মঙ্গলবার, ০৬ আগ ২০১৯ ০৮:০৮ ঘণ্টা

নীরবতা ভেঙে জম্মু ও কাশ্মীর নিয়ে টুইট রাহুল গান্ধির

Share Button

নীরবতা ভেঙে জম্মু ও কাশ্মীর নিয়ে টুইট রাহুল গান্ধির

ডেস্ক রিপোর্ট: সোমবার জম্মু ও কাশ্মীরের ‘স্পেশাল স্ট্যাটাস’-এর অবসান ঘটিয়ে তাকে দু’টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এই প্রসঙ্গে অবশেষে রাহুল গান্ধী নীরবতা ভাঙলেন। তিনি টুইট করে জানালেন, এই পদক্ষেপের ফলে জাতীয় নিরাপত্তায় তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাব পড়বে।

রাহুল তার পোস্টে লেখেন, ‘জাতীয় সংহতির কোনও উন্নতি হবে না এভাবে জম্মু ও কাশ্মীরকে বিভক্ত করে, নির্বাচিত প্রতিনিধিদের বন্দি করে এবং সংবিধানকে লঙ্ঘন করে। এই দেশ মানুষের জন্য, জমির প্লটের জন্য নয়। ক্ষমতার এই অপব্যবহারের ফলে আমাদের জাতীয় নিরাপত্তায় তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাব পড়বে।’

মঙ্গলবারই এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে দলের মতানৈক্য প্রসঙ্গে সোনিয়া গান্ধী ও রাহুল গান্ধীর সঙ্গে কংগ্রেস সাংসদদের বৈঠক হয়। আর সেখানেই ঠিক হয় এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কী অবস্থান নেবে দল। তারপরই রাহুল এই টুইট। সোমবার রাজ্যসভায় অমিত শাহর ঘোষণার পরে কংগ্রেস নেতারা কার্যতই সঠিক প্রতিবাদ করতে পারেননি। রাহুল কিন্তু নীরবই ছিলেন। মঙ্গলবারই নীরবতা ভাঙলেন তিনি।

সোমবার দিনভর কংগ্রেসের আচরণে দ্বিচারিতাই দেখা গিয়েছে এই বিল প্রসঙ্গে। রাজ্যসভায় আক্রমণাত্মক ভাবে এই বিলের প্রতিবাদ করে তাকে ‘গণতন্ত্রের হত্যা’ বলে অভিযোগ তুলেছে কংগ্রেস। অথচ বাইরে জনার্দন দ্বিবেদী এবং দীপেন্দর হুডার মতো নেতারা সমর্থন জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্তকে! তিনি এই পরিস্থিতিতে কোনও আপৎকালীন বৈঠক ডাকবেন কিনা, সেপ্রসঙ্গে রাহুল বলেন, তিনি কোনও বৈঠক ডাকতে পারেন না। কেননা তিনি আর কংগ্রেস সভাপতি নন। গত মে মাসে নির্বাচনের ফলাফলে কংগ্রেস ধরাশায়ী হওয়ার পরেই ব্যর্থতার সমস্ত দায় নিয়ে সভাপতির পদ ছাড়েন রাহুল। সূত্র: এনডিটিভি।

এই সংবাদটি 1,100 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com