রবিবার, ২১ জুলা ২০১৯ ০৬:০৭ ঘণ্টা

‘ইহরামের কাপড়’ পড়ে শাহজালালের মাজারে ওরা কারা?

Share Button

‘ইহরামের কাপড়’ পড়ে শাহজালালের মাজারে ওরা কারা?

সিলেট রিপোর্ট:
সিলেটে মহান দরবেশ হযরত শাহজালাল (র) এর মাজারে উরসে যোগদানকারী কতিপয় লোক ‘ইহরামের কাপড়’সদৃশ সাদাকাপড় পরে মাজারে আসার খবর পাওয়া গেছে। (২০ জুলাই) নগরীতে এমন সারিবদ্ধ কাফেলার আগমন দেখে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। পবিত্র হজ্ব মৌসুমে হাজীদের এহরাম পড়ে মক্কা-মদীনার পথে রওয়ানা হচ্ছেন এমন সময় বিশেষ এই পোষাকটি পড়ে সিলেটে নতুন আরেক বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে, এতে ধর্মপ্রিয় মানুষ গভীর ভাবে মর্মাহত হয়েছেন।
এনিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এনিয়ে গতকাল থেকে ঝড় বইছে। এব্যাপারে জিন্দাকাজারের এক ব্যবসায়ী সিলেট রিপোর্টকে জানান,
যখন মানুষ হজ করতে মক্কা-মদিনা যাচ্ছে ইহরামের কাপড় পরে তখন কিছু লোক ইহরামের কাপড়ের মতো কাপড় পরে সিলেট শাহজাহালালের মাজারে আসছে উরস করতে, সত্যিই ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার নামান্তর।’

এব্যাপারে
Abul Kalam Azad তার ফেসবুক আইডিতে লিখেছেন,

আসতাগফিরুল্লাহ! সিলেটে কী হচ্ছে এসব? মানুষ হজ করতে মক্কা-মদিনা যাচ্ছে ইহরামের কাপড় পরে; আর এই লোকগুলো ইহরামের কাপড়ের মতো কাপড় পরে সিলেট শাহজাহালালের মাজারে আসছে উরস করতে। নাআজুবিল্লাহি মিন জালিক।

সিলেটবাসীর কি কিছুই করার নাই? নাকি যুগের পর যুগ তারা এসব করেই যাবে?

আমার তো মনে হয় সিলেটের শীর্ষ আলিমগণ রাজনীতিবিদ, প্রশাসন, শহরের গণ্যমান্য মুরব্বিদের নিয়ে বসলে এটার একটা স্থায়ী সমাধান সম্ভব।

কিন্তু কেন কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয় না? কোথায় তাদের খুঁটির জোর? কী তাদের অদৃশ্য শক্তি? ইমানের শক্তি থেকে তাদের শক্তি কি বেশি হয়ে গেল? ইম্পসিবল।

প্লিজ সিলেটবাসী, দয়া করে আপনারা সচেতন হোন, প্রতিবাদ করুন। প্রতিরোধ করুন। বাস্তবধর্মী উদ্যোগ নিন। হাশরের মাঠে কিন্তু এই বলে পার পাবেন না যে, এখানে সিলেটের জনগণ অংশ নেয়নি। আপনার দরজার সামনে প্রকাশ্যে শিরকি কাজ হচ্ছে, মদ-গাঁজা সেবন হচ্ছে, নারীরা অশ্লীল আচরণ করছে, গানবাজনা হচ্ছে; আর আপনি নাকে নকল সরিষার তেল (আসল তেল নাকি পাওয়া যায় না) দিয়ে ঘুমাবেন, তা তো হয় না। আর আয়োজক তো অবশ্যই সিলেটের লোকজন। সরকার, প্রশাসন, রাজনৈতিক বিভিন্ন দলের লোকজনও জড়িত থাকে বলে শোনা যায়। কিন্তু আল্লাহর শক্তির সামনে ওই শক্তি কিছুই না।

একজন সিপাহসালার দাঁড়িয়ে গেলে খড়কোটোর ন্যায় ওরা ভেসে যাবে। জিহাদের ডাক দিন। ইনশাআল্লাহ কয়েক হাজার মুজাহিদ প্রস্তুত হতে মাত্র কয়েক ঘণ্টার প্রয়োজন হবে। ইনশাআল্লাহ। ভরসা রাখতে হবে শুধু আল্লাহ ‍উপর। বিজয় অবশ্যম্ভাবী।’

HM ShamsUddin লিখেছেন,
যে নমুনায় তারা উরুসে আগমন করছে বেশি দিন বাকি নয় হয়ত এ সকল ভন্ডরা তাদের গান্দা উরুস কে হজ্জের সাতে তুলনা করতে পারে আল্লাহ হেফাজত করুন আর সিলেট বাসি তওহিদীজনতাকে বাতিলের বিরোদ্বে মোকাবিলার তওফিক দিন।

এদিকে,ইমরান আহমদ জীবন বলেন, মাজারের লোকেরা তো লালশালু কাপড় পরিধান করে,তবে সিলেটে ‘ইহরামের কাপড় পড়ে আসলো ওরা কারা? তিনি এব্যাপারে প্রশাসনের দৃষ্টি আর্কষণ করে বলেন, তাদের ব্যাপারে ধর্মীয় বিধান অনুয়ায়ী ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। মাদানী কাফেলা বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী ও অনুরুপ ভাবে তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, এসব ভন্ড মাজার পূজারীরা পবিত্র হজ্বের বিশেষ এই পোষাক ব্যবহার করে মানুষকে বিভ্রান্ত করার পায়তারা করছে।

নোট: ছবি-সংগৃহীত।
সিলেট রিপোর্ট/২১-০৭/২০১৯,সু-ফেব।

এই সংবাদটি 6,385 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com