বৃহস্পতিবার, ০১ আগ ২০১৯ ০৯:০৮ ঘণ্টা

বাংলাদেশ এতো নির্লজ্জ কেন?

Share Button

বাংলাদেশ এতো নির্লজ্জ কেন?

শাহিদ হাতিমী :

মিনহা রাফিদা খানম। কুড়ি ছুঁইছুঁই একটি গোলাপ। ভোরের স্নিগ্ধ শিশিরম একটি অবয়ব। ঐতিহ্যবাহী পরিবারের একটি সম্ভাবনাময় চেহারা। ঝরঝরে ফুটফুটে একটি মেয়ে। ঝকঝকে চকচকে যার ইচ্ছা। শুভ্র মননের সচ্ছ বুননের একজন শিক্ষার্থী। নির্মল আকাশের মতো যার মনোরাজ্য। দাগহীন বোঝাহীন যার চারিপাশ। বোধবান থেকে সে শোনে আসছে মানুষ সৃষ্টির সেরা। বই পাঠে যে জেনে আসছে মানুষ সামাজিক জীব। মিনহা কি জানতো এই সময়ের মানুষগুলো সেরা থেকে নীচে ইবলিশে উপনীত? সে কি ভাবতো পেরেছিল সামাজিক জীবেরা এখন অসামাজিকে মত্ত? সাদা কাগজের কালো হরফে জ্ঞান আহরণে নিবদ্ধ থাকাই যার ব্যস্থতা, কেন আজ তার চোখমুখ এসিডদগ্ধ? শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আঙ্গিনায়, পড়ার টেবিলে কিংবা বাবা মায়ের চক্ষু শিতলে যার ওঠাবসা করার কথা, সে কেন আজ হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে?

খান্দানী পরিবারের পর্দানশীন মিনহারা তো আর বজ্জাত মিন্নীদের মতো বহুরূপী নয়! তবে কেন এমন হল? আড়াইলক্ষ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে অর্জিত আমার বাংলাদেশ ইদানিং কেনো এতো নির্লজ্জ? কোমলমতি মেয়েরা তথা মিনহারা যদি জানতো কলেজে বা মাদরাসায় যাত্রাপথে এসিড সন্ত্রাসের স্বীকার হতে হবে, তাহলে কি তারা কখনো পড়ালেখার জন্য শিক্ষালয়ে যেতো? আমাকে যদি কেউ প্রশ্ন করতো তোমার কাছে বাঙালি সমাজের সবচেয়ে সুন্দর দৃশ্য কোনটি? অামি অবলিলায় বলে দিতাম গ্রামের মেঠোপথে হেঁটে যাওয়া ছাত্রছাত্রীর কাঁধে ব্যাগ ঝুলানোর বিমুগ্ধ দৃশ্য!

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এসিডে ঝলসে যাওয়া মিনহাকে দেখে এসে মাসিক মদীনা সম্পাদক ড. আহমদ বদরুদ্দীন খান লিখেন— “মাদরাসা থেকে ফেরার পথে আমাদের বর্তমান নষ্ট সমাজের সোনার ছেলে নামের কথিত দুই বখাটে কুলাঙ্গার মোটরসাইকেলে করে এসে আপাদ মস্তক বোরখাবৃত আমার বোন মিনহাকে এসিড নিক্ষেপে তার মুখমণ্ডল ঝলসে দিয়েছে। মিনহাকে আজ হাসপাতালের বেডে অত্যন্ত বিষন্ন ও নির্জীব শুয়ে থাকতে দেখে চোখের পানি ধরে রাখতে পারলাম না। তার শীয়রের পাশে বেশকিছুক্ষণ বসে থেকে দোয়া করলাম এবং দেখলাম, এই নষ্ট সমাজের প্রতি একরাশ ঘৃনা বুকে নিয়ে নির্জীব অবস্থায় হাসপাতালের বেডে শুয়ে কাতরাচ্ছে আমার বোন মিনহা।” মিনহা’র পিতা সালাউদ্দিন খাঁন মিডিয়াকর্মীদের জানান, জানামতে তার পরিবারেরর লোকজনের সাথে এবং তার মেয়ের সাথে কারো কোন শক্রতা নেই। পাঁচবাগ সিনিয়র ফাজিল মাদরাসার পক্ষ থেকে বিষয়টি থানার ওসিকে অবহিত করা হয়েছে। এরপরই তিনি তাঁর ফুলের মতো মেয়ে মিনহার ওপর এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা যারা সংগঠিত করেছে, সেই নরপশুগুলোর বিচার চেয়েছেন।

গফারগাওয়ে মাদরাসা ছাত্রীর ওপর এসিড নিক্ষেপকারী সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবীতে সিলেটে মাদানী কাফেলা তাৎক্ষণিক এক বিক্ষোভ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে। মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যক্ষ হাফিজ মাওলানা আব্দুর রহমান সিদ্দিকী বলেন- ভাষা সৈনিক মাওলানা মহিউদ্দিন খানের পরিবারের কোনো মেয়ের ওপর এসিড নিক্ষেপ মানে রুপসী বাংলাদেশের গাঁয়ে থুতু নিক্ষেপ করার নামান্তর! এমন গর্হিত কাজ যেসব বখাটেরা করেছে তারা জারজ! তারা সৌহার্দ্যপূর্ণ বাংলাদেশের শত্রু। এরা কোমলমতি মিনহাকে ঝলসায়নি বরং এরা বাংলাদেশের কলিজায় আগুন জ্বালিয়েছে! তাদেরকে কঠিন শাস্তি দিতে হবে। কিন্তু কথা হলো, শাস্তিটা দেবো কে? আদৌ কি মিনহারা বিচার পাবে? আইনের কোনোপ্রকার ফাকফোকরে অপরাধীরা পার পেয়ে যাবে নাতো!?

এই সংবাদটি 1,567 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com