারী নবী করীম সা:এর নিকট বিষ মিশ্রিত ভুনা বকরীর বাচ্চা আহারের জন্য নিয়ে আসে। (তারপর চলে যায়, এদিকে হুজুর সা:কে আল্লাহর তরফ থেকে ওহীর মাধ্যমে সতর্ক করা হয়)অত:পর লোকেরা নবী করীম সা:এর নিকট মহিলা কে হাজির করল, হুজুর সা:মহিলা কে ঐ বিষ মিশ্রিত গোশত সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলেন, তুমি একাজ কেন করলে? সে বলল আপনাকে হত্যা করার জন্য। হুজুর সা:বললেন মহান আল্লাহ তোমাকে একাজে সফল হতে দিবেননা। সাহাবায়ে কেরাম রাসূল সা:কে বললেন আমরা কি মহিলা কে হত্যা করতে পারি? হুজুর সা:বললেন না।
উপলব্ধির বিষয় হল প্রাণনাশের চেষ্টা সত্তেও রাসূল সা:এই ইয়াহূদী মহিলা কে কোন শাস্তি না দিয়ে ক্ষমা করে দিয়েছেন। কতইনা মহান চরিত্রের অধিকারী ছিলেন আমাদের নবী সা:।

আমরা সেই মহান নবীর উম্মত হওয়া সত্তেও অনেকের চরিত্রের বেহাল দশা। মন্দ স্বভাবের কারণে আজ সমাজে একজন আরেকজনের জান মালের, ইজ্জত আব্রুর ক্ষতি করছে, এদিকে কোন তোয়াক্কাই করছেনা।
অতচ শরীয়তে চরিত্রের ব্যাপারে অনেক সতর্ক করা হয়েছে।
হুজুর সা:মন্দ চরিত্রের ব্যাপারে বলেন وان ابغضكم الي وابعدكم مني فى الاخرةمساويكم اخلاقا(মুসনাদে আহমাদ) তোমাদের মধ্যে সেই ব্যক্তি আমার নিকট সবচেয়ে অপছন্দনীয় এবং আখেরাতে আমার নিকট হতে থাকবে সবচেয়ে দূরবর্তী যে অসৎ চরিত্রের অধিকারী। আল্লাহ পাক যেন আমাদেরকে উত্তম চরিত্রের অধিকারী হওয়ার তাওফিক দান করেন। আমীন।
লেখক:
উস্তাদ সৈয়দপুর দারুল হাদিস মাদ্রাসা।

এই সংবাদটি 1,042 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com